কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান বা শবে বরাত-এর আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-১০

সংখ্যা: ২০৪তম সংখ্যা | বিভাগ:

সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন-উনার জন্যে এবং অসংখ্য দুরূদ ও সালাম আল্লাহ পাক-উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার প্রতি। আল্লাহ পাক-উনার অশেষ রহমতে “ফতওয়া ও গবেষণা বিভাগ মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ”-এর তরফ থেকে বহুল প্রচারিত, হক্বের অতন্দ্র প্রহরী, বাতিলের আতঙ্ক ও আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদায় বিশ্বাসী এবং হানাফী মাযহাব-এর অনুসরণে প্রকাশিত একমাত্র দলীলভিত্তিক যামানার তাজদীদী মুখপত্র “মাসিক আল বাইয়্যিনাত” পত্রিকায় যথাক্রমে- ১. টুপির ফতওয়া (২য় সংখ্যা) ২. অঙ্গুলী চুম্বনের বিধান (৩য় সংখ্যা) ৩. নিয়ত করে মাজার শরীফ যিয়ারত করা (৪র্থ সংখ্যা) ৪. ছবি ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় হারাম হওয়ার ফতওয়া (৫ম-৭ম সংখ্যা) ৫. জুমুয়ার নামায ফরযে আইন ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ফতওয়া (৮ম-১০ম সংখ্যা) ৬. মহিলাদের মসজিদে গিয়ে জামায়াতে নামায পড়া মাকরূহ্ তাহরীমী সম্পর্কে ফতওয়া (১১তম সংখ্যা) ৭. ক্বদমবুছী ও তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১২তম সংখ্যা) ৮. তাহাজ্জুদ নামায জামায়াতে পড়া মাকরূহ্ তাহ্রীমী ও বিদয়াতে সাইয়্যিয়াহ এবং তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৩তম সংখ্যা) ৯. ফরয নামাযের পর মুনাজাত ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৪-২০তম সংখ্যা) ১০. ইন্জেকশন নেয়া রোযা ভঙ্গের কারণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (২১-২২তম সংখ্যা) ১১. তারাবীহ্-এর নামাযে বা অন্যান্য সময় কুরআন শরীফ খতম করে উজরত বা পারিশ্রমিক গ্রহণ করা জায়িয ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (২৩-২৪তম সংখ্যা) ১২. তারাবীহ্ নামায বিশ রাকায়াত ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (২৫-২৯তম সংখ্যা) ১৩. দাড়ী ও গোঁফের শরয়ী আহ্কাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৩০-৩৪তম সংখ্যা) ১৪. প্রচলিত তাবলীগ জামায়াত ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৩৫-৪৬তম সংখ্যা) ১৫. আযান ও ছানী আযান মসজিদের ভিতরে দেয়ার আহ্কাম এবং তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৪৭-৫০তম সংখ্যা) ১৬. দোয়াল্লّীন-যোয়াল্লীন-এর শরয়ী ফায়সালা এবং তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে  ফতওয়া (৫১-৫২তম সংখ্যা) ১৭. খাছ সুন্নতী টুপি ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে  ফতওয়া (৫৩-৫৯তম সংখ্যা) ১৮. নূরে মুহম্মদী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও তাঁর প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে  ফতওয়া (৬০-৮২তম সংখ্যা)

১৯. ইমামাহ্ বা পাগড়ী মুবারকের আহ্কাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কিত ফতওয়া (৮৩-৯৬তম সংখ্যা) ২০. শরীয়তের দৃষ্টিতে আখিরী যোহ্র বা ইহ্তিয়াতুয্ যোহ্রের আহ্কাম এবং তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৯৭-১০০তম সংখ্যা)  ২১. জানাযা নামাযের পর হাত তুলে সম্মিলিতভাবে মুনাজাত করার শরয়ী ফায়সালা ও তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১০১-১১১তম সংখ্যা) এবং ২২. হিজাব বা পর্দা ফরযে আইন হওয়ার প্রমাণ ও তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১১২-১৩১তম সংখ্যা) ২৩. খাছ সুন্নতী ক্বমীছ বা কোর্তা এবং তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৪০তম সংখ্যা) ২৪. হানাফী মাযহাব মতে ফজর নামাযে কুনূত বা কুনূতে নাযেলা পাঠ করা নাজায়িয ও নামায ফাসিদ হওয়ার কারণ এবং তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৩২-১৫২তম সংখ্যা) ২৫. ইসলামের দৃষ্টিতে বিশ্বকাপ ফুটবল বা খেলাধুলা’র শরয়ী আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ফতওয়া (১৫৫তম সংখ্যা) ২৬. হানাফী মাযহাব মতে পুরুষের জন্য লাল রংয়ের পোশাক তথা রুমাল, পাগড়ী, কোর্তা, লুঙ্গি, চাদর ইত্যাদি পরিধান বা ব্যবহার করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৫৩-১৬০তম সংখ্যা)   ২৭.  ইসলামের  নামে গণতন্ত্র ও নির্বাচন করা, পদপ্রার্থী হওয়া, ভোট চাওয়া ও দেয়া হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৬১-১৭৫তম সংখ্যা), ২৮. কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৬৮-চলমান), ২৯. জুমুয়া ও ঈদাইনের খুৎবা আরবী ভাষায় দেয়া ওয়াজিব। আরবী ব্যতীত অন্য কোন ভাষায় খুৎবা দেয়া মাকরূহ তাহরীমী ও বিদয়াতে সাইয়্যিয়াহ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৯২-১৯৩তম সংখ্যা) পেশ করার পর-

৩০তম ফতওয়া হিসেবে

১৯৫তম সংখ্যা থেকে কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান শবে বরাত-এর আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া পেশ করে আসতে পারায় মহান আল্লাহ পাক-উনার দরবার শরীফ-এ শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান বা শবে বরাত তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া দেয়ার কারণ

সুন্নতের পথিকৃত, হক্বের অতন্দ্র প্রহরী, দ্বীন ইসলামের নির্ভীক সৈনিক, সারা জাহান থেকে কুফর, শিরক ও বিদয়াতের মুলোৎপাটনকারী, বাতিলের আতঙ্ক এবং আহ্লে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদায় বিশ্বাসী একমাত্র দলীলভিত্তিক তাজদীদী মুখপত্র- “মাসিক আল বাইয়্যিনাত” পত্রিকায় এ যাবৎ যত লেখা বা ফতওয়াই প্রকাশ বা পত্রস্থ হয়েছে এবং ইনশাআল্লাহ হবে তার প্রতিটিরই উদ্দেশ্য বা মাকছূদ এক ও অভিন্ন। অর্থাৎ “মাসিক আল বাইয়্যিনাত”-এ এমন সব লেখাই পত্রস্থ হয় যা মানুষের আক্বীদা ও আমলসমূহ পরিশুদ্ধ ও হিফাযতকরণে বিশেষ সহায়ক।

উলামায়ে ‘ছূ’রা ‘শবে বরাত’ সম্পর্কে সমাজে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। উলামায়ে ‘ছূ’ বা ধর্মব্যবসায়ীরা বলে ও প্রচার করে থাকে যে, শবে বরাত কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এর কোথাও  নেই, শবে বরাত পালন করা বিদয়াত, নাজায়িয ও হারাম। নাঊযুবিল্লাহ!

তাদের এ বক্তব্যের কারণে তারা নিজেরা যেরূপ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, তদ্রুপ তাদের উক্ত কুফরীমূলক বক্তব্য ও বদ আমলের কারণে সাধারণ মুসলমানগণ ই’তিক্বাদী বা আক্বীদাগত ও আ’মালী বা আমলগত উভয় দিক থেকেই বিরাট ক্ষতির সম্মুক্ষীন হচ্ছে। কেননা হাদীছ শরীফে শবে বরাতের অশেষ ফযীলত বর্ণিত হয়েছে। যেমন এ প্রসঙ্গে হাদীছ শরীফে বর্ণিত রয়েছে-

ان الدعاء يستجاب فى خمس ليال اول ليلة من رجب وليلة النصف من شعبان وليلة القدر المباركة وليلتا العيدين

অর্থ: “নিশ্চয়ই পাঁচ রাত্রিতে দোয়া নিশ্চিতভাবে কবুল হয়ে থাকে। (১) রজব মাসের প্রথম রাতে, (২) শবে বরাতের রাতে, (৩) ক্বদরের রাতে, (৪) ঈদুল ফিতরের রাতে, (৫) ঈদুল আযহার রাতে।”

হাদীছ শরীফে আরো ইরশাদ হয়েছে-

عن على رضى الله تعالى عنه قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم اذا كانت ليلة النصف من شعبان فقوموا ليلها وصوموا يومها فان الله تعالى ينزل فيها لغروب الشمس الى السماء الدنيا فيقول الامن مستغفر فاغفرله الا مسترزق فارزقه الا مبتلى فاعافيه الا كذا الا كذا حتى يطلع الفجر

অর্থ: “হযরত আলী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আল্লাহ পাক-উনার রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন্ নাবিয়্যীন, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, যখন শা’বানের পনের তারিখ রাত্রি উপস্থিত হবে তখন তোমরা উক্ত রাত্রিতে নামায আদায় করবে এবং দিনে রোযা রাখবে। কেননা নিশ্চয়ই আল্লাহ পাক উক্ত রাত্রিতে সূর্যাস্তের সময় পৃথিবীর আকাশে আসেন অর্থাৎ রহমতে খাছ নাযিল করেন। অতঃপর ঘোষণা করেন, “কোন ক্ষমা প্র্রার্থনাকারী আছ কি? আমি তাকে ক্ষমা করে দিব।” “কোন রিযিক প্রার্থনাকারী আছ কি? আমি তাকে রিযিক দান করব।” “কোন মুছিবতগ্রস্থ ব্যক্তি আছ কি? আমি তার মুছিবত দূর করে দিব।” এভাবে ফজর পর্যন্ত ঘোষণা করতে থাকেন।” (ইবনে মাজাহ্, মিশকাত)

এ ধরনের আরো অসংখ্য হাদীছ শরীফ রয়েছে, যাতে শবে বরাত-এর ফযীলতের কথা বলা হয়েছে অর্থাৎ যারা শবে বরাত পালন করবে তারা মহান আল্লাহ পাক ও উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনাদের উভয়েরই খাছ রেযামন্দি বা সন্তুষ্টি লাভ করবে।

অতএব, নিঃসন্দেহে বলা যায় যে, উলামায়ে “ছূ”দের উক্ত বক্তব্য ও বদ আমলের কারণে সাধারণ মুসলমানগণ ‘শবে বরাত’ পালন থেকে বিরত থেকে অশেষ ফযীলত থেকে মাহরূম হবে। যা আমলের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে ক্ষতিকর।

কাজেই যারা এ ধরনের কুফরী আক্বীদায় বিশ্বাসী ও কুফরী বক্তব্য প্রদানকারী, তারা ও হক্ব তালাশী সমঝদার মুসলমানগণ ঈমান ও আমলকে যেন হিফাযত করতে পারে। অর্থাৎ শবে বরাতসহ সকল বিষয়ে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদার ন্যায় আক্বীদা পোষণ করতে পারে এবং কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস মোতাবেক আমল করে আল্লাহ পাক-উনার রেজামন্দী হাছিল করতে পারে। সে জন্যই কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে ‘লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান বা শবে বরাত’-এর আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কিত ফতওয়াটি প্রকাশ করা হলো।

 

অসংখ্য ছহীহ হাদীছ শরীফ দ্বারাও শবে বরাত প্রমাণিত

(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

যেমন এ প্রসঙ্গে বিশ্ব বিখ্যাত হাদীছ গ্রন্থ হযরত ইমাম বায়হাক্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ‘শু‘য়াবুল ঈমান’ ৩য় খ-ের ৩৮৬ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(১২২)

اخبرنا ابو عبد الله الحافظ ومحمد بن موسى قالا نا ابو العباس الأصم نا محمد بن على الوراق نا سعيد بن سليمان نا ليث بن سعد عن عقيل عن الزهرى عن عثمان عن محمد بن المغيرة بن الأخنس قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم تقطع الاجال من شعبان الى شعبان قال ان الرجل لينكح ويولد له وقد خرج اسمه فى الموتى.

اخبرنا عبد الخالق بن على المؤذن انا ابو جعفر محمد بن بسطام القرشى بقرية وانه نا ابو جعفر احمد بن محمد بن جابر حدثنى احمد بن عبد الكريم نا خالد الحميصى عن عثمان بن سعيد بن كثير عن محمد بن المهاجر عن الحكم بن عتيبة عن ابراهيم قال قال على رضى الله تعالى عنه رأيت رسول الله صلى الله عليه وسلم ليلة النصف من شعبان قام فصلى اربع عشرة ركعة ثم جلس بعد الفراغ فقرأ بأم القران اربع عشرة مرة وقل هو الله احد اربع عشرة مرة وقل اعوذ برب الفلق اربع عشرة مرة وقل اعوذ برب الناس اربع عشرة مرة والاية الكرسى مرة (لقد جاءكم رسول من انفسكم) الاية فلما فرغ من صلاته سألته عما رأيت من صنعه قال من صنع مثل الذى رأيت كان له عشرين حجة مبرورة وصيام عشرين سنة مقبولة فان اصبح فى ذلك اليوم صائما كان له كصيام ستين سنة ماضية وسنة مستقبلة

অর্থ: হযরত ইমাম বায়হাক্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, আমাদের কাছে বর্ণনা করেন হযরত আবু আব্দুল্লাহ আল হাফিয রহমতুল্লাহি আলাইহি এবং হযরত মুহম্মদ ইবনে মুসা রহমতুল্লাহি আলাইহি। উনারা উভয়েই … হযরত মুহম্মদ ইবনে মুগীরাহ ইবনে আখনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার সূত্রে বর্ণনা করেন যে, এক শা’বান তথা শবে বরাত থেকে পরবর্তী শা’বান তথা শবে বরাতের আগমন পর্যন্ত মৃতদের তালিকা প্রস্তুত করা হয়। হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আরো বলেন, ওই বৎসর যে ব্যক্তি বিবাহ করবে তার থেকে সন্তান জন্ম লাভ করবে এবং ওই বৎসর কখন মৃত্যুবরণ করবে, তার তালিকাও প্রস্তুত করা হয় ওই শবে বরাতে।

এ প্রসঙ্গে আরো বর্ণিত আছে যেটা আমাদের কাছে হযরত আব্দুল খালিক্ব ইবনে আলী মুয়াযিন রহমতুল্লাহি আলাইহি…. হযরত ইব্রাহিম রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সূত্রে বর্ণনা করেন। তিনি হযরত আলী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণনা করেন। হযরত আলী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন, অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে আমি হযরত নবী পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে দেখলাম তিনি উঠলেন এবং ১৪ রাকা‘আত (শবে বরাতের) নামায পড়লেন অতঃপর নামায শেষ করে বসলেন। এবং উম্মুল কুরআন তথা সূরা ফাতিহা ১৪ বার, সূরা ইখলাছ ১৪ বার, সূরা ফালাক্ব ১৪ বার, সূরা নাস ১৪ বার এবং আয়াতুল কুরসী একবার (লাক্বাদ জায়াকুম রসূলুম মিন আনফুসিকুম) আয়াত শরীফ পাঠ করলেন। অতঃপর যখন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম স্বয়ং নামায শেষ করলেন তখন আমি হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে ওই শবে বরাতে যা যা করতে দেখেছি সে সব বিষয় সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম। জবাবে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, আপনি আমাকে যা করতে দেখেছেন ওইসব কাজ কোনো ব্যক্তি পালন করলে তার জন্য বিশটি মাবরুর তখা কবূল হজ্জের ছওয়াব দেয়া হবে এবং বিশ বৎসরের কবূলিয়াত রোযার ছওয়াব দেয়া হবে। এবং পরের দিন যদি সে রোযা রাখে তখন ওই শবে বরাতের রোযাদারকে সামনের তথা আগামী এক বৎসরের এবং পিছনের এক বৎসরের ছওয়াব দেয়া হবে। সুবহানাল্লাহ!

এ প্রসঙ্গে প্রখ্যাত ছাহাবী হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে হাদীছ শরীফ বর্ণিত আছে-

(১২৩-১২৭)

عن حضرت ابن عباس رضى الله تعالى عنهما قال تقضى الاقضية كلها ليلة النصف من شعبان وتسلم الى اربابها ليلة السابع والعشرين من شهر رمضان

অর্থ: হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমা উনার থেকে হাদীছ শরীফ বর্ণিত আছে যে, সমস্ত ফায়ছালাকৃত বিষয়সমূহের ফায়ছালা করা হয় অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে। আর ওই নির্ধারিত বিষয়সমূহকে জারি বা চালু করার জন্য তা পেশ করা হয় কার্যকারী ফেরেশতাদের হাতে রমাদ্বান মাসের ২৭ তারিখ শবে ক্বদরে।

তাফসীরে রুহুল মায়ানী, ১৩তম খ-ের ১১৩ পৃষ্ঠা, তাফসীরে খাযিন, বাগবী, দুররি মানছুর, তাবারী, ইত্যাদি তাফসীরসমূহ।

এ প্রসঙ্গে প্রখ্যাত ছাহাবী হযরত ইকরামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার নিকট থেকেও হাদীছ শরীফ বর্ণিত আছে-

(১২৮)

عن حضرت عكرمة رضى الله تعالى عنه انه قال فى الاية (اى ان الليلة المباركة هى ليلة البراءة) فى ليلة النصف من شعبان يبرم امر السنة وينسخ الاحياء من الاموات ويكتب الحاج فلا يزاد فيهم ولا ينقص منهم احد

অর্থ: হযরত ইকরামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। নিশ্চয়ই তিনি লাইলাতুম মুবারাকা তথা শবে বরাত দ্বারা ১৫ই শাবান তথা অর্ধ শা’বানের রাতকেই উল্লেখ করেছেন। আর এই অর্ধ শা’বানের রাতেই আগামী এক বৎসরের যাবতীয় বিষয়ের ফায়ছালা করা হয় এবং ফায়ছালা করা হয় জীবিত ও মৃতদের। এমনকি হাজীদেরও তালিকাও প্রস্তুত করা হয় ওই শবে বরাতে। আর শবে বরাতে যা ফায়ছালা করা হয় তার থেকে কোনো কমবেশি করা হয় না। অর্থাৎ বাড়ানো ও কমানো হয় না।

অনেকেই বলে থাকে পবিত্র কুরআন শরীফ অবতীর্ণ হয়েছে রমাদ্বান শরীফ-এর মাসে লাইলাতুল ক্বদরে।  এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক তিনি সূরা বাক্বারায় উল্লেখ করেন-

(১২৯)

شهر رمضان الذى انزل فيه القران

 

পবিত্র কুরআন শরীফ রমাদ্বান মাসে অবতীর্ণ করা হয়েছে।

আর সূরা আদ দুখানেও আল্লাহ পাক তিনি বলেন-

(১৩০)

انا انزلناه فى ليلة مباركة

নিশ্চয়ই আমি উহা তথা কুরআন শরীফ অবতীর্ণ করেছি মুবারকময় রজনীতে। এখানে লাইলাতুম মুবারাকা দ্বারা যদি শবে বরাতের রাতকে গণনা করা হয় তাহলে উভয় রাতের সমাধান কি?

উল্লেখ্য যে, এ ব্যাপারে অসংখ্য তাফসীর ও হাদীছ শরীফ-এর উদ্ধৃতির মাধ্যমে সমাধান দেয়া হয়েছে যে, লাইলাতুম মুবারাকা দ্বারা অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাতকেই বুঝানো হয়েছে। আর এই রাতে কুরআন শরীফ অবতীর্ণের কথা যে বলা হয়েছে তা হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক তিনি প্রথম যখন পবিত্র কুরআন শরীফ লওহে মাহফূযে অবতীর্ণ করেন সেই রাতটি ছিলো লাইলাতুম মুবারাকা তথা অর্ধ শাবানের রাত্রি অর্থাৎ শবে বরাতের রাত্রি। আর লওহে মাহফূয থেকে দুনিয়ার আকাশে একই সঙ্গে অবতীর্ণ করা হয়। সেখান থেকে হযরত জিবরাঈল আলাইহিস সালাম উনার মাধ্যমে সুদীর্ঘ তেইশ বৎসরে বিভিন্ন অবস্থার প্রেক্ষিতে খ- খ-ভাবে তা হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার উপর নাযিল করা হয়।

যেমন এ প্রসঙ্গে বিশ্ব বিখ্যাত তাফসীর তাফসীরে খাযিন-এর ৪র্থ খ-ের (সূরা ক্বদরের তাফসীরে) ২৯৫ পৃৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(১৩১-১৩৫)

انا انزلناه يعنى القران (فى ليلة القدر وذلك ان الله تعالى انزل القران العظيم جملة واحدة من اللوح المحفوظ الى السماء الدنيا ليلة القدر فوضعه فى بيت العزة ثم نزل به جبريل عليه السلام على النبى صلى الله عليه وسلم نجوما متفرقة فى مدة ثلاث وعشرين سنة فكان ينزل بحسب الوفائع والحاجة اليه.

অর্থ: নিশ্চয়ই আমি উহা তথা পবিত্র কুরআন শরীফ ক্বদরের রাত্রিতে অবতীর্ণ করেছি। এই বাণী মুবারক-এর দ্বারা ইহা বুঝানো হয়েছে যে, নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআনুল কারীম একই সঙ্গে লাওহে মাহফূয থেকে দুনিয়ার আকাশে অবতীর্ণ করেন লাইলাতুল ক্বদরে। অতঃপর ওই পবিত্র কুরআন শরীফ বাইতুল ইযযতে রাখা হয়। সেখান থেকে হযরত জিবরাঈল আলাইহিস সালাম উনার মাধ্যমে আস্তে আস্তে সুদীর্ঘ তেইশ বছরে বিভিন্ন অবস্থার প্রেক্ষিতে এবং বিভিন্ন প্রয়োজনে খ- খ-ভাবে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার উপর অবতীর্ণ করেন।

(সূরা আদ দুখান এর তাফসীরে তাফসীরে খাযিন ৪র্থ খন্ড ১১২ পৃষ্ঠা, তাফসীরে বাগবী ৪র্থ/১১২ পৃষ্ঠা, তাফসীরে রহুল মায়ানী, তাফসীরে রুহুল বয়ান, দুররুল মানছুর, ইত্যাদি তাফসীরে সমূহ)

তাছাড়াও সমাধানে আরো উল্লেখ আছে যে, লাইলাতুম মুবারাকা দ্বারা অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাতকে আর নির্ধারিত ভাগ্যসমূহ চালুকরণের রাতকে লাইলাতুল ক্বদর তথা শবে ক্বদরের রাতকে বুঝানো হয়েছে। যেমন এ প্রসঙ্গে বিশ্ব বিখ্যাত তাফসীর তাফসীরে রুহুল মায়ানী ১৫তম খ-ের ২২১ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(১৩৬)

والثانى اظهار تلك المقادير للملائكة عليهم السلام تكتب فى اللوح المحفوظ وذلك فى ليلة النصف من شعبان والثالث اثبات تلك المقادير فى نسخ وتسليمها الى اربابها من المدبرات

অর্থ: লাইলাতুল ক্বদরের অনেক অর্থ রয়েছে তন্মধ্যে  দ্বিতীয় একটি অর্থ হচ্ছে অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে যেসব বিষয়ের তালিকা লাওহে মাহফূযে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে সেসব ভাগ্য তালিকা ফেরেশ্তা আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের মাধ্যমে যে রাত্রিতে প্রকাশ তথা চালু করা হয় সেই রাতকেই লাইলাতুল ক্বদর তথা ভাগ্য নির্ধারণের রাত বা মহান মর্যাদাবান রাতও বলে।

তৃতীয়ত: অপর একটি অর্থ হচ্ছে নির্ধারিত ভাগ্যসমূহ যা তালিকাভুক্ত করা হয়েছে তা চালু করার জন্য কার্যকারী ফেরেশতাদের হাতে যে রাতে পেশ করা হয় সেই রাতকে লাইলাতুল ক্বদর বা শবে ক্বদর বলে।

এ প্রসঙ্গে ইমামুল মুহাক্বিক্বীন, তাজুল মুফাসসিরীন, ফখরুল উলামা হযরতুল আল্লামা ইমাম বাগবী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার বিশ্ব বিখ্যাত হাদীছ শরীফ-এর কিতাব শরহুস সুন্নাহ ২য় খ-ের ৫১২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(১৩৭)

اخبرنا ابو عثمان الضبى انا ابو محمد الجرحى، نا ابو العباس المحبوبى نا ابو عيسى نا احمد بن منيع حدثنا يزيد بن هارون انا الحجاج بن ارطاة عن يحيى بن ابى كثير عن عروة عن ام المؤمنين حضرت عائشة الصديقة عليها السلام قالت فقدت رسول الله صلى الله عليه وسلم ليلة فخرجت فاذا هو بالبقيع فقال: اكنت تخافين ان يحيف الله عليك رسوله؟ قلت يا رسول الله صلى الله عليه وسلم ظننت انك اتيت بعض نسائك فقال ان الله تبارك وتعالى ينزل ليلة النصف من شعبان الى السماء الدنيا فيغفر لاكثر من عدد شعر غنم كلب

অর্থ: হযরত ইমাম বাগবী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, আমাদের কাছে হাদীছ শরীফখানা বর্ণনা করেন, হযরত আবু উসমান আদ্বদ্ববীয়্যু। তিনি বলেন, আমাদের কাছে বর্ণনা করেন হযরত আবু মুহম্মদ আল জারহী। তিনি বলেন, আমাদের কাছে বর্ণনা করেন হযরত আবুল আব্বাস মাহবুবী রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি বলেন, আমাদের কাছে বর্ণনা করেন হযরত আবু ঈসা রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি বলেন, আমাদের কাছে বর্ণনা করেন হযরত আহমদ ইবনে মানীয় রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি বলেন আমাদের কাছে বর্ণনা করেন হযরত ইয়াযীদ ইবনে হারুন রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি বলেন আমাদের কাছে বর্ণনা করেন হযরত হাজ্জাজ ইবনে আরত্বহ রহমতুল্লাহি আলাইহি হযরত ইয়াহইয়া ইবনে আবী কাছীর রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে। তিনি আবার হযরত উরওয়া রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে, তিনি উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে। উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম তিনি বলেন, আমি এক রাত্রে হযরত নবী পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে আমার হুজরা শরীফ-এ না পেয়ে খোঁজার জন্য বের হলাম। অতঃপর হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে জান্নাতুল বাক্বী-এর মধ্যে দেখতে পেলাম। হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমাকে লক্ষ্য করে বললেন: হে উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম! আপনি কি আশঙ্কা করেছেন যে, মহান আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা আপনার আমানত খিয়ানত করেছেন? তখন উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম তিনি জবাবে বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! কখনই নয় বরং আমি মনে করেছিলাম আপনি হয়তো অন্য কোন উম্মুল মু’মিনীন আলাইহাস সালাম উনার হুজরা শরীফ-এ তাশরীফ নিয়েছেন। অতঃপর হযরত নবী পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উম্মুুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনাকে উদ্দেশ্য করে বললেন, নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন এবং কালব গোত্রের বকরীর পশমের সমপরিমাণের চেয়ে অধিক সংখ্যক লোককে ক্ষমা করে দেন। সুবহানাল্লাহ!

এ প্রসঙ্গে উক্ত বিশ্ববিখ্যাত শরহুস সুন্নাহ কিতাবের ২/৫১৩ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(১৩৮)

اخبرنا ابو على حسان بن سعد الـمنيعى … عن القاسم بن محمد عن ابيه عن امه عن جده عن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال ينزل الله جل ثناؤه ليلة النصف من شعبان الى السماء الدنيا فيغفر لكل نفس الا انسانا فى قلبه شحناء او مشركا بالله

অর্থ: হযরত ইমাম বাগবী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, আমাদের নিকট হযরত আবু আলী হাসসান ইবনে সা’দ আল মুনীয়ী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হযরত কাসিম ইবনে মুহম্মদ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সূত্রে হাদীছ শরীফ বর্ণনা করেন। তিনি উনার পিতা থেকে। উনার পিতা উনার মাতা থেকে, উনার মাতা উনার দাদা থেকে। উনার দাদা হযরত রসূলে পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার থেকে হাদীছ শরীফ বর্ণনা করেন। হযরত রসূলে পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন যে, মহান আল্লাহ পাক তিনি অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন। অতঃপর ওই শবে বরাতে সমস্ত লোকদেরকে ক্ষমা করে দেন। কিন্তু দু’প্রকারের ব্যক্তিদেরকে ক্ষমা করেন না। যাদের অন্তরে হিংসা রয়েছে তাদেরকে এবং যারা মুশরিক তাদেরকে।

উল্লেখ্য যে, অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতের রাতে ইবাদত বন্দেগী করার ব্যাপারে অসংখ্য বিশ্ববিখ্যাত তাফসীর গ্রন্থে এবং হাদীছ শরীফ-এর কিতাবেও তাক্বীদ রয়েছে এবং তৎপ্রসঙ্গে এটাও উল্লেখ আছে যে, শবে বরাতে মহান আল্লাহ পাক বান্দাদের যাবতীয় বিষয়ের ফায়ছালা ও অসংখ্য গুনাহগার ব্যক্তিদেরকে ক্ষমা করে থাকেন। মূলত যারা শয়তান, ইবলিসের দোসর, ইহুদী, নাছারা তারাই কুরআন শরীফ-এর আয়াত শরীফকে এবং হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার হাদীছ শরীফকে অমান্য ও অস্বীকার করে থাকে। অথচ মহান আল্লাহ পাক শবে বরাতে জাগ্রত ব্যক্তিদেরকে এবং ইবাদতকারীকে ক্ষমা করে নিষ্পাপ যিন্দীগী দান করেন। আর ইবলিস শয়তান মুসলমানদের প্রকাশ্য ও বড় শত্রু বিধায় সে চায় মুসলমানরা, মু’মীনেরা যেন ক্ষমা  না চায় এবং ক্ষমা না পায়, তারা গুনাহগার হয়ে থাকুক। এই কারণেই ইবলিস শয়তান ও তার অনুসারীরা ফতওয়া দিচ্ছে যে, শবে বরাতে তথা অর্ধ শা’বানের রাতে কোন ইবাদত বন্দেগী করার প্রয়োজন নেই। নাঊযুবিল্লাহ! অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাত বলতে কোন কিছুই নেই। এ কথা বলে মুসলমানদের মাঝে বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছে এবং হাদীছ শরীফকে অস্বীকার করার মাধ্যমেই কুফুরী আক্বীদাহ ঢুকাচ্ছে। কেননা আক্বাঈদের কিতাবে উল্লেখ আছে-

(১৩৯)

اهانة السنة كفر

 

অর্থাৎ সুন্নত তথা হাদীছ শরীফকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করা কুফরী। আর হাদীছ শরীফে রয়েছে-

(১৪০)

لو تركتم سنة نبيكم لضللتم

অর্থাৎ যদি তোমরা তোমাদের নবী পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার আদর্শ তথা সুন্নত পরিত্যাগ কর তাহলে তোমরা অবশ্যই পথভ্রষ্ট হবে।

কাজেই হাদীছ শরীফ-এর আলোকেই পরিষ্কার হয়ে গেল যে, যারা গোমরাহ বা পথ ভ্রষ্ট, তারা হাদীছ শরীফকে গ্রহণ করবেনা, পালন করবেনা তারা চায় সকল মানুষ তাদের মত পথ ভ্রষ্ট হয়ে যাক। সেজন্যই ইবলিস শয়তানের অনুসারী ইহুদী-নাছারারা তাদের কিছু গুপ্তচর মুসলমানদের মাঝে ছড়িয়ে ছিটিয়ে দিয়েছে এবং তারা নিজেদেরকে ইসলামের আদর্শ, হাদী, নায়িবে নবী, শাইখুল হাদীছ, শাইখুত তাফসীর, বড় বড় মুফতি ও মুহাদ্দিস, খতীব মাওলানা হিসাবে পরিচয় দিচ্ছে। অথচ তাদের কাজ হচ্ছে ফিরআউনের মত। তাদের আপাদমস্তক পর্যন্ত তাকালে তাদের কাছে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার কোনো সুন্নত তথা আদর্শ খুঁজে পাওয়া যায়না। বরং এরাই ইহুদী নাছারাদের ধর্ম প্রচার করছে। যেমন ইসলামের নামে গণতন্ত্র চর্চা করা, মৌলবাদী দাবি করা, ব্লাসফেমী আইন চাওয়া, ছবি তোলা, হরতাল করা, লংমার্চ করা, কুশপুত্তলিকা দাহ করা, বেগানা নারীর পিছে পিছে চলা ফেরা করা ইত্যাদি হারাম কাজ তারা অহরহ করে যাচ্ছে। তারা মুসলমানদের মহা সংক্রামক ব্যাধি তথা ক্যান্সার। এরা ঈমান আক্বীদা বিধ্বংসী। তাই তারা সর্বদা হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার শান ও মানের খিলাফ কথা বার্তা বলে থাকে। এবং হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যা করতে বলেছেন তা থেকে মানুষকে নিষেধ করে থাকে। যা নিষেধ করেছেন তা করতে বলে। যেমন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নূরের সৃষ্টি। অথচ এ বিষয়ে কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এ অসংখ্য দলীল রয়েছে। কিন্তু ইহুদী, নাছারাদের অনুসারীরা মাটির মানুষ বলে থাকে। ১. হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নাকি ইলমে গইব সম্পর্কে জানেন না। নাঊযুবিল্লাহ!

২. তিনি সর্বত্র হাযির-নাযির হতে পারেন না। নাঊযুবিল্লাহ! ৩. তিনি হায়াতুন নবী নন। নাঊযুবিল্লাহ! অথচ এ বিষয়ে কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এ অসংখ্য দলীল রয়েছে। ৪. উনার শানে ঈদে মীলাদ শরীফ ও ক্বিয়াম শরীফ করা যাবে না। নাঊযুবিল্লাহ! অথচ এ বিষয়ে কুরআন শরীফ ও হাদীছ শরীফ-এ অসংখ্য দলীল রয়েছে।

৫. মীলাদ শরীফ ও ক্বিয়াম শরীফকে বিদয়াত এবং পহেলা বৈশাখকে নিয়ামত বলে থাকে। নাঊযুবিল্লাহ! ৫. নবী আলাইহিমুস সালাম উনারা ভুল করেছেন। নাঊযুবিল্লাহ! ৬. মাযার শরীফ ও ক্ববর যিয়ারত করা যাবে না। নাঊযুবিল্লাহ! ৭. রমাদ্বান শরীফ-এর তারাবী এত দীর্ঘ সময় ধরে পড়ার কোন প্রয়োজন নেই। নাঊযুবিল্লাহ! ৮. মহিলাদের মসজিদে ও ঈদগাহে গিয়ে নামায পড়াতে কোন অসুবিধা নেই। নাঊযুবিল্লাহ! ৯. তারা মুসলমানদের মাঝে শিরকের গন্ধ প্রবেশ করানোর জন্য তাদের মধ্যে একটি দল খালিক্ব ও মাখলূক্বকে এক করে থাকে। যেমন তারা বলে আল্লাহ পাক তিনি নূর, সেই নূরের অংশ দিয়ে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সৃষ্টি করেছেন। নাঊযুবিল্লাহ! ১০. শবে ক্বদর মানে না। নাঊযুবিল্লাহ! ১১. শবে মি’রাজ শরীফ মানে না। ১২. আশূরা শরীফ মানে না। ১৩. লাইলাতুর রাগায়িব শরীফ মানে না। ১৪. আখিরী চাহার শোম্বাহ শরীফ মানে না। ১৫. বারই রবিউল আউয়ালকে মানে না। ১৬. ঈদে মীলাদুন্নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মানে না। নাঊযুবিল্লাহ! ১৭. মাযহাব ও মাযহাবের ইমামগণ উনাদেরকে মান্য করেনা। নাঊযুবিল্লাহ! ১৮. শবে বরাতকে তথা অর্ধ শা’বানের রাতকে মানে না। এবং এই রাতে ইবাদত বন্দেগী করেনা পক্ষান্তরে মুসলমানদেরকে করতে বাঁধা দেয় এবং নানান কটুক্তি করে থাকে। নাঊযুবিল্লাহ!

অথচ বিশ্ব বিখ্যাত ও নির্ভরযোগ্য তাফসীর, হাদীছ শরীফ, ফিক্বাহ ও ফতওয়ার কিতাবে অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে ইবাদত বন্দেগী করার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে এবং এই রাতে বান্দার যাবতীয় ভাগ্য লিপিবদ্ধ করা হয়ে থাকে। অতঃপর বান্দার যাবতীয় ফরিয়াদ ক্ববূল করা হয়ে থাকে। হাদীছ শরীফে রয়েছে পাঁচ রাত্রিতে মহান আল্লাহ পাক বান্দাদের দোয়া ক্ববূল করে থাকেন। তম্মধ্যে অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাতের রাত অন্যতম। এবং এ রাতে জাগ্রত থেকে ইবাদতে মশগুল থাকার ব্যাপারে উৎসাহিত করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিখ্যাত ফতওয়ার কিতাব বাহরুর রায়িক্ব ২য় খ-ের ৫২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(১৪১-১৪৩)

ما ذكره فى أواخر شرح منية المصلى ومن المندوبات احياء ليالى العشر من رمضان وليلتى العيدين وليالى عشر ذى الحجة وليلة النصف من شعبان كما وردت به الاحاديث وذكرها فى الترغيب والتبرهيب مفصله والمراد باحياء الليل قيامه وظاهره

 

অর্থ: শরহে মুুনিয়্যাতুল মুছল্লী কিতাবের শেষে উল্লেখ আছে নিম্নোক্ত রাত্রিগুলোতে জাগ্রত থেকে ইবাদত বন্দেগী করা, কান্নকাটি করা মুস্তাহাব সুন্নত। যেমন রমাদ্বান শরীফের প্রথম দশ রাত্রি, দুই ঈদের রাত্রি, যিল হজ্জের দশ রাত্রি এবং অর্ধ শাবানের রাত্রি তথা শবে বরাতের রাত্রি। এ ব্যাপারে অসংখ্য হাদীছ শরীফ বর্ণিত রয়েছে। তারগীব ও তারহীব নামক কিতাবদ্বয়ে এ সম্পর্কে বিশদ বর্ণনা রয়েছে যে, উক্ত রাত্রিগুলোতে জাগ্রত থেকে ইবাদত বন্দেগী করা। (মিনহাজুল খালিক)

শবে বরাতের নামায কত রাকায়াত কতটি সালামে পড়তে হবে। এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিখ্যাত ফিক্বাহ এর কিতাব মিনহাতুল খালিক্ব কিতাবে উল্লেখ আছ-

(১৪৪-১৪৮)

وصلاة ليلة النصف من شعبان مائة ركعة بخمسين تسليمه

 

অর্থ: অর্ধ শা’বানের রাতের নামায তথা শবে বরাতের নামায একশত রাকয়াত। যা ৫০টি সালামে পড়তে হয়। (লামহাতুল আনওয়ার, ত্বহারাতুল ক্বুলুব, কিতাবুন নুর, আল কুওওয়াত, ইহয়াউল উলুমুদ্দীন।)

আরো উল্লেখ আছে যে, হযরত নবী পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অর্ধ শা’বানের তথা শবে বরাতের ফযীলতের কারণেই শা’বান মাসে বেশী বেশী রোযা পালন করতেন।

যেমন এ প্রসঙ্গে বিশ্বখ্যাত কিতাব মুকাশাফাতুল ক্বুলুব নামক কিতাবের ৩০৩ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(১৪৯-১৫০)

وروى عن حضرت ابى امامة الباهلى رضى الله تعالى عنه قال كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول اذا دخل شعبان فظهروا انفسكم واحسنوا نيتكم فيه وعن ام المؤمنين حضرت عائشة الصديقة عليها السلام قالت كان رسول الله صلى الله عليه وسلم يصوم حتى نقول لا يفطر ويفطر حتى نقول لا يصوم وكان اكثر صيامه

وفى النسائى من حديث حضرت اسامة رضى الله تعالى عنه قلت يا رسول الله صلى الله عليه وسلم لم أرك تصوم من شهر من الشهور ما تصوم من شعبان قال ذلك شهر يغفل الناس عنه بين رجب ورمضان وهو شهر ترفع فيه الاعمال لرب العالمين فأحب ان يرفع عملى وأنا اصوم

অর্থ: হযরত আবু উমামা বাহিলী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, যখন শা’বান মাস সমাগত হতো তখন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলতেন এ মাসে তোমরা তোমাদের অন্তরকে পাক পবিত্র করে নাও এবং নিয়তকে বিশুদ্ধ করে নাও। এবং উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দিক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণিত আছে হযরত নবী পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অনেক সময় একাধারে এতো অধিক রোযা রাখতেন আমরা মনে করতাম, তিনি আর রোযা ছেড়ে দিবেন না। আবার কখনও এমন হতো যে একাধারে তিনি রোযাও রাখতেন না, তখন আমরা মনে করতাম তিনি আর রোযা রাখবেন না। তবে উনার অধিকাংশই রোযা হতো শা’বান মাসে।

এ প্রসঙ্গে নাসায়ী শরীফে হযরত উসামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে আরো বর্ণিত আছে। তিনি বলেন, আমি একদা আরয করলাম, ইয়া রসুলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! শা’বান মাসে আপনাকে যত অধিক সংখ্যায় রোযা রাখতে দেখি, ততো সংখ্যায় অন্য মাসে রোযা রাখতে দেখি না এর কারণ কি? হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন: এই শা’বান মাস রজব ও রমাদ্বান মাসের মধ্যবর্তী ফযীলতের মাস। অথচ লোকেরা এ শা’বান মাসের ব্যাপারে উদাসীন। মানুষের আ’মলসমূহ এই মাসে তথা শবে বরাতে মহান আল্লাহ পাক-উনার দরবার শরীফে পেশ করা হয়। তাই আমার আমল যখন পেশ করা হয় তখন রোযা অবস্থায় থাকা আমি পছন্দ করি। এর মাধ্যমে উম্মতে হাবীবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে শিক্ষা দিলেন। (নাসাঈ শরীফ)

শুধু তাই নয় এই অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতের রাত্রে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নিজেই ইবাদত বন্দেগী করে উম্মতে হাবীবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে উক্ত রাত্রিতে ইবাদত করার জন্য উৎসাহিত করেছেন এবং উম্মতের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। এবং শবে ক্বদর ও শবে বরাতকে ঈদুল মালায়িকা হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

এ প্রসঙ্গে সাইয়্যিদুল আউলিয়া, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত ত্বরীক্বত হুজ্জাতুল ইসলাম ইমাম গায্যালী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার বিশ্ব বিখ্যাত লিখিত কিতাব “মুকাশাফাতুল কুলুব” ৩০৩ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

 

(১৫১-১৫২)

ان للملائكة فى السماء ليلتى عيد … كما ان للمسلمين فى الارض يومى عيد. فعيد الملائكة ليلة البراءة، وهى ليلة النصف من شعبان وليلة القدر فلهذا سميت ليلة النصف من شعبان ليلة عيد الملائكة

وذكر السبكى فى تفسيره أنها تكفر ذنوب السنة وليلة الجمعة تكفر ذنوب الأسبوع وليلة القدر تكفر ذنوب العمر. اى احياء هذه الليالى سبب لتكفير الذنوب وتسمى ليلة التكفير ايضا لذلك وليلة الحياة لما روى المنذرى مرفوعا من احياء ليلة العيد وليلة النصف من شعبان لم يمت قلبه يوم تموت القلوب وتسمى ليلة الشفاعة

لما روى أنه صلى الله عليه وسلم سأل الله تعالى ليلة الثالث عشر الشفاعة فى أمته فأطاه الثلث وسأله ليلة الرابع عشر فأعطاه الثلثين وسأل ليلة الخامس عشر فاعطاه الجميع الامن شرد على الله شراد البعير … وتسمى ليلة المغفرة ايضا. كما روى الامام احمد أن رسول الله صلى الله عليه وسلم قال ان الله تعالى ليطلع ليلة النصف من شعبان الى عباده فيغفر لأهل الارض الا رجلين مشرك او مشاجن، وتسمى ليلة العتق

 

অর্থ: নিশ্চয়ই আকাশে ফেরেশ্তাদের জন্য দু’টি ঈদের রাত রয়েছে। যেমন মুসলমানদের জন্য যমীনে বাৎসরিক বিশেষ দুটি ঈদের দিন রয়েছে। অতএব ফেরেশ্তাদের ঈদের রাত হচ্ছে বরাতের রাত। আর তা হচ্ছে অর্ধ শা’বানের রাত তথা ১৫ই শা’বানের রাত। আর ফেরেশ্তাদের জন্য অপর একটি ঈদের রাত হচ্ছে শবে ক্বদর তথা ক্বদরের রাত। আর এই কারণেই অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাতকে ঈদুল মালায়িকা অর্থাৎ ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম উনাদের ঈদ বলা হয়।

হযরত ইমাম সুবুকী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার তাফসীর গ্রন্থে উল্লেখ করেন, নিশ্চয়ই অর্ধ শা’বানের রাতের তথা শবে বরাতের রাতের ইবাদত এক বৎসরের পাপসমূহকে মিটিয়ে দেয়। আর জুমুয়ার রাতের ইবাদত এক সপ্তাহের পাপসমূহকে মিটিয়ে থাকে। আর ক্বদরের রাতের ইবাদত দ্বারা সমস্ত জীবনের পাপসমূহ মাফ হয়ে থাকে। এ জন্যই শবে বরাতের রাতকে গুণাহ মাফের রাতও বলা হয়। আর ঐ কারণেই শবে বরাতের রাতকে লাইলাতুল হায়াত তথা হায়াত বৃদ্ধির রাত বলা হয়।

ইমাম মুনযিরী রহমতুল্লাহি আলাইহি হযরত নবী পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার থেকে মারফু সনদে হাদীছ শরীফ বর্ণনা করেন যে, যে ব্যক্তি দুই ঈদের দুই রাত্রি এবং অর্ধ শা’বান তথা শবে বরাতের রাত্রি জেগে ইবাদত বন্দেগী করবে তার অন্তর সেই কিয়ামতের দিনও মরবেনা, অথচ যেদিনটি অন্তরসমূহের মৃত্যুর দিন হবে। আর এই অর্ধ শা’বান তথা শবে বরাতের রাতকে শাফায়াতের রাত্রিও বলা হয়।

হাদীছ শরীফে আছে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উম্মতের জন্য শা’বান মাসের ১৩ই তারিখের রাত্রিতে মহান আল্লাহ পাক-উনার দরবারে) সুপারিশ করেছিলেন তাতে কবূল হয়েছিল এক তৃতীয়াংশ উম্মতের সুপারিশ কবুল করেন। অতঃপর ১৪ই শা’বানের রাত্রিতে পুনরায় সুপারিশ করেন, এতেও উম্মতের দুই তৃতীয়াংশকে কবুল করেন। অতঃপর ১৫ই শা’বানের রাত্রিতে তথা শবে বরাতের রাত্রিতেও উম্মতের জন্য সুপারিশ করেন এই রাত্রিতে মহান আল্লাহ পাক হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার সকল উম্মতকে কবূল করেন। সুবহানাল্লাহ!

তবে যে সকল বান্দা (আল্লাহ পাক-উনার অবাধ্য হয়েছে) অর্থাৎ উদভ্রান্ত উটের ন্যয় অবাধ্য হয়েছে, তাদের দোয়া কবুল হয় না। আর এ জন্যই এই অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাতের রাতকে মাগফিরাতের রাতও বলা হয়।

(অসমাপ্ত)

পরবর্তী সংখ্যার অপেক্ষায় থাকুন

 

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমাউল উম্মাহ শরীফ ও পবিত্র ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ইসলামী মাস ও বিশেষ বিশেষ রাত, দিন, সময় ও মুহূর্তের আমলসমূহের গুরুত্ব, ফযীলত এবং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের দিবসসমূহ পালন করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-৯

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমা শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ও পবিত্র মাযহাব চতুষ্ঠয় উনাদের মধ্যে যে কোন একটি সম্মানিত ও পবিত্র মাযহাব মানা ও অনুসরণ করা ফরয ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-২৫

সুওয়াল-জাওয়াব বিভাগ

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমাউল উম্মাহ শরীফ ও পবিত্র ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ইসলামী মাস ও বিশেষ বিশেষ রাত, দিন, সময় ও মুহূর্তের আমলসমূহের গুরুত্ব, ফযীলত এবং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের দিবসসমূহ পালন করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৭ম পর্ব)

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমাউল উম্মাহ শরীফ ও পবিত্র ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ইসলামী মাস ও বিশেষ বিশেষ রাত, দিন, সময় ও মুহূর্তের আমলসমূহের গুরুত্ব, ফযীলত এবং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের দিবসসমূহ পালন করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয় ৬ষ্ঠ পর্ব)