ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদ প্রচারের নেপথ্যে-২৭

সংখ্যা: ২০৫তম সংখ্যা | বিভাগ:

[শয়তান যে মানুষকে নেক ছূরতে ধোঁকা দেয়, এ বিষয়টি ভালোভাবে অনুধাবন করেছিলো শয়তানের অনুচর ইহুদী এবং খ্রিস্টানরা। মুসলমানদের সোনালী যুগ এসেছিল শুধু ইসলামের পরিপূর্ণ অনুসরণের ফলে। শয়তানের চর ইহুদী খ্রিস্টানরা বুঝতে পেরেছিল মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ, অনৈক্য, সংঘাত সৃষ্টি করতে পারলেই ইসলামের জাগরণ এবং বিশ্বশক্তি হিসেবে মুসলমানদের উত্থান ঠেকানো যাবে। আর তা করতে হবে- ইসলামের মধ্যে ইসলামের নামে নতুন মতবাদ প্রবেশ করিয়ে। শুরু হয় দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা; যার মূলে থাকে খ্রিস্টীয় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ। জন্ম হয় ওহাবী মতবাদের। ওহাবী মতবাদ সৃষ্টির মূলে থাকে একজন ব্রিটিশ গুপ্তচর- হ্যামপার। সে মিসর, ইরাক, ইরান, হেজাজ ও তুরস্কে তার গোয়েন্দা তৎপরতা চালায় মুসলমানদের বিভ্রান্ত করার জন্য। ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদের উপর তুর্কি ভাষায় রচিত হযরত মুহম্মদ আইয়ূব সাবরী পাশা রহমতুল্লাহি আলাইহি-এর “মিরাত আল হারামাইন” কিতাবের ইংরেজি অনুবাদ থেকে বাংলায় ধারাবাহিকভাবে ভাষান্তর করা হচ্ছে ইনশাআল্লাহ।]

(ধারাবাহিক)

মুহম্মদ আলী পাশা যিনি পবিত্র আরব জাহানের শহরগুলিকে দস্যুমুক্ত করাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছিলেন। তিনি যুগপৎভাবে শ্রম এবং স্বর্ণমুদ্রার নিরলস ব্যয় ঘটাতে থাকলেন সেই পবিত্র লক্ষ্যে। (আজকে অত্যন্ত দুঃখের সাথে লক্ষ্য করা যায় যে, আজকে সউদী ওহাবী সরকার সারাবিশ্ব  জুড়ে একইভাবে হাজার হাজার কোটি ডলার ব্যয় করছে মুসলমানদেরকে ওহাবীজমের বিষবাষ্পে কলুষিত করার জন্য। লা-মাযহাবীদের এই বিষাক্ত ছোবল থেকে বাঁচার জন্য একমাত্র আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদায় বিশ্বাসী উলামায়ে হক্কানী-রব্বানী উনাদের কিতাবাদি পাঠের কোনো বিকল্প নেই। এবং সারাবিশ্ব জুড়ে বর্তমানে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের একমাত্র দলীলভিত্তিক মুখপত্র হলো তাজদীদী কিতাব মাসিক আল বাইয়্যিনাত। আব্দুল্লাহ ইবনে সাউদ তার মুসলিম নির্যাতনকারী লুটেরা বাহিনীসহ গ্রেফতার হয় এবং মিসরে প্রেরিত হয়। মুহররমুল হারাম ১২৪৩ হিজরীতে মুহম্মদ আলী পাশা স্বভাবজাত শরাফত এবং ইহসান অনুযায়ীই দস্যু ইবনে সাউদের মুখোমুখি হলেন।

বেশ পরিশ্রমের ধকল গিয়েছে তোমার উপরে বোঝা যাচ্ছে, কম সংগ্রাম তো আর করনি। পাশা বললেন আব্দুল্লাহ বিন সাউদকে।

You have struggled very hard” the pasha said, নছীব এবং নিয়তির ভাঙ্গা গড়ার লীলাই হল যুদ্ধ। ইবনে সাউদের প্রত্যুত্তর।

War is an affair of fate and luck, Ibn Sa’ud answered.

পুনরায় জিজ্ঞাসা করলেন পাশা “আমার ছেলে ইবরাহীম পাশাকে কেমন দেখলে?”

How do you find my son Ibrahim Pasha?

“অত্যন্ত সাহসী একজন বীর পুরুষ। বুদ্ধিমত্তা তার সাসিকতার ঊর্ধ্বে প্রাধান্য পেয়েছে। আর আমরা অতি কঠোর প্রচেষ্টা চালানো সত্ত্বেও আল্লাহ পাক তিনি নছীবে যা রেখেছেন তাই ঘটেছে। চিন্তা করনা। আমি তোমার জন্য যিনি খলীফাতুল মুসলিমীন উনার কাছে একখানা চিঠি লিখছি সদয় আচরণের জন্য।

দস্যু ইবনে সাউদের জবাব “নছীবে যা রয়েছে তা ঘটবেই।”

-এই সুরম্য বক্সটি কেন বহন করছ? এখানে আমার বাবা যা লুটপাট করেছিল মুবারক হুজরাতুন নববীয়্যাহ থেকে (নাউযুবিল্লাহ!) তা রাখা আছে। আমি এগুলো আমাদের যিনি সুলতান রয়েছেন তার কাছে পেশ করবো। (লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ।) মুহম্মদ আলী পাশা নির্দেশ করলেন সুরম্য পাত্রটি খোলার জন্য। বিপুল পরিমাণ স্বর্ণমুদ্রার সাথে সাথে তিনটি কুরআন শরীফ-এর নুসখা, ৩৩০টি বিশাল বিশাল মুক্তা, একটি বিশাল পান্না এবং স্বর্ণের চেইন। পবিত্র হুজরাতুন নববীয়্যাহ থেকে যাই চুরি করা হয়েছে তাই দেখা গেলো। নাঊযুবিল্লাহ! (অসমাপ্ত)

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল হাসান

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক