দেশ কী হারামজাদা আর চরিত্রহীনে ভরে যাবে? এর পেছনে বেশরীয়তী আবহ তথা বেপর্দা এবং কথিত সংস্কৃতি ও মিডিয়াই যে দায়ী তা কী অস্বীকার করা যাবে?

সংখ্যা: ২০৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

দেশ কী হারামজাদা আর চরিত্রহীনে ভরে যাবে? এর পেছনে বেশরীয়তী আবহ তথা বেপর্দা এবং কথিত সংস্কৃতি ও মিডিয়াই যে দায়ী তা কী অস্বীকার করা যাবে?

সরকারের উচিত অবিলম্বে তথাকথিত বাল্যবিবাহ আইন পরিবর্তন করা। বাল্যবিবাহের সুন্নত প্রচলন করা।

 

 

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন অনুযায়ী ছেলেদের ক্ষেত্রে ২১ বছরের নীচে এবং মেয়েদের ক্ষেত্রে ১৮ বছরের নিচে বিয়ে নিষিদ্ধ।

আর এ নিষিদ্ধের পরও যদি এ বয়সের নিচে ছেলে-মেয়েদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক হয় তাহলে তাকে একবাক্যে বলতে হয় অবৈধ, অনৈতিক সম্পর্ক। ইসলামের দৃষ্টিতে জিনা বা ব্যভিচার।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একমাত্র সরকারি সংবাদ সংস্থা হল বাসস। গত ৮ জুলাই-২০১১ ঈসায়ী তারিখে বাসস পরিবেশিত এক সংবাদে বলা হয়েছে- æ১৮ না পেরুতেই যৌন অভিজ্ঞতা ৫০ শতাংশ শহুরে তরুণের।” বাংলাদেশে বয়স ১৮ হওয়ার আগেই যৌন অভিজ্ঞতা হচ্ছে ৫০ শতাংশ শহুরে তরুণের। এছাড়া প্রায় ৮০ শতাংশ তরুণ পরোক্ষভাবে প্ররোচিত হয়ে (মিডিয়ার কু-প্রভাবে) যৌন কর্মে লিপ্ত হচ্ছে। এদের এক-তৃতীয়াংশ আবার লিপ্ত হচ্ছে দলগত যৌনকর্মে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাদের যৌনসঙ্গী হচ্ছে পেশাদার যৌনকর্মী।

জানা গেছে যৌনকর্মে লিপ্ত হতে এসব তরুণের ৮০ শতাংশ যাচ্ছে আবাসিক হোটেলে। আর ২০ শতাংশ অপেশাদার যৌনকর্মীর কাছে যাচ্ছে। আর জনসংখ্যার প্রায় এক তৃতীয়াংশ তরুণ হওয়ায় দেশের বৃহৎ ও নির্ভরশীল এই জনগোষ্ঠী ব্যাপক ঝুঁকির মধ্যে আছে।

জরিপ অনুযায়ী, তরুণদের অধিকাংশ যৌন চাহিদা মেটাতে যৌনকর্মীর কাছে যাচ্ছে। সব ধরনের যৌন আচরণ করছে। গবেষণায় দেখা যায়, এসব তরুণের প্রায় ২০ শতাংশের মধ্যে যৌনবাহিত ইনফেকশনের লক্ষণ দেখা যায়। তবে এদের মাত্র ১৫ শতাংশ চিকিৎসকের কাছে যায়।

ঢাকার ৯টি আবাসিক হোটেলে আইসিডিডিআরবি পরিচালিত জরিপটিতে আরো দেখা গেছে, তরুণের দুই তৃতীয়াংশ স্কুল ও কলেজ পড়–য়া। তারা যৌনকর্মে প্ররোচিত হয় বন্ধু বা বন্ধুস্থানীয় কাউকে দিয়ে। প্রায় ৮০ শতাংশ তরুণ মিডিয়ার দ্বারা প্ররোচিত হয়ে যৌন কর্মে লিপ্ত হয়। আবার অনেকে পর্নো সিডি এবং মোবাইলে পর্নো দেখে যৌন কর্মে উৎসাহিত হন। এদের অনেকের বয়স ১১ থেকে ১৪ বছর। এছাড়া বিবাহিতরাও যৌনকর্মীর কাছে যাচ্ছে বলে দেখা গেছে গবেষণা জরিপে।

প্রতিভাত হচ্ছে যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের এক-তৃতীয়াংশ জনগোষ্ঠী যুবকরাসহ অধিকাংশ জনসারণ চরিত্রহীন হয়ে গেছে। জিনাখোর বা ব্যভিচারী হয়ে গেছে। (নাঊযুবিল্লাহ) আর এ জিনা বা ব্যভিচারের সাথে যারা অভ্যস্ত হয়ে পড়ে তারা যে সব হারামজাদার জন্ম দিচ্ছে অথবা নিজেরা কলঙ্কিত জীবন যাপন করছে তা কী বলার অপেক্ষা রাখে।

অপরদিকে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম। অর্থাৎ রাষ্ট্রীয় জীবনের সর্বত্র ইসলামই প্রতিফলিত হবার দাবি রাখে। তবে শুধু রাষ্ট্রীয়ভাবেই নয় দেশের ৯৭ ভাগ লোক মুসলমান হবার প্রেক্ষিত্রে ইসলামই তাদের অন্তরের প্রগাঢ় অনুভূতি ও অনুভব হিসেবে কাজ করে। যদিও তারা নফসের কারণে গুনাহ করে কিন্তু রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় পরিচালিত মিডিয়াই তাদের নফসকে প্ররোচিত করে।

এদেশের ৯৭ ভাগ মুসলমান এখনো নিখাঁদভাবে বিশ্বাস করে গুনাহ-নেকী। গুনাহর মধ্যে ছগীরা-কবীরা বিশেষ করে হারাম খাওয়া, সুদ খাওয়া, ঘুষ খাওয়া, মদ খাওয়া তথা ব্যভিচার করা বা চরিত্রহীন হওয়া এ যাবৎ এদেশের মুসলিম মানসের প্রেক্ষাপটে গভীর নিন্দনীয়, চরম ঘৃণাযুক্ত ও পরম কলঙ্কময় কাজ হিসেবে চিহ্নিত ছিল। বলাবাহুল্য ইসলামের দৃষ্টিতে ব্যভিচার এক মারাত্মক অশ্লীল কাজ। কুরআন শরীফ-এ মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন- æতোমরা ব্যভিচারের কাছেও যেয়োনা।”

বলাবাহুল্য প্রদত্ত আয়াত শরীফ অনেক অর্থবহ। আজকে প্রিন্ট মিডিয়া এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় যেভাবে বিবস্ত্র দেহ প্রদর্শনী চলে তাতে সাধারণের মাঝে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোগবাদী লালসা প্রবৃত্তির প্রবাল্য বিস্তার করে। যে কারণে আজকে নামি-দামি সব বিশ্ববিদ্যালয় এমনকি স্কুলের শিক্ষকরাও তাদের সন্তানতুল্য মেয়েদের দেহও নির্মমভাবে ভোগ করছে। (নাঊযুবিল্লাহ)

বলাবাহুল্য, এ ধরনের বিকৃত মানসিকতা একদিনেই গড়ে উঠেনা। দিনের পর দিন মিডিয়ার অশ্লীল দেহ প্রদর্শনী ও অশ্লীল প্রবণতাই এ পরিণতির জন্য দায়ী। বরং বলা চলে মিডিয়ার এ কুফলের কারণে মনোগতভাবে অধিকাংশ সাধারণ মানুষই ভেতরে ভেতরে পশুবত এক বিকৃত মানুষ। সামাজিক খোলস তাকে আটকে রেখেছে। কিন্তু সুযোগ পেলেই তার বিকৃত মনোবৃত্তি পশুর মতো হিং¯্র হয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। (নাঊযুবিল্লাহ)

কাজেই ইসলামের এ রাষ্ট্র যদি তার জনগণকে রক্ষা করতে চায় তাহলে দেশে ইসলাম জারি করতে হবে। শরীয়তী পর্দা চালু করতে হবে। রাষ্ট্র ১১ বা ১৪ বছরের ছেলে-মেয়ের মধ্যে শারীরিক সম্পর্কের বিরুদ্ধে কিছু বলেনি এবং তার বলার ও কার্যকর করতে ক্ষমতাও নেই। কিন্তু তাই বলে অনৈসলামিক এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক রাষ্ট্রে চলতে পারে না, তাহলে রাষ্ট্র টিকবে না। সেক্ষেত্রে টিকে থাকার স্বার্থে রাষ্ট্রকে বর্তমান বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন তুলে দিতে হবে। বাল্যবিবাহের সুন্নত চালু করতে হবে।

-মুহম্মদ আলম মৃধা

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক