প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অমান্য আইনের দ্বারা মাদক নিয়ন্ত্রণে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ব্যর্থতা এবং যারা আল্লাহ পাক উনার আইনের খিলাফ আইন প্রয়োগ করে তাদের জালিম, ফাসিক ও কাফির হওয়া প্রসঙ্গে

সংখ্যা: ২০৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

গত ২৬ জুন-২০১১ ঈসায়ী তারিখে আন্তর্জাতিক মাদকবিরোধী দিবস উপলক্ষে মাদকদ্রব্য অধিদফতর আয়োজিত এক আলোচনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, আইন করে মাদক নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে প্রচলিত আইনের চরম ব্যর্থতা প্রতিভাত হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে কোনরূপ প্রতিবন্ধকতার কথা উল্লেখ করেননি। কিন্তু প্রচলিত আইনের প্রয়োগের পরও তার ব্যর্থতা অস্বীকার করতে পারেননি।

এদিকে সংসদে খোদ প্রধানমন্ত্রীর কথায় প্রকাশ পেয়েছে যে, নিজ নিজ এলাকায় অফিসের জন্য বরাদ্দকৃত দশ হাজার টাকাও কথিত ‘মাননীয় সংসদ সদস্যরা’ নিজ নিজ পকেটে রেখে দেন। ভদ্র কথায় আত্মসাৎ করেন। আর সোজা কথা চুরি করেন। মাননীয় আইন প্রণেতারা নিজেরাই চুরি করেন- একথা যতটা না লজ্জাকর তার চেয়েও বিস্ময়কর হল খোদ সংসদ সদস্যরাই সংসদনেত্রীর কথা শোনেন না, মানেন না। বলাবাহুল্য, এ খেদোক্তি স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী বহুবার করেছেন। যা পত্রিকায়ও প্রকাশিত হয়েছে।

প্রসঙ্গত: উল্লেখ্য গত ২৭ জুন-২০১১ ঈসায়ী তারিখের পত্রিকায় আসন্ন রমযান উপলক্ষে বাজার দর না বাড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রীর আহবানও পত্রিকায় এসেছে। আর আগে একইভাবে বাজার দর না বাড়ানোর জন্য বাণিজ্যমন্ত্রীর আহবান এবং তার বিপরীত ফল দেখার বিশেষ তিক্ত অভিজ্ঞতাও এদেশের জনগণের রয়েছে। সরল কথায় সর্বত্র একটা বিষয়ই প্রতিফলিত হচ্ছে। দেশের মন্ত্রী-প্রধানমন্ত্রীর কথা কেউ শোনেনা এবং প্রচলিত আইনের দ্বারা প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। আইন, আইন প্রয়োগকারী তথা সংস্থা প্রশাসন থেকে বিচার বিভাগ এবং মন্ত্রী থেকে প্রধানমন্ত্রী সবাই এক্ষেত্রে প্রকাশ্যে চরম ব্যর্থ। এ ব্যর্থতা তারা স্বীকার করছেন। কিন্তু তার দায় নিচ্ছেন না। এবং ব্যর্থতা থেকে উদ্ধারের পথ কী? তা নির্ণয়ে অথবা স্বীকারেও তারা এগিয়ে আসছেন না।

বলাবাহুল্য, প্রধানমন্ত্রী থেকে পিওন সবাই মানুষ। কেউ মানুষ তৈরীকারী- আল্লাহ পাক নন। সাধারণ মানুষ মানুষের অন্তরের গতি-প্রকৃতি উপলব্ধি করতে পারেনা। নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না। তাই মানুষের তৈরী আইন কখনও মানুষকে শৃঙ্খলিত করতে পারেনা। এক মানুষের তৈরি আইনের ফাঁক-ফোকর অন্য মানুষ সহজেই ধরে ফেলতে পারে। আইনের প্যাঁচ গলিয়ে অথবা প্রভাব তৈরি করে সহজেই পার পেয়ে যেতে পারে। জাল কাগজ-পত্র দিয়ে হাইকোর্ট থেকে জামিন অথবা অনেক বিচারপতির দুর্নীতিই এক্ষেত্রে পর্যাপ্ত উদাহরণ নয়। বরং কোনটি উদাহরণ নয় সে প্রশ্নও এখানে সঙ্গত।

অপরদিকে মানুষের কথা মানুষের অন্তরে প্রভাব বিস্তার করতে পারে অতি-অল্পই। এক্ষেত্রে সম্পূর্ণ বিপরীত এবং অনিবার্য বিষয় হল- মহান আল্লাহ পাক উনার ওহী। উনার আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার থেকে বর্ণিত হাদীছ শরীফ। অর্থাৎ কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ।

যে কারণে দেখা যায় যত গুনাহগার বা সাধারণ লোকই হন তিনিও যখন রোজা রাখেন তখন প্রচ- গরমের দিনেও পুকুরে ডুব দিয়ে অথবা একাকী বাড়িতে থেকেও তিনি পানি পান করেননা অথবা খাদ্য খাননা। এখানেই ওহীক বোধের সার্থকতা এবং অনবদ্যতা। তার বিপরীতে কোন সাধারণ মানুষের জন্য মানুষকে হিদায়েত করার যোগ্যতা নেই। কারণ সাধারণ মানুষ নিজেই নিজের অজান্তে অনিয়ম করে থাকে। আর মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, æতোমরা ওই কথা বল কেন? যা তোমরা নিজেরাই করনা।”

বলাবাহুল্য আদেশ দেয়ার ক্ষমতা মহান আল্লাহ পাক, আল্লাহ পাক উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং উনাদের মনোনীত প্রতিনিধি উলীল আমর তথা মুজাদ্দিদে আ’যম উনার।

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, æতোমরা আল্লাহ পাক উনার, উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং যাঁরা উলীল আমর উনাদের হুকুম পালন কর।”

মূলত: এছাড়া যারা আদেশ দিবে, যারা মানুষের আইন প্রয়োগ করতে চাবে তারা জালিম, ফাসিক, কাফির। মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, æযারা মহান আল্লাহ পাক উনার আদেশ ব্যতীত আইন প্রয়োগ করে তারা জালিম, ফাসিক ও কাফির।”

বলাবাহুল্য আল্লাহ পাক উনার আইন প্রয়োগ না করলে শুধু যে জালিম, ফাসিক ও কাফির হবে তাই নয় বরং প্রচলিত আইনের দ্বারা সমাজে কোনদিনই শান্তি ও ইনসাফ আসবেনা। সবচেয়ে বড় কথা প্রচলিত আইনেরও শতভাগ প্রয়োগ বাস্তবে কোনদিন হবেনা।

-মুহম্মদ ওয়ালীউল্লাহ

 

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক