সরকার প্রস্তাবিত ত্রিশ লাখ টনের হিমাগার এদেশের জন্য যথেষ্ট নয়

সংখ্যা: ২০৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

সরকার প্রস্তাবিত ত্রিশ লাখ টনের হিমাগার এদেশের জন্য যথেষ্ট নয়। বরং æদেশে দশ কোটি টন খাদ্যশস্য সংরক্ষণের জন্য দেশে প্রায়

প্রতি থানায় ১টি করে কমপক্ষে ৫০০ হিমাগার তৈরি করা।”

মুজাদ্দিদে আ’যম উনার এ ক্বওল শরীফ বাস্তবায়ন

করলে দেশে কোনোদিন খাদ্যাভাব হবে না।

সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও উচিত এ বিষয়ে সচেতন ও সক্রিয় হওয়া।

২০২১ সালের মধ্যে দেশে ৩০ লাখ মেট্রিক টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন খাদ্য গুদাম নির্মাণ করা হবে বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। গত ৩০মে-২০১১ ঈসায়ী তারিখে শেরে বাংলা নগরস্থ পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে খাদ্য অধিদপ্তর ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রজেক্ট কো অর্ডিনেশন অ্যান্ড মনিটরিং ইউনিটের সাথে এ সংক্রান্ত সমঝোতা স্বাক্ষরকালে তিনি এ কথা বলেন।

উল্লেখ্য, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার আগে দেশে খাদ্য গুদামগুলোর মোট ধারণ ক্ষমতা ছিল ১৫ লাখ টন। সরকারের তরফ থেকে বলা হয়েছে- অচিরেই আরো ৭ লাখ টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন গুদাম নির্মাণ করা হবে। ইতিমধ্যে ১ লাখ ১০ টন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন একটি খাদ্য গুদাম নির্মাণ করা হয়েছে বলে জানা যায়। কিন্তু হিমাগার বিষয়ক সরকারের এ ধীরগতি কোনক্রমেই বরদাশতযোগ্য নয়। বিশেষ করে ২০১১ সাল নাগাদ মাত্র ৩০ লাখ টনের গুদাম লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা একান্তই যথার্থ নয়।

কারণ একমাত্র পর্যাপ্ত হিমাগার না থাকায় দেশে শাক-সবজি, তরিতরকারি ও ফলফলাদি ইত্যাদির বাম্পার ফলন হওয়া সত্ত্বেও সংরক্ষণের অভাবে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ফলে একদিকে প্রান্তিক চাষী মূল্য পায় না; অপরদিকে মধ্যস্বত্বভোগী ও সিন্ডিকেট এবং চাঁদাবাজ ও দুর্নীতিবাজদের দৌরাত্ম্যে সাধারণ নাগরিক চড়া মূল্যে খাদ্য কিনে।

সংরক্ষণের অভাবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রচুর পরিমাণে শাক-সবজি, তরিতরকারি এবং ফলফলাদি ইত্যাদি পচে নষ্ট হয় এমনকি গোখাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয় বলে খবর পাওয়া যায় । বিশেষ করে ‘দৈনিক আল ইহসানসহ অন্যান্য পত্র-পত্রিকায়ও এ সংক্রান্ত খবর প্রচুর আসছে।

তবে শুধু সবজি সহ আরো খাদ্যদ্রব্যও হিমাগারের অভাবে নষ্ট হয়। এক চলনবিলেই ১০০ কোটি টাকার শুঁটকি মাছ হিমাগারের অভাবে নষ্ট হয়ে গেছে বলে সম্প্রতি পত্রিকায় খবর হয়েছে।

আমাদের শাক-সবজি, তরিতরকারি এবং ফলফলাদি ইত্যাদি উদ্বৃত্ত হয় যেমন, তেমনি ঘাটতিও আছে। মৌসুমে শাক-সবজি তরিতরকারি এবং ফলফলাদি ইত্যাদি যে পরিমাণ উৎপন্ন হয় তা দেশের চাহিদা মিটিয়ে উদ্বৃত্ত থাকে বিপুল পরিমাণ। যা সাধারণভাবে চিন্তা করা অত্যন্ত কঠিন। অন্যান্য তরিতরকারি শাক-সবজির ৮০ ভাগই উৎপাদিত হয় শীত মৌসুমে। শীতকালের অল্প সময়ের মধ্যে বিভিন্ন সবজি এতো অধিক উৎপন্ন হয় যে, শেষ পর্যন্ত সেগুলো কেনার লোক থাকে না। বিপুল উদ্বৃত্ত এবং ক্রেতার অভাবে তখন সেগুলো বিক্রি হয় পানির দরে। অনেক ক্ষেত্রে কৃষকের পরিবহন খরচও উঠে আসে না। উৎপাদন বেশি হলে শাক-সবজি পচে নষ্ট হয়। এর কারণ আমাদের দেশে শাক-সবজি সংরক্ষণের কোন ব্যবস্থা নেই। হিমাগারের ভয়াবহ সঙ্কট। অথচ ফলমূল, শাক-সবজি, তরিতরকারি সংরক্ষণের যথাযথ উদ্যোগ নেয়া হলে একদিকে যেমন চাষী লাভবান হবে তেমনি সাধারণ নাগরিকও অনেক কমদামে সবকিছু খেতে পারবে। এ শীত মৌসুমে শুধু আলুই উৎপাদন হয়েছে দেড় কোটি টনের অনেক বেশি।

দেশের প্রায় প্রতিটি থানায় যদি হিমাগার তৈরি করে তরিতরকারি, ফলফলাদি ও শাক-সবজি ইত্যাদি সংরক্ষণ করা যায় তবে এ সংরক্ষণের দ্বারা একদিকে যেমন দেশের চাহিদা পূরণ সম্ভব হবে; আর পাশাপাশি তা বিদেশে রফতানি করে হাজার হাজার কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে।

 

দেশে মোট হিমাগার আছে ৩৪৩টি। এরমধ্যে চালু রয়েছে ২৯৬টি হিমাগার।

প্রসঙ্গত মুজাদ্দিদে আ’যম রাজারবাগ শরীফ-এর হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী তিনি বলেন, সরকারের উচিত দেশের প্রায় প্রতিটি থানায়ই সরকারি অর্থায়নে আপাতত কমপক্ষে দুই লাখ টন ধারণক্ষমতাসম্পন্ন হিমাগার তৈরি করা।

দুই লাখ টন ধারণক্ষমতাসম্পন্ন হিমাগার তৈরি করতে সর্বোচ্চ ৩৫০ কোটি টাকা লাগবে। সে হিসেবে কমপক্ষে ৫০০টি হিমাগার তৈরি করতে সর্বোচ্চ মাত্র ১ লাখ ৭৫ হাজার কোটি টাকা প্রয়োজন। ৫০০টি হিমাগারে ১০ কোটি টন খাদ্য সংরক্ষণ সম্ভব।

বাংলাদেশে আপাতত খাদ্যের চাহিদা মাত্র ৫ কোটি টন। ১০ কোটি টন খাদ্যসামগ্রী যদি সংরক্ষণ সম্ভব হয়; তাহলে আশা করা যায় দেশে আর কোন খাদ্যসামগ্রী নষ্ট হবে না এবং খাদ্যাভাবও কোনদিন হবে না ইনশাআল্লাহ। আর ১ লাখ ৭৫ হাজার কোটি টাকা একটা দেশের জন্য খুব বেশি নয়। কারণ অভিযোগ উঠেছে জোট সরকারের আমলে এক ব্যক্তিই দুর্নীতি করেছে দুই লাখ ৭৩ হাজার কোটি টাকা। দেশে যদি টাকা না থাকে তাহলে তারা দুর্নীতি করে কীভাবে? তারপরেও উল্লেখ্য এ টাকাটা ১ বৎসরেই প্রয়োজন হবে তা নয়। কারণ, এতগুলি হিমাগার তৈরি করতে কয়েক বৎসর প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে হিমাগার তৈরির ক্ষেত্রে এদেশের অনেক লোকের কর্মসংস্থানও হবে ইনশাআল্লাহ।

এতদ্বপ্রেক্ষিতে সরকারের উচিত, অবিলম্বে প্রায় প্রত্যেক থানায় কমপক্ষে একটি বা সর্বমোট ৫০০টি সরকারি হিমাগার করে কৃষকের স্বার্থ সংরক্ষণ করা এবং না-খাওয়া মানুষ তথা সাধারণ মানুষের জন্য কমমূল্যে খাদ্য কেনার ব্যবস্থা করা। যা ইহকাল ও পরকালে কামিয়াবীর কারণ হবে।

বলাবাহুল্য, আমাদের ঈমানী জজবার বড়ই অভাব। অথচ এ ঈমানী চেতনা থাকলে আমরা সহজেই মুজাদ্দিদে আ’যম মুদ্দা জিল্লুহুল আলী উনার মুবারক ক্বওল শরীফ উপলব্ধি করতে পারতাম। এদেশের প্রতি খোদায়ী রহমত উপলব্ধি করতে পারতাম। পরিপূর্ণ নিয়ামত বুঝতে ও ফায়দা পেতে পারতাম।

-মুহম্মদ তা’রীফুর রহমান

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক