নারী অধিকার প্রসঙ্গে

সংখ্যা: ২০৭তম সংখ্যা | বিভাগ:

“আজকের এ অবস্থার জন্য সমাজ ব্যবস্থা দায়ী। এই যে গত কয়েকদিনে নারীদের উপর একের পর এক ঘটনা ঘটছে; কোন সুস্থ ও স্বাভাবিক সমাজে তা ঘটতে পারে না। আমরা এক অস্থির সমাজে বসবাস করছি। আমাদের ছেলেমেয়েরা এই সমাজেই বেড়ে উঠছে। একটা প্রজন্ম বেড়ে উঠার জন্য যে পরিমাণ সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার কথা আমরা তার কিছুই দিতে পারছি না।”

যে ব্যক্তি উপরের রিপোর্টটি লিখেছে তার প্রথম পরিচয় সে হিন্দু। দ্বিতীয় পরিচয় সে সমাজ ও পরিবেশবিদ। আর আমাদের বক্তব্য হলো একটা হিন্দু যে কিনা নিজেই পূত-পবিত্র না- সে কিভাবে শতকরা ৯৭ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত দেশে এই সমাজ পবিত্র করবে? কারণ আল্লাহ পাক তিনি বলেন, “মুশরিকরা নাপাক।”

হিন্দুদের আচার-ব্যবহার, খাওয়া-বসা, উঠা, চলাফেরা সব কিছুর মধ্যে নোংরামী রয়েছে। তাদের শিক্ষা-দীক্ষা পর্যন্ত কলুষিত করে তাদের ব্যক্তিত্বকে। তারা যে দেবতাদের মেনে চলে সে দেবতারা এক একজন এক একটা অপকর্মে লিপ্ত থাকে। ‘রাধা-কৃষ্ণের’ কাহিনী তারা সর্বত্র আলোচনা করে থাকে এবং অনুসরণ করে থাকে। যারা বাংলা সাহিত্য নিয়ে পড়ালেখা করেছেন তারা বুঝবেন তাদের এই কৃষ্ণ দেবতার অপকর্মের কথা মেনেও হিন্দুরা ‘হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ’ জপতে থাকে এবং অন্তরে অবলীলায় পোষণ করতে থাকে কৃষ্ণের মতো স্বপ্নের পুরুষ হওয়া এবং রাধার মতো দেবী হওয়ার জন্য। আর এই জন্যই আমরা বলতে বাধ্য হচ্ছি, এদের মতো ম্লেচ্ছ, অস্পৃশ্য হিন্দুরা যদি সমাজের সুস্থতার কথা বলে তবে তা শুনতে হাস্যকরই লাগে!

অস্থির সমাজের স্থিরতা, সুস্থতা, স্বাভাবিকতা তখনই আসবে যখন ইসলামী বিধি-বিধান সমাজ ব্যবস্থায় জারি থাকবে। আর এর জন্য প্রয়োজন মুসলমানদের দ্বীন সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি। দ্বীন ইসলাম সম্পর্কে জানা। হাদীছ শরীফ-এ বর্ণিত রয়েছে, “প্রত্যেক মুসলমান নর-নারীর জন্য ইলম (অর্থাৎ দ্বীন ইসলাম সম্পর্কিত জ্ঞান) অর্জন করা ফরয।” সুতরাং এই ফরয হুকুম-আহকামটি যদি প্রত্যেক মুসলমান পালন করে থাকে তবে তার জন্য একটা পরিবারে, একটা সমাজে, একটা দেশে শরীয়তের বিধি-বিধান পালন করা সম্ভব হবে।

একজন ব্যক্তি যখন আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আদেশ, নিষেধ সম্পর্কে জানবে; বিধি-বিধান সম্পর্কে জানবে তখন সে তার পিতা-মাতা, সন্তান-সন্ততি, আত্মীয়-স্বজনদেরও জানাতে পারবে এবং প্রত্যেকেই একত্রে তা পালন করতে পারবে। আর এভাবে মুসলমান পরিবারগুলো একে একে শরীয়তের নিয়ম-নীতিতে অভ্যস্ত হলে একটা সমাজও বদলে যাবে। কারণ একটা পরিবারকে দেখে আরেকটা পরিবার শিখতে থাকবে। দ্বীন ইসলাম যেহেতু সহনশীলতা, ধৈর্যশীলতা, শালীনতা, মাধুর্যতা শিক্ষা দেয়; সেহেতু একটা সমাজে তথা একটা দেশে স্থিরতাই বিরাজ করবে। পুরাতন প্রজন্মই হোক আর নতুন প্রজন্মই হোক না কেন প্রত্যেকের মধ্যে সহনশীলতা, ধৈর্য, শালীনতা বজায় থাকবে। আর সর্বোপরি মুসলিম অধ্যুষিত দেশে মুসলমানদের যে সুযোগ-সুবিধা আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা দিয়েছেন, সেই সুযোগ সুবিধাই মুসলমান সন্তানরা পাবে।

কিন্তু ইহুদী-বৌদ্ধ, খ্রিস্টান হিন্দু এদের নিয়ম-নীতি, তর্জ-তরীক্বা মানলে মুসলমানদের কোন সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার কথা নয়।

-আজিমা ফারহা

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক