প্রসঙ্গ : শতকরা ৯৭ ভাগ এমপি অপরাধমূলক কাজে জর্জরিত। প্রমাণিত হলো- খোদ গণতন্ত্রই একটা গণগলদযুক্ত প্রক্রিয়া তথা গণধোঁকার শাসনব্যবস্থা

সংখ্যা: ২২০তম সংখ্যা | বিভাগ:

সব প্রশংসা মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন্ নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি অফুরন্ত দুরূদ ও সালাম।

গত ১৫ অক্টোবর ২০১২ ঈসায়ী তারিখ সোমবার দৈনিক আল ইহসান শরীফসহ প্রায় সব পত্রিকায়ই বিষয়টি ফার্স্ট লীড নিউজ হয়েছে। উল্লেখযোগ্য হেডিংগুলো ছিল :

“টিআইবির গবেষণা : ৯৭ শতাংশ সংসদ সদস্য নেতিবাচক কর্মকাণ্ডে জড়িত”

“৫৩ ভাগ এমপি খুন দখল, চাঁদাবাজি টেন্ডারবাজি ও প্রতারণায় জড়িত- টিআইবি”

“টিআইবির অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ : অধিকাংশ এমপি দখল টেন্ডার ও চাঁদাবাজিতে জড়িত।”

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, “সাংসদদের কাজের সীমাবদ্ধতা চিহ্নিত করা, সংসদ এবং সংসদের বাইরে সাংসদদের ইতিবাচক ও নেতিবাচক কাজের পর্যালোচনার জন্য এই গবেষণা করা হয়েছে। গবেষণার ১৪৯ জন সাংসদকে নিয়ে আলোচনা হয়। এর মধ্যে ক্ষমতাসীন দলের ১৩৬ এবং বিরোধী দলের ১৩ জন। এদের নিয়ে সাতটি বিভাগের ৪২টি জেলায় ৪৪টি দল গঠন করে আলোচনা করা হয়। শিক্ষক, ব্যবসায়ী, আইনজীবী, গণমাধ্যমকর্মী ও অন্যান্য পেশার মোট ৬০০ জন্য ব্যক্তি আলোচনায় অংশ নেয়।

৬০০ জন পেশাজীবীর প্রত্যক্ষ আলোচনায় ১৪৯ জন সাংসদের নাম এসেছে। টিআইবি কিছু কিছু ক্ষেত্রে তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করেছে। তাই প্রতিবেদনটিকে ধারণাভিত্তিক বলা যাবে না।

আলোচিত সাংসদদের মধ্যে ৯৭ শতাংশ নেতিবাচক কাজের সঙ্গে জড়িত বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এদের মধ্যে ২৭ জন মন্ত্রী/প্রতিমন্ত্রী, সাতজন নারী সদস্য এবং বিরোধী দলের পাঁচজন সদস্যও আছে।

অভিযোগের ধরন সম্পর্কে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আলোচিত সাংসদদের ৮১ দশমিক ৮ শতাংশ প্রশাসনিক কাজে সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং বদলি ও নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করে। এসব সাংসদের বিরুদ্ধে খুব কম ক্ষেত্রে মামলা হয়েছে। কোথাও কোথাও সাংসদেরা পাল্টা মামলা করেছে। কোন কোন ক্ষেত্রে সাংসদদের চাপে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের বদলি করা হয়েছে।

উল্লিখিত সাংসদদের ৭৬ দশমিক ৯ শতাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার, কমিটি নিয়ন্ত্রণ, পছন্দের সদস্য নির্বাচন, শিক্ষক নিয়োগ নিয়ন্ত্রণ, অর্থের বিনিময়ে চাকরি দেয়া, কমিশনের বিনিময়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তি করা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বরাদ্দের অপব্যবহার ইত্যাদি দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। এসব অনিয়মের ঘটনায় সাংসদের হাতে শিক্ষক লাঞ্ছিত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে।

১৪৯ সাংসদের ৭৫ দশমিক ৫ শতাংশ উন্নয়ন বরাদ্দের অপব্যবহার করেছেন। এর মধ্যে স্থানীয় উন্নয়নকাজে ব্যক্তিগত ও পারিবারিক সুবিধা নেয়া, নিজস্ব কর্মীদের সুবিধা দেয়া, ভুয়া প্রকল্প ও প্রতিষ্ঠানের নামে বরাদ্দ নেয়া, টিআর ও কাবিখা বিতরণে অনিয়ম ইত্যাদি আছে। এসব সাংসদের মধ্যে ৭৮ দশমিক ৭ শতাংশ বরাদ্দ অনুমোদন দিতে গিয়ে কমপক্ষে ৫ শতাংশ হারে কমিশন আদায় করে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে বেশি কমিশনের বিনিময়ে দলীয় কর্মীদের কাজ না দিয়ে অন্য দলের কর্মীদের দেয়া হয়।

এই সাংসদদের ৭০ দশমিক ৬ শতাংশ হত্যা, খাসজমি দখল, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি ও প্রতারণার সঙ্গে জড়িত। এদের মধ্যে ৫৩ দশমিক ৫ শতাংশ সাংসদ নিজেরাই বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কাজের সঙ্গে জড়িত। এসব সাংসদের মধ্যে মাত্র ২৪ দশমিক ১ শতাংশের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা হয়েছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সাংসদের প্রভাবের কারণে সংশ্লিষ্ট থানা মামলা গ্রহণ করেনি।

সাংসদদের ৬৯ দশমিক ২ শতাংশ জেলা পর্যায়ের সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের কেনাকাটায় প্রভাব বিস্তার করে থাকে। এদের মধ্যে ৭১ দশমিক ৭ শতাংশ সাংসদ নিজের, কিংবা আত্মীয়-স্বজনের কিংবা অন্যের লাইসেন্স ব্যবহার করে ঠিকাদারি ব্যবসা পরিচালনা করে। তারা দরপত্র কিনতে বা জমা দিতে বাধা দেয়া, সমঝোতার মাধ্যমে কাজ বণ্টনের সঙ্গে জড়িত। ৬২ দশমিক ২ শতাংশ সাংসদ নির্বাচনী আইন লঙ্ঘন এবং ৮ দশমিক ৪ শতাংশ সাংসদ মিথ্যা তথ্য দিয়ে প্লট বরাদ্দ নেয়ার সঙ্গে জড়িত।”

উল্লেখ্য, সংসদ সদস্য বা এমপি হিসেবে প্রচলিত ধারণায় শুধু সংসদের সদস্য হিসেবে কল্পনা করা হয়। যাদের কাজ এলাকার উন্নয়ন বলে ধারণা করা হয়। আসলে সংসদ সদস্যের কাজ কিন্তু শুধু তা নয়। সংসদ সদস্য অর্থ হলো আইনসভার সদস্য অথবা আইন প্রণেতা তথা খধি গধশবৎ।

বাংলাদেশ সংবিধানের ৬৫ (১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘জাতীয় সংসদ’ নামে বাংলাদেশের একটি সংসদ থাকিবে এবং এই সংবিধানের বিধানাবলী-সাপেক্ষে প্রজাতন্ত্রের আইন প্রণয়ন ক্ষমতা সংসদের উপর ন্যস্ত হইবে।’

এক্ষেত্রে সংসদ সদস্যরা কত বড় মহান দায়িত্ব পালন করে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা এবং সংসদ সদস্য হিসেবে তাদের পবিত্র শপথ ও করতে হয়। প্রসঙ্গত এই শপথের ধারাভাষ্য নি¤œরূপ :

“আমি…………………সংসদ সদস্য নির্বাচিত হইয়া সশ্রদ্ধচিত্তে শপথ (বা দৃঢ়ভাবে ঘোষণা) করিতেছি যে, আমি যে কর্তব্যভার গ্রহণ করিতে যাইতেছি, তাহা আইন-অনুযায়ী ও বিশ্বস্ততার সহিত পালন করিব; আমি বাংলাদেশের প্রতি অকৃত্রিম বিশ্বাস ও আনুগত্য পোষণ করিব এবং সংসদ-সদস্যরূপে আমার কর্তব্য পালনকে ব্যক্তিগত স্বার্থের দ্বারা প্রভাবিত হইতে দিব না।”

উল্লেখ্য, এই শপথ গ্রহণ ব্যতিরেকে কোন সংসদ সদস্য তার কার্যভার শুরু করতে পারে না। করলে তা আইনগত দ-নীয় হয়। বাংলাদেশ সংবিধানের ৬৯ নম্বর অনুচ্ছেদে বর্ণিত হয়েছে :

“কোন ব্যক্তি এই সংবিধানের বিধান অনুযায়ী শপথ গ্রহণ বা ঘোষণা করিবার এবং শপথপত্রে বা ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষরদান করিবার পূর্বে কিংবা তিনি সংসদ-সদস্য হইবার যোগ্য নহেন বা অযোগ্য হইয়াছেন জানিয়া সংসদ সদস্যরূপে আসন গ্রহণ বা ভোটদান করিলে তিনি প্রতি দিনের অনুরূপ কার্যের জন্য প্রজাতন্ত্রের নিকট দেনা হিসাবে উসুলযোগ্য এক হাজার টাকা করিয়া অর্থদণ্ডে দণ্ডনীয় হইবেন।”

অর্থাৎ প্রতি সংসদ সদস্যের জন্যই শপথ একটি বড় বিষয়। এ শপথের মধ্যে বিদ্যমান রয়েছে আইন অনুযায়ী ও বিশ্বস্ততার সাথে দায়িত্ব পালন করার কথা। এ শপথে সংযুক্ত রয়েছে সংসদ সদস্যরূপে কর্তব্য পালনকে ব্যক্তিগত স্বার্থের দ্বারা প্রভাবিত না করার কথা। কিন্তু প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ৯৭ ভাগ সংসদ সদস্য শুধু কৃত শপথ বা ওয়াদাই ভঙ্গ করেনি উল্টো তারা নিজেরাই হত্যা, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, দখল ইত্যাদি মারাত্মক ফৌজদারী অপরাধে জড়িত হয়ে গেছে।

অনেকেই এটা গণতন্ত্রের জন্য হুমকি বলে মন্তব্য করেছে। আসলে এটা গণতন্ত্রের জন্য হুমকি নয়, বরং এটা গণতন্ত্রের জন্মগত গলদ। স্বভাবজাত ত্রুটি। আজ পর্যন্ত এমন কোন কথিত গণতান্ত্রিক সরকার দেখানো যাবেনা যেখানে সংসদ সদস্য কেন? মন্ত্রী অথবা খোদ প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত কৃত শপথ অক্ষরে অক্ষরে পালন করেছে। অর্থাৎ তারা প্রত্যেকেই শপথ ভঙ্গকারী। গণতন্ত্রের গণধারাটাই এমন।

প্রকাশিত প্রতিবেদন আমাদেরকে গণতন্ত্রের গণগলদটিই চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে। সঙ্গতকারণেই গণতন্ত্রের নামে গণধোঁকার শাসন আর চলতে পারেনা। গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে বললেই যারা অগ্নিশর্মা হয়ে উঠে তাদেরকে মনে রাখতে হবে গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে বলাও গণতান্ত্রিক অধিকার। গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে বলিয়া যদি গণস্বার্থ রচনা করা যায় তা হলে সেটাও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া। কাজেই মূর্খ গণতন্ত্রীদের সম্পর্কে গণসচেতনতা অর্জন করতে হবে। গণতন্ত্রের ফাঁকাবুলি নিয়ে গণমানস আর বুঁদ হয়ে থাকতে পারেনা। গণতন্ত্রের আইন প্রণেতারাই যখন সরাসরি ফৌজদারী অপরাধে জড়িত হয়ে পড়ে তখন শুধু আইন প্রণেতাদের অপরাধ প্রবণতাই প্রতিভাত হয়না খোদ গণতন্ত্রই অপরাধী প্রমাণিত হয়। এই প্রমাণিত সত্য দেশ-জাতি ও জনগণ যত দ্রুত বুঝবে ততই তাদের জন্য রহমত, খায়ের, বরকত।

মূলত এসব অনুভূতি ও দায়িত্ববোধ আসে  ঈমান ও ইসলাম উনাদের অনুভূতি ও প্রজ্ঞা থেকে। আর তার জন্য চাই নেক ছোহবত তথা ফয়েজ, তাওয়াজ্জুহ। যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, যামানার মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার নেক ছোহবতেই সে মহান ও অমূল্য নিয়ামত হাছিল সম্ভব। মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদের তা নছীব করুন। (আমীন)

-মুহম্মদ মাহবুবুর রহমান

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক