চাঁদ দেখা ও নতুন চন্দ্রতারিখ নিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনা (৬০)

সংখ্যা: ২২০তম সংখ্যা | বিভাগ:

(বর্তমান সংখ্যার আলোচনা)

লোক দেখানো অনুষ্ঠান আমাদের চারপাশে অনেক হয়ে থাকে। ইংরেজীতে একটি কাব্য ব্যবহৃত হয় ঝযড়ি নঁংরহবংং। কিন্তু প্রায়শই লোক দেখানো অনুষ্ঠানের মাঝেও একট ঘটনা থাকে, ঘটনার সত্যতা থাকে। যেমন অনেক টাকা দিয়ে বড় একটি গরু কিনে এনে সেই গরুর ছবিসহ কুরবানীর দৃশ্য ধারণ, তারপর প্রদর্শনের মাঝে লোক দেখানোর বিষয় থাকলেও, গরুটি যবেহ হয়, গোশত খাওয়া হয় এ বিষয়গুলো সত্য। কিন্তু শতভাগ লোক দেখানো আয়োজন যে হতে পারে তার প্রমাণ সউদী সরকারের চাঁদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। সউদী আরবে চাঁদ তালাশের জন্য ছয়টি প্রদেশে ছয়টি চাঁদ দেখা কমিটি রয়েছে। সেখানে রয়েছে মহাকাশ বিজ্ঞানী, পর্যবেক্ষক, মাওলানা (কাজী) এবং আরও অনেকে। কিন্তু প্রতি বছর প্রতি মাসে এমনকি পবিত্র যিলহজ্জ মাসে সউদী কর্তৃপক্ষ এসকল কমিটির চাঁদের রিপোর্টকে অগ্রাহ্য করে মনগড়াভাবে আরবী মাসের তারিখ ঘোষণা করে যাচ্ছে। তাহলে এটাতো বলতেই হয় যে তাদের এই চাঁদ দেখা কমিটির আয়োজনের নেপথ্যে আসলে শুধু শতভাগ লোক দেখানো মানসিকতা ছাড়া আর কিছুই নেই। ইসলাম এমনি একটি দ্বীন যেখানে খুলূছিয়াত ছাড়া পূর্ণতা হাছিল করা যায় না। সেই মহান পবিত্র দ্বীন উনার মধ্যে যারা লোক দেখানো আয়োজনে পারদর্শী তারা কি তবে মুসলমান? যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকেই অগনিত মুসলমান উনাদের জীবনের কষ্টার্জিত অর্থ খরচ করে পবিত্র মক্কা শরীফ যান পবিত্র হজ্জ পালন করতে। অথচ সউদী সরকারের উদাসীনতা, হেয়ালিপনা বরং ইচ্ছাকৃত প্রতারণার কারণে সকল হাজী সাহেবগণের হজ্জ বাতিল হয়ে যাচ্ছে প্রতি বছর। আর এই ঘটনা ঘটাতে তাদের প্রয়োজন হয় শুধু একটি মিথ্যা ঘোষণার। সেই ঘোষণায় থাকে যেদিন চাঁদ দেখা যায় না সেদিন দেখা যাবার দাবি আর যেদিন দেখা যায় সে তারিখ পরিবর্তনের দাবি। সুতরাং বিশ্বের সকল মুসলমানগণের সউদী সরকারের এহেন আচরণের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ আন্দোলন করা ফরয ওয়াজিব।

বাংলাদেশের জন্য ১৪৩৪ হিজরীর পবিত্র ছফর মাসের চাঁদের রিপোর্ট

বাংলাদেশের স্থানীয় সময় অনুযায়ী জিরো মুন (অমাবস্যা) সংঘটিত হবে ১৫ সাবি’, ১৩৮০ শামসী সন, ১৩ ডিসেম্বর ২০১১, খমীসি (বৃহস্পতিবার), দুপুর ২টা ৪১ মিনিটে। বাংলাদেশে পবিত্র ছফর মাসের চাঁদ তালাশ করতে হবে ১৬ সাবি’, ১৩৮০ শামসী সন, ১৪ ডিসেম্বর, জুমুয়াতি (শুক্রবার) ২০১২ সন্ধ্যায়। সেদিন ঢাকায় সূর্যাস্ত ৫টা ১৪ মিনিটে এবং চন্দ্রাস্ত ৬টা ২৭ মিনিটে। অর্থাৎ সূর্যাস্ত এবং চাঁদাস্তের সময়ের পার্থক্য ১ ঘন্টা ১৩ মিনিট। সূর্যাস্তের সময় চাঁদ দিগন্তরেখার প্রায় ১৪ ডিগ্রী ২৯ মিনিট উপরে অবস্থান করবে এবং চাঁদ খুঁজতে হবে ২৪০ ডিগ্রী আজিমাতে। সূর্যের আজিমাত হবে ২৪৪ ডিগ্রি। সেদিন চাঁদ দেখার যথেষ্ট সম্ভবনা রয়েছে।

 

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল হাসান

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক