চাঁদ দেখা ও নতুন চন্দ্রতারিখ নিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনা-৪০

সংখ্যা: ২০০তম সংখ্যা | বিভাগ:

বর্তমান সংখ্যার আলোচনা: ইহুদীদের মদদপুষ্ট হয়ে এবং সউদী ওহাবী শাসকগোষ্ঠীর অর্থে সাহায্যপ্রাপ্ত হয়ে সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের অলীক স্বপ্ন নিয়ে একটি ভুঁইফোঁড় সংগঠন সারা দেশে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

জবধষ ঐরুৎর ঈধষবহফধৎ ওসঢ়ষবসবহঃধঃরড়হ ঈড়ঁহপরষ ইধহমষধফবংয  নামে এই সংগঠনটি সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের পক্ষে নানা প্রচারণা চালাচ্ছে। সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের পক্ষে (অর্থাৎ সারা বিশ্বে একদিনে ঈদ পালন করার পক্ষে) তারা ৯০টি খোঁড়া যুক্তি দাঁড় করিয়েছে। আমরা ধারাবাহিকভাবে তাদের বর্ণিত শরীয়তের খিলাফ এই মনগড়া যুক্তির শরীয়তসম্মত এবং সঠিক মতামত প্রকাশ করবো ইনশাআল্লাহ। যেন সাধারণ মুসলমানগণ চাঁদের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তিতে না পড়ে। তারা লিখেছে-

পূর্ব প্রকাশিতের পর

১৯. অনুবাদ: রমাদ্বান মাসে ২৭-২৮টি অথবা ৩১-৩২টি রোযা পালন করার কোন সুযোগ নেই।

২০. অনুবাদ: ঈদের দিনে রোযা পালন করা হারাম এবং সারা পৃথিবীতে ক্বদরের রাত একটি।

১৯ নম্বর মন্তব্যের জবাব: দুঃখজনক হলেও সত্য অনেক তথাকথিত মুসলিম দেশ রয়েছে যারা মাস গণনাতে ক্যালকুলেশন পদ্ধতি ব্যবহার করে। যেমন- লিবিয়া, মালয়েশিয়া ইত্যাদি। আবার অনেক দেশ রয়েছে যারা চাঁদ দেখার আয়োজনের কথা প্রচার করলেও বাস্তবে দেখা যায় চাঁদ না দেখে এবং প্রয়োজনে মিথ্যা সাক্ষী যোগাড় করে আরবী মাসের তারিখ ঘোষণা করে। উদাহরণে রয়েছে- সউদী আরব, ইন্দোনেশিয়া, নাইজেরিয়া ইত্যাদি। সুতরাং যেদিন প্রকৃতপক্ষে মাস শুরু হবার কথা তার ১ দিন কখনো ২ দিন পূর্বে এদেশগুলো মাস শুরু করে। ফলে সে দেশগুলোর মুসলমানগণ বাস্তবে ২৯টি বা ৩০টি রোযা রাখলেও আদায় হবে মাত্র ২৭টি বা ২৮টি।

তাহলে বলতে হবে শরীয়তে ২৭ বা ২৮টি রোযার রাখার কোন নির্দেশ না থাকলেও উলামায়ে ছূ’দের প্ররোচনায় এবং বিভ্রান্ত শাসকদের মনগড়া সিদ্ধান্তের কারণে বিভিন্ন মুসলিম দেশে ২৭-২৮টি রোযা পালিত হচ্ছে। আর এর মূল কারণ হচ্ছে চাঁদ না দেখে আরবী মাস শুরু করা। সুতরাং তথাকথিত ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের নিকট অনুরোধ সউদী আরব, মালয়েশিয়া, ইন্দেনেশিয়া, লিবিয়া, মিসর, নাইজেরিয়া এসব দেশের ঘোষিত চাঁদের তারিখ নিয়ে গবেষণা করুন; তখনই এর সত্যতা উপলব্ধিতে আসবে। মুসলিম দেশ বলেই আবেগতাড়িত হবার কিছু নেই। এসব দেশে রয়েছে ইহুদীদের অনুচর যারা সুকৌশলে মুসলমানগণের ঈমান-আক্বীদা নষ্টে ব্যস্ত রয়েছে।

২০ নম্বর মন্তব্যের জবাব: শরীয়তে রয়েছে ৫ দিন রোযা রাখা হারাম। ২ ঈদের দিন এবং কুরবানীর ঈদের পরের ৩ দিন। সেদিক থেকে অবশ্যই ঈদের দিন রোযা পালন করা হারাম। কিন্তু তথাকথিত ইঞ্জিনিয়ার সাহেব যা বোঝাতে চাচ্ছেন তা হচ্ছে সউদী আরব বা অন্যকোন দেশ যখন প্রথম চাঁদ দেখে ঈদ পালন করবে তখন অন্য কোন দেশ শাওওয়ালের চাঁদ না দেখলেও তাদেরকে ঈদ পালন করতে হবে। নাঊযুবিল্লাহ! অর্থাৎ তিনি ইঙ্গিত দিচ্ছেন ‘ওয়াহদাতাল মাতলার’ উপর। ওয়াহদতাল মাতলার বিষয়টি হচ্ছে পৃথিবীর কোথাও চাঁদ দেখা গেলে সে চাঁদ দেখার হুকুম সারা বিশ্বের জন্য প্রযোজ্য হবে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে এই মত শরীয়তসম্মত নয়।

অর্থাৎ এ আলোচনা থেকে যা স্পষ্ট তা হচ্ছে সউদী আরব বা অন্যকোন দেশ চাঁদ না দেখে বা কখনো চাঁদ দেখেই ঈদ পালন করলে অন্য কোন দেশ যেমন বাংলাদেশ যদি চাঁদ দেখতে না পায় তবে তাদের ঈদের দিনেও বাংলাদেশের মুসলমানগণ রোযা রাখতে পারবে এবং এটাই শরীয়তের নির্দেশ। সুতরাং কোন দেশে ঈদ পালন শুরু হলেই অন্য দেশ রোযা রাখতে পারবে না এ ধারণাটি সঠিক নয়। সবশেষে তথাকথিত ইঞ্জিনিয়ার যা বলেছে, সারা পৃথিবীতে ক্বদরের রাত একটি- এ বিষয়টি ব্যাখ্যা সাপেক্ষ। কোনস্থানে রমাদ্বান মাসের চাঁদ দৃশ্যমান হবার পর সে দেশের পশ্চিমের সকল দেশগুলোতে আকাশ পরিষ্কার থাকলে এবং চাঁদ দেখা গেলে পর্যায়ক্রমে ক্বদরের রাত সকল দেশেই আসতে থাকবে। কিন্তু কোন একটি দেশের আকাশ মেঘলা থাকার কারণে চাঁদ দেখা না গেলে সে দেশে ক্বদরের রাতটি পরিবর্তিত হবে। এবং এটা মনে করার কোন সুযোগ নেই যে এই ভিন্ন তারিখের জন্য মহান আল্লাহ পাক রহমত, বরকত পাঠাতে সক্ষম নন বা পাঠাবেন না। নাঊযুবিল্লাহ! কেননা মহান আল্লাহ পাক যখন ইচ্ছা তখনই রহমতে খাছ নাযিল করতে পারেন এবং করেন।

 

বিশ্বের জন্য ১৪৩১ হিজরীর পবিত্র

শাওওয়াল মাসের চাঁদের রিপোর্ট

 

জিরো মুন (অমাবস্যা) সংঘটিত হবে ৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১০, বুধবার,  সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে (আন্তর্জাতিক সময় অনুযায়ী)।

অমাবস্যার দিন সউদী আরবে পবিত্র শাওওয়াল মাসের চাঁদ দেখা যাবার কোন সম্ভাবনা নেই।

 

বাংলাদেশের জন্য ১৪৩১ হিজরীর পবিত্র

শাওওয়াল মাসের চাঁদের রিপোর্ট

 

বাংলাদেশের স্থানীয় সময় অনুযায়ী জিরো মুন (অমাবস্যা) সংঘটিত হবে ০৮ই সেপ্টেম্বর, ২০১০, বুধবার বিকাল ৪টা ৩০ মিনিটে।

বাংলাদেশে পবিত্র শাওওয়াল মাসের চাঁদ তালাশ করতে হবে ৯ই সেপ্টেম্বর, ২০১০, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়।

সেদিন ঢাকায় সূর্যাস্ত ৬টা ৯ মিনিটে এবং চন্দ্রাস্ত ৬টা ৩৪ মিনিটে। অর্থাৎ সূর্যাস্ত এবং চন্দ্রাস্তের সময়ের পার্থক্য ২৬ মিনিট। সূর্যাস্তের সময় চাঁদ দিগন্তরেখার প্রায় ৬ ডিগ্রি উপরে অবস্থান করবে এবং চাঁদ খুঁজতে হবে ২৬০ ডিগ্রি আজিমাতে। সেদিন চাঁদ দেখার সম্ভাবনা ক্ষীণ।

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক