কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান বা শবে বরাত-এর আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-৬

সংখ্যা: ২০০তম সংখ্যা | বিভাগ:

পূর্ব প্রকাশিতের পর

 

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিখ্যাত তাফসীর “তাফসীরে রুহুল মায়ানী”-এর ১৩তম খ-ের ১১০-১১১ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(৭২-৭৭)

وقال عكرمة وجماعة: هى ليلة النصف من شعبان وتسمى ليلة الرحمة والليلة المباركة وليلة الصك وليلة البراءة … وذكروا فى فضل هذه الليلة اخبارا كثيرة منها ما اخرجه ابن ماجه والبيهقى فى شعب الايمان عن على كرم الله وجهه رضى الله تعالى عنه قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم اذا كانت ليلة النصف من شعبان فقوموا ليلها وصوموا نهارها فان الله تعالى ينزل فيها لغروب الشمس الى السماء الدنيا فيقول الا مستغفر فاغفرله الا مسترزق فارزقه الا مبتلى فاعافيه الا كذا الاكذا حتى يطلع الفجر.

وما اخرجه الترمذى وابن ماجه ابى شيبة البيهقى وابن ماجه عن عائشة عليها السلام قالت فقدت رسول الله صلى الله عليه وسلم ذات ليلة فخرجت اطلبه فاذا هو بالبقيع رافعا رأسه الى السماء فقال يا عائشة عليها السلام أكنت تخافين ان يحيف الله تعالى عليك ورسوله؟ فقلت مابى من ذالك ولكن ظننت أنك أتيت بعض نسائك فقال ان الله تعالى عزوجل ينزل ليلة النصف من شعبان الى السماء الدنيا فيغفر لاكثر من عدد شعر غنم كلب.

وما اخرجه احمد بن حنبل فى المسند عن عبد الله ابن عمرو بن العاص ان رسول الله صلى الله عليه وسلم قال يطلع الله تعالى الى خلقه ليلة النصف من شعبان فيغفر لعباده الا الاثنين مشاحن وقاتل نفس.

অর্থ: হযরত ইকরামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু ও হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের একটি জামায়াত বলেন, ‘লাইলাতুম মুবারাকা’ দ্বারা উদ্দেশ্য হচ্ছে অর্ধ শা’বান তথা ১৫ শা’বানের রাত তথা শবে বরাত। ১৫ শা’বানের  রাতকে লাইলার্তু রহমত তথা রহমতের রাত হিসেবে নামকরণ করা হয়েছে এবং লাইলাতুম মুবারাকা তথা বরকতের রাত হিসেবেও নামকরণ করা হয়েছে এবং লাইলাতুছ ছক্ক তথা চেক বা রসিদ কাটার রাত হিসেবেও নাম করণ করা হয়েছে এবং লাইলাতুল বারায়াত তথা মুক্তি বা ভাগ্যের রাত হিসেবেও নামকরণ করা হয়েছে।

..উনারা সকলে এই শবে বরাতের ফযীলতের ব্যাপারে অসংখ্য হাদীছ শরীফ বর্ণনা করেছেন। তন্মধ্যে যেটা হযরত ইমাম ইবনে মাজাহ এবং হযরত ইমাম বাইহাক্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি ‘শুয়াবুুল ঈমান’-এর মধ্যে হযরত আলী কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহু রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণনা করেন। হযরত আলী কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহু রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি ইরশাদ করেন, আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, যখন অর্ধ শা’বানের রাত আগমন করে তখন তোমরা (ইবাদতে) রাত্রি জাগরণ কর এবং দিনের বেলায় রোযা রাখ। কেননা, মহান আল্লাহ পাক ওই শবে বরাতে সূর্য ডোবার সঙ্গে সঙ্গে দুনিয়ার আকাশে নেমে আসেন অর্থাৎ রহমতে খাছ নাযিল করেন।

অতঃপর বলেন, সাবধান! কে আছো ক্ষমাপ্রার্থী? আমি আজ তাকে ক্ষমা করে দিব। কে আছো রিযিক তালাশকারী? আজ আমি তার রিযিক (পর্যাপ্ত) দিয়ে দিব। কে আছ রোগী? আমি তার রোগ মাফ করে দিব। (সাবধান! সাবধান!) জেনে রাখ, জেনে রাখ। এভাবেই ফজর পর্যন্ত ডাকতে থাকেন।

অতঃপর হযরত ইমাম তিরমিযী রহমতুল্লাহি আলাইহি হযরত ইমাম ইবনে আবি শাইবা রহমতুল্লাহি আলাইহি, হযরত ইমাম বাইহাক্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি, হযরত ইমাম ইবনে মাজাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি, উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণনা করেন। উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম তিনি ইরশাদ করেন, আমি একদা রাত্রিকালে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে হারিয়ে ফেললাম অর্থাৎ দেখতে না পেয়ে তালাশ করার জন্য আমি ঘর থেকে বের হয়ে উনাকে জান্নাতুল বাকীতে আকাশের দিকে মাথা মুবারক উঠানো অবস্থায় দেখতে পেলাম। তিনি আমাকে উদ্দেশ্য করে বললেন, হে উম্মুল মু’মিনীন আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম! আপনি কি আশঙ্কা করেতেছিলেন যে, আল্লাহ পাক এবং উনার রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আপনার (আমানত) খিয়ানত করছেন? উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়িশা ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম জাওয়াবে বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমি মনে করেছিলাম হয়তোবা আপনি আপনার অন্যান্য উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের হুজরা শরীফ-এ তাশরীফ নিয়েছেন। অতঃপর আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক ১৫ই শা’বানের রাতে দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন এবং বনী কলব গোত্রের ছাগলের লোমের সংখ্যা পরিমাণ থেকেও অধিক সংখ্যক গুনাহগার বান্দাদের মহান আল্লাহ পাক ক্ষমা করে দেন। সুবহানাল্লাহ!

হযরত ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার মুসনাদে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর ইবনুল আস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণনা করেন যে, নিশ্চয়ই হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, মহান আল্লাহ পাক অর্ধ শা’বান তথা শবে বরাতে বান্দাদের উদ্দেশ্যে আসেন অর্থাৎ রহমতে খাছ নাযিল করেন এবং উনার অসংখ্য বান্দাদেরকে ক্ষমা করার কথা ঘোষণা করেন। তবে হিংসুক এবং মুসলমানকে হত্যাকারী ব্যতীত।

“তাফসীরে রুহুল মায়ানী” কিতাবের ১৩তম খ-ের ১১২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে-

(৭৮)

ووصف الليلة بالبركة لما أن انزال القران مستتبع للمنافع الدينية والدنوية بأ جمعها أو لما فيها من تنزل الملائكة والرحمة واجابة الدعوة وفضيلة العبادة او لما فيها من ذلك وتقدير الأرزاق وفضل الأقضية لاجال وغيرها واعطاء تمام الشفاعة له عليه الصلاة والسلام وهذا بناء على أنها ليلة البراءة فقد روى أنه صلى الله تعالى عليه وسلم سأل ليلة الثالث عشر من شعبان فى أمته فأعطى الثلث منها ثم سأل ليلة الرابع عشر فأعطى الثلثين ثم سأل ليلة الخامس عشر فاعطى الجميع الا من شرد على الله تعالى شراد البعير.

 

অর্থ: “লাইলাতুল মুবারাকাকে বরকতের রাত হিসেবে এজন্যই গুনান্বিত করা হয়েছে যেহেতু পবিত্র কুরআন শরীফ দ্বীনি এবং দুনিয়াবী বহুবিদ কল্যাণের জন্যই (ঐ রাতেই) অবতীর্ণ হয়েছে। সমস্ত ফেরেশ্তাগণ উনারা অবতরণ করেন এবং রহমত নাযিল হয়, বান্দাদের দোয়া কবুল করা হয়। বান্দাদের মর্যাদা বৃদ্ধি করা হয় এবং যেহেতু ঐ রাতেই বান্দাদের রিযিক্ব বন্টন করা হয় এবং সমস্ত কিছুর ভাগ্যসমূহ পৃথক করা হয়। যেমন মৃত্যু এবং অন্যান্য সব বিষয়ের। এবং হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার সমস্ত বিষয়ের সুপারিশ কবুল করা হয়। আর এই বরকতের রাতকে বরাতের রাত হিসেবেও নাম করা হয়। যেহেতু এ সম্পর্কে হাদীছ শরীফে বর্ণিত আছে যে, আখিরী রসূল, হাবীবুল্লাহু হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি শা’বান মাসের ১৩ তারিখ রাতে স্বীয় উম্মতের ক্ষমার জন্য আল্লাহ পাক-উনার কাছে প্রার্থনা করেন। অতঃপর সেই রাতে মহান আল্লাহ পাক হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার উম্মত থেকে এক তৃতীয়াংশ উম্মতকে ক্ষমা করেন। সুবহানাল্লাহ!

অতঃপর অনুরূপভাবে শা’বান মাসের ১৪ তারিখের রাতে আল্লাহ পাক-উনার কাছে প্রার্থনা করেন তখন সেই শবে বরাতে মহান আল্লাহ পাক উনার উম্মতের দুই তৃতীয়াংশ উম্মতকে ক্ষমা করেন। অতঃপর অনুরূপভাবে ১৫ই শা’বান তথা শবে বরাতেও মহান আল্লাহ পাক-উনার কাছে, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার উম্মতের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেন তখন মহান আল্লাহ পাক তিনি সেই শবে বরাতে উনার সমস্ত উম্মতগণকে ক্ষমা করে দেন।  তবে ওই সমস্ত লোক ব্যতীত যারা মহান আল্লাহ পাক-উনার ব্যাপারে চরম বিভ্রান্তিতে পতিত হয়েছে।

“তাফসীরে রহুল মায়ানী” -কিতাবের ১৩তম খ-ের ১১৩ পৃষ্ঠায় আরো উল্লেখ আছে-

(৭৯-৮২)

ان الليلة المباركة هى ليلة البراءة اخرج ابن جرير وابن المنذر ابن ابى حاتم من طريق محمد بن سوقة عن عكرمة انه قال فى الاية فى ليلة النصف من شعبان يبرم امر السنة وينسخ الاحياء من الاموات ويكتب الحاج فلا يزاد فيهم ولا ينقص منهم احد وفى كثير من الاخبار الاقتصار على قطع الاجال اخرج ابن جرير والبيهقى فى شعب الايمان عن الزهرى عن عثمان محمد بن المغيرة بن الاخفش قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم تقطع الاجال من شعبان الى شعبان حتى ان الرجل لينكح ويولد له وقد خرج اسمه فى الموتى. واخرج الدينورى فى المجالسة عن راشد بن سعد ان النبى صلى الله عليه وسلم قال فى ليلة النصف من شعبان يوحى الله تعالى الى ملك الموت بقبض كل نفس يريد قبضها فى تلك السنة (نحوه كثير) وقيل يبدأ ان فى استنساخ كل أمر حكيم من اللوح المحفوظ فى ليلة البراءة ويقع الفراغ فى ليلة القدر فتدفع نسخة الارزاق الى ميكائيل عليه السلام ونسخة الحروب الى جبرائيل عليه السلام وكذالك الزلازل والصواعق والخسف ونسخة الاعمال الى اسماعيل عليه السلام صاحب سماء الدنيا وهو ملك عظيم ونسخة المصائب الى ملك الموت وروى عن ابن عباس رضى الله تعالى عنهما تقضى الاقضية كلها ليلة النصف من شعبان وتسلم الى اربابها ليلة السابع العشرين من شهر رمضان نعمر حكى عن عكرمة ان ليلة النصف من شعبان هى ليلة القدر.

অর্থ: নিশ্চয়ই লাইলাতুল মুবারকাই হচ্ছে লাইলাতুল বরাত তথা ভাগ্য রজনী। হযরত ইমাম ইবনে জারীর তাবারী রহমতুল্লাহি আলাইহি, হযরত ইবনে মুনযির রহমতুল্লাহি আলাইহি, হযরত ইবনে হাতীম রহমতুল্লাহি আলাইহি উনারা সকলেই হযরত মুহম্মদ ইবনে সাওকাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি থেকে বর্ণনা করেন। তিনি আবার প্রখ্যাত ছাহাবী হযরত ইকরামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে হাদীছ শরীফ বর্ণনা করেন। হযরত ইকরামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু এই আয়াত শরীফ-এর ব্যাপারে বলেন যে, অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাতে আগামী এক বৎসরের ভাগ্য লিপিবদ্ধকরণ হয়ে থাকে। আরো লিপিবদ্ধ করা হয় মৃত্যু ও জীবিতদের। এবং লেখা হয় হাজীদের তালিকা। তাদের ওই তালিকা থেকে কোন কমবেশি করা হয় না। আর এই শবে বরাতে মৃত্যুর সময় নির্ধারণের ব্যাপারেও অসংখ্য হাদীছ শরীফ রয়েছে।

যেমন, হযরত ইমাম ইবনে জারীর তাবারী রহমতুল্লাহি আলাইহি, হযরত ইমাম বায়হাক্বী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার “শুবুলুল ঈমান’ কিতাবে, হযরত ইমাম যুহরী রহমতুল্লাহি আলাইহি থেকে বর্ণনা করেন। তিনি আবার হযরত উছমান ইবনে মুহম্মদ ইবনে মুগীরাহ ইবনে আখফাশ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে হাদীছ শরীফ বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, মৃত্যুর নির্দিষ্ট সময় কর্তন করা হয় শা’বান মাসে তথা শবে বরাতে  তা পরবর্তী শা’বান তথা পরবর্তী শবে বরাত পর্যন্ত এর সময়সীমা থাকে, এমনকি এর মধ্যেই সেই ব্যক্তি বিবাহ করে, তার থেকে সন্তান জন্মগ্রহণ করে অথচ তার নাম বেরিয়ে আসে মৃত্যুর তালিকায়।

অনুরূপভাবে  হযরত দাইনূরী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ‘মাজালিসাত’ নামক কিতাবে হযরত রশিদ ইবনে সা’দ রহমতুল্লাহি আলাইহি থেকে হাদীছ শরীফ বর্ণনা করেছেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি মালাকুল মউত হযরত আজরাঈল আলাইহিস্ সালাম তিনি আগামী এক বৎসরে কতগুলো জীবন কবয তথা মৃত্যু ঘটাবেন এ ব্যাপারে আল্লাহ পাক উনাকে অহী করে থাকেন এই অর্ধ শা’বানে (শবে বরতে)। এরূপ অসংখ্য হাদীছ শরীফ রয়েছে।

কোন কোন মুফাসসিরীনে কিরাম উনারা বর্ণনা করেন, বরাতের রাতেই প্রত্যেক প্রজ্ঞাপূর্ণ বিষয়ের তালিকা লওহে মাহফুয থেকে আসা শুরু হয়। অতঃপর সেই তালিকা আসা শেষ হয় শবে ক্বদরে। এবং সেই ক্বদরের রাতেই তথা শবে ক্বদরেই ভাগ্যের তালিকাগুলো পেশ করা হয় কার্যকরী (ফেরেশতা উনাদের হাতে) যেমন রিযিকের তালিকা পেশ করা হয় হযরত মিকাঈল আলাইহিস সালাম-উনার হাতে। যুদ্ধ বিগ্রহ-এর তালিকা পেশ করা হয় হযরত জিবরাঈল আলাইহিস্ সালাম-উনার হাতে। অনুরূপভাবে ভূমিকম্প, বজ্রপাত, চন্দ্র এবং সূর্য গ্রহণের তালিকাও উনার হাতে পেশ করা হয়।

অনুরূপভাবে আ’মলসমূহের তালিকা পেশ করা হয় দুনিয়ার আকাশের অধিবাসী একজন বড় ফেরেশতা হযরত ইসমাঈল আলাইহিস সালাম-উনার হাতে। আর যাবতীয় মুছীবতের আমলসমূহ পেশ করা হযরত আজরাঈল আলাইহিস সালাম-উনার হাতে।

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুমা থেকে হাদীছ শরীফ বর্ণিত যে, সমস্ত ফরমানকৃত বিষয়ের ফায়ছালা করা হয় অর্ধশা’বান অর্থাৎ ১৫ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে। আর এই ফয়ছালাকৃত তালিকাসমূহ কার্যকর করার জন্য পেশ করা হয় কার্যকারী ফেরেশ্তাদের হাতে রমযান শরীফ-এর ২৭ তারিখে তথা শবে ক্বদরে।

…… হযরত ইকরামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে উত্তম বর্ণনা রয়েছে যে, অর্ধ শা’বানের রাতই হচ্ছে ভাগ্যের রাত।”

হযরতুল আল্লামা সাইয়্যিদ মাহমুদ আলুসী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার “তাফসীরে রুহুল মায়ানী” কিতাবের ১৫ খ-ের ২২১ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন-

(৮৩)

قول كثير انه النصف من شعبان وهى المراد بالليلة المباركة التى قال الله تعالى فيها يفرق كل امر حكيم واجاب بان ههنا ثلاثة اشياء الاول نفس تقدير الامور اى تعيين مقاديرها و اوقاتها وذلك فى الازل والثانى اظهار تلك المقادير للملائكة عليهم السلام تكتب فى اللوح المحفوظ وذلك فى ليلة النصف من شعبان الثالث اثبات تلك المقادير فى نسخ وتسليمها الى اربابها من المدبرات فتدفع نسخة الارزاق والنباتات والامطار الى ميكائيل عليه السلام ونسخة الحروب والرياح والجنود والزلازل والصواعق والخسف الى جبرئيل عليه السلام ونسخة الاعمال الى اسرافيل عليه السلام ونسخة المصائب الى ملك الموت وذلك فى ليلة القدر وقيل يقدر فى ليلة النصف من شعبان الاجال والارزاق وفى ليلة القدر الامور التى فيها الخير البركة السلامة.

অর্থ: “অধিকাংশ বর্ণনাকারীর মতে অর্ধ শা’বানের রাত তথা শবে বরাত দ্বারা উদ্দেশ্য হচ্ছে লাইলাতুল মুবারাকা তথা  বরকতের রাত। আর এই প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক পবিত্র কুরআন শরীফে ইরশাদ করেন, فيها يفرق كل امر حكيم “সেই রাত্রিতে প্রত্যেক হিক্বমতপূর্ণ বিষয়ের ফয়ছালা করা হয়।” এ ব্যাপারে তিনটি বিষয় উল্লেখ করা হয়, প্রথমটি হচ্ছে- যাবতীয় বিষয়ের ভাগ্যগুলো মজবুত করা হয়, তথা ভাগ্যসমূহ নির্ধারণ করা হয় এবং মৃত্যুর সময়ও নির্ধারণ করা হয়। দ্বিতীয়ত: ওই ফয়ছালাকৃত বিষয়সমূহ ফেরেশতাদেরকে প্রদর্শন করানো হয় যা লওহে মাহফুযে লিখিত আছে। এরূপ সমস্ত ভাগ্য তালিকা প্রস্তুত হয় অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে। তৃতীয়ত: ওই সমস্ত ভাগ্যলিপিসমূহ লিপিবদ্ধ করা হয়েছে তা বাস্তবায়ন করার জন্য পেশ করা বাস্তবায়নকারীদের হাতে। যেমন, রিযিকের ও যাবতীয় ফসলাদির তালিকা এবং বৃষ্টির তালিকা সমূহ পেশ করা হয় হযরত মিকাঈল আলাইহিস সালাম-উনার হাতে।

আর যুদ্ধের তালিকা, বাতাস পরিচালনার তালিকা, সাহায্যকারীদের তালিকা, ভূমিকম্প, বজ্রপাত এবং চন্দ্র ও সূর্যগ্রহণের তালিকা পেশ করা হয় হযরত জিবরাঈল আলাইহিস সালাম-উনার হাতে।

অনুরূপভাবে আমলসমূহের তালিকা পেশ করা হয় হযরত ইসরাফিল আলাইহিস সালাম-উনার হাতে। এবং মুছীবতের তালিকাও পেশ করা হয় মালাকুল মউত হযরত আজরাঈল আলাইহিস সালাম-উনার হাতে। আর এই সমস্ত বিষয় কার্যকরীকরণ তথা চালু করা হয় ক্বদর রাতে তথা শবে ক্বদরে।

কোন কোন বর্ণনাকারী বলেন অর্ধ শা’বানের রাতে তথা শবে বরাতে মৃত্যুর এবং রিযিকের তালিকা নির্ধারণ করা হয়। আর শবে ক্বদরে ওইসব বিষয়ের খায়ের, বরকত এবং সালামত নেমে আসে।

উপরোক্ত দলীলভিত্তিক আলোচনা দ্বারা এটাই প্রমাণিত হলো যে, অধিকাংশ অনুসরনীয় মুফাসসিরীণগণ উনারা ‘সূরা দুখানে’ বর্ণিত ‘লাইলাতুম মুবারাকাহ’ দ্বারা ‘লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান’ অর্থাৎ শবে বরাতকেই বুঝিয়েছেন। অর্থাৎ ‘শবে বরাত’ কুরআন শরীফ-এর আয়াত শরীফ দ্বারাই অকাট্যভাবে প্রমাণিত। অতএব শবে বরাতের বিরোধিতা করা বা শবে বরাতকে অস্বীকার করা মূলত কুরআন শরীফ-এর আয়াত শরীফকেই অস্বীকার করার নামান্তর। যা কাট্টা কুফরীর অন্তর্ভুক্ত।

 

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র

 

খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির

“ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদ-।”

 

 

কাদিয়ানী রদ!

(ষষ্ঠ ভাগ)

(কুতুবুল ইরশাদ, মুবাহিছে আয’ম, বাহরুল উলূম, ফখরুল ফুক্বাহা, রঈসুল মুহাদ্দিছীন, তাজুল মুফাস্সিরীন, হাফিযুল হাদীছ, মুফতিউল আ’যম, পীরে কামিল, মুর্শিদে মুকাম্মিল হযরতুল আল্লামা মাওলানা শাহ্ ছূফী শায়খ মুহম্মদ রুহুল আমীন রহমতুল্লাহি আলাইহি কর্তৃক প্রণীত “কাদিয়ানী রদ” কিতাবখানা (৬ষ্ঠ খ-ে সমাপ্ত) আমরা মাসিক আল বাইয়্যিনাত পত্রিকায় ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করছি। যাতে কাদিয়ানীদের সম্পর্কে সঠিক ধারণাসহ সমস্ত বাতিল ফিরক্বা থেকে আহ্লে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের অনুসারীদের ঈমান-আক্বীদার হিফাযত হয়। আল্লাহ্ পাক আমাদের প্রচেষ্টায় কামিয়াবী দান করুন (আমীন)। এক্ষেত্রে তাঁর কিতাব থেকে হুবহু উদ্ধৃত করা হলো, তবে তখনকার ভাষার সাথে বর্তমানে প্রচলিত ভাষার কিছুটা পার্থক্য লক্ষণীয়)।

(ধারাবাহিক)

ছাওয়ায়েকা-মোহরাকা, ৯৮ পৃষ্ঠা;Ñ

قال ابراهيم ابن ميسرة لطاؤس عمر بن عبد العزيز المهدى قال لا ازلم يستكمل العدل كله اى فهو من جملة المهدين وليس الموعود به اخر الزمان وقد حرم احمد وغيره بانه من المهديين المذكورين فى قوله صلى الله عليه وسلم عليكم بسنتى وسنة الخلفاء الراشدين المهدين.

এবরাহিম বেনে মাইছারা, তাউছকে বলিয়াছিলেন, ওমার বেনে আব্দুল-আজিজ মাহদী, তিনি সম্পূর্ণরূপে ন্যায় বিচার করিতে পারেন নাই, তিনিও হেদাএত প্রাপ্তদিগের অন্তর্গত ছিলেন, তিনি শেষ জামানার প্রতিশ্রুত মছিহ নহেন। আহমদ প্রভৃতি বলিয়াছেন যে, ওমার  বেনে আব্দুল আজিজ খোলাফায়ে-রাশেদীন-সংক্রান্ত হাদিছ উল্লিখিত হেদাএত প্রাপ্তদিগের অন্তর্গত।

ইহাতে বুঝা যায় যে, আভিধানিক অর্থের হিসাবে তাঁহাদিগকে মাহদী বলা সঙ্গত, কিন্তু প্রকাশ্য নাম হিসাবে তাঁহারা মাহদী নহেন। উক্ত কেতাবের ৯৯ পৃষ্টায় আছে;Ñ

“খেলাফায়ে-আব্বাছিয়া তৃতীয় খলিফা মাহদী নামে ছিলেন, তিনি উমাইয়া বংশের ওমার বেনে আব্দুল আজিজের তুল্য ন্যায়-বিচারক ছিলেন, তাঁহার নাম মোহাম্মদ ও তাঁহার পিতার নাম আব্দুল্লাহ্ ছিল, ইহাকে (আভিধানিক অর্থের হিসাবে) মাহদী বলা যাইতে পারে, কিন্তু পূর্ব্ব উল্লিখিত ছহিহ হাদিছগুলিতে হযরত ফাতেমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম-উনার বংশধর যে মাহদীর কথা আছে, তিনি পৃথক, তিনি শেষ জামানার প্রতিশ্রুত মাহদী, (হজরত) ঈছা আলাইহিস্ সালাম তাঁহার পশ্চাতে নামাজ পড়িবেন।

মূল কথা, আব্বাছিয়া খলিফার মাহদী মদিনাতে পয়দা হন নাই, তিনি হযরত ফাতেমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম উনার বংশধর নহেন, কনস্টান্টিনোপল জয় করেন নাই, ছুফইয়ানি দল তাঁহার সময়ে ভূগর্তে ধসিয়া যায় নাই, আরও বহু আলামত তাঁহার মধ্যে পাওয়া যায় নাই।

তৎপরে তিনি যে নফছে-জাকিয়ার কথা বলিয়াছেন, তিনি তো আরব ও আজমের বাদশাহি পান নাই। দুনইয়াতে ন্যায় বিচারে পূর্ণ করেন নাই ইত্যাদি বহু আলামত তাহার মধ্যে নাই। মাহদীর একটী চিহ্নও তাহার মধ্যে পাওয়া যায় নাই।

হযরত উসমান যুন নূরাইন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার আমলে কনস্টান্টিনোপল জয় হইয়াছিল। ইহা মাজমায়োল বেহারের ৩/১৪৩ পৃষ্ঠা হইতে উল্লেখ করিয়াছি। কাজেই মোহাম্মদ বেনে আব্দুল্লাহ নামক কোন বাদশাহ উহা জয় করেন নাই। এই কনস্টান্টিনোপল মুছলমানদের অধিকার হইতে বাহির হইয়া খ্রিস্টান রাজাভুক্ত হইবে, পরে শেষ জামানাতে উহা যে এমাম জয় করিবেন, তাহার নাম মাহদী ও মোহাম্মদ হইবে।

মির্জা ছাহেবের অর্থ পরিবর্তন (তাহরিক) করার আলোচনা

কোরআন ও হাদিছের স্পষ্ট অর্থ (হকিকত অর্থ) বাদ দিয়া অপ্রকৃত ও অস্পষ্ট অর্থ গ্রহণ কোন সময় জায়িয হইতে পারে?

তওজিহ, ৮৭ পৃষ্ঠা;-

لا بد للمجاز من قرينة يمنع ارادة الحقيقة عقلا او حسا او عادة او شرعا

“মাজাজের জন্য এরূপ একটী আলামত হওয়া জরুরি যাহা বিবেক, বাহ্য ইন্দ্রিয়, স্বভাব ও শরিয়ত অনুসারে হকিকি (স্পষ্ট) অর্থ গ্রহণে বাধা জন্মাইতে পারে।” (চলবে)

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমাউল উম্মাহ শরীফ ও পবিত্র ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ইসলামী মাস ও বিশেষ বিশেষ রাত, দিন, সময় ও মুহূর্তের আমলসমূহের গুরুত্ব, ফযীলত এবং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের দিবসসমূহ পালন করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-৯

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমা শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ও পবিত্র মাযহাব চতুষ্ঠয় উনাদের মধ্যে যে কোন একটি সম্মানিত ও পবিত্র মাযহাব মানা ও অনুসরণ করা ফরয ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-২৫

সুওয়াল-জাওয়াব বিভাগ

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমাউল উম্মাহ শরীফ ও পবিত্র ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ইসলামী মাস ও বিশেষ বিশেষ রাত, দিন, সময় ও মুহূর্তের আমলসমূহের গুরুত্ব, ফযীলত এবং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের দিবসসমূহ পালন করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৭ম পর্ব)

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমাউল উম্মাহ শরীফ ও পবিত্র ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ইসলামী মাস ও বিশেষ বিশেষ রাত, দিন, সময় ও মুহূর্তের আমলসমূহের গুরুত্ব, ফযীলত এবং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের দিবসসমূহ পালন করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয় ৬ষ্ঠ পর্ব)