মাশুকে মাওলা, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা ঈমান, আমল এবং নাজাতের মূল

সংখ্যা: ২৪৯তম সংখ্যা | বিভাগ:

মাশুকে মাওলা, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা ঈমান, আমল এবং নাজাতের মূল


رضوان من الله اكبر

অর্থ: খ্বালিক মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারক সবচেয়ে বড়। (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৭২)

অর্থাৎ মাখলূক্বাতের জন্য সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি মুবারক। সন্তুষ্টি মুবারক যেহেতু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, সেহেতু মহান আল্লাহ পাক উনাকে সর্বাধিক মুহব্বত করতে হবে। মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন-

والذين امنوا اشد حبا لله

অর্থ: ঈমানদারগণ মহান আল্লাহ পাক উনাকে সর্বাধিক মুহব্বত করেন (পবিত্র সূরা বাক্বারা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ১৬৫)

অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনাকে সর্বাধিক মুহব্বত করাই হচ্ছে ঈমানদার উনাদের পরিচয়। এখন বান্দা তো সরাসরি মহান আল্লাহ পাক উনার সম্পর্কে জানতে পারবে না। আর যেহেতু মহান আল্লাহ পাক উনার সম্পর্কে জানতে পারবে না, সেহেতু সর্বাধিক মুহব্বতও করতে পারবে না। আর এজন্যই মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

والله ورسوله احق ان يرضوه ان كانوا مؤمنين.

অর্থ: যদি তারা মু’মিন হয়ে থাকে, তাহলে তাদের দায়িত্ব-কর্তব্য হচ্ছে মহান আল্লাহ পাক উনাকে এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে সন্তুষ্ট করা, কেননা উনারাই সন্তুষ্টি প্রাপ্তির সর্বাধিক হক্বদার। (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৬২)

অর্থাৎ, মু’মিন হতে হলে শুধু মহান আল্লাহ পাক উনার মুহব্বতই যথেষ্ট নয়। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি উনাকেও মুহব্বত করতে হবে। অন্য কথায়, ঈমানদার হতে হলে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুহব্বত মুবারক অন্যতম শর্ত। কারণ মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

النبى اولى بالـمؤمنين من انفسهم

অর্থ: নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মু’মিনগণ উনাদের নিকট সর্বাধিক প্রিয়। (পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৬)

অর্থাৎ ঈমানদারগণ উনাদের পরিচয় হচ্ছে, উনারা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সমস্ত কিছুর চেয়ে বেশি মুহব্বত করবেন। আর এ বিষয়টি আরো সুস্পষ্ট করে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে-

عن حضرت انس رضى الله تعالى عنه ان رسول الله صلى الله عليه و سلم قال لا يؤمن احدكم حتى اكون احب اليه من والده وولده والناس اجمعين

অর্থ: হযরত আনাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আমাকে নিজের পিতা-মাতা, সন্তান এবং সমস্ত মানুষ হতে অধিক মুহব্বত না করা পর্যন্ত তোমাদের কেউই কস্মিনকালেও ঈমানদার হতে পারবে না। (বুখারী শরীফ)

অর্থাৎ, মু’মিন হতে হলে মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত করতে হবে। আর মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত করতে হলে আগে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সর্বাধিক মুহব্বত করতে হবে। এখন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে মুহব্বত করতে হলে উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে সর্বাধিক মুহব্বত করতে হবে। কারণ, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

قل لا اسئلكم عليه اجرا الا الـمودة فى القربى.

অর্থ: হে হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি মাখলূক্বাতকে বলে দিন, তোমাদের কাছে কোন কিছুরই প্রতিদান বা বিনিময় চাওয়া হচ্ছে না। প্রতিদান বা বিনিময় দেয়া তোমাদের পক্ষে সম্ভবও নয়। প্রতিদান বা বিনিময় দেয়ার ইচ্ছা করাও তোমাদের জন্য কুফরী স্বরূপ। তবে তোমাদের দায়িত্ব কর্তব্য হলো আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করা এবং সদাচরণ করা। (পবিত্র সূরা শুয়ারা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ২৩)

অর্থাৎ হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করার বিষয়টি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার হক্ব মুবারক উনার সাথে সম্পৃক্ত ও সংশ্লিষ্ট। যা আরো সুস্পষ্ট করে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عن حضرت على عليه السلام قال خرج رسول الله صلى الله عليه وسلم مغضبا حتى استوى على المنبر فحمد الله واثنى عليه قال ما بال الرجال يؤذوننى فى اهلى والذى نفسى بيده لا يؤمن عبد حتى يحبنى ولا يحبنى حتى يحب ذوى.

অর্থ: হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অত্যন্ত জালালী শান মুবারকে হুজরা শরীফ থেকে মসজিদে নববী শরীফে তাশরীফ মুবারক রাখেন। অতঃপর, তিনি মিম্বর শরীফে আরোহন করে মহান আল্লাহ পাক উনার হামদ শরীফ ও ছানা শরীফ পাঠ করত ইরশাদ মুবারক করেন, লোকদের কি হলো? আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের ব্যাপারে তারা আমাকে কষ্ট দেয়। মহান আল্লাহ পাক উনার শপথ! আমাকে মুহব্বত করা ব্যতীত কেউই মু’মিন হতে পারবে না। আর আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করা ব্যতীত কেউই আমাকে মুহব্বত করতে পারবে না। (সুবুলুল হুদা ওয়ার রশাদ)

অন্য পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عن حضرت ابن عباس رضى الله تعالى عنه قال قال رسول الله صلى الله عليه و سلم لو أن رجلا صف بين الركن والمقام، فصلى وصام، ثم لقى الله عزّوجل وهو مبغض لأهل بيت محمّد صلى الله عليه وسلم دخل النار

অর্থ: হযরত ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, পবিত্র কা’বা শরীফ ও পবিত্র মাক্বামে ইবরাহিম উনাদের মাঝামাঝি অবস্থান করত নামায-রোযা আদায় করতে করতে কেউ যদি মারা যায়। কিন্তু হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করে, তাহলে সে জাহান্নামী হবে। (বুখারী শরীফ)

অন্য পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عَنْ حضرت اَبِىْ سَعِيدٍ الْخُدْرِيّ رضى الله تعالى عنه قَالَ قَالَ رَسُولُ اللّهِ صَلَّى اللّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مَنْ أَبْغَضَنَا اهْلَ الْبَيْتِ فَهُوَ مُنَافِق

অর্থ: হযরত আবু সাঈদ খুদরী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যে ব্যক্তি আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করে, সে মুনাফিক। (ফাদ্বায়িলুস সাহাবা)

অর্থাৎ, হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুহব্বতই সমস্ত কিছুর মূল। উনাদের মুহব্বতের মাধ্যমেই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুহব্বত সম্পন্ন হবে। এবং চূড়ান্তভাবে মহান আল্লাহ পাক উনার মুহব্বতও সম্পন্ন হবে। এমনকি উনাদের মুহব্বত ব্যতিত কারো কোন আমলও কবুল হয়না। উপরন্তু উনাদেরকে যারা মুহব্বত করবেনা, তারা মুনাফিক হিসেবে পরিগণিত হবে।

এখন মুহব্বতের বহিঃপ্রকাশ ঘটবে কিভাবে? হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে বান্দা মুহব্বত করলে, তার বহিঃপ্রকাশ ঘটবে উনাদেরকে অনুসরণের মাধ্যমে। কারণ মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

قل ان كنتم تحبون الله فاتبعونى يحببكم الله

অর্থ: হে হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি উম্মতদেরকে বলেন দিন! যদি তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহ্ববত করে থাকো, তাহলে তোমরা আমাকে অনুসরণ করো। তাহলে মহান আল্লাহ পাক তিনি তোমাদেরকে মুহব্বত করবেন। (পবিত্র সূরা আলে ইমরান শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৩১)

অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার এবং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের প্রতি মুহব্বত উনার বহিঃপ্রকাশ ঘটবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ইতায়াত বা অনুসরণ করার মাধ্যমে। কেননা, পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عن ام الـمؤمنين حضرت عائشة عليها السلام من احب شيئا اكثر ذكره.

অর্থ: উম্মুল মু’মিনীন হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, মানুষ যাকে মুহব্বত করে উনার স্মরণও বেশি করে থাকে। (মাক্বাছিদুল হাসানাহ)

অর্থাৎ মুহব্বতের বহিঃপ্রকাশ ঘটে স্মরণের মাধ্যমে। আর এ কথা সুস্পষ্ট যে, মানুষ যাকে বেশি স্মরণ করে উনাকে অনুসরণও বেশি করে থাকে। আর এজন্যই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عن حضرت جابر بن عبد الله رضى الله تعالى عنه قال رأيت رسول الله صلى الله عليه و سلم فى حجته يوم عرفة وهو على ناقته القصواء يخطب فسمعته يقول يا أيها الناس انى قد تركت فيكم ما ان اخذتم به لن تضلوا كتاب الله وعترتى اهل بيتى.

অর্থ: হযরত জাবির ইবনে আব্দুল্লাহ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, বিদায় হজ্জে আরাফার দিন ক্বাসওয়া নামক উটে আরোহিত অবস্থায় খুতবা মুবারক প্রদানকালে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে আমি ইরশাদ মুবারক করতে শুনেছি যে, তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, হে মানুষেরা! আমি তোমাদের নিকট রেখে যাচ্ছি দুটি নিয়ামত। যতদিন তা আঁকড়ে থাকবে বা ধরবে, ততদিন তোমরা কখনো গোমরাহ হবে না। কিতাবুল্লাহ উনাকে এবং আমার হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে। (তিরমিযী শরীফ)

অর্থাৎ, কিতাবুল্লাহ পবিত্র কুরআন শরীফ এবং হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অনুসরণই হিদায়েতের পথ। উনাদের ইতায়াত হতে বিচ্যুত হলে কেউই হিদায়েতের উপর দৃঢ়চিত্ত থাকতে পারবে না। সূক্ষ্মভাবে ফিকির করলে দেখা যায় কেবল হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের ইতায়াতের মাধ্যমে সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত পূর্ণাঙ্গরুপে পালিত হয়। হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের ইতায়াত ব্যতিত অন্য কোন পন্থায় সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত পূর্ণাঙ্গরুপে পালিত হয়না। কেউ যদি হানাফী মাযহাব অনুসরন করে, সে প্রকৃতপক্ষে ইমামুল খমিস মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং ইমামুস সাদিস মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরই ইতায়াত করলো। অপর দিকে যে মালিকী, শাফিয়ী এবং হাম্বলী মাযহাবের অনুসরন করলো, সেও প্রকৃতপক্ষে হযরত আওলাদু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরই ইতায়াত করলো। অনুরুপভাবে ইলমে তাসাউফের ত্বরীক্বাসমূহের সালিকগণও হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের ইতায়াত করে থাকেন।

উল্লেখ্য যে, ঈমান ও আমলের ন্যায় উম্মাহর নাযাতও হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের উপরেই নির্ভরশীল। কারণ, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

يَوْمَ لَا يَنفَعُ مَال وَلَا بَنُونَ . إِلَّا مَنْ اتَى اللّـهَ بِقَلْبٍ سَلِيمٍ

অর্থ: কিয়ামতের দিন ক্বলবে সালীম ব্যতিত মাল-সম্পদ ও সন্তান-সন্তুতি দিযে কেউ মহান আল্লাহ পাক উনার কাছ থেকে ফায়দা লাভ করতে পারবেনা। (পবিত্র সূরা শুয়ারা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৮৮-৮৯)

উপরোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার তাফসীরে উল্লেখ করা হয়, হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে সর্বাধিক মুহব্বত করে, উনাদেরকে হাক্বীক্বীভাবে ইতায়াতকারীগণই কিয়ামতের ময়দানে ক্বলবে সালীম তথা প্রশান্ত অন্তর নিয়ে উঠবেন। অপর দিকে যারা হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে সর্বাধিক মুহব্বত করবেনা এবং উনাদেরকে হাক্বীক্বীভাবে ইতায়াতও করবেনা, তাদের কঠিন পরিণতি হবে। কারণ, মুহব্বত না করার অর্থই বিদ্বেষ পোষণ করা। আর এরুপ লোকদের ব্যাপারে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عَنْ حضرت مُعَاوِيَةَ بْنِ حُدَيْجٍ رحمة الله عليه عَنِ الْحَسَنِ بْنِ عَلِيّ عليه السلام انَّهُ قَالَ لَهُ : يَا مُعَاوِيَةُ بْنَ حُدَيْجٍ ، إِيَّاكَ وبُغْضَنَا ، فَإِنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ ، قَالَ : ” لا يَبْغَضُنَا وَلا يَحْسُدُنَا أَحَد إِلا ذِيدَ عَنِ الْحَوْضِ يَوْمَ الْقِيَامَةِ بِسِيَاطٍ مِنْ نَارٍ

অর্থ: হযরত মুয়াবিয়া ইবনে হুদাইজ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে বর্ণিত। সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম হাসান আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, আমরা হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করিনা। কারণ, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, কিয়ামতের দিন আমাদের প্রতি হিংসা ও বিদ্বেষ পোষণকারীদেরকে আগুনের চাবুক দ্বারা প্রহার করে হাউজে কাওছার হতে তাড়িয়ে দেয়া হবে। (আল মু’জামুল আওছাত লিত্ ত্ববারী)

অর্থাৎ, যে বা যারা হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সন্তুষ্টি মুবারক অর্জন করতে পারবেনা, তারা কখনোই হাউজে কাওছার হতে পানি লাভ করতে পারবেনা। অপর দিকে যারা উনাদের রেযামন্দি মুবারক হাছিল করতে পারবে, তারা অকল্পনীয়ভাবে নাজাত লাভ করবে। কেননা পবিত্র হাদীছ শরীফে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

أَلا وَمن مَاتَ عَلـٰى حُبِّ اٰلِ مُحَمَّدٍ صَلَّى الله عَلَيْهِ وَسَلَّم يزف إِلَى الْجنَّة كَمَا تزف الْعَرُوس إِلَى بَيت زَوجهَا.

অর্থ: সাবধান! যিনি সম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুহব্বত মুবারকে ইন্তেকাল করবেন, উনাকে এমনভাবে সুসজ্জিত করে জান্নাতে নেয়া হবে, যেমনভাবে নববধূকে সাজিয়ে তার স্বামীর ঘরে নেয়া হয়। সুবহানাল্লাহ। (নুজহাতুল মাজালিস)

বলা বাহুল্য যে, মুহব্বতের যেমন বহিপ্রকাশ রয়েছে, তেমনি বিদ্বেষ পোষণেরও বহিপ্রকাশ রয়েছে। হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে হাক্বক্বী মুহব্বত করলে বান্দা-বান্দী অবশ্যই উনাদেরকে ইতায়াত করবে। উনাদের ছানা-ছিফত করবে। উনাদের রেযামন্দি হাছিলের কোশেশ করবে। উনাদের আদর্শ মুবারককে সর্ব ক্ষেত্রে প্রাধান্য দিবে। উনাদের সমালোচনাকে কখনোই প্রশ্রয় দিবেনা। উনাদের শান মুবারকের খিলাফ কথা-বার্তা, লিখনী বা অন্য যে কোন নিকৃষ্ট কাজে সদা-সর্বদা প্রতিবাদ-প্রতিরোধ করবে। সর্বপোরি হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের বিদ্বেষ পোষণকারীদের সাথে কখনোই সুসম্পর্ক রাখবেনা। অপরদিকে হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের প্রতি যে বা যারা বিদ্বেষ পোষণ করে, উনাদেরকে ইতায়াত করবেনা। উনাদের ছানা-ছিফত করবেনা। উনাদের রেযামন্দি হাছিলের কোশেশ করবেনা। উনাদের আদর্শ মুবারককে কখনোই প্রাধান্য দিবেনা। উনাদের সমালোচনাকেই সবসময় প্রশ্রয় দিবে। উনাদের শান মুবারকের খিলাফ কথা-বার্তা, লিখনী বা অন্য যে কোন নিকৃষ্ট কাজে সদা-সর্বদা লিপ্ত থাকবে। সর্বপোরি হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের বিদ্বেষ পোষণকারীদের সাথে সব সময় সুসম্পর্ক বজায় রাখবে। নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ!

মূল কথা হলো, হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুবারক মুহব্বত ঈমানের মূল। উনাদের ইতায়াত আমলের মূল। উনাদের রেযামন্দি মুবারক নাযাতের মূল।

মহান আল্লাহ পাক তিনি যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুরশিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক উছীলায় উম্মাহকে হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুবারক শানে জেনে উনাদেরকে হাক্বীক্বীভাবে মুহব্বত ও ইতায়াত করার তাওফীক্ব দান করুন। আমীন।


-আহমদ নুসাইর

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হায়াতুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হওয়ার অকাট্য দলীলসমূহ

সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিসবত মুবারকই সমস্ত মর্যাদা ও মর্তবা লাভের মূল মাধ্যম বা উসীলা

মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাওয়ানেহে উমরী মুবারক এবং বেমেছাল ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক সম্পর্কে জানা সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম কায়িনাতবাসীর জন্য ফরযে আইন

সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, বিনতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত জীবনী মুবারক

ইবনু রসূলিল্লাহ, আশবাহুল খলক্বি বিরসূলিল্লাহ, সাইয়্যিদুল আসইয়াদ, সাইয়্যিদুল বাশার, হাবীবুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ছানী আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিত সাওয়ানেহে উমরী মুবারক