ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদ প্রচারের নেপথ্যে-২৩

সংখ্যা: ২০১তম সংখ্যা | বিভাগ:

[ শয়তান যে মানুষকে নেক ছূরতে ধোঁকা দেয়, এ বিষয়টি ভালোভাবে অনুধাবন করেছিলো শয়তানের অনুচর ইহুদী এবং খ্রিস্টানরা। মুসলমানদের সোনালী যুগ এসেছিল শুধু ইসলামের পরিপূর্ণ অনুসরণের ফলে। শয়তানের চর ইহুদী খ্রিস্টানরা বুঝতে পেরেছিল মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ, অনৈক্য, সংঘাত সৃষ্টি করতে পারলেই ইসলামের জাগরণ এবং বিশ্বশক্তি হিসেবে মুসলমানদের উত্থান ঠেকানো যাবে। আর তা করতে হবে- ইসলামের মধ্যে ইসলামের নামে নতুন মতবাদ প্রবেশ করিয়ে। শুরু হয় দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা; যার মূলে থাকে খ্রিস্টীয় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ। জন্ম হয় ওহাবী মতবাদের। ওহাবী মতবাদ সৃষ্টির মূলে থাকে একজন ব্রিটিশ গুপ্তচর- হ্যামপার। সে মিসর, ইরাক, ইরান, হেজাজ ও তুরস্কে তার গোয়েন্দা তৎপরতা চালায় মুসলমানদের বিভ্রান্ত করার জন্য। ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদের উপর তুর্কি ভাষায় রচিত হযরত মুহম্মদ আইয়ূব সাবরী পাশা রহমতুল্লাহি আলাইহি-এর “মিরাত আল হারামাইন” কিতাবের ইংরেজি অনুবাদ থেকে বাংলায় ধারাবাহিকভাবে ভাষান্তর করা হচ্ছে ইনশাআল্লাহ।]

(ধারাবাহিক)
সউদ রাগে পাগল হয়ে যায়। অদ্ভুত এক অন্ধ প্রতিহিংসায় মুসলমানদের উপর চড়াও হয়। কিন্তু আল্লাহ পাক স্বয়ং আখিরী নবী হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক  ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সালাম উনার দয়া,  ইহসান  করম-এর  বদৌলতে পবিত্র মদীনা শরীফকে রক্তের স্রোত থেকে হিফাযত করেন। মুসলমানদেরকে  চরমভাবে  মানহানি করে এবং শালীনতার খিলাফ বাক্য প্রয়োগ করে, যালিম দস্যু সউদ তার লুটেরা বাহিনীকে দুর্গে গিয়ে  অবস্থান নিতে বলে। সে তার অনুগত হাসান চাউস  নামের এক রাস্কেলকে মদীনা  শরীফ-এর গভর্নর হিসেবে নিয়োগ দেয় এবং দারিয়াতে  প্রত্যাবর্তন করে। মক্কা শরীফ-এ হজ্জ পালন করার  নামে গিয়ে সে আবার মদীনা শরীফ-এ ফিরে  আসে।
সউদ তার ডেরা থেকে বেরিয়ে আসল যখন দামেস্কের কাফেলা ২ থেকে ৩ দিনের পথ মদিনা শরীফ থেকে অতিক্রম করল।
তার নাপাক গালিজিত অন্তরে বিন্দুমাত্র কাঁপুনি ছাড়াই সে তার দস্যুদলদের নির্দেশ দিল  সর্বপ্রকার মূল্যবান উপহারাদি লুন্ঠন করার জন্য। নাঊযুবিল্লাহ! ঐতিহাসিকভাবে দুষ্প্রাপ্র, স্বর্ণমণ্ডিত শিল্পবস্তু এবং মূল্যবান রত্ন এবং পাথরসমূহ। নাঊযুবিল্লাহ!
এবং একই সঙ্গে রওযা শরীফ-এ সংরক্ষিত কুরআন শরীফ  এবং মূল্যবান কিতাবাদি যা নুরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র মসজিদ মুবারক-এ সংরক্ষিত সম্পদসমূহ, যা প্রেরিত হয়েছিলো উলামায়ে হক্কানী রব্বানী, মুসলিম সুলতান গভর্নর কমান্ডারদের, তথা সমগ্র মুসলিম বিশ্বের তরফ থেকে  হাজার বছর ধরে।
সউদের বিরুদ্ধে জ্বলে উঠা মুসলিম হৃদয়সমূহের  আগুন তো  নিভেইনি বরং আরো দাউ দাউ করে জ্বলে উঠে তার ঘৃণিত  ইবলিসিয়াত তথা হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম এবং শুহাদায়ে কারবালাগণ-উনাদের পবিত্র মাযার শরীফসমূহ ধ্বংসের হীনতম  অপচেষ্টায়।
তথাপি এই ঘৃণিত মরদুদ নূরে মুজাসসাম  হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র রওযা শরীফ ধ্বংস করার উদ্যোগ নেয়। মুসলমানগণ দস্যু সাউদের  সামনে কান্নায় ভেঙে পড়ে এবং অনুনয় বিনয় করতে থাকে এত বড়  গোস্তাখি না করার জন্য। কিন্তু এই জালিম  মরদুদ সাবাকাত  আস  সাদাকে ধ্বংস করে। নাঊযুবিল্লাহ! সৌভাগ্যক্রমে পবিত্র দেয়াল মুবারক-এ সে স্পর্শ করতে পারেনি।
সে নির্দেশ দেয় পবিত্র মদীনা শরীফ-এর  দেয়ালকে পুনর্নিমাণ করার  জন্য। সে মদীনা  শরীফস্থিত  অধিবাসী উনাদেরকে  পুনরায় মসজিদুন নববী  শরীফ-এ  একত্রিত করে। সে পবিত্র মসজিদ  শরীফ-এর  গেট মুবারক  বন্ধ করে দেয়  এবং তার নাপাক যবান দিয়ে নিম্নলিখিত  কুৎসিত  বয়ান  উগড়ে দেয়।
“অভিনন্দন! তোমাদেরকে একত্রিত করেছি  আমি  নিছক কিছু উপদেশ দেয়ার জন্য এবং আমার নির্দেশগুলো অক্ষরে অক্ষরে মেনে নেয়ার জন্য। হে  মদীনা শরীফস্থিত অধিবাসী! তোমাদের ধর্ম এখন পূর্ণতা লাভ করেছে। তোমরা এখন মুসলমান হয়েছ। নাঊযুবিল্লাহ!  মহান আল্লাহ পাক উনাকে তোমরা  সন্তুষ্ট করেছো। পূর্বপুরুষ এর ভ্রান্ত ধর্মের আর প্রশংসা করোনা। আল্লাহ পাক উনার কাছেও প্রার্থনা করো না পূর্বপুরুষদের ক্ষমা করে দেয়ার জন্য। তারা সকলেই মুশরিক অবস্থায় ইন্তিকাল করেছেন। নাঊযুবিল্লাহি মিন্ যালিক। আমি ব্যাখা করে বলেছি তোমাদের ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের কাছে প্রদত্ত পুস্তকসমূহে। তোমাদের নিজেদের অবস্থান জানিয়ে দেয়া খুবই প্রয়োজন। তোমাদের শিশু, স্ত্রী এবং রক্ত আমার সৈন্যদের জন্য মুবাহ হবে যদি তোমরা আমার (ওহাবী মতবাদের) ধর্মবেত্তাদের নির্দেশের অবাধ্য হও। তারা তখন সকলেই তোমাদেরকে শৃঙ্খলিত  করবে  এবং আমৃত্যু নির্যাতন করবে।
ওহাবী ধর্মমতে নূরে মুজাসসাম  হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র রওযা শরীফ-এর সামনে ছলাতু সালাম পেশ করার নিমিত্তে শ্রদ্ধার সাথে দাঁড়ানোটাই নিষিদ্ধ। নাঊযুবিল্লাহ! যেটা তোমাদের পূর্বপুরুষগণ করতো। নাঊযুবিল্লাহ!
তোমরা রওযা শরীফ-এর সামনে  দাঁড়াতে পারবে না। বরং সামনে  দিয়ে হেঁটে চলে যাবে এবং বলবে (পবিত্র নাম মুবারক উচ্চারণ করে) শান্তি  বর্ষিত হোক। নাঊযুবিল্লাহ!
আমাদের ইমাম ইবনে ওহাব নজদীর ইজতিহাদ  অনুসারে এইটুকু  সম্মান করলেই চলবে। (নাঊযুবিল্লাহি  মিন যালিক)

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল হাসান

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক