খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সপ্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

সংখ্যা: ২৯২তম সংখ্যা | বিভাগ:

(কাদিয়ানী রদ!)

(কুতুবুল ইরশাদ, মুবাহিছে আয’ম, বাহরুল উলূম, ফখরুল ফুক্বাহা, রঈসুল মুহাদ্দিছীন, তাজুল মুফাস্সিরীন, হাফিযুল হাদীছ, মুফতিউল আ’যম, পীরে কামিল, মুর্শিদে মুকাম্মিল হযরতুল আল্লামা মাওলানা শাহ্ ছূফী শায়েখ মুহম্মদ রুহুল আমীন রহমতুল্লাহি আলাইহি কর্তৃক প্রণীত ‘কাদিয়ানী রদ’ কিতাবখানা (৬ষ্ঠ খন্ডে সমাপ্ত)। আমরা মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ পত্রিকায় ইতিপূর্বে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করেছি। পাঠকদের অনুরোধে তা পুনরায় প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যাতে কাদিয়ানীসহ সমস্ত বাতিল ফিরক্বা থেকে সম্মানিত আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদের অনুসারীদের ঈমান আক্বীদার হিফাযত হয়। মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদের প্রচেষ্টায় কামিয়াবী দান করুন। আমীন!

যদিও তখনকার ভাষার সাথে বর্তমানে ভাষার কিছুটা পার্থক্য লক্ষ্যণীয়।

মির্জার মাহদী দাবি খণ্ডন মির্জা গোলাম

প্রতিশ্রুত মাহদী হতে পারেন কিনা?

(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

উনার নিকট বাইয়াত করার সময় আসমান হতে একটি শব্দ হবে;

هٰذَا خَلِيْـفَةُ اللهِ الْمَهْدِىْ فَاسْمَعُوْا لَهٗ وَاَطِيْـعُوْا

“ইনি মহান আল্লাহ তায়ালা উনার খলীফা মাহদী আলাইহিস সালাম, তোমরা উনার কথা শ্রবণ কর এবং আদেশ পালন কর।” এই শব্দটি সেখানকার আম ও খাছ সকল লোক শুনতে পাবে। হযরত ইমাম (মাহদী আলাইহিস সালাম) সাইয়্যিদ বংশধর হবেন, উনার সম্মানিত আখলাক্ব মুবারক সম্পূর্ণ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুরূপ হবেন। উনার নাম হযরত মুহাম্মদ আলাইহিস সালাম, উনার সম্মানিত পিতা হযরত আবদুল্লাহ আলাইহিস সালাম ও উনার সম্মানিতা মাতা উনার নাম হযরত আমিনা আলাইহাস সালাম হবে। উনার ইলমে লাদুন্নি থাকবে। সেই সময় উনার বয়স মুবারক ৪০ বৎসর হবে। যখন উনার বাইয়াতের কথা প্রসিদ্ধ হয়ে পড়বে, তখন পবিত্র মদীনা শরীফ উনার সৈন্যদল পবিত্র মক্কা শরীফ উনার দিকে রওয়ানা হবেন, শাম, ইরাক ও ইয়ামেনের আবদাল ও ওলিগণ উনার খিদমতে উপস্থিত হবেন এবং আরবদেশ হতে বহু সৈন্য সমবেত হবেন। উক্ত হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র কা’বা শরীফ উনার দরওয়াজার সম্মুখে যে ধনভান্ডার প্রোথিত আছে তা বের করে মুসলমানদের মধ্যে বিতরণ করবেন। এ সংবাদ মুসলমানদের মধ্যে প্রচারিত হলে, খোরাসানবাসী এক ব্যক্তি বহু সৈন্যসহ উনার সাহায্যের জন্য ধাবিত হবেন এবং পথিমধ্যে বহু খৃষ্টান ও বিধর্মী লোককে ধ্বংস করবেন। উক্ত আহলে বাইতের শত্রু ছূফইয়ানি ব্যক্তি যার নানা আরবের বনু কলব সম্প্রদায়ভুক্ত ছিল। উক্ত ব্যক্তি হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে একদল সৈন্য প্রেরণ করবে, পবিত্র মক্কা শরীফ ও পবিত্র মদীনা শরীফ উনাদের মধ্যস্থ একটি ময়দানে দুই ব্যক্তি ব্যতীত সকলেই ভূগর্ভে প্রোথিত হয়ে যাবে। উভয়ের মধ্যে একজন ছূফইয়ানি ব্যক্তির নিকট এবং অন্য ব্যক্তি হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার নিকট এ সংবাদ পৌঁছাবেন। অন্যদিকে খ্রীষ্টানরা নিজেদের দেশ হতে এবং কনষ্টান্টিনোপল হতে বহু সৈন্য সংগ্রহ করে উক্ত ইমাম আলাইহিস সালাম উনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে ধাবিত হবে। উক্ত সৈন্যদল ৮০টি পতাকার নীচে সংগৃহীত হবে, প্রত্যেক পতাকার নীচে ১২ সহস্র করে সৈন্য সমবেত হবে। হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র মক্কা শরীফ হতে রওয়ানা হয়ে পবিত্র মদীনা শরীফে উপস্থিত হবেন, তথায় নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র রওযা শরীফ যিয়ারত মুবারক করে শাম দেশের দিকে রওয়ানা হয়ে দেমাশ্কে পৌঁছবেন। (অসমাপ্ত )

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয়। যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।”

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র। খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয়। যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।”

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত। (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

কাদিয়ানী রদ!

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র- ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াাত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াাত অস্বীকারকারী স¤প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড