চাঁদ দেখা ও নতুন চন্দ্রতারিখ নিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনা-৪৪

সংখ্যা: ২০৩তম সংখ্যা | বিভাগ:

বর্তমান সংখ্যার আলোচনা: ইহুদীদের মদদপুষ্ট হয়ে এবং সউদী ওহাবী শাসকগোষ্ঠীর অর্থে সাহায্যপ্রাপ্ত হয়ে সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের অলীক স্বপ্ন নিয়ে একটি ভুঁইফোঁড় সংগঠন সারা দেশে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

Real Hizri Calendar Implementation Council Bangladesh নামে এই সংগঠনটি সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের পক্ষে নানা প্রচারণা চালাচ্ছে। সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের পক্ষে (অর্থাৎ সারা বিশ্বে একদিনে ঈদ পালন করার পক্ষে) তারা ৯০টি খোঁড়া যুক্তি দাঁড় করিয়েছে। আমরা ধারাবাহিকভাবে তাদের বর্ণিত শরীয়তের খিলাফ এই মনগড়া যুক্তির শরীয়তসম্মত এবং সঠিক মতামত প্রকাশ করবো ইনশাআল্লাহ। যেন সাধারণ মুসলমানগণ চাঁদের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তিতে না পড়ে। তারা লিখেছে-

(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

২৮ নম্বর মতামত : ইসলামী শরীয়তে একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে কুরআন শরীফ-এর দলীলকে হাদীছ শরীফ-এর উপর প্রাধান্য দেয়া হয়।

২৯ নম্বর মতামত : একত্রে নয়, একই সময়ে নয়, পৃথিবীর বিভিন্ন সময় অঞ্চলের পার্থক্য ঠিক রেখে, পৃথিবীর সকল দেশ তাদের স্থানীয় সময় অনুযায়ী একটি নির্দিষ্ট দিনে রমাদ্বান শরীফ এবং ঈদ পালন করতে পারে।

২৮ নম্বর মতামতের জবাব : যখন কোনো বিষয়ে কুরআন শরীফ-এর দলীল থাকে তবে অবশ্যই সকল দলীলের চেয়ে কুরআন শরীফ-এর দলীলকে প্রাধান্য দেয়া হবে। কিন্তু যারা সারাবিশ্বে একদিনে রোযা ও ঈদ পালন করার পক্ষে, যারা সারা পৃথিবীর জন্য একটি হিজরী ক্যালেন্ডার রচনা করতে চায় তারা কি এর স্বপক্ষে কুরআন শরীফ থেকে কোনো দলীল দিতে পারবে? কখনোই নয়। এছাড়া যে সকল দেশের বিভ্রান্ত শাসকগোষ্ঠী, উলামায়ে ‘ছূ’ অমাবস্যা অনুযায়ী মাস গণনা করে বা নিজস্ব মনগড়া পদ্ধতি অনুযায়ী ক্যালেন্ডার রচনা করে মাস গণনা করে তারাও কি কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ থেকে দলীল দিতে পারবে? না তারাও কখনো দলীল দিতে পারবে না। বরং কুরআন শরীফ-এ স্পষ্ট ইরশাদ করা হয়েছে “হিলাল বা বাঁকা চাঁদ দেখে মাস গণনা করতে।” আর যেহেতু চাঁদ সারা পৃথিবীতে একই সময়ে সকল জায়গায় দেখা যাবে না। ফলে বিভিন্ন অঞ্চলে রোযা বা ঈদ পালনের তারিখের পার্থক্য হবে এটাই স্বাভাবিক। সুতরাং সারা পৃথিবীর জন্য একটি নির্দিষ্ট হিজরী ক্যালেন্ডার রচনা করার বিষয়টি অবান্তর।

২৯ নম্বর মতামতের জবাব : সারা বিশ্বের জন্য একটি হিজরী ক্যালেন্ডার রচনাকারীরা মূলত প্রলাপ বকে যাচ্ছে। তাদের মতামতগুলোর মধ্যে তাদের স্ববিরোধিতা স্পষ্ট। এর কারণ হচ্ছে, এদের যেমনি কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ-এর ইলম নেই, তেমনি মহাকাশ বিজ্ঞানের চাঁদ বিষয়ে প্রচ্ছন্ন ধারণা আছে পর্যাপ্ত জ্ঞান নেই। সর্বোপরি কোনো মহান ওলীআল্লাহ উনার মুবারক ছোহবত থেকে বঞ্চিত বলে তারা সাধারণ বিষয়গুলো নিয়ে ঘুরপাক খাচ্ছে, সমাধানে পৌঁছতে পারছে না।

কেননা ২৯ নম্বর মতামতে তারা নিজেরাই বলছে- একত্রে নয়, একই সময়ে নয়, পৃথিবীর বিভিন্ন সময় অঞ্চলের পার্থক্য ঠিক রেখে, পৃথিবীর সকল দেশ তাদের স্থানীয় সময় অনুযায়ী… রমাদ্বান বা ঈদ পালন করতে পারে। আবার তারাই এ কথার মাঝে যোগ করেছে একটি নির্দিষ্ট দিনে। তাদের জানা উচিত পৃথিবীর বিভিন্ন সময় অঞ্চল অনুযায়ী যদি রোযা বা ঈদ করতে হয় তবে একই দিনে সারা বিশ্বে ঈদ বা রোযা পালন করা সম্ভব নয়। আবার শুরুতেই তারা বলেছে- একত্রে নয়, একই সময়ে নয় …। একত্রেই যদি না করা যায়, একই সময়েও যদি না করা যায় তবে এ সকল অপপ্রচারকারীরা কেন সারা বিশ্বে একটি নির্দিষ্ট হিজরী ক্যালেন্ডার চাপিয়ে দেয়ার অলীক স্বপ্নে  বিভোর

 

বিশ্বের জন্য ১৪৩২ হিজরীর পবিত্র রবীউল আউয়াল শরীফ মাসের চাঁদের রিপোর্ট

জিরো মুন (অমাবস্যা) সংঘটিত হবে ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১১, বৃহস্পতিবার, ভোর ২টা ৩১ মিনিটে (আন্তর্জাতিক সময় অনুযায়ী)।

অমাবস্যার দিন অর্থাৎ ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১১, বৃহস্পতিবার সউদী আরবে পবিত্র রবীউল আউয়াল শরীফ মাসের চাঁদ দেখা যাবার কোনো সম্ভাবনা নেই।

 

বাংলাদেশের জন্য ১৪৩২ হিজরীর পবিত্র রবীউল আউয়াল শরীফ মাসের চাঁদের রিপোর্ট

বাংলাদেশের স্থানীয় সময় অনুযায়ী জিরো মুন (অমাবস্যা) সংঘটিত হবে ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১১, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা ৩১ মিনিটে।

বাংলাদেশে পবিত্র রবীউল আউয়াল শরীফ মাসের চাঁদ তালাশ করতে হবে ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১১, শুক্রবার সন্ধ্যায়।

সেদিন ঢাকায় সূর্যাস্ত ৫টা ৪৭ মিনিটে এবং চন্দ্রাস্ত ৬টা ৫৬ মিনিটে। অর্থাৎ সূর্যাস্ত এবং চন্দ্রাস্তের সময়ের পার্থক্য ১ ঘণ্টা ৯ মিনিট। সূর্যাস্তের সময় চাঁদ দিগন্তরেখার প্রায় ১৫ ডিগ্রি উপরে অবস্থান করবে এবং চাঁদ খুঁজতে হবে ২৫৫ ডিগ্রি আজিমাতে। সেদিন চাঁদ দেখার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে।

যদি ৪ ফেব্রুয়ারী, শুক্রবার চাঁদ দেখা যায় তবে পবিত্র রবীউল আউয়াল শরীফ মাস শুরু হবে ৫ ফেব্রুয়ারী শনিবার থেকে এবং সে অনুযায়ী ১৬ ফেব্রুয়ারী, বুধবার হবে পবিত্র ১২ রবীউল আউয়াল শরীফ।

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল

যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-১২৩

‘পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষার’ অর্থ হচ্ছে- ‘পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও অনৈসলামী শিক্ষা’। যার ফলাফল ‘শূন্য ধর্মীয় শিক্ষা’। বিতর্কিত ও বামঘেঁষা মন্ত্রী এটা করলেও ‘পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না’- এ প্রতিশ্রুতির সরকার কী করে তা গ্রহণ করতে পারলো?

বেপর্দা-বেহায়াপনায় আক্রান্ত কলুষিত সমাজের নতুন আতঙ্ক ‘সেলফি’। সেলফি উম্মাদনায় সমাজে ব্যাপকভাবে বেড়েছে হত্যা, আত্মহত্যা, সম্ভ্রমহরণ, সড়ক দুর্ঘটনাসহ নানা অপরাধ। বিভিন্ন দেশে সেলফি’র উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও বাংলাদেশে কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। সরকারের উচিত অপসংস্কৃতি এবং আত্মহত্যার মতো অপরাধ বন্ধ করতে অবিলম্বে সেলফি নিষিদ্ধ করা।

প্রতারণার ফাঁদে নাগরিক জীবন। সরকারের নজরদারী নেই। রকমফের প্রতারণা বন্ধে সম্মানিত ইসলামী আদর্শ বিস্তারের বিকল্প নেই

পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চলছে অবাধ খ্রিস্টান ধর্মান্তরিতকরণ। বিষয়টি অদূর ভবিষ্যতে গভীর শঙ্কার। রহস্যজনক কারণে নীরব সরকার