প্রসঙ্গ: পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও মুসলমান এবং রাষ্ট্রযন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা। কথিত ধর্মনিরপেক্ষতা শুধু পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও মুসলমানের উপরই আঘাত করে, আর অন্য ধর্মের পৃষ্ঠপোষকতা করে। এ বৈষম্য মুসলমান আর কতদিন বরদাশত করবে?

সংখ্যা: ২৬৯তম সংখ্যা | বিভাগ:

১৯৭২-এর সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা ঢুকেছে পেছনের দরজা দিয়ে। ১৯৭০-এর নির্বাচনী মেনিফেস্টোতে ধর্মনিরপেক্ষতার কথা ছিলো না। বরং ছিলো ‘পবিত্র কুরআন শরীফ উনার ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের বিরোধী কোনো আইন পাস হবে না’-এ প্রতিশ্রুতি। সেই প্রতিশ্রুতিই ২০০৮-এর নির্বাচনে পুনঃউচ্চারিত হয়েছে মাত্র।

ধর্মনিরপেক্ষতা শব্দ শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশে উচ্চারণের প্রয়োজন হয় না। রাষ্ট্রদ্বীন পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দেশেও প্রয়োজন হয় না। কারণ, মুসলমান- ওই পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের উপর বিশ্বাস করেই মুসলমান; যে পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের মধ্যে অন্য সব ধর্মাবলম্বীদের ধর্ম পালনের সর্বোচ্চ সুযোগ দেয়া হয়েছে।

সেক্ষেত্রে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান অধিবাসী থাকলেই অমুসলমানদের ধর্মনিরপেক্ষতা দাবির প্রয়োজন হয় না। পক্ষান্তরে ধর্মনিরপেক্ষতা বিধিবদ্ধ থাকলেই যে নিরপেক্ষতা পালন হয় না, আমেরিকা-ভারত-ইংল্যান্ডসহ বড় বড় কথিত ঐতিহ্যবাহী গণতান্ত্রিক দেশগুলো তার প্রমাণ।

সেখানে ‘মুহম্মদ’ নাম দেখলেই তার উপর হাজারো নির্যাতন। মুসলমানকেই শুধু সন্ত্রাসী আখ্যায়িত করা হয়। অথচ এখন বৌদ্ধ অধ্যুষিত চীন-জাপানের সমর্থনে মায়ানমারের বৌদ্ধরা লাখ লাখ রোহিঙ্গা মুসলমানকে শহীদ করছে। তারপরও তাদেরকে সন্ত্রাসী বলা হচ্ছে না।

উল্লেখিত দেশে অবাধে নামায পড়ার সুযোগ নেই। বিভিন্ন ইসলামী পোশাক পরার অবকাশ নেই। অনেক দেশে ঈদের ছুটি নেই। মুসলমানিত্ব প্রকাশ করার অধিকার নেই। ধর্মনিরপেক্ষতা যুক্ত হলেই যে ধর্মনিরপেক্ষতা কার্যকর হবে তা নয়। বরং সবক্ষেত্রে এখন এ অবস্থাই দৃশ্যমান যে, ধর্মনিরপেক্ষতার নামে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনারই বিরোধীতা করা হয়। মুসলমানকে অমুসলমানী কালচারে ভাসতে বাধ্য করা হয়।

এ দেশে শতকরা ৯৮ ভাগ অধিবাসী মুসলমান। তাদের দ্বীন পবিত্র দ্বীন ‘ইসলাম’। পবিত্র দ্বীন ‘ইসলাম’ তথাকথিত অন্যান্য ধর্মের মতো নয়। পবিত্র দ্বীন ‘ইসলাম’ পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা। অন্য কোনো ধর্মই খেলাধুলা, নির্বাচন, গান-বাজনা, মূর্তি, অভিনয়, উলঙ্গপনা ইত্যাদির বিরুদ্ধে কিছু বলেনি।

সে সুবাদে অন্যান্য ধর্মাবলম্বী ও ধর্মের প্রেক্ষিতে স্বাধীনতাউত্তর এদেশে গান-বাজনা, কথিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, খেলাধুলা, সিনেমা এগুলোকে সরকারি পর্যায়ে শুধু সর্বাত্মক পৃষ্ঠপোষকতা করা হয়নি; পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পর্যায়েও যাতে অন্যান্য বিধর্মীদের সাথে তাল মিলিয়ে নাচতে পারে, সেজন্যও সর্বোচ্চ সহযোগিতা করা হয়েছে ও হচ্ছে। এক্ষেত্রে এদেশের জনগণের শতকরা ৯৮ ভাগ মুসলমানের দ্বীন- পবিত্র দ্বীন ‘ইসলাম’ সম্পূর্ণই উপেক্ষিত, অবহেলিত ও অস্বীকার্য থেকে যায়। কিন্তু এদেশের ৯৮ ভাগ মুসলমান কী মানতে পারে যে, তাদের দ্বীন- পবিত্র দ্বীন ‘ইসলাম’ রাষ্ট্রযন্ত্র স্বীকার করবে না?

৯৮ ভাগ মুসলমান কী মানতে পারে যে, তাদের প্রাণাধিক দ্বীন- পবিত্র দ্বীন ‘ইসলাম’ উনাকে রাষ্ট্রযন্ত্র সম্মান করবে না?

৯৮ ভাগ মুসলমান সহ্য করতে পারে যে, তাদের ঈমান- পবিত্র দ্বীন ‘ইসলাম’ উনাকে রাষ্ট্রযন্ত্র পদে পদে ধিকৃত করবে?

পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে খেলাধুলা হারাম। কিন্তু তারপরেও রাষ্ট্রযন্ত্র দেশের কোটি কোটি নাগরিককে না খাইয়ে রেখে হাজার হাজার কোটি টাকা হারাম খেলাধুলার পিছনে ব্যয় করে; তখন ৯৮ ভাগ মুসলমান, রাষ্ট্রযন্ত্র থেকে কী ধরনের আশাহত ও চরম বিপরীতমুখী আচরণের মুখোমুখি হয়; তা কী ভাবা যায়?

রাষ্ট্রযন্ত্রের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকতায় যখন সিনেমাসহ যাবতীয় অশ্লীলতার অবাধ অনুশীলন হয়; তখন দেশের শতকরা ৯৮ ভাগ অধিবাসী মুসলমানের দ্বীনী অনুভূতিতে কত চরম আঘাত হানা হয়? তাও কী সম্যক উপলব্ধি করা যায়?

দিনে দিনে প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া দেশের ৯৮ ভাগ মুসলমানকে কু-প্ররোচনা দিচ্ছে- কীভাবে কত সংক্ষিপ্ত পোশাক পরা যেতে পারে, মদ ধরা যেতে পারে, পরকীয়া, লিভ টুগেদার তথা অবাধ ব্যভিচার-অনাচারে ভাসা যেতে পারে।

অথচ ৯৮ ভাগ মুসলমানের পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে এগুলো কঠিন হারাম এবং চূড়ান্ত ইসলামবিরোধী।

৯৮ ভাগ মুসলমানের দেশে এসব ইসলামবিরোধী কাজগুলোই হচ্ছে অবাধে, ব্যাপক উৎসাহে এবং সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সাহায্যে। এতে করে পবিত্র দ্বীন ইসলাম হচ্ছে বিপন্ন। মুসলমান হচ্ছে বিপর্যস্ত থেকে বিভ্রান্ত, হতাশাগ্রস্ত থেকে নেশাগ্রস্ত। অর্থাৎ এদেশের শতকরা ৯৮ ভাগ অধিবাসী মুসলমানের দ্বীনী অনুভূতি রাষ্ট্রযন্ত্রে স্বীকৃত নয়। শতকরা ৯৮ ভাগ অধিবাসী মুসলমান এদেশে তাদের পবিত্র দ্বীন ইসলাম পালনে নিরাপদ নয়। অনৈসলামিক কাজে বাধা দিলে তারা রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ ও শাস্তি থেকে মুক্ত নয়।

পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে, মুসলমান হিসেবে রাষ্ট্রযন্ত্রের পৃষ্ঠপোষকতায় প্রতিটি অনৈসলামিক কাজে বাধা দেয়া ফরয। কিন্তু এ ফরয কাজ স্বাধীনতাউত্তর থেকেই মুসলমানরা করতে পারছে না। অথচ পাকি যালিমদের বিরুদ্ধে জিহাদ তথা যুদ্ধ করা ফরয ছিলো; সেটি এদেশের নামধারী ও ধর্মব্যবসায়ী সন্ত্রাসবাদী-জামাতীরা ব্যতীত সত্যিকার মুসলমানরা যথার্থরূপে করে দেশের স্বাধীনতা অর্জন করেছে। কিন্তু সে ফরয আদায়ের অভিজ্ঞতা বিস্তারে রাষ্ট্রযন্ত্র বাধা দিয়ে রেখেছে।

সঙ্গতকারণেই তাই প্রশ্ন জোরদার হয় যে, রাষ্ট্রযন্ত্র কী পবিত্র দ্বীন ইসলাম স্বীকার করে? নাকি করে না? স্বীকার কি করবে? নাকি করবে না?  রাষ্ট্রযন্ত্র কী মুসলমানদের দ্বীনী অনুভূতির প্রতি সম্মান দেখাবে? নাকি দেখাবে না? রাষ্ট্রযন্ত্র কী তবে পবিত্র দ্বীন ইসলাম আর মুসলমান বাদ দিয়ে অন্য সব ধর্ম এবং ধর্মাবলম্বীদের প্রতিই চরম সম্মান দেখাবে এবং পরম পৃষ্ঠপোষকতা করবে?

কারণ, অন্য সব ধর্ম এবং ধর্মাবলম্বীদের খেয়ালখুশি অনুযায়ী রাষ্ট্রযন্ত্র খেলাধুলা থেকে সিনেমাসহ সব ধরনের অশ্লীলতার অবাধ পৃষ্ঠপোষকতা করে যাচ্ছে। কিন্তু পবিত্র দ্বীন ইসলাম ও মুসলমান সেখানে হয়ে যাচ্ছে অপাক্তেয়। এবং এটা হচ্ছে কথিত ধর্মনিরপেক্ষতার সুবাদে।

দেখা যাচ্ছে, কথিত ধর্মনিরপেক্ষতা অন্য সব ধর্ম তথা সব অনৈসলামীপানার প্রভূত পরিচর্যা করে; কিন্তু পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার উপর শুধুই আঘাত হানে।

সঙ্গতকারণেই দেশের শতকরা ৯৮ ভাগ অধিবাসী মুসলমান ধর্মনিরপেক্ষতার এ অভিশাপ থেকে মুক্তি চায়। মূলত, ইসলামী প্রজ্ঞার অভাবে কোনো সরকারই এ সত্যটি আদৌ উপলব্ধি করতে পারেনি।

-মুহম্মদ আশরাফুল মাহবূবে রব্বানী, ঢাকা।

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)