বোরকা তথা পর্দার বিরুদ্ধে বলতে পারা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গৌরবের কোনো বিষয়তো নয়ই বরং তা নিজেদেরই লাঞ্ছনা, ব্যর্থতারই বহিঃপ্রকাশ

সংখ্যা: ২০১তম সংখ্যা | বিভাগ:

কোটি কোটি মাখলুকাত মহান আল্লাহ পাক ও উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের আদেশ-নির্দেশ মেনে নিয়েছে, স্বীকার করে নিয়েছে। যারা স্বীকার করেনি, মানেনি তারা অবশ্যই নাফরমান কাফির এবং বেদ্বীন-বদদ্বীন এবং খাছ ইবলিসের উত্তরসুরি। ইবলিস ৬ লক্ষ বছর ইবাদত-বন্দেগী করার পরও আল্লাহ পাক উনার একটা আদেশ অহঙ্কার করে না মানার কারণে চির লা’নতপ্রাপ্ত, চির অভিশপ্ত হয়ে গেলো। আল্লাহ পাক তিনি ইবলিসকে জানিয়ে দিলেন- ‘তুই জান্নাত থেকে বের হয়ে যা।’ সুতরাং ইবলিস জান্নাত হারাল, রহমত থেকে বঞ্চিত হল জাহান্নাম ও জহমত তার জন্য নির্ধারিত হয়ে গেল।

মূলত সে প্রথম থেকেই নাফরমান ছিলো- তারই বহিঃপ্রকাশ ঘটলো ‘হযরত আদম আলাইহিস সালাম উনাকে সিজদা না করার ঘটনার মধ্যে দিয়ে। তবে কি আমরা এটাই বুঝবো যে, হাইকোর্টের বিচারকদ্বয়, শিক্ষামন্ত্রী ও ডেপুটি স্পিকার এরা মূলত পূর্ব থেকেই ইসলাম বিদ্বেষী! তারই বহিঃপ্রকাশ ঘটলো আল্লাহ পাক উনার ফরয বিধান পর্দা তথা বোরকার বিরুদ্ধে বলার মাধ্যমে। আর আল্লাহ পাক তিনি সূরা আহযাবের ৩৬ নম্বর আয়াত শরীফ-এ জানিয়ে দিয়েছেন- “কোন মু’মিন নর-নারীর জন্য জায়িয হবে না, আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যে ফায়ছালা করেছেন, সেই ফায়সালার মধ্যে চু-চেরা, কিল-কাল করা বা নিজস্ব মত পেশ করা। আর যে ব্যক্তি আল্লাহ পাক ও উনার রসূলের নাফরমানী করবে সে প্রকাশ্য গুমরাহে গুমরাহ হবে।” অথচ উক্ত ব্যক্তিবর্গ মু’মিনের পরিচয় তো দিলই না বরং প্রকাশ্যে গুমরাহীমূলক কথা বললো। অবশ্যই তথাকথিত ব্যক্তিবর্গ যদি নিজেদের ভুল বুঝে তওবা করে ফিরে আসে তবে তো আলহামদুলিল্লাহ! কিন্তু যদি ফিরে না আসে, তওবা না করে এবং আইনের রদবদল না করে তবে তাদের জন্য ‘মুসলমান’ দাবি করা সত্যিই কঠিন হয়ে যাবে। শরীয়তের পরিভাষায়-
তারা মুরতাদ;
দ্বীন ইসলাম থেকে খারিজ,
তাদের সব আমল বরবাদ হয়ে যাবে,
তাদের বিয়ে বাতিল হয়ে যাবে,
ওয়ারিছ স্বত্ব থাকলে বাতিল হয়ে যাবে,
ইসলামী শরীয়া আইন জারি থাকলে তাদের প্রতি মুরতাদের শাস্তি বর্তাবে।
পর্দা করা বা বোরকা পরা মুসলমানদের মৌলিক অধিকার। শুধু তাই নয়, বরং পর্দা একটা মানুষের ঈমান-আক্বীদাকে হিফাজত করে থাকে। পর্দা করা যেমন আল্লাহ পাক উনার বিধান এবং তার বাস্তব নিদর্শন হলো পর্দার বিধান নাযিল হওয়ার পর থেকেই উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারাও পর্দা করেছেন। যেহেতু আল্লাহ পাক উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা আমাদের জন্য উত্তম আদর্শ; সুতরাং পর্দার বিরুদ্ধে বলা মানেই আল্লাহ পাক উনার বিরুদ্ধে বলা এবং উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সুমহান আদর্শের বিরুদ্ধে বলা। অর্থাৎ যারাই এরূপ বলবে তাদের ঈমানেরও ঘাটতি হবে এবং আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদারও বিপরীতে বলা হবে। সুতরাং ক্ষতিটা কার হবে? তাদেরই হবে। তাদের সাথে যারা সম্পর্ক করবে। তাদেরও হবে। মালও হারাবে, ঈমানও হারাবে।
অর্থাৎ উক্ত ব্যক্তিবর্গ হয়তো এতদিনে নিজেরাই আল্লাহ পাক উনার থেকে জুদা হলো, আল্লাহ পাক উনার হাবীব থেকে জুদা হলো মানও হারালো, ঈমানও হারালো।
আমরা সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী উনার ওসীলায় এ প্রার্থনাই করছি যে- উলামায়ে ছূ’দের দ্বারা প্রভাবিত বাদশাহ আকবরের প্রেক্ষাপট যেন আর তৈরি না হয়। আমরা পানাহ চাচ্ছি ইবলিসের খাছ চক্রান্ত থেকে। ইবলিস এবং তার চেলাদের দৌরাত্ম্য থেকে আমরা মুসলমানগণ সবসময়ই যেন হিফাযত থাকতে পারি। আমীন।

-আজিমা ফারহা, ঢাকা।

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)