সম্মানিত রজবুল হারাম ও সম্মানিত শা’বান শরীফ মাস এবং উনাদের প্রাসঙ্গিক আলোচনা

সংখ্যা: ২৬০তম সংখ্যা | বিভাগ:

-আল্লামা মুফতী সাইয়্যিদ শুয়াইব আহমদ

হিজরী সনের সপ্তম মাস সম্মানিত রজব। পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে বর্ণিত চারটি হারাম বা সম্মানিত মাসের মধ্যে সম্মানিত রজব মাস অন্যতম।

উল্লেখ্য, সম্মানিত রজব মাস নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার পূত-পবিত্র সম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের পবিত্র সাওয়ানেহ উমরী তথা শান মুবারক প্রকাশের বিশেষ ও উল্লেখযোগ্য মাস। সুবহানাল্লাহ!

যেমন এ মাসের পহেলা তারিখ পবিত্র ইয়াওমুল জুমুআহ শরীফ সাইয়্যিদুল আবা ওয়ার রিজাল, সাইয়্যিদুন নাস, ছাহিবুল ঈমান, ছাহিবুল জান্নাহ, ছাহিবুন নূর, আবূ রসূলিনা সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার সাথে সাইয়্যিদাতুল উম্মাহাত ওয়ান নিসা, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, ছাহিবাতুল ঈমান, ছাহিবাতুল জান্নাহ, ছাহিবাতুন নূর, হযরত উম্মু রসূলিনা আলাইহাস সালাম উনার আযীমুশ শান নিসবতে আযীম শরীফ সংঘটিত হয়। সুবহানাল্লাহ! অতঃপর উক্ত সম্মানিত রাতেই সুমহান রগায়িব শরীফ সম্পন্ন হয়। অর্থাৎ উক্ত সম্মানিত রাতেই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত ওজূদ পাক নূর মুবারক উনার সম্মানিত আব্বা আলাইহিস সালাম উনার মাধ্যমে কুদরতীভাবে উনার সম্মানিতা আম্মা আলাইহাস সালাম উনার খিদমত মুবারকে তাশরীফ নেন। সুবহানাল্লাহ! যার কারণে উক্ত রাত্রি উনার ফযীলত পবিত্র শবে বরাত, পবিত্র শবে ক্বদর ইত্যাদি সমস্ত ফযীলতপূর্ণ রাত্রি অপেক্ষা অধিক ফযীলতপূর্ণ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। সুবহানাল্লাহ!

এ মাসেরই ২ তারিখ লাইলাতুস সাবত (শনিবার) নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত আব্বা সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! উক্ত ২ তারিখে আবার নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত লখতে জিগার নূরানী আওলাদ, সাইয়্যিদুল আবনা সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুল আউওয়াল আলাইহিস সালাম তিনি বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

অতঃপর এ সম্মানিত মাসের ৩ তারিখ বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন সিবত্বাতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, খ¦ইরুন নিসা হযরত সাইয়্যিদাতুল উমাম আররাবিআহ আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!

অতঃপর এ মাসেরই ৬ তারিখে বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন সুলত্বানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, খাজায়ে খাজেগাঁ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি। সুবহানাল্লাহ!

এছাড়া সম্মানিত রজব মাস উনার ১৩ তারিখ ইয়াওমুল জুমুআ শরীফ যিনি ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, আসাদুল্লাহিল গালিব, সাইয়্যিুদনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

অতঃপর এ সম্মানিত মাসেরই ১৪ তারিখ বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন, ইমামুল মুহসিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুস সাদিস মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। আবার উক্ত একই তারিখে পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন সুলত্বানুল হিন্দ, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি। সুবহানাল্লাহ!

অতঃপর এ মাসের ২৭ তারিখ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম শরীফ (সোমবার) রাত্রিতে সুমহান মি’রাজ শরীফ সংঘটিত হয়। উক্ত একই তারিখে যিনি যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার সুমহান মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইউল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, আহলে বাইতে রসূল, আওলাদে রসূল, নূরে মুকাররম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র রগায়িব শরীফ অনুষ্ঠিত হয়। অর্থাৎ তিনি পবিত্র ২৭শে রজব শরীফ লাইলাতুল জুমুআহ উনার সম্মানিতা আম্মা আলাইহাস সালাম উনার খিদমত মুবারকে তাশরীফ নেন। সুবহানাল্লাহ!

অর্থাৎ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এবং নূরে মুকাররাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি একই মাসে উনারা উনাদের সম্মানিতা আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদের খিদমত মুবারকে তাশরীফ নেন। সুবহানাল্লাহ!

পরবর্তী শা’বান শরীফ মাস উনার মধ্যে তিনটি দিন বিশেভাবে উল্লেখযোগ্য। একটি হচ্ছে ৫ই শা’বান শরীফ। এ ফযীলতপুর্ণ দিনে সুমহান বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ, সাইয়্যিদুশ শুহাদা, শহীদে কারবালা সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! এবং উক্ত তারিখে ইমামুল মুহাক্বক্বিক্বীন সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুর রাবি’ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিও বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন

এবং আরেকটি দিন হচ্ছে ১৫ই শা’বান শরীফ। এ ফযীলতপূর্ণ দিনে বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন সাইয়্যিদু শাবাবি আহলিল জান্নাহ, খলীফায়ে খ¦ামিস, আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! আর উক্ত ১৫ তারিখের রাতটিই লাইলাতুল বারায়াত বা পবিত্র শবে বরাত; যা দুআ কবুলের বিশেষ রাত। সুবহানাল্লাহ!

অতঃপর এ সম্মানিত মাসের ২৯ তারিখে বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন সিবত্বাতু মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, খ¦ইরুন নিসা হযরত সাইয়্যিদাতাল উমাম আলাইহিমাস সালাম উনারা। সুবহানাল্লাহ!

স্মরণীয় যে, মহান আল্লাহ পাক উনার সৃষ্টির মাঝে সবেচেয়ে মনোনীত, পছন্দনীয় ও প্রিয় হচ্ছেন উনার যিনি হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহু হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এবং উনার সম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা। উনারাই হচ্ছেন মহান আল্লাহ পাক উনার সর্বশ্রেষ্ঠ নিদর্শন মুবারক উনার অন্তর্ভুক্ত। তাই উনাদের বিলাদতী শান মুবারক অথবা বিছালী শান মুবারক অথবা অন্য কোনো শান মুবারক প্রকাশিত হওয়ার দিনসমূহই পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত আইয়্যামুল্লাহ শরীফ উনার অন্তর্ভুক্ত। উক্ত সম্মানিত দিনসমূহে খুশি প্রকাশ করা, পালন করা, উৎযাপন করা, ইবাদত-বন্দেগী করা, খরচ করা, ছলাত শরীফ পেশ করা, সালাম শরীফ পেশ করা, দুআ-মুনাজাত শরীফ করা বেমেছাল কামিয়াবী ও ফযীলত হাছিলের কারণ।

মাহে রজব ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে শা’বান ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

সম্মানিত রজবুল হারাম শরীফ, সম্মানিত শা’বান শরীফ ও সম্মানিত রমাদ্বান শরীফ মাস এবং প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে রমাদ্বান শরীফ ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে শাওওয়াল ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা