সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ, মুজাদ্দিদুয যামান, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী আজমিরী সাঞ্জারী রহমতুল্লাহি আলাইহি-৫০ (বিলাদত শরীফ ৫৩৬ হিজরী, বিছাল শরীফ ৬৩৩ হিজরী)

সংখ্যা: ২৮০তম সংখ্যা | বিভাগ:

সাইয়্যিদুনা হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার ছোহবত মুবারকের তা’ছীর বা প্রভাব

 

মহান আল্লাহ তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

إِنَّ رَحْمَتَ اللهِ قَرِيْبٌ مِّنَ الْمُحْسِنِيْنَ

অর্থ: নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার রহমত মুহসিন তথা ওলীআল্লাহগণ উনাদের নিকটে। (পবিত্র সূরা আ’রাফ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৫৬)

মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ মুবারক করেন-

وَإِنَّ اللهَ لَمَعَ الْمُحْسِنِيْنَ

অর্থ: নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি মুহসিন তথা ওলীআল্লাহগণ উনাদের সাথেই আছেন। (পবিত্র সূরা আনকাবুত শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৬৯)

মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত রসূল, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের রহমত, বরকত, সাকীনাহ, দয়া-দান, ইহসান মুবারক ওলীআল্লাহগণ উনাদের উপর সদা বর্ষিত হয়। কাজেই ওলীআল্লাহগণ উনাদের সাথে বসা, নিকটবর্তী হওয়া, সেটা মহান আল্লাহ পাক উনার সাথে এবং উনার মহাসম্মানিত রসূল, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের সাথেই বসা ও নিকটবর্তী হওয়ারই অন্তর্ভুক্ত। সুবহানাল্লাহ!

উনাদের ছোহবত মুবারকে মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ছোহবত মুবারকের সুঘ্রাণ পাওয়া যায়।

মূলত উনারা হচ্ছেন মহান আল্লাহ পাক উনার এবং মহাসম্মানিত রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ছায়া স্বরূপ।

যার বাস্তব প্রতিফলন ঘটেছে সুলত্বানুল হিন্দ, সাইয়্যিদুনা হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার জীবনী মুবারকে। সুবহানাল্লাহ! উনার ছোহবত মুবারক উনার তা’ছীর বা প্রভাব ছিল অসাধারণ। উনার পবিত্রতম ছোহবত মুবারকে যারাই এসেছেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি তাদেরকেই খাছভাবে কবুল করেছেন। উনার পবিত্রতম ছোহবত মুবারকের বদৌলতে প্রায় এক কোটি লোক পৌত্তলিকতার অসারতা উপলব্ধি করতে পেরে পৌত্তলিকতা ত্যাগ করেছে। পরে তারা মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত রসূল, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খালিছ বান্দা ও উম্মতে পরিণত হয়েছেন। উনার পবিত্রতম ছোহবত মুবারকের তা’ছীর বা প্রভাব কত প্রভাশালী প্রতিক্রিয়াশীল ছিল সে সম্পর্কে দু একটি ঘটনা আলোচ্য নিবন্ধে উল্লেখ করবো। ইনশাআল্লাহ!

 ছূফী হামীদুদ্দীন নাগুরী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি প্রাথমিক জীবনে দুনিয়ার মোহে মোহগ্রস্ত ছিলেন। তিনি এমন পর্যায়ে চলে গিয়েছিলেন যে, কেউ কোনদিন ভাবতেও পারেনি যে, তিনি দুনিয়ার মোহ ত্যাগ করে ছূফীদের ন্যায় জীবন যাপন করতে পারবেন।

আজমীর শরীফ হতে কয়েক মাইল দূরে অবস্থিত নাগুরাবাদ শহর। সেই শহরের অনতি দূরে ছওয়ালী নামক স্থানে বসবাস করতেন ছূফী হামীদুদ্দীন নাগুরী রহমাতুল্লাহি আলাইহি।

উনার আর্থিক অবস্থা ছিল খুুবই খারাপ। অনেক দুঃখণ্ডকষ্টে জীবন যাপন করতেন। কিন্তু তিনি ছিলেন খুব ছূরত মুবারকের অধিকারী। কেউ উনার দিকে একবার দৃষ্টি দিলে সহজে দৃষ্টি ফিরাতে পারতো না। এমনকি অনেকেই উনার আশিক হয়ে যেত। উনাকে পাওয়ার জন্য অভিজাত-সম্ভ্রান্ত ও ধনাঢ্য মেয়েরাও তাদের ধন-সম্পদ, ছূরত-সীরত সবকিছু বিসর্জন দিতে দ্বিধা করতো না।

আর তিনিও বাধ্য হয়েই তাদের মুহব্বতে গরক ছিলেন। সেই মুহ্ববতের বেড়াজালে এমনভাবে আবদ্ধ ছিলেন যে, সেখান থেকে মুক্তির কোন পথই ছিল না।

ছূফী হামীদুদ্দীন নাগুরী রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ সাইয়্যিদুনা হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার  কারামতের কথা লোক মুখে শুনতে পেয়েছেন অনেকবার। তাই একদিন উনাকে স্বচক্ষে দেখার ইচ্ছা জাগ্রত হলো। তিনি আজমীর শরীফ চলে গেলেন। মুবারক সাক্ষাত করার জন্য অনুমতি প্রার্থনা করলেন। অনুমতি দেয়া হলো। তিনি পবিত্র খানকা শরীফ উনার ভিতরে প্রবেশ  করলেন।

তিনি সুলতানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ সাইয়্যিদুনা হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার নূরানী চেহারা মুবারকের তাজাল্লিয়াত সহ্য করতে পারলেন না। বেহুশ হয়ে মাটিতে পড়ে গেলেন।

 

সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ, মুজাদ্দিদ যামান, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী আজমিরী সাঞ্জারী রহমতুল্লাহি আলাইহি-৪৬ (বিলাদত শরীফ ৫৩৬ হিজরী, বিছাল শরীফ ৬৩৩ হিজরী)

ইমামুল মুসলিমীন, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইউস সুন্নাহ ইমামে আ’যম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম আবূ হানীফা রহমতুল্লাহি আলাইহি-৬২ (বিলাদাত শরীফ- ৮০ হিজরী, বিছাল শরীফ- ১৫০ হিজরী)

পঞ্চদশ হিজরী শতকের মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, আওলাদুর রসূল, ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মহা সম্মানিতা আম্মা, আওলাদুর রসূল, সাইয়্যিদাতুনা আমাদের- হযরত দাদী হুযূর ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম উনার সীমাহীন ফাদ্বায়িল-ফদ্বীলত, বুযূর্গী-সম্মান, মান-শান, বৈশিষ্ট্য এবং উনার অনুপম মাক্বাম সম্পর্কে কিঞ্চিৎ আলোকপাত-৬৬ -মুহম্মদ সা’দী

ওলীয়ে মাদারজাদ, মুসতাজাবুদ্ দা’ওয়াত, আফযালুল ইবাদ, ছাহিবে কাশফ্ ওয়া কারামত, ফখরুল আউলিয়া, ছূফীয়ে বাত্বিন, ছাহিবে ইস্মে আ’যম, লিসানুল হক্ব, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, আমাদের সম্মানিত দাদা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার স্মরণে- একজন কুতুবুয্ যামান উনার দীদারে মাওলা উনার দিকে প্রস্থান-২১৬ -মুহম্মদ সা’দী

সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ, মুজাদ্দিদ যামান, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী আজমিরী সাঞ্জারী রহমতুল্লাহি আলাইহি-৪৭ (বিলাদত শরীফ ৫৩৬ হিজরী, বিছাল শরীফ ৬৩৩ হিজরী)