আর্কাইভ: ‘মতামত’ বিভাগ

বিভাগ:

পর্নোর আসক্তি সর্বনাশা মাদকের চেয়েও ভয়াবহ । দেশের শিশু-কিশোরও এখন কঠিন ভয়াবহরূপে পর্নোতে আসক্ত হয়ে পড়েছে। ভারত, চীনসহ অনেক বিধর্মী রাষ্ট্রেও পর্নো নিষিদ্ধ। সেক্ষেত্রে রাষ্ট্রদ্বীন ইসলামের দেশ, বাংলাদেশে পর্নো নিষিদ্ধে এখনো উদ্যোগ নেই কেন?

বিভাগ:

বেপর্দা-বেহায়াপনায় আক্রান্ত কলুষিত সমাজের নতুন আতঙ্ক ‘সেলফি’। সেলফি উন্মাদনায় সমাজে ব্যাপকভাবে বেড়েছে হত্যা, আত্মহত্যা, সম্ভ্রমহরণ, সড়ক দুর্ঘটনাসহ নানা অপরাধ। বিভিন্ন দেশে সেলফি’র উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও বাংলাদেশে কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। সরকারের উচিত অপসংস্কৃতি এবং আত্মহত্যার মতো অপরাধ বন্ধ করতে অবিলম্বে সেলফি নিষিদ্ধ করা।

বিভাগ:

শুধু অর্থনৈতিক উন্নতিই মুসলমানদের জন্য উন্নয়ন হিসেবে গৃহীত হতে পারে না। আমরা মধ্যম আয়ের দেশ নয়; নিদেন পক্ষে মধ্যম  তাক্বওয়ার মুসলমানের দেশ চাই

বিভাগ:

৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশে মুসলমানের সংজ্ঞা কতজন মুসলমান জানে? প্রকৃত মুসলমান না হয়ে শুধু বাহ্যিক মুসলমান দাবি কী অন্যায় নয়? মুসলমান মাত্রই পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে পরিপূর্ণভাবে প্রবেশ করতে হবে।

বিভাগ:

প্রসঙ্গ : শিশু নির্যাতন ও শিশু হত্যা॥ সমাধান কোন পথে? পাশ্চাত্যের মতো শিশুদের রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা হবে আত্মঘাতী। কথিত রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণে নয়, বরং ইসলামী মূল্যবোধ উজ্জীবনের মাধ্যমেই শিশুর প্রতি মমত্ববোধ ও দায়িত্ব তৈরি সম্ভব

বিভাগ:

সরকারি অদক্ষতা, অদূরদর্শিতার পাশাপাশি দেশের সংবিধান থেকে ‘মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস’ তুলে দেয়া তথা ইসলামী সংহতির পরিচয় তুলে দেয়াই মালয়েশিয়াসহ মুসলিম বিশ্বে শ্রম বাজার হারানোর প্রধান কারণ। এ থেকে উত্তোরণে ইসলামী মূল্যবোধ ও মুসলিম ভ্রাতৃত্ববোধ তুলে ধরার বিকল্প নেই।

বিভাগ:

পবিত্র দ্বীন ইসলাম অন্যান্য ধর্মের সাথে সমমর্যাদার ভিত্তিতে সহাবস্থানে থাকতে পারে না। পবিত্র দ্বীন ইসলাম কখনোই কথিত ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র অধীন হতে পারে না।

বিভাগ:

যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-১২২

বিভাগ:

প্রসঙ্গ: কল্যাণমূলক রাষ্ট্রের ধারণা ও ক্বিয়ামত-এর তথ্য

বিভাগ:

বাংলাদেশে ৩ কোটি লোক দিনে ৩ বেলা খেতে পারে না। পুষ্টিমান অনুযায়ী খেতে পারে না ৮ কোটি লোক। ক্ষুধাক্লিষ্ট ও পুষ্টিহীন জনগোষ্ঠীর জন্য সরকারের নেই কোনো উদ্যোগ!

বিভাগ:

কুল-কায়িনাতের সর্বশ্রেষ্ঠ ইবাদত অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত সুমহান পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং জনৈক সালিকার একখানা স্বপ্ন

বিভাগ:

ব্রিটিশ আমলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য রমেশ মজুমদার (আর.সি. মজুমদার) তার আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছে যে- (১) ঢাকা শহরের হিন্দু অধিবাসীরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি চরম বিদ্বেষ পোষণ করতো; (২) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রমকে অঙ্কুরেই বিনষ্ট করতে এদেশীয় হিন্দু শিক্ষামন্ত্রী, ক্ষমতা পেয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন অনেক কমিয়ে দিয়েছিল; (৩) এমনকি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোর্টের (গভর্নিং বডির) সদস্য হয়েও সংশ্লিষ্ট স্থানীয় হিন্দুরা, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কার্যক্রম চালাতে পিছপা হতো না। সুতরাং বাংলাদেশের আলোবাতাসে লালিত এসব মুশরিকরা যে দেশদ্রোহী, তা প্রমাণিত ঐতিহাসিক সত্য। ইতিহাসের শিক্ষা অনুযায়ী-ই এসমস্ত মুশরিকদেরকে এদেশে ক্ষমতায়িত করাটা অসাম্প্রদায়িকতা নয়, বরং তা দেশবিরোধিতা ও নির্বুদ্ধিতার নামান্তর

বিভাগ:

যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ্বলীফাতুল্লাহ, খ্বলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নু’মা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলতানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সুমহান তাজদীদ মুবারক

বিভাগ:

এই মাস পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস ॥ অতএব, অতিসত্বর হারাম খেলাধুলা বন্ধ করা হউক। আশ্চর্যের বিষয়- পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাসে হারাম খেলাধুলা করা হচ্ছে! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! পবিত্র রমাদ্বান মাসে এক মুশরিক ভারতকে নিয়ে আসার পর ফের আরেক কাফির দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিয়ে আসছে ক্রিকেট বোর্ড। বেছে বেছে খেলার শিডিউল ফেলা হচ্ছে সকল পবিত্র রাত ও দিনসমূহে। নষ্ট করা হচ্ছে মুসলমান উনাদের ধর্মীয় চেতনা, পবিত্র তারাবীহ’র নামায বিঘ্নিত হচ্ছে চিৎকার চেঁচামেচিতে। ৯৮% মুসলমান অধ্যুষিত দেশ বাংলাদেশে হারাম ক্রিকেট খেলার মাধ্যমে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতি নষ্ট করার নগ্ন চক্রান্ত পুরোপুরি স্পষ্ট, যা বাংলাদেশকে রহমতশূন্য করে গযবের দিকে ঠেলে দেয়ারও কারণ। এ জঘন্য চক্রান্তকারীদের বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক

বিভাগ:

যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে,রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-১১৩

বিভাগ:

মুবারক হো- ১৩ই রজবুল হারাম শরীফ! আসাদুল্লাহিল গালিব, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, মুরতাদ্বা, হায়দার, বাবুল ইলম, দামাদে রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, হযরত ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্যতম ইমাম, হযরত কাররামাল্লাহ ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনার সুমহান বিলাদত শরীফ

বিভাগ:

মহা-মহিমান্বিত ১৪ই রজবুল হারাম শরীফ ইমামুছ ছাদিছ, সুলত্বানুল মাশায়িখ, ইমামুল মুহসিনীন, ইমামুল মুত্তাক্বীন, ‘ইমামুছ ছিদ্দীক্বীন’ ফখরুল আরিফীন, মুস্তাজাবুদ দাওয়াত, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম জা’ফর ছাদিক্ব আলাইহিস সালাম উনার সুমহান বিছাল শরীফ দিবস

বিভাগ:

মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন সম্বলিত দিনসমূহ সারা কায়িনাতের স্মরণ করা উচিত। সরকার রাষ্ট্রীয় খরচে বাংলাদেশের নিজস্ব ৪৭টি দিবস এবং জাতিসংঘের সদস্যরাষ্ট্র হিসেবে ৮৮টি আন্তর্জাতিক দিবসের ব্যাপক প্রচারণায় বিশেষ পৃষ্ঠপোষকতা ও বিপুল অর্থ ব্যয় করে থাকে। অথচ সরকারের উচিত ছিল ৯৮ ভাগ মুসলমান জনগোষ্ঠীর দেশ হিসেবে এদেশের ইসলামী দিবস সম্পর্কে মুসলমানদের মধ্যে ব্যাপক সচেতনতা এবং জজবা ও মুহব্বত তৈরি করা এবং উক্ত দিবসগুলো পালনে সরকারিভাবে ব্যাপক পৃষ্ঠপোষকতা করা এবং বেসরকারিভাবে সবাইকে অনুপ্রাণিত করা।

বিভাগ:

আমেরিকায় প্রতি ছয় মিনিটে একজন নারী সম্ভ্রম লুণ্ঠনের স্বীকার হয়। আমেরিকান সেনাবাহিনীতে উচ্চপদস্থ মার্কিনী নারী সৈন্যও সম্ভ্রমলুণ্ঠনের স্বীকার হয়। অর্থাৎ উচ্চশিক্ষা ও উচ্চ সামরিক কৌশলও নারীর সম্ভ্রম বজায় রাখতে সহায়ক নয়। নারীর সম্ভ্রম সংরক্ষনে সংক্ষিপ্ত পোশাকের বিপরীত শালীন পোশাকের বিকল্প নাই। নারী স্বাধীনতার দেশেও একথা স্বীকৃত হয়েছে। পর্দা নারী মর্যাদার হন্তারক একথা ভুল প্রমাণিত হয়েছে। প্রমাণিত হয়েছে পর্দাই নারী সম্ভ্রমের রক্ষা কবচ।

বিভাগ:

পুজিবাদী অর্থ ব্যবস্থায় চলছে দেশ। কোটিপতির সংখ্যা এখন লাখেরও বেশি। অধিকাংশরাই কর ফাঁকি দিচ্ছে। অথচ যাকাতদানের চেতনা তৈরি করলে ধনীরা স্বতঃস্ফুর্তভাবে এগিয়ে আসতো। তাতে সম্পদ আহরণ হতো অনেক বেশি এবং দারিদ্র্য দূর হতো নিমিষেই।

বিভাগ:

যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কাযযাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ উনার হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-১২০

বিভাগ:

পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে নাটক-সিনেমা করা ও দেখা হারাম- ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র তা মানে না। কিন্তু নাটক-সিনেমার ভয়াবহ কুফল রাষ্ট্র অস্বীকার করতে পারছে না।

বিভাগ:

সন্তান প্রসবের ক্ষেত্রে আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে সিজারিয়ান। হাসপাতাল-ক্লিনিকের ৮০ ভাগই সিজারিয়ান। আর সিজারের নামে চলছে গলাকাটা বাণিজ্য। সিজারিয়ান রোধে সচেতনতা বাড়াতে হবে। সরকারকে বিশেষভাবে এগিয়ে আসতে হবে।

বিভাগ:

প্রসঙ্গঃ সম্মানিতা হুর-গেলমানের আলোচনায় কুণ্ঠা। তার বিপরীতে অশ্লীল শব্দ আওড়াতে স্বতঃস্ফূর্ততা হুর-গেলমান লাভের মানসিকতা পোষণের পরিবর্তে বিবস্ত্রপনায় বিপর্যস্ত হওয়া তথা চরিত্রহীনতায় পর্যবসিত হওয়া। নাঊযুবিল্লাহ!

বিভাগ:

খাবারের নামে আমরা কী খাচ্ছি? ভেজাল খাবারে দেশব্যাপী চলছে নীরব গণহত্যা। ভেজাল দমনে ইসলামী মূল্যবোধের প্রতিফলন ঘটাতে হবে।

বিভাগ:

একমাত্র রাজারবাগ শরীফ সংশ্লিষ্টতা ব্যতীত সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে কাঙ্খিত পদক্ষেপ নেই কেন? রাষ্ট্রদ্বীন ‘ইসলাম’সাংবিধানিকভাবে স্বীকৃত এদেশে এখনো এ কথা কিভাবে উচ্চারিত হয় যে- ‘পবিত্র ১২ রবীউল আউওয়াল শরীফ পালন বিধর্মীদের অনুকরণ’? নাঊযুবিল্লাহ! নাঊযুবিল্লাহ!! নাঊযুবিল্লাহ!!!

বিভাগ:

৯৮ ভাগ মুসলমান অধ্যুষিত দেশে মুসলমানের সংজ্ঞা কতজন মুসলমান জানে? প্রকৃত মুসলমান না হয়ে শুধু বাহ্যিক মুসলমান দাবি কী অন্যায় নয়? মুসলমান মাত্রই পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে পরিপূর্ণভাবে প্রবেশ করতে হবে।

বিভাগ:

রাষ্ট্রযন্ত্রের নিরাপত্তা চরম হুমকিতে। সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের দলীল অসংখ্য। প্রকৃত ও সার্বিক এবং টেকসই নিরাপত্তার জন্য সুন্নতী চেতনার বিকল্প নেই।

বিভাগ:

মহাসম্মানিত পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের আলোকে- সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত আহলু বাইত শরীফ ও আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনাদের কতিপয় ফযীলত মুবারক বর্ণনা

বিভাগ:

একটি মুসলিম রাষ্ট্রে পাঠ্যপুস্তকের মাধ্যমে মুসলিম শিক্ষার্থীদের কী শেখানো হচ্ছে? পাঠ্যপুস্তকে নাম দিয়ে যা শেখানো হচ্ছে তা দিয়ে কি একজন মুসলিম শিশু আদৌ ঈমানদার থাকবে? ৯৮% মুসলমান অধ্যুষিত দেশে রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের দৃষ্টিতে কুফরী এই সিলেবাস আর কত দিন চলবে? জনগণ তা জানতে চায়