আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত সংবাদ

সংখ্যা: ১৯৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

আল বাইয়্যিনাত প্রতিবেদন: নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, নবীদের নবী, রসূলদের রসূল হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পরিপূর্ণ অনুসরণ ও আনুগত্যের মাঝেই মুসলমানদের কামিয়াবী। উনাকে যে যত বেশি অনুসরণ করতে পারবে, সে তত মর্যাদা, নৈকট্য ও সফলতা লাভ করতে পারবে। উনাকে অনুসরণ করার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছেন যুগের ইমাম তথা মুজাদ্দিদ উনারা।

ইমামে আ’যম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবে আ’যম, আমীরুল মু’মিনীন, খলীফাতুল মুসলিমীন, আওলাদে রসূল, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, সুলত্বানুন নাছীর, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী তিনি বিশেষ আলোচনা মজলিসে আলোচনাকালে একথা বলেন।

মুজাদ্দিদে আ’যম মুদ্দা জিল্লুহুল আলী তিনি বলেন, বর্তমান বিশ্বে ইহুদী-মুশরিক ও নাছারা কর্তৃক মুসলমানদের নির্যাতিত হওয়ার একমাত্র কারণ হচ্ছে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, নবীদের নবী, রসূলদের রসূল হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আদর্শ ছেড়ে ইহুদী, নাছারা, বেদ্বীন, বদদ্বীনদের অনুসরণ। মুসলমানদের হীনমন্যতা ও আত্মমর্যাদাহীনতাই তাদেরকে কাফির-মুশরিকদের গোলামে পরিণত করে ধ্বংস করছে। যে কোন বিষয়েই মুসলমানগণ মনে করছে, কথিত আধুনিকতা, সভ্যতা ইত্যাদির মূলে রয়েছে বিজাতীয়রা। আধুনিকতা ও সভ্যতায় মুসলমানদের কোন অবদান নেই। নাঊযুবিল্লাহ!

মুসলমানদের হীনমন্যতার অন্যতম কারণ তাদের মুসলিম ইতিহাস ঐতিহ্য, মুসলমানদের গৌরব গাঁথা মর্যাদার ইতিহাস সম্পর্কে নেহায়েত অজ্ঞতা।

মুজাদ্দিদে আ’যম মুদ্দা জিল্লুহুল আলী তিনি বলেন, মুসলমানদের একদিকে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পর্কে পরিপূর্ণ বিশুদ্ধ আক্বীদা হুসনে যন এবং উনার ছহীহ জীবনী মুবারক জানতে হবে। অন্যদিকে উনার বিরুদ্ধে যারা প্রপাগা-া করে, উনার শানে ব্যঙ্গাত্মক কার্টুন এঁকে উনার সুমহান শানে বেয়াদবী করে তাদের সমুচিত শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। এ বিষয়ে সকল মুসলিম ও মানবতাবাদী দেশসমূহের সরকার প্রধানদেরকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

মুজাদ্দিদে আ’যম মুদ্দা জিল্লুহুল আলী তিনি বলেন, বাংলাদেশ এক সময়ে সব বিষয়ে বিশ্ব নেতৃত্বের কেন্দ্রে পরিণত হবে। এজন্য মুসলমানদের অন্তঃকোন্দল ভুলে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশের সার্বিক উন্নতি ও ক্ষমতার স্থায়িত্বের ভীত মজবুত ও দীর্ঘস্থায়ী করতে হলে সর্বস্তরে বিশ্বস্ত গোয়েন্দা তৎপরতা বৃদ্ধি করে প্রতি স্তর থেকে দেশদ্রোহী, রাজাকার, যুদ্ধাপরাধী সিন্ডিকেট চক্র খুঁজে তাদের বরখাস্তসহ উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

মুজাদ্দিদে আ’যম মুদ্দা জিল্লুহুল আলী তিনি বলেন, ইহুদী-মুশরিক তথা গোটা কাফির বিশ্ব আজ খোদায়ী বিভিন্ন আযাব-গযবে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে। এসব থেকে নিষ্কৃতি চাইলে কাফির বিশ্বকে মুসলমানদের উপর জুলুম নির্যাতন বন্ধ করে ক্ষমা চাইতে হবে এবং যথাযথ ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। অন্যথায় তাদের উপর খোদায়ী আযাব-গযব এত প্রকট আকার ধারণ করবে যা তারা কোনদিন কল্পনাও করেনি। যা তাদেরকে চূড়ান্ত ধ্বংস করে ছাড়বে।

মূলত এসবের জন্য মুসলমান ও সরকার প্রধানদের চেতনার জাগরণ ঘটাতে হবে। আর এই চেতনা ও জজবা লাভে যামানার ইমাম ও মুজাদ্দিদে আ’যম এবং মহিলাদের জন্য সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, হাবীবাতুল্লাহ হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহাল আলী উনাদের ছোহবত অর্জনের মাধ্যমেই তা হাছিল করা সম্ভব। মহান আল্লাহ পাক সবাইকে কবুল করুন। আমীন

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ