আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

সংখ্যা: ১৯১তম সংখ্যা | বিভাগ:

আল বাইয়্যিনাত প্রতিবেদন: নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ, নবীদের নবী, রসূলদের রসূল হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর  পরিপূর্ণ মুহব্বত, স্মরণ, অনুসরণ ও আনুগত্য ব্যতীত কস্মিন কালেও হাক্বীক্বী উম্মত হওয়া সম্ভব নয়। হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং উনার আহলে বাইত ও আওলাদে রসূল-এর মুহব্বত ও আনুগত্যই বান্দার কামিয়াবীর কারণ।

ইমামে আ’যম, মুজাদ্দিদে আ’যম, কুতুবুল আলম, সুলত্বানুন্ নাছীর, নূরে মুকাররম, হাবীবুল্লাহ রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী বিশেষ মজলিশে আলোচনায় এসব কথা বলেন।

মুযাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী বলেন, নবীদের নবী, রসূলদের রসূল, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর খাছ নিছবত ও তাওয়াল্লুক ব্যতীত আল্লাহ পাক-এর খাছ-নিছবত ও তাওয়াল্লুক হাছীল হবে না। আর এ উভয় প্রকার নিছবত ও তাওয়াল্লুক হাছীল করতে হলে  যুগের ইমাম ও মুযাদ্দিদের খাছ-নিছবত ও তাওয়াল্লুক হাছীল করতে হবে।

মুযাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী বলেন, প্রতিটি মুসলমান, তথা উম্মতে হাবীবী-এর উচিত প্রতিটি ক্ষেত্রে আল্লাহ পাক-এর হাবীব নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে মুহব্বতের সাথে স্মরণ করা, সর্বক্ষেত্রে উনাকে প্রধান্য দেয়া, সর্বত্র উনার আলোচনা, ছানা-ছিফত করা। তাহলে বান্দা দ্বীন-দুনিয়া উভয় জাহানে কামিয়াবী লাভ করতে পারবে।

মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী বলেন, অত্যন্ত দু:খজনক কথা হলো, আজকে এক শ্রেণীর নামধারী মুসলমানরা ইহুদী ও উলামায়ে ছূ’দের প্ররোচনায় মধ্য প্রাচ্যের বিশেষ করে সৌদী আরবে সাইন বোর্ড থেকে শুরু করে সমস্ত কিছু থেকে, বিশেষ করে কালিমা শরীফ থেকে নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ, নবীদের নবী, রসূলদের রসুল হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর নাম মুবারক তুলে দিচ্ছে। যা ইরাকের মত মধ্য প্রাচ্যেও খোদায়ী গযবের কারণ হবে। এ ছাড়া পর্যায়ক্রমে হজ্বের সময় মদীনা মুনাওওয়ারায় অবস্থিত রওজা মুবারক জিয়ারত করাও বন্ধ করে দেয়ার পরিকল্পনা করেছে যা অতি শীঘ্রই বাস্তবায়নের চেষ্টা করবে।(নাউযুবিল্লাহ)

মুযাদ্দিদে আ’যম মুদ্দা জিল্লহুল আলী বলেন, ইহুদী প্ররোচনায় সৌদী ওহাবী সরকার এবছরও  রমাদ্বান শরীফ ও শাওয়ালের চাঁদের তারিখ হেরফের করে মুসলমানদের শবে-ক্বদর ও ঈদের রাতের  বরকত-নিয়ামত থেকে  বঞ্চিত করেছে। এবং এর দ্বারা সামনে জ্বিলহজ্বে অনুষ্টিতব্য হজ্ এবং এতদ সংশ্লিষ্ট সমস্ত ইবাদত নষ্ট করার ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। পাশাপাশি সোয়াইন ফ্লু আতঙ্ক ছড়িয়ে ইহুদী-নাছারাদের দল মুসলমানদের হজ্বে লোক সংখ্যা হ্রাস করার এবং সৌদী আরবকে অর্থনৈতিক মন্দায় ফেলার গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। সেই সাথে সোয়াইন ফ্লু আক্রান্ত হওয়ার ভয় দেখিয়ে মুসলমানদের ধর্মীয় সুন্নত অনুষঙ্গ মুছাফাহা ও মুয়ানাকা করার মত আমল থেকেও বিরত রাখার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

মুযাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী ইহুদী-খ্রীস্ট, মুশরিক ও উলামায়ে ছূ’ চক্রের এসব ইসলাম ও মুসলিম বিধ্বংসী ষড়যন্ত্র থেকে এখনই মুসলমানদের সাবধান ও সচেতন হওয়ার আহবান জানান এবং সৌদী ওহাবী সরকারকে সঠিক ইসলামী পন্থা গ্রহণ ও বাস্তবায়নে বিশ্বের দু’শ  পঞ্চান্ন কোটি মুসলমানকে চাপ প্রয়োগ করার  আহবান জানান।

ইহুদী-নাছারা ও মুশরিক চক্রের  বিশ্বব্যাপী মুসলিম নির্যাতনের প্রেক্ষিতে যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, মুসলিম মিল্লাতের একমাত্র দরদী রাহবারে আ’যম, মুযাদ্দিদে আ’যম, রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী বিধর্মীদের  হিদায়েত থাকলে হিদায়েত অন্যথায়  ধ্বংসের কথা বলে দোয়া করলে মধ্যপ্রাচ্যের জনৈক গ্র্যা- মুফতী একে অবৈধ বলে ফতোয়া প্রচার করলে, এর প্রতিউত্তরে মুজাদ্দিদে আ’যম বলেন, এই গ্র্যা- মুফতী নিঃসন্দেহে ইহুদী-খীস্ট চক্রের এজেন্ট এবং আরো বলেন, উল্লেখিত মুফতী যদি কাফেরদের মুহব্বত থেকে নিজেকে বাঁচাতে না পারে তাহলে সে মুসলমান থেকে খারিজ হয়ে মুরতাদে পরিণত হবে।

বিশ্বব্যাপী মুসলিম নির্যাতনে ইসরাঈলী ইহুদী গোষ্ঠীর পরোক্ষ ইন্ধন থাকায় মুযাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী ইসরাঈলী ইহুদী গোষ্ঠীর আমেরিকার চেয়েও কঠিন পরিণতি ভোগ করতে হবে এবং তাদেরও আমেরিকানদের মত ডাস্টবিন থেকে খেতে হবে বলে হুশিয়ার করে দেন।  মুসলমানদের উপর জুলুম ও ষড়যন্ত্র বন্ধ না করা পর্যন্ত এদের মুক্তি নেই বলে তিনি মন্তব্য করেন।

উল্লেখ্য, পবিত্র রমাদ্বান শরীফ-এর  শেষ দশ দিনের বেজোড় রাত্রী সমূহে রাজারবাগ দরবার শরীফ-এ পবিত্র শবে ক্বদর তালাশ করা হয় এবং এ উপলক্ষে মুযাদ্দিদে আ’যম রাজারবাগ শরীফ-এর  মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী বিশেষ দোয়া ও মুনাজাত করেন। ২৭ শে রমাদ্বান হানাফী মাযহাব মতে আনুষ্ঠানিকভাবে পবিত্র শবে ক্বদর তালাশ করা হয়। ঈদের রাতেও উনি বিশেষ দোয়া ও মুনাজাত করেন। স্মর্তব্য রাজারবাগ দরবার শরীফ-এ মুযাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-এর মহান ইমামতিতে বিশ্বের সর্ব প্রথম ঈদের জামাত সকাল ৬.১৫ মিনিটে অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, পবিত্র রমাদ্বান শরীফ-এর শুরু থেকে ২৭শে রমাদ্বান  শরীফ পর্যন্ত সাতাশ দিন ব্যাপী ইমামাতুছ্ ছিদ্দীক্বা, সাইয়্যিদাতুন্ নিসায়িল আলামীন, হাবীবাতুল্লাহ, কায়িম মক্বামে উম্মাহাতুল মু’মিনীন হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহাল আলীয়া-এর মুবারক তত্ত্বাবধানে মহিলাদের বিশেষ তা’লীম-তালক্বীন ও নছীহত প্রদান করা হয়। এতে প্রতিদিন তিনি বিশেষ নছীহত ও দোয়া মুনাজাত করেন।

উল্লেখ্য, পবিত্র রমাদ্বান শরীফ উপলক্ষে কেন্দ্রীয় আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত-এর আমিলগণের প্রতিনিধিত্বে সারা দেশের স্থানীয়  আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত-এর উদ্যোগে মাসব্যাপী ইফতার ও মীলাদ শরীফ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ