আ’লামু বিত্ ত্বিব, আ’লামু বিল ফারায়িদ্ব, আ’লামু বিসুনানি রসূলিল্লাহ, হুল্লাতুল ইসলাম, আশাদ্দু হিজাবান, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম- রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নাম মুবারকের পূর্বে ব্যবহৃত লক্বব বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১০৮

সংখ্যা: ২১৪তম সংখ্যা | বিভাগ:

-হযরত মাওলানা সাইয়্যিদ মুহম্মদ আব্দুল হালীম

 

‘মুহইস সুন্নাহ’ লক্বব মুবারক প্রসঙ্গে

 

খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাকিমুল হাদীছ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার জিন্দাকৃত বা পূণঃ প্রচলন করা কতিপয় সুন্নতের বিবরণ:

 

কাঠের পেয়ালার (বাটি) সুন্নত জিন্দা

বা পুনঃপ্রচলন

 

মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কাঠের তৈরি বাটিতে ঠা-া পানি, মধু, নবীয, দুধ, ছাতু ইত্যাদি পানীয় পান করেছেন। উনার সেই মুবারক পান পাত্রটি ছিল প্রশস্ত। উহার দৈর্ঘ্য থেকে প্রস্থ বেশি ছিল। উহার কিনারায় লোহার, অপর বর্ণনায় রূপার পাত বা বেড়ী লাগানো ছিল। পাত্রটি মজবুত ও দীর্ঘস্থায়ী করার জন্য সে পাত বা বেড়ী স্বয়ং সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি লাগিয়েছেন।

অন্য বর্ণনায় উনার বিশিষ্ট খাদিম হযরত আনাছ ইবনে মালিক রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি লাগিয়েছেন বলে উল্লেখ আছে। (জামউল ওয়াসায়িল- ২৯৪)

হযরত আনাছ ইবনে মালিক রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন-

لقد سقيت رسول الله صلى الله عليه و سلم بـهذا القدح الشراب كله الـماء والنبيذ و العسل و اللبن

অর্থ : æআমি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে এ বাটি মুবারকে দ্বারা সর্বপ্রকার পানীয় তথা নবীয, মধু, দুধ ইত্যাদি পান করিয়েছি। (শামায়িলুত তিরমিযী-২০২, আখলাকুন নবী- ৩০৫, মুসনাদে আহমদ- ৩/১৩৯)

হযরত সাবিত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বর্ণনা করেছেন-

اخرج الينا حضرت انس بن مالك رضى الله تعالى عنه قدح خشب غليظا مضببا بحديد فقال حضرت ثابت (رحمة الله عليه) هذا قدح رسول الله صلى الله عليه و سلم

অর্থ : æহযরত আনাছ ইবনে মালিক রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি আমাদেরকে একটি লোহার পাতযুক্ত, মোটা কাঠের তৈরি মুবারক বাটি বের করে দেখালেন। আর বললেন, æহে হযরত ছাবিত (রহমতুল্লাহি আলাইহি)! ইহাই সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বাটি মুবারক।” (শামায়িলুত তিরমিযী ২০১, আশরাফুল ওয়াসায়িল ২৭৫, জামউল ওয়াসায়িল ২৯৩)

খাদিমু রসূলিল্লাহ হযরত আনাছ ইবনে মালিক রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি সেই কাঠের মুবারক বাটিটি অত্যন্ত আদব ও তা’যীম-তাকরীমের সাথে সংরক্ষণ করেছেন। পরবর্তীতে বংশ পরম্পরায় তা সংরক্ষিত ছিল। এমনকি হযরত ইমাম বুখারী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বসরাতে তা দেখতে পেয়েছেন এবং তাতে পানি পান করেছেন বলে উল্লেখ করেছেন। (আশরাফুল ওয়াসায়িল ২৭৫, জামউল ওয়াসায়িল ২৯৪)

স্মর্তব্য যে, উলামায়ে ‘সূ’দের সুন্নত বিমুখতা, মনগড়া আমল তথা স্বেচ্ছাচারিতা, বিভ্রান্তিমূলক ফতওয়া দান এবং ইহুদী-নাছারা, মজুসী-মুশরিকদের অনুসরণ প্রবণতার কারণে কালক্রমে সেই কাঠের বাটির সুন্নতটিও বিলুপ্ত হয়। তদস্থলে জারি হয় অসংখ্য বিদয়াত। কাঠের বাটির কল্যাণ ও বরকত থেকে মুসলিম উম্মাহ মাহরুম বা বঞ্চিত হয়। মুখোমুখি হয় অসংখ্য ক্ষতিকারক জিনিসের সাথে। অনেক ক্ষেত্রে সেগুলোকে সুন্নত বলে আমল ও বিশ্বাস করে মূল্যবান ঈমান হারিয়ে জাহান্নামের পথ রচনা করে।

মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার বান্দার প্রতি অত্যন্ত দয়াশীল, মেহেরবান। উনার মুহব্বতের বান্দাদেরকে কল্যাণ ও বরকত দানের পথ রুদ্ধ হওয়াকে তিনি পছন্দ করেন না। তাই তো যুগে যুগে মুজাদ্দিদ পাঠিয়ে রহমত-বরকত, সাকীনাহ-এর পথকে কণ্টকমুক্ত করেন। খুলে দেন সেই রুদ্ধদ্বার।

পঞ্চদশ হিজরী শতকের মুজাদ্দিদ সারা কায়িনাতের রহমতস্বরূপ, ইমাম ও মুজতাহিদ, খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাকীমুল হাদীছ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি বিলুপ্ত সেই সুন্নতটিও জিন্দা বা পুনর্জীবিত করেন। (চলবে)

আ’লামু বিত্ ত্বিব, আ’লামু বিল ফারায়িদ্ব, আ’লামু বিসুনানি রসূলিল্লাহ, হুল্লাতুল ইসলাম, আশাদ্দু হিজাবান, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম- রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-উনার নাম মুবারকের পূর্বে ব্যবহৃত লক্বব বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১০২

আ’লামু বিত্ ত্বিব, আ’লামু বিল ফারায়িদ্ব, আ’লামু বিসুনানি রসূলিল্লাহ, হুল্লাতুল ইসলাম, আশাদ্দু হিজাবান, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম- রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-উনার নাম মুবারকের পূর্বে ব্যবহৃত লক্বব বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১০৩

আ’লামু বিত্ ত্বিব, আ’লামু বিল ফারায়িদ্ব, আ’লামু বিসুনানি রসূলিল্লাহ, হুল্লাতুল ইসলাম, আশাদ্দু হিজাবান, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম- রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নাম মুবারকের পূর্বে ব্যবহৃত লক্বব বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১০৪

আ’লামু বিত্ ত্বিব, আ’লামু বিল ফারায়িদ্ব, আ’লামু বিসুনানি রসূলিল্লাহ, হুল্লাতুল ইসলাম, আশাদ্দু হিজাবান, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম- রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নাম মুবারকের পূর্বে ব্যবহৃত লক্বব বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১০৫

আ’লামু বিত্ ত্বিব, আ’লামু বিল ফারায়িদ্ব, আ’লামু বিসুনানি রসূলিল্লাহ, হুল্লাতুল ইসলাম, আশাদ্দু হিজাবান, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম- রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নাম মুবারকের পূর্বে ব্যবহৃত লক্বব বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১০৬