ইমামুল মুসলিমীন, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইউস সুন্নাহ ইমামে আ’যম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম আবূ হানীফা রহমতুল্লাহি আলাইহি-৭২: (বিলাদাত শরীফ- ৮০ হিজরী, বিছাল শরীফ- ১৫০ হিজরী)

সংখ্যা: ২৮৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

রিয়াদ্বত-মাশাক্কাত ও সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহি আলাইহি (৭)

 

সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম আবু ইউসূফ রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, একদিন আমি সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার সাথে যাচ্ছিলাম। পথের ধারে ছেলেরা উনাকে দেখে পরস্পর বলাবলি করতে ছিলেন যে, তিনি সেই ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহি আলাইহি, যিনি সারা রাত ইবাদত-বন্দেগী ও যিকির-ফিকিরে অতিবাহিত করেন। সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি আমাকে উদ্দেশ্য করে বললেন, আবু ইউসূফ! দেখুন! আমার ব্যাপারে ছেলেরা কি বলছে। আজ থেকে আমাকে আর রাতে ঘুমানো যাবেনা। হযরত আব্দুল মজিদ ইবনে রাওয়াদ রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, পবিত্র হজ্জের সময়ও আমি সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে তাওয়াফ সম্মানিত নামায এবং ফাতওয়া দানের ক্ষেত্রে অধিক ব্যস্ত অন্য কাউকে দেখিনি। সারা দিন ও সারা রাত তিনি ইবাদত বন্দেগী ও যিকির-ফিকিরে নিমগ্ন থাকতেন। আবার তা’লীম-তালকীনও দান করতেন। একটানা দশদিন পর্যন্ত তিনি সম্মানিত নামায, তাওয়াফ এবং তা’লীম দানে ব্যস্ত ছিলেন। রাত-দিন কোন সময়ই তিনি একটুও ঘুমাননি। সুবহানাল্লাহ! হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে লাবীদ রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, পবিত্র রমাদ্বান মাস আসলে সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ তিলাওয়াতে নিমগ্ন থাকতেন। পবিত্র রমাদ্বান মাসে ৬১ বার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ খতম করতেন। আর পবিত্র রমাদ্বান মাসের শেষ দশকে উনার সাথে সাক্ষাতের সুযোগই হতো না। সুবহানাল্লাহ!

হযরত আমর ইবনে হাইছাম রহমাতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, একবার আমি সাইয়্যিদুনা হযরত শুবা রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার একটি পত্র নিয়ে সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহি আলাইহি উনার মুবারক খিদমতে হাজির হলাম। তখন ছিলো পবিত্র আছর নামাযের সময়। তিনি পবিত্র মসজিদেই আছর, মাগরিব এবং ইশার নামায আদায় করলেন। নামায শেষে উনার পবিত্র হুজরা শরীফে চলে গেলেন। খানা খেয়ে আমাকে একটি বিছানায় শুয়ে দিলেন। আর তিনি পবিত্র হুজরা শরীফের এক কোনে পবিত্র নামাযের জন্য দাঁড়িয়ে গেলেন। আর সারা রাত নামাযে কাটিয়ে দিলেন। তিনি এক রাকায়াতে পূর্ণ কুরআন শরীফ খতম করেছেন। (তারীখে বাগদাদণ্ড১৩/৩৫৪, তাহযীবুল কামাল-২৯/৪৯৪, আত্ তাবাকাতুস সুন্নিয়্যাহ-১/৩২, আখবারু আবী হানিফা ওয়া আছহাবিহ-১/৫৩, সিরারু আলামিন নুবালা-১১/৪৮৪)

সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমাতুল্লাহ্ আলাইহি উনার

দোয়া বা প্রার্থনার স্বরূপ:

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

مَنْ فُتِحَ لَهٗ مِنْكُمْ بَابُ الدُّعَاءِ فُتِحَتْ لَهٗ اَبْـوَابُ الرَّحْمَةِ

অর্থ: তোমাদের মধ্যে যার জন্য দোয়া বা প্রার্থনার দরজা খুলে দেয়া হয় তার জন্য সম্মানিত রহমত মুবারক উনার সমস্ত দরজা খুলে দেয়া হয়। অর্থাৎ তার উপর সবসময় অজ¯্রধারায় রহমত মুবারক বর্ষিত হয়ে থাকে। (তিরমিযী শরীফ)

এই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার পরিপূর্ণ হক্বদার বা মিছদাক্ব হচ্ছেন- ইমামুল মুসলিমীন মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি। সুবহানাল্লাহ!

তিনি প্রতি রাতেই বিশেষভাবে দোয়া করতেন। দীর্ঘসময় ধরে দোয়া বা প্রার্থনা করতেন।

সাইয়্যিদুনা হযরত ইয়াজিদ ইবনে কুম্মাত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, ইমামুল মুসলিমীন সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামে আ’যম রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি মানুষের মধ্যে সর্বাপেক্ষা শ্রেষ্ঠ ছিলেন। তিনি মহান আল্লাহ পাক উনাকে খুবই কঠিনভাবে ভয় করতেন।

সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ, মুজাদ্দিদ যামান, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী আজমিরী সাঞ্জারী রহমতুল্লাহি আলাইহি-৪৬ (বিলাদত শরীফ ৫৩৬ হিজরী, বিছাল শরীফ ৬৩৩ হিজরী)

ইমামুল মুসলিমীন, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইউস সুন্নাহ ইমামে আ’যম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম আবূ হানীফা রহমতুল্লাহি আলাইহি-৬২ (বিলাদাত শরীফ- ৮০ হিজরী, বিছাল শরীফ- ১৫০ হিজরী)

পঞ্চদশ হিজরী শতকের মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, আওলাদুর রসূল, ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার মহা সম্মানিতা আম্মা, আওলাদুর রসূল, সাইয়্যিদাতুনা আমাদের- হযরত দাদী হুযূর ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম উনার সীমাহীন ফাদ্বায়িল-ফদ্বীলত, বুযূর্গী-সম্মান, মান-শান, বৈশিষ্ট্য এবং উনার অনুপম মাক্বাম সম্পর্কে কিঞ্চিৎ আলোকপাত-৬৬ -মুহম্মদ সা’দী

ওলীয়ে মাদারজাদ, মুসতাজাবুদ্ দা’ওয়াত, আফযালুল ইবাদ, ছাহিবে কাশফ্ ওয়া কারামত, ফখরুল আউলিয়া, ছূফীয়ে বাত্বিন, ছাহিবে ইস্মে আ’যম, লিসানুল হক্ব, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, আমাদের সম্মানিত দাদা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার স্মরণে- একজন কুতুবুয্ যামান উনার দীদারে মাওলা উনার দিকে প্রস্থান-২১৬ -মুহম্মদ সা’দী

সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ, মুজাদ্দিদ যামান, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী আজমিরী সাঞ্জারী রহমতুল্লাহি আলাইহি-৪৭ (বিলাদত শরীফ ৫৩৬ হিজরী, বিছাল শরীফ ৬৩৩ হিজরী)