কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম-নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-৩১

সংখ্যা: ১৯৮তম সংখ্যা | বিভাগ:

[সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন-উনার জন্যে এবং অসংখ্য দুরূদ ও সালাম আল্লাহ পাক-উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার প্রতি। আল্লাহ পাক-উনার অশেষ রহ্মতে æগবেষণা কেন্দ্র মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ”-এর ফতওয়া বিভাগের তরফ থেকে বহুল প্রচারিত, হক্বের অতন্দ্র প্রহরী, বাতিলের আতঙ্ক ও আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদায় বিশ্বাসী এবং হানাফী মাযহাব-এর অনুসরণে প্রকাশিত একমাত্র দলীলভিত্তিক যামানার তাজদীদী মুখপত্র æমাসিক আল বাইয়্যিনাত” পত্রিকায় যথাক্রমে- ১. টুপির ফতওয়া (২য় সংখ্যা) ২. অঙ্গুলী চুম্বনের বিধান (৩য় সংখ্যা) ৩. নিয়ত করে মাজার শরীফ যিয়ারত করা (৪র্থ সংখ্যা) ৪. ছবি ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় হারাম হওয়ার ফতওয়া (৫ম-৭ম সংখ্যা) ৫. জুমুয়ার নামায ফরযে আইন ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ফতওয়া (৮ম-১০ম সংখ্যা) ৬. মহিলাদের মসজিদে গিয়ে জামায়াতে নামায পড়া মাকরূহ্ তাহ্রীমী সম্পর্কে ফতওয়া (১১তম সংখ্যা) ৭. কদমবুছী ও তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১২তম সংখ্যা) ৮. তাহাজ্জুদ নামায জামায়াতে পড়া মাকরূহ্ তাহ্রীমী ও বিদ্য়াতে সাইয়্যিয়াহ্ এবং তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৩তম সংখ্যা) ৯. ফরয নামাযের পর মুনাজাত ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৪-২০তম সংখ্যা) ১০. ইন্জেকশন নেয়া রোযা ভঙ্গের কারণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (২১-২২তম সংখ্যা) ১১. তারাবীহ্-এর নামাযে বা অন্যান্য সময় কুরআন শরীফ খতম করে উজরত বা পারিশ্রমিক গ্রহণ করা জায়িয ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (২৩-২৪তম সংখ্যা) ১২. তারাবীহ্ নামায বিশ রাকায়াত ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (২৫-২৯তম সংখ্যা) ১৩. দাড়ী ও গোঁফের শরয়ী আহ্কাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৩০-৩৪তম সংখ্যা) ১৪. প্রচলিত তাবলীগ জামায়াত ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৩৫-৪৬তম সংখ্যা) ১৫. আযান ও ছানী আযান মসজিদের ভিতরে দেয়ার আহ্কাম এবং তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৪৭-৫০তম সংখ্যা) ১৬. দোয়াল্-যোয়াল্লীন-এর শরয়ী ফায়সালা এবং তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে  ফতওয়া (৫১-৫২তম সংখ্যা) ১৭. খাছ সুন্নতী টুপি ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে  ফতওয়া (৫৩-৫৯তম সংখ্যা) ১৮. নূরে মুহম্মদী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও উনার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে  ফতওয়া (৬০-৮২তম সংখ্যা) ১৯. ইমামাহ্ বা পাগড়ী মুবারকের আহ্কাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কিত ফতওয়া (৮৩-৯৬তম সংখ্যা) ২০. শরীয়তের দৃষ্টিতে আখিরী যোহ্র বা ইহ্তিয়াতুয্ যোহ্রের আহ্কাম এবং তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (৯৭-১০০তম সংখ্যা)  ২১. জানাযা নামাযের পর হাত তুলে সম্মিলিতভাবে মুনাজাত করার শরয়ী ফায়সালা ও তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১০১-১১১তম সংখ্যা) এবং  ২২. হিজাব বা পর্দা ফরযে আইন হওয়ার প্রমাণ ও তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১১২-১৩১তম সংখ্যা) ২৩. খাছ সুন্নতী ক্বমীছ বা কোর্তা এবং তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৪০তম সংখ্যা) ২৪. হানাফী মাযহাব মতে ফজর নামাযে কুনূত বা কুনূতে নাযেলা পাঠ করা নাজায়িয ও নামায ফাসিদ হওয়ার কারণ এবং তার প্রাসঙ্গিক বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৩২-১৫২তম সংখ্যা) ২৫. ইসলামের দৃষ্টিতে বিশ্বকাপ ফুটবল বা খেলাধুলা’র শরয়ী আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ফতওয়া (১৫৫তম সংখ্যা) ২৬. হানাফী মাযহাব মতে পুরুষের জন্য লাল রংয়ের পোশাক তথা রুমাল, পাগড়ী, কোর্তা, লুঙ্গি, চাদর ইত্যাদি পরিধান বা ব্যবহার করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৫৩-১৬০তম সংখ্যা)   ২৭.  ইসলামের  নামে গণতন্ত্র ও নির্বাচন করা, পদপ্রার্থী হওয়া, ভোট চাওয়া ও দেয়া হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া (১৬১-১৭৫তম সংখ্যা) পেশ করার পর ১৬৮তম সংখ্যা থেকে-

২৮তম ফতওয়া হিসেবে

æকুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া” পেশ করে আসতে পারায় মহান আল্লাহ পাক-উনার দরবার শরীফ-এ শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা, করানো ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া দেয়ার কারণ

সুন্নতের পথিকৃত, হক্বের অতন্দ্র প্রহরী, দ্বীন ইসলামের নির্ভীক সৈনিক, সারা জাহান থেকে কুফরী, শিরক ও বিদ্য়াতের মূলোৎপাটনকারী, বাতিলের আতঙ্ক এবং আহ্লে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদায় বিশ্বাসী একমাত্র দলীলভিত্তিক তাজদীদী মুখপত্র- æমাসিক আল বাইয়্যিনাত” পত্রিকায় এ যাবৎ যত লেখা বা ফতওয়াই প্রকাশ বা পত্রস্থ হয়েছে এবং ইনশাআল্লাহ হবে তার প্রতিটিরই উদ্দেশ্য বা মাকছূদ এক ও অভিন্ন। অর্থাৎ æমাসিক আল বাইয়্যিনাত”-এ এমন সব লেখাই পত্রস্থ হয়, যা মানুষের আক্বীদা ও আমলসমূহ পরিশুদ্ধ ও হিফাযতকরণে বিশেষ সহায়ক।

বর্তমানে ইহুদীদের এজেন্ট হিসেবে মুসলমানদের ঈমান আমলের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করছে যারা, তারা হলো ‘ওহাবী সম্প্রদায়’। ইহুদীদের এজেন্ট ওহাবী মতাবলম্বী উলামায়ে ‘ছূ’রা হারাম টিভি চ্যানেলে, পত্র-পত্রিকা, কিতাবাদি ও বক্তব্য বা বিবৃতির মাধ্যমে একের পর এক হারামকে হালাল, হালালকে হারাম, জায়িযকে নাজায়িয, নাজায়িযকে জায়িয বলে প্রচার করছে। (নাঊযুবিল্লাহ)

স্মরণীয় যে, ইহুদীদের এজেন্ট, ওহাবী মতাবলম্বী দাজ্জালে কায্যাব তথা উলামায়ে ‘ছূ’রা প্রচার করছে æছবি তোলার ব্যাপারে ধর্মীয় কোন নিষেধাজ্ঞা নেই”। (নাউযুবিল্লাহ) সম্প্রতি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে, æনির্বাচন কমিশনার বলেছে, ছবি তোলার বিরুদ্ধে বললে জেল-জরিমানা হবে, নির্বাচন কমিশনার ভোটার আই.ডি কার্ডের জন্য ছবিকে বাধ্যতামূলক করেছে এবং ছবির পক্ষে মসজিদে, মসজিদে প্রচারণা চালাবে বলেও মন্তব্য করেছে। আর উলামায়ে ‘ছূ’রা তার এ বক্তব্যকে সমর্থন করে বক্তব্য দিয়েছে যে, æরাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে পুরুষ-মহিলা সকলের জন্যেই ছবি তোলা জায়িয।” (নাঊযুবিল্লাহ) শুধু তাই নয়, তারা নিজেরাও অহরহ ছবি তুলে বা তোলায়।

অথচ তাদের উপরোক্ত বক্তব্য সম্পূর্ণ মিথ্যা, চরম বিভ্রান্তিকর ও কুফরীমূলক। তাদের এ বক্তব্যের কারণে তারা নিজেরা যেরূপ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, তদ্রুপ তাদের উক্ত কুফরীমূলক বক্তব্য ও বদ্ আমলের কারণে সাধারণ মুসলমানগণ ই’তিক্বাদী বা আক্বীদাগত ও আ’মালী বা আমলগত উভয় দিক থেকেই বিরাট ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।

কারণ, তাদের উক্ত বক্তব্যের কারণে যারা এ আক্বীদা পোষণ করবে যে, æরাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে ছবি তোলা জায়িয” তারা ঈমানহারা হয়ে কাট্টা কাফির ও চির জাহান্নামী হবে। কারণ শরীয়তের দৃষ্টিতে হারাম বা নাজায়িযকে হালাল বা জায়িয বলা কুফরী। কেননা কিতাবে স্পষ্টই উল্লেখ আছে যে,

استحلال المعصية كفر.

অর্থাৎ æগুনাহের কাজ বা হারামকে হালাল মনে করা কুফরী।” (শরহে আক্বাইদে নাসাফী।)

অতএব, বলার আর অপেক্ষাই রাখেনা যে, উলামায়ে æছূ”দের উক্ত বক্তব্য সাধারণ মুসলমানদের আক্বীদা বা ঈমানের জন্য বিশেষভাবে হুমকিস্বরূপ।

অনুরূপ æছবি তোলার ব্যাপারে ধর্মীয় কোন নিষেধ নেই বা রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে সকলের জন্যে ছবি তোলা জায়িয” উলামায়ে æছূ”দের এ কুফরীমূলক বক্তব্য মুসলমানদের আমলের ক্ষেত্রেও বিশেষ ক্ষতির কারণ। কেননা যারা তাদের উক্ত বক্তব্যের কারণে ছবি তুলবে (যদিও হারাম জেনেই তুলুক না কেন) তারা আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব কর্তৃক নিষিদ্ধকৃত কাজে তথা হারাম কাজে মশগুল হবে যা শক্ত আযাব বা কঠিন গুনাহের কারণ। কেননা হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে-

قال حدثنا الاعمش عن مسلم قال كنا مع مسروق فى دار يسار بن نمير فراى فى صفته تماثيل فقال سمعت عبد الله قال سمعت النبى صلى الله عليه وسلم يقول ان اشد الناس عذابا عند الله المصورون.

অর্থঃ হযরত আ’মাশ রহমতুল্লাহি আলাইহি হযরত মুসলিম রহমতুল্লাহি আলাইহি হতে বর্ণনা করেন তিনি বলেন, আমি হযরত মাসরূক রহমতুল্লাহি আলাইহি-উনার সঙ্গে ইয়াসার ইবনে নুমাইর-উনার ঘরে ছিলাম, তিনি উনার ঘরের মধ্যে প্রাণীর ছবি দেখতে পেলেন, অতঃপর বললেন, আমি হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু-উনার নিকট শুনেছি, তিনি বলেন, আল্লাহ পাক-উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেছেন, æনিশ্চয়ই মানুষের মধ্যে ঐ ব্যক্তিকে আল্লাহ পাক কঠিন শাস্তি দেবেন, যে ব্যক্তি প্রাণীর ছবি তোলে বা আঁকে।” (বুখারী শরীফ ২য় জিঃ, পৃঃ ৮৮০)

উক্ত হাদীছ শরীফ-এর ব্যাখ্যায় উমদাতুল ক্বারী শরহে বুখারীতে” উল্লেখ আছে,

وفى التوضيح قال اصحابنا وغيرهم صورة الحيوان حرام اشد االتحريم وهم من الكبائر.

অর্থঃ ‘তাওদ্বীহ’ নামক কিতাবে উল্লেখ আছে যে, হযরত উলামায়ে কিরামগণ প্রত্যেকেই বলেন, জীব জন্তুর ছবি বা প্রতিমূর্তি নির্মাণ করা হারাম বরং শক্ত হারাম এবং এটা কবীরা গুাহর অন্তর্ভুক্ত।

অতএব, নিঃসন্দেহে বলা যায় যে, উলামায়ে æছূ”দের উক্ত বক্তব্য ও বদ আমলের কারণে সাধারণ মুসলমানগণ ছবি তুলে প্রকাশ্য হারাম কাজে মশগুল হয়ে কঠিন আযাবের সম্মুখীন হবে যা আমলের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে ক্ষতিকর।

কাজেই, যারা এ ধরনের কুফরী আক্বীদায় বিশ্বাসী ও কুফরী বক্তব্য প্রদানকারী তারা ও হক্ব সমঝদার মুসলমানগণ ঈমান ও আমলকে যেন হিফাযত করতে পারে অর্থাৎ মূর্তি বা ছবিসহ সকল বিষয়ে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের আক্বীদা অনুযায়ী আক্বীদা পোষণ করতে পারে এবং কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস মোতাবেক আমল করে আল্লাহ পাক উনার রিযামন্দি হাছিল করতে পারে সে জন্যেই æকুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কিত ফতওয়াটি” পুনরায় প্রকাশ করা হলো।

প্রাণীর মূর্তি, ভাস্কর্য তৈরি করা-করানো, ছবি তোলা-তোলানো, আঁকা-আঁকানো, রাখা-রাখানো হারাম ও নাজায়িয হওয়ার অকাট্য ও নির্ভরযোগ্য দলীল প্রমাণ

 

স্মর্তব্য যে, নির্ভরযোগ্য ও সর্বজনমান্য প্রায় হাদীছ শরীফ, হাদীছ শরীফ-এর ব্যাখ্যাগ্রন্থ ও ফিক্বাহ-ফতওয়ার কিতাবেই æপ্রাণীর মূর্তি, ভাস্কর্য তৈরি করা-করানো, ছবি তোলা-তোলানো, আঁকা-আঁকানো, রাখা-রাখানো হারাম ও নাজায়িয” বলে উল্লেখ আছে। নিম্নে সেসকল কিতাবসমূহ থেকে ধারাবাহিকভাবে এ সম্পর্কিত দলীল প্রমাণ তুলে ধরা হলো-

 

শরহু মুসনাদ আবী হানীফাহ

রহমতুল্লাহি আলাইহি

 

‘মসনাদু আবী হানীফাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি’ কিতাবখানার ব্যাখ্যাগ্রন্থ ‘শরহু মুসনাদ আবী হানীফাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি’। ব্যাখ্যাকার হচ্ছেন হযরত আল্লামা নূরুদ্দীন আলী বিন সুলত্বান বিন মুহম্মদ হারবী মাক্কী হানাফী মাতুরীদী মুল্লা আলী ক্বারী রহমতুল্লাহি আলাইহি। ওফাত মুবারক: ১০১৪ হিজরী। অত্র কিতাবে প্রাণীর ছবি সম্পর্কে যা উল্লেখ আছে তা হলো-

(৪৮৫)

(لا ندخل بيتا فيه كلب ولا تماثيل) اى جنس تصاوير.

অর্থ: (আমরা রহমতের ফেরেশতারা ওই ঘরে প্রবেশ করি না, যে ঘরে কুকুর ও ছবি থাকে) অর্থাৎ সমস্ত প্রকার প্রাণীর ছবি থাকে। (পরিচ্ছেদ: ইখরাজুত তাছাবীর ওয়াল কালব মিনাল বাইত ২৪১ পৃষ্ঠা প্রকাশনা: দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরূত লিবানন)

 

হাশিয়াতুল মুওয়াত্তা লিল ইমাম মুহম্মদ রহমতুল্লাহি আলাইহি

 

‘মুয়াত্তা লিল ইমাম মুহম্মদ রহমতুল্লাহি আলাইহি’ মূল কিতাবখানার হাশিয়ায় উল্লেখিত ব্যাখ্যাখানা করেছেন, মাওলানা মুহম্মদ ইসহাক নাযিম। অত্র কিতাবে প্রাণীর ছবি সম্পর্কে যা উল্লেখ আছে তা হলো-

(৪৮৬-৪৮৭)

قال ابن حجر المكى الهيتمى فى كتابه الزواجر عن افتراق الكبائر هذا اى تصاوير ذى روح على اى شىء كان كبيرة هو صريح الاحاديث الصحيحة.

অর্থ: হযরত ইবনু হাজার মাক্কী হাইতামী শাফিয়ী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ‘আল যাওয়াজির আন ইফতিরাকিল কাবায়ির’ নামক কিতাবে বলেন, প্রাণীর ছবি তোলা-আঁকা ছহীহ হাদীছ শরীফসমূহ দ্বারা কবীরাহ গুণাহ হিসেবে সাব্যস্ত। (আবওয়াবুস সিয়ার বাবু তাছাবীর ওয়াল জারাস ওয়ামা ইয়াকরাহু মিনহা হাশিয়াহ নং ৬ পৃষ্ঠা ৩৮২ আল মাকাতাবুতুর রহীমিয়াহ)

(৪৮৮)

واما جعل له تصوير الذى روح فهو حرام مطلقا، ثم رايت فى شرح مسلم ما يصرح بما ذكرته حيث قال ما حاصله تصوير صورة الحيوان حرام من الكبائر.

অর্থ: প্রাণীর ছবি তৈরী করা মূলত হারাম। মুসলিমের শরাহতে ষ্পষ্ট লিখিত আছে, যার মূলকথা হলো প্রাণওয়ালা প্রাণীর ছবি হারাম যা কবীরা গুনাহ। (আবওয়াবুস সিয়ার বাবুত তাছাবীর ওয়াল জারাস ওয়ামা ইয়াকরাহু মিনহা হাশিয়াহ নং ৬ পৃষ্ঠা ৩৮২ আল মাকতাবাতুর রহীমিয়াহ)

(৪৮৯)

واما صورة الشجر وغيرها فليس بحرام.

অর্থ: গাছ ও অনুরূপ উদ্ভিদ বা জড়বস্তুর ছবি হারাম নয়। (আবওয়াবুস সিয়ার বাবুত তাছাবীর ওয়াল জারাস ওয়ামা ইয়াকরাহু মিনহা- হাশিয়াহ নং-৬ পৃষ্ঠা ৩৮২- আল মাকতাবাতুর রহীমিয়াহ)

 

আল মুহাইয়া ফী কাশফি আসরারিল মুওয়াত্ত্বা

 

‘আল মুওয়াত্ত্বা লিল ইমাম মুহম্মদ রহমতুল্লাহি আলাইহি, এর ব্যাখ্যাগ্রন্থ ‘আল মুহাইয়া ফী কাশফি আসরারিল মুওয়াত্ত্বা বিরিওয়ায়াতি মুহম্মদ বিন হাসান শাইবানী।’ এ কিতাবের লিখক হচ্ছেন, হযরত আল্লামা উছমান বিন সাঈদ কামাখী। ওফাত: ১১৭১ হিজরী। অত্র কিতাবে প্রাণীর ছবি সম্পর্কে যা উল্লেখ আছে-

(৪৯০)

قال ابن العربى حاصل ما فى اتخاذ الصور انها كانت ذات اجسام حرام اجماعا.

অর্থ: হযরত ইবনুল আরাবী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন, মূলকথা হলো, পূর্ণদেহধারী প্রাণীর ছবি তোলা আঁকা দেখা ইত্যাদি ইজমা মতে হারাম। (কিতাবুস সিয়ার বাবুত তাছাবীর ওয়াল জারাস ওয়া মা ইয়াকরাহু মিনহা ৪র্থ খ- ২৪৬ পৃষ্ঠা, প্রকাশনা: দারুল হাদীছ-ক্বাহিরাহ)

(৪৯১)

وان كانت رقما فاربعة اقوال: الجواز مطلقا لظاهر هذا الحديث.

অর্থ: কাপড়ে গাছপালা বা জড় বস্তুর নকশা-এ ব্যাপারে ৪টি মতামত আছে। তন্মধ্যে প্রথম মত হলো, কাপড়ে প্রাণহীন বস্তুর নকশা অত্র হাদীছ শরীফ দ্বারাই জায়িয প্রামানিত হয়। (কিতাবুস সিয়ার বাবুত তাছাবীর ওয়াল জারাস ওয়া মা ইয়াকরাহু মিনহা ৪র্থ খ- ২৪৬ পৃষ্ঠা, প্রকাশনা: দারুল হাদীছ-কাহিরাহ)

 

ফতহুল মালিক বিতাববীবিত তামহীদ লিইবনি আব্দিল বার আলা মুওয়াত্ত্বাল ইমাম মালিক

 

‘আল মুওয়াত্ত্বা লিল ইমাম মালিক রহমতুল্লাহি আলাইহি’-এর ব্যাখ্যাগ্রন্থ ‘ফতহুল মালিক বিতাববীবিত তামহীদ লিইবনি আব্দিল বার আলা মুওয়াত্ত্বাল ইমাম মালিক’ অত্র কিতাবের লিখক হচ্ছেন, হযরত আল্লামা ইবনু আব্দিল বার রহমতুল্লাহি আলাইহি। অত্র কিতাবে প্রাণীর ছবি সম্পর্কে যা উল্লেখ আছে তা হলো-

(৪৯২)

وكان ابو حنيفة واصحابه يكرهون التصاوير فى البيوت بتمثال .. ولم يختلفوا ان التصاوير فى الستور المعلقة مكروهة.

অর্থ: হযরত আবূ হানীফাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি ও উনার ছাত্রগণ ঘরের ভিতর প্রাণীর ছবি রাখাকে মাকরূহ তাহরীমী মনে করতেন। ঝুলানো পর্দায় প্রাণীর ছবি মাকরূহ তাহরীমী হওয়ার ব্যাপারে কারো কোন দ্বিমত নেই। (কিতাবুল ইস্তিযান বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১০ম খ- ২৮৪ পৃষ্ঠা প্রকাশনা: দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরূত লিবানন)

(৪৯৩)

وللعلماء فى هذا الباب اقاويل ومذاهب، منها: انه لا يجوز ان يمسك الثوب الذى فيه تصاوير وتماثيل. سواء كان منصوبا او مبسوطا، ولايجوز دخول البيت الذى فيه التصاوير والتماثيل فى حيطانه وذلك مكروه كله، لقول رسول الله صلى الله عليه وسلم لا تدخل الملائكة بيتا فيه تصاوير.

অর্থ: এ পরিচ্ছেদে উলামায়ে কিরামগণ উনাদের অনেক মতামত রয়েছে। তন্মধ্যে মূল মত হলো: প্রাণীর ছবিযুক্ত কাপড় ব্যবহার করা জায়িয নেই। আর যে ঘরের দেয়ালে প্রাণীর ছবি বা মূর্তি থাকে সে ঘরে প্রবেশ করাও জায়িয নেই। উহা সম্পূর্ণভাবে মাকরূহ তাহরীমী। যেহেতু সাইয়্যিদুনা রসূলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-উনার বানী মুবারক হলো- ওই সমস্ত ঘরে রহমতের ফেরেশতা প্রবেশ করেন না, যে ঘরে প্রাণীর ছবি থাকে। (কিতাবুল ইসতি’যান বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১০ম খ- ২৮৭ পৃষ্ঠা প্রকাশনা: দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ- বইরূত লিবানন)

(৪৯৪)

وقال اخرون: انما يكره من الصور ماكان فى الحيطان وصور فى البيوت. واما ماكان رقما فى ثوب فلا.

অর্থ: অপরাপর কিছু উলামায়ে কিরাম বলেন: প্রাণীর ছবি দেয়ালে এবং ঘরে যে কোনখানে রাখা মাকরূহ তাহরীমী। কিন্তু যদি প্রাণহীন বস্তুর ছবি কাপড়ে আঁকা হয় তাহলে মাকরূহ নয়। (কিতাবুল ইসতি’যান বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১০ম খ- ২৮৮ পৃষ্ঠা- দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরুত লিবানন)

(৪৯৫)

وذهب جماعة من اهل العلم الى أن الصورة المكروهة فى صنعتها واتخاذها ماكان له روح.

অর্থ: উলামায়ে কিরাম উনাদের একটি বৃহৎ দলের মতে, প্রাণবিশিষ্ট প্রাণীর ছূরত বা ছবি তৈরি করা এবং তা গ্রহণ করা মাকরূহ তাহরীমী। (কিতাবুল ইসতি’যান বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১০ম খ- ২৯১ পৃষ্ঠা-দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরুত লিবানন)

(৪৯৬)

وهذا الحديث يقتضى تحريم استعمال ما فيه التصاوير من الثياب وامثالها، والاستمتاع بها فى ثوب كانت او غير ثوب.

অর্থ: হাদীছ শরীফ দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, কাপড়ে অথবা কাপড় জাতীয় অন্যান্য কিছুতে প্রাণীর ছবি আঁকা হারাম। কাপড় হোক বা কাপড় ছাড়াই হোক, সর্বপ্রকার জিনিসে প্রাণীর ছবির চর্চা করা হারাম। (কিতাবুল ইসতি’যান বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১০ম খ- ২৯৩ পৃষ্ঠা দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরূত লিবানন)

আল মুন্তাক্বা শরহু মুওয়াত্ত্বা মালিক

কিতাবখানার লিখক হযরত কাযী আবুল ওয়ালীদ সুলাইমান বিন খলফ বিন সা’দ বিন আইউব আল বাজী রহমতুল্লাহি আলাইহি। ওফাত মুবারক: ৪৯৪ হিজরী। অত্র কিতাবে প্রাণীর ছবি সম্পর্কে যা উল্লেখ আছে তা হলো-

(৪৯৭)

لاجل التصاوير دليل على كراهية له.

অর্থ: প্রাণীর ছবি তোলা আকা দেখা ইত্যাদি মাকরূহ তাহরীমী। (কিতাবুল জামি বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ৯ম খ- ৪৩৬ পৃষ্ঠা- দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরূত লিবানন)

(৪৯৮)

يحتمل انه قاله فى جملة التصاوير على وجه الكراهية ويحتمل انه قاله على وجه التحريم واستثنى منه الرقم فى الثوب.

অর্থ: প্রাণীর ছবির বর্ণনা দ্বারা বুঝা যায় যে, উহা মাকরূহ তাহরীমী। এটা দ্বারা প্রাণীর ছবি হারাম হিসেবে প্রমাণিত হয়। কিন্তু কাপড়ে প্রাণহীন বস্তুর নকশা হারাম নয়। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ৯ম খ- ৪৩৬ পৃষ্ঠা প্রকাশনা: দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরূত লিবানন)

শরহুয যুরক্বানী আলা মুওয়াত্তাল ইমাম মালিক

কিতাবখানা লিখেছেন আল্লামা মুহম্মদ বিন আব্দুল বাক্বী বিন ইউসুফ যুরকানী মিছরী আযহারী মালিকী আশয়ারী রহমতুল্লাহি আলাইহি। ওফাত মুবারক: ১১২২ হিজরী। অত্র কিতাবে প্রাণীর ছবি সম্পর্কে যা উল্লেখ আছে তা হলো-

(৪৯৯)

الصور بضم الصاد وفتح الواو جمع صورة وهى ما يصنع على مثل الحيوان.

অর্থ: ছুওয়ার শব্দটির ছোয়াদ অক্ষরে পেশ আর ওয়াও অক্ষরে যবর যোগে পড়তে হবে। ছুওয়ার শব্দটি ছুরত শব্দের বহুবচন। ছূরত বা ছবি-মূর্তি বলা হয়, যা প্রাণীর আকৃতির অনুরূপ তৈরি করা হয়। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তাছাবীর ৪র্থ খ- ৪৬৮ পৃষ্ঠা প্রকাশনা: দারুল কুতুবিল ইলমিয়াহ বইরূত লিবানন)

(৫০০)

وسبب امتناعهم كونها معصية فاحشة اذ قيل مضاهاة لخلق الله وبعضها فى صورة ما يعبد من دون الله.

অর্থ: প্রাণীর ছবি তৈরি করা নিষেধাজ্ঞার কারণ হলো যেহেতু এটা নাফরমানী ও অশ্লীলতা। এমনকি এটা আল্লাহ পাক উনার সৃষ্টির সাদৃশ্যতা দাবি করার শামিল এবং কোন অংশে আল্লাহ পাক উনি ছাড়া গইরুল্লাহর উপাসনা। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ৪র্থ খ- ৪৬৮ পৃষ্ঠা)

(৫০১)

قال ابن العربى: حاصل مافى اتخاذ الصور انها ان كانت ذات اجسام حرام اجماعا وان كانت رقما فاربعة اقوال. الجواز مطلقا لظاهر  هذا الحديث.

অর্থ: হযরত ইবনুল আরাবী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন: মূলকথা হলো- প্রাণীর ছবি গ্রহণ করা ইজমা মতে হারাম। তবে প্রাণহীন নকশার ব্যাপারে ৪টি মতামত আছে। তন্মধ্যে প্রথম মত হলো- হাদীছ শরীফ-এর বাহ্যিক বর্ণনা দ্বারা প্রাণহীন বস্তুর নকশা জায়িয। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ৪র্থ খ- ৪৬৯ পৃষ্ঠা)

আওজাযুল মাসালিক ইলা মুওয়াত্ত্বা মালিক রহমতুল্লাহি আলাইহি

কিতাবখানা লিখেছে মাওলানা মুহম্মদ যাকারিয়া কান্দলবী দেওবন্দী। অত্র কিতাবে প্রাণীর ছবি সম্পর্কে যা কিছু উল্লেখ আছে-

(৫০২)

الصور بضم الصاد وفتح الواو جمع صورة وهى ما يصنع على مثل الحيوان اى التصاوير جمع تمثال وهو الصورة مما يشبه صورة الحيوان التام التصور ولم تقطع راسه.

অর্থ: আছ ছুওয়ার শব্দটির ছোয়াদ অক্ষরে পেশ আর ওয়াও অক্ষরে যবর যোগে পড়তে হবে। আছ ছুওয়ার শব্দটি ছূরাতুন শব্দের বহুবচন। কোন প্রাণীর অনুরূপ আকৃতি তৈরি করাকে ছূওয়ার বা ছবি-মূর্তি বলা হয়। কোন প্রাণীর পরিপূর্ণ আকৃতি প্রাণীর ছবির জন্য শর্ত। কিন্তু যদি মাথা কাটা থাকে তাহলে পূর্ণ ছবি নয়। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪০ পৃষ্ঠা প্রকাশনা: ইদারাতু তা’লীফাতু আশরাফিয়াহ মুলতান পাকিস্তান)

(৫০৩)

قال النبوى قال اصحابنا وغيرهم من العلماء تصوير صورة الحيوان حرام شديد التحريم وهو من الكبائر.

অর্থ: হযরত ইমাম নববী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, আমাদের উলামায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম ও অন্যান্যগণ বলেন, প্রাণীর ছবি তোলা, আকা, তৈরী করা, দেখা হারাম, কঠিন হারাম এবং তা কবীরাহ গুণাহের অন্তর্ভুক্ত। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪০ পৃষ্ঠা)

(৫০৪)

فصنعه حرام بكل حال، لان فيه مضاهاة لخلق الله تعالى، وسواء كان فى ثوب او بساط او درهم او دينار او اناء او حائط او غيرها.

অর্থ: প্রাণীর ছবি তৈরি করা  (তোলা দেখা আঁকা) সর্বাবস্থায় হারাম। কেননা এতে আল্লাহ তায়ালা উনার সৃষ্টির সাদৃশ্যতা দাবি করা হয়। কাপড়ে, বিছানায়, টাকা-পয়সায়, পাত্রে, দেয়ালে অথবা এছাড়া যেকোন কিছুতেই হোক না কেন, সমানভাবে সর্বস্থানে প্রাণীর ছবি আঁকা হারাম। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪০ পৃষ্ঠা)

(৫০৫)

واما اتخاذ المصور فيه صورة حيوان، فان كان معلقا على حائط او ثوبا او ملبوسا او عمامة ونحو ذلك مما لا يعد ممتهنا فهو حرام.

অর্থ: প্রাণীর ছবির অঙ্কনকারী যদি দেয়ালে, কাপড়ে, পোশাকে ও পাগড়ীতে প্রাণীর ছবি অঙ্কন করে তাহলে তা হারাম হবে। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪০ পৃষ্ঠা)

(৫০৬)

وقال الزهرى: النهى فى الصورة على العموم، وكذلك استعمال ماهى فيه ودخول البيت الذى فيه سواء كان رقما فى ثوب او غير رقم وسواء كانت فى حائط او ثوب او بساط ممتهن او غير ممتهن عملا بظاهر الحديث وهذا مذهب قوى.

অর্থ: হযরত ইমাম শিহাব যুহরী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন, মূলতঃ প্রাণীর ছবির চর্চা হারাম। ঘরের বাইরে এবং ঘরের ভিতরে কাপড়ে বা কাপড় ছাড়া অন্য কিছুতে প্রাণীর ছবি ব্যবহারের হুকুম একই রকম। হাদীছ শরীফের স্পষ্ট বর্ণনানুযায়ী তিরষ্কারের জন্যে হোক অথবা তিরষ্কার ছাড়া হোক দেয়ালে, কাপড়ে ও বিছানায় সর্বখানে প্রাণীর ছবির চর্চা সমানভাবে হারাম। এটাই শক্তিশালী মত। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খণ্ড ১৪১ পৃষ্ঠা)

(৫০৭-৫০৮)

وفى الزرقانى قال ابن العربى حاصل ما فى الصور انها ان كانت ذات اجسام حرم اجماعا. وان كان رقما فاربعة اقوال: الجواز مطلقا لظاهر حديث سهل بن حنيف.

অর্থ: ‘আযযুরক্বানী’ কিতাবে আছে হযরত ইবনুল আরাবী রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন, প্রাণীর ছবির ব্যাপারে মূলকথা হলো, দেহবিশিষ্ট প্রাণীর ছবি ইজমা মতে হারাম। তবে কাপড়ে প্রাণহীন নকশা-এর ব্যাপারে চারটি মতামত পরিলক্ষিত হয়। তন্মধ্যে প্রথম মত হলো: হযরত সাহল বিন হুনাইফ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার বর্ণিত হাদীছ শরীফ অনুযায়ী প্রাণহীন নকশা জায়িয। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪১ পৃষ্ঠা)

(৫০৯)

وقال فى اخره وهذا كله فى اقتناء الصورة أما فعل التصوير فهو غير جائز مطلقا لانه مضاهاة لخلق الله.

অর্থ: সর্বকথার শেষ কথা হলো: মূলত প্রাণীর ছবির চর্চা করা (তৈরি করা, আঁকা, তোলা, দেখা, সঞ্চয় করা) জায়িয নেই তথা হারাম। কেননা, এতে আল্লাহ পাক-উনার সৃষ্টির সাথে সাদৃশ্যতা দাবি করা হয়। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪১ পৃষ্ঠা)

(৫১০)

وقد قال ابو العالية لم يكن ذلك فى شريعتهم حرام ثم جاء شرعنا بالنهى عنه.

অর্থ: হযরত আবুল আলিয়াহ রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন, পূর্ববর্তী শরীয়তে প্রাণীর ছবির চর্চা হারাম ছিল না। আমাদের শরীয়তে প্রাণীর ছবির চর্চা নিষিদ্ধ তথা হারাম। (কিতাবুল জামি বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪৪ পৃষ্ঠা)

(৫১১-৫১২)

وقال الجصاص فى احكام القران قوله تماثيل يدل على ان عمل التصاوير كان مباحا، وهو محظور فى شريعة النبى صلى الله عليه وسلم.

অর্থ: হযরত ইমাম জাছছাছ হানাফী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ‘আহকামুল কুরআন’ তাফসীরের কিতাবে বলেন, পূর্ববর্তী উম্মতগণের শরীয়তে প্রাণীর ছবি মুবাহ  (বৈধ) ছিল। আর আখিরী নবী, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার শরীয়তে তা হারাম হয়েছে। (কিতাবুল জামি’ বাবুন মা জায়া ফিছ ছুওয়ার ওয়াত তামাছীল ১৫তম খ- ১৪৫ পৃষ্ঠা)

 

(অসমাপ্ত)

পরবর্তী সংখ্যার অপেক্ষায় থাকুন

কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম-নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-২৮

কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান বা শবে বরাত-এর আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-১

কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম-নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-২৯

কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে লাইলাতুন নিছফি মিন শা’বান বা শবে বরাত-এর আহকাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-২

কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা ও ক্বিয়াস-এর দৃষ্টিতে প্রাণীর মূর্তি তৈরি করা ও ছবি আঁকা, তোলা, তোলানো, রাখা, রাখানো, দেখা, দেখানো হারাম-নাজায়িয হওয়ার অকাট্য প্রমাণ ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া-৩০