খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।”

সংখ্যা: ১৯২তম সংখ্যা | বিভাগ:

কাদিয়ানী রদ!

(ষষ্ঠ ভাগ)

(কুতুবুল ইরশাদ, মুবাহিছে আয’ম, বাহরুল উলূম, ফখরুল ফুক্বাহা, রঈসুল মুহাদ্দিছীন, তাজুল মুফাস্সিরীন, হাফিযুল হাদীছ, মুফতিউল আ’যম, পীরে কামিল, মুর্শিদে মুকাম্মিল হযরতুল আল্লামা মাওলানা শাহ্ ছূফী শায়খ মুহম্মদ রুহুল আমীন রহমতুল্লাহি আলাইহি কর্তৃক প্রণীত æকাদিয়ানী রদ” কিতাবখানা (৬ষ্ঠ খ-ে সমাপ্ত) আমরা মাসিক আল বাইয়্যিনাত পত্রিকায় ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করছি। যাতে কাদিয়ানীদের সম্পর্কে সঠিক ধারণাসহ সমস্ত বাতিল ফিরক্বা থেকে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের অনুসারীদের ঈমান-আক্বীদার হিফাযত হয়। আল্লাহ্ পাক আমাদের প্রচেষ্টায় কামিয়াবী দান করুন (আমীন)। এক্ষেত্রে তাঁর কিতাব থেকে হুবহু উদ্ধৃত করা হলো, তবে তখনকার ভাষার সাথে বর্তমানে প্রচলিত ভাষার কিছুটা পার্থক্য লক্ষণীয়)।

(ধারাবাহিক)

আল্লামা শেখ হাছান আদাবি ‘মাশারেকোল-আনওয়ার, কেতাবের ১০২ পৃষ্ঠায় লিখিয়াছেন;

‘ওরওয়া বেনে মোহম্মদ এয়মনের বাদশাহ হইবে, সে আলেম ও দরবেশদিগে অবমাননা করিবে, বিরাট একদল সৈন্য শামদেশে প্রেরণ করিবে, তাঁহার মামু বংশের বনু-কলব সম্প্রদায় বিরাট দল। সে কুফার দিকে পনের সহস্র সৈন্য প্রেরণ করিবে, তাহারা তথায় পরাক্রান্ত হইয়া পুরুষদিগকে হত্যা করিবে, স্ত্রীলোক ও বালক বালিকাদিগকে বন্দি করিয়া লইয়া ও টাকা কড়ি লুন্ঠন করিয়া প্রত্যাবর্ত্তন করিবে। তখন পূর্ব্বদিক হইতে একটী শব্দ হইবে, তমিম সম্প্রদায়ের শোয়ায়েব বেনে ছালেহ নামক একজন (এমাম মাহদীর নিয়োজিত) আমির তাহাদের পশ্চাদ্ধাবিত হইয়া তাহাদের হস্ত হইতে বন্দিদিগকে উদ্ধার করতঃ কুফার দিকে ফিরাইয়া লইয়া যাইবেন। দ্বিতীয় দল মদিনা শরিফে উপস্থিত হইয়া তিন দিবস যুদ্ধ করিয়া লইবে এবং তথাকার অধিবাসি ও সন্তান সন্ততিদিগকে বন্দি করিয়া লইয়া এমাম মাহদী ও তাঁহার সঙ্গীদের সহিত যুদ্ধ করার উদ্দেশ্য মক্কা শরিফের দিকে রওয়ানা  হইবে। যখন তাহারা বয়দা নামক স্থানে উপস্থিত হইবে, তখন আল্লাহ তাঁহাদের রূপ পরিবর্ত্তন করিয়া দিবেন এবং জমির নীচে ধসাইয়া দিবেন। কেবল মাত্র একজন সংবাদ বাহক জীবিত থাকিবে, সে ছূফইয়ানির নিকট সংবাদ পৌঁছাইবে। তখন এমাম মাহদী বলিবেন, হে লোকরা! তোমরা খোদার শত্রু ও নিজেদের শত্রুর সহিত যুদ্ধ করিতে বাহির হও, ইহাতে তাহারা তাঁহার কথা মানিয়া লইবেন। এমাম মাহদী সঙ্গীদিগকে লইয়া ওরওয়া বেনে মোহাম্মদ ছূফইয়ানি ও কলব সম্প্রদায়ের সহিত যুদ্ধ করিতে মক্কা হইতে শামের দিকে রওয়ানা হইবেন এবং ছূফইয়ানি সঙ্গীদিগকে লইয়া এমাম মাহদীর সহিত যুদ্ধ করিতে রওয়ানা হইবে। ইহাতে এমাম মাহদী জয়যুক্ত হইবেন এবং তিনি ছূফইয়ানিকে জবেহ করিয়া ফেলিবেন। সে খালেদ বেনে এজিদ বেনে আবি ছূফইয়ানের বংশধর, তাহার মস্তকটী বড় হইবে তাহার চিহ্ন থাকিবে এবং চক্ষে সাদা দাগ হইবে। তিনি হজরত ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বংশধর হইবেন, আছহাবে-কাহাফ তাঁহার সহকারী হইবেন। তাঁহার জামানায় ঈছা আলাইহিস্ সালাম নাজেল হইবেন। নাছায়িতে আছে, æযে উম্মতের প্রথম ভাগে আমি, মধ্যম ভাগে মাহদী আলাইহিস্ সালাম ও শেষ ভাগে ঈছা আলাইহিস্ সালাম, সেই উম্মত কখনও নষ্ট হইবে না।”

মাওলানা আব্দুল হক দেহলবি æআশয়া-তোল্লাময়াত কেতাবের ৪/৩৩৮/৩৪২ পৃষ্ঠায় লিখিয়াছেন;Ñ এমাম মাহদীর আলামতগুলির মধ্যে ছূফইয়ানির সৈন্য দলের ফাছাদ ও যুদ্ধ একটী, ইহা অসংখ্য হাদিছে আছে। এমাম মাহদীর ফাতেমা বংশধর হওয়ার হাদিছে আছে। এমাম মাহদীর ফাতেমা বংশধর হওয়ার হাদিছ মোতাওয়াতেরের দরজায় পৌঁছিয়াছে।

আল্লামা এবনো-হাজার হায়ছমি ‘ছাওয়ারেকে-মোহরাকা’র ৯৮/৯৯/১০০ পৃষ্ঠায় লিখিয়াছেন, এমাম মাহদী সাত বৎসর বাদশাহি করিবেন এবং দুনইয়াকে ন্যায় বিচারে পূর্ণ করিবেন, তাঁহার সময়ে হজরত ঈছা বেনে মরয়েম নাজেল হইবেন, হজরত ঈছা আলাইহিস্ সালাম তাঁহার পশ্চাতে নামাজ পড়িবেন। তিনি মদিনাবাসি হইবেন। অসংখ্য (মোতাওয়াতের) হাদিছে আসিয়াছে যে, এমাম মাহদী হজরত নবি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আওলাদ হইবেন। (চলবে)

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র-  খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির “ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।”

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির “ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির “ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।”

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির “ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।”

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির “ইসলামী শরীয়তের হুকুম মুতাবিক যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় যেমন-  কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩ দিন এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদন্ড।”