খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

সংখ্যা: ২৮১তম সংখ্যা | বিভাগ:

কাদিয়ানী রদ!

(কুতুবুল ইরশাদ, মুবাহিছে আয’ম, বাহরুল উলূম, ফখরুল ফুক্বাহা, রঈসুল মুহাদ্দিছীন, তাজুল মুফাস্সিরীন, হাফিযুল হাদীছ, মুফতিউল আ’যম, পীরে কামিল, মুর্শিদে মুকাম্মিল হযরতুল আল্লামা মাওলানা শাহ্ ছূফী শায়খ মুহম্মদ রুহুল আমীন রহমতুল্লাহি আলাইহি কর্তৃক প্রণীত ‘কাদিয়ানী রদ’ কিতাবখানা (৬ষ্ঠ খন্ডে সমাপ্ত)। আমরা মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ পত্রিকায় ইতিপূর্বে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করেছি। পাঠকদের অনুরোধে তা পূনরায় প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যাতে কাদিয়ানীদের সম্পর্কে সঠিক ধারণাসহ সমস্ত বাতিল ফিরক্বা থেকে আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াত উনাদের অনুসারীদের ঈমান আক্বীদার হিফাযত হয়। মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদের প্রচেষ্টার কামিয়াবী দান করুন। আমীন!

যদিও তখনকার ভাষার সাথে বর্তমানে ভাষার কিছুটা পার্থক্য লক্ষ্যণীয়।

(মির্জার মাহদী দাবি খণ্ডন)

(পূর্ব প্রকাশিতের)

(১৩) মিশকাত শরীফ, ৪৬৭/৪৬৮ পৃষ্ঠা-

يَقُوْلُ‏ سَتُصَالِـحُوْنَ الرُّوْمَ صُلْحًا اٰمِنًا فَتَغْزُوْنَ أَنْتُمْ وَهُمْ عَدُوًّا مِّنْ وَّرَائِكُمْ فَتُنْصَرُوْنَ وَتَغْنَمُوْنَ وَتَسْلَمُوْنَ ثُمَّ تَرْجِعُوْنَ حَتّٰى تَنْزِلُوْا بِـمَرْجٍ ذِيْ تُلُوْلٍ فَيَرْفَعُ رَجُلٌ مِّنْ أَهْلِ النَّصْرَانِيَّةِ الصَّلِيْبَ فَيَقُوْلُ غَلَبَ الصَّلِيْبُ فَيَغْضَبُ رَجُلٌ مِّنَ الْمُسْلِمِيْنَ فَيَدُقُّهٗ فَعِنْدَ ذٰلِكَ تَغْدِرُ الرُّوْمُ وَتَـجْمَعُ لِلْمَلْحَمَةِ فَيَثُوْرُ الْـمُسْلِمُوْنَ اِلٰى اَسْلِحَتِهِمْ فَيَقْتَتِلُوْنَ فَيُكْرِمُ اللهُ تِلْكَ الْعِصَابَةَ بِالشَّهَادَةِ. (رواه ابو داؤد)

অর্থ: “নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, তোমরা অচিরে খৃষ্টানদের সাথে শান্তিদায়ক সন্ধি স্থাপন করবে, তারপর তোমরা এবং উক্ত সহকারী দল একত্রে তোমাদের পিছনের শত্রুদের সাথে যুদ্ধ করবে, এতে তোমরা বিজয়ী হবে, (শত্রুদের রণসম্ভার) গণিমত হিসেবে লাভ করবে, শান্তিসহ প্রত্যাবর্তন করবে, এমনকি উচ্চ তৃণ ক্ষেত্রে অবতরণ করবে। তারপরে একজন খৃষ্টান ক্রুশ উত্তোলন করে বলবে, ক্রুশ জয়ী হয়েছে। এতে একজন মুসলমান রাগাম্বিত হয়ে উক্ত ক্রুশ ভেঙ্গে ফেলবে, সেই সময়ে সেই খৃষ্টানরা বিশ্বাসঘাতকতা করবে এবং যুদ্ধের জন্য নিজেদের লোকদেরকে সংগ্রহ করবে,এতে মুসলমানগণ নিজেদের অস্ত্রশস্ত্রের দিকে ধাবিত হয়ে জিহাদ করবেন, তারপরে মহান আল্লাহ পাক তিনি উক্ত জামায়াতকে শাহাদতের দরজায় গৌরবান্বিত করবেন। (আবু দাউদ শরীফ)

এতে বুঝা যায় যে, এই জিহাদে স্বাধীন প্রধান মুসলমান রাজত্বের পরিসমাপ্তি হয়ে যাবে। আর যে সমস্ত রাজত্ব থাকবে, তা খৃষ্টানদের অধীন হবে।

(১৪) আরও মেশকাত শরীফ, ৪৬৭ পৃষ্ঠা-

عَنْ حَضْرَتْ اِبْنِ عُمَرَ رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ‏ يُوْشِكُ الْمُسْلِمُوْنَ أَنْ يُّـحَاصَرُوْا إِلَى الْمَدِيْنَةِ حَتّٰـى يَكُوْنَ أَبْعَدَ مَسَالِـحِهِمْ سَلَاحٌ وَسَلَاحٌ قَرِيْبٌ مِّنْ خَيْبَرَ (رواه ابو داؤد)

অর্থ: “হযরত ইবনে উমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, অচিরে মুসলমানগণ মদীনা শরীফ উনার মধ্যে অবস্থান করবেন, ছেলাহ খয়বরের নিকটবর্তী স্থান হবে।” (আবু দাউদ শরীফ)

এতে বুঝা যায়, হযরত ইমাম মাহদী আলাইহিস সালাম উনার প্রকাশিত হওয়ার পূর্বে তুরস্ক রাজ্য হস্তচ্যুত হয়ে যাবে। মুসলমানগণ সেই সময় তুরস্ক, ইরাক ও শামদেশ ত্যাগ করে পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে আশ্রয় গ্রহণ করবেন। (অসমাপ্ত)

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

কাদিয়ানী রদ!

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র: ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড

খতমে নুবুওওয়াত প্রচার কেন্দ্র ইসলামী শরীয়ত উনার হুকুম মোতাবেক খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারীরা কাফির। যারা মুসলমান থেকে খতমে নুবুওওয়াত অস্বীকারকারী সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্ত হয় (যেমন- কাদিয়ানী, বাহাই ইত্যাদি) তাদের তওবার জন্য নির্ধারিত সময় ৩দিন। এরপর তওবা না করলে তাদের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড