তাফসীরুল কুরআন : গদ্বব বা রাগের কুফল ও তার প্রতিকার

সংখ্যা: ২১৩তম সংখ্যা | বিভাগ:

غضبগদ্বাবুনঅর্থ রাগ বা গোসসা। মানুষ যেই চারটি উপাদান দ্বারা সৃষ্ট- আগুন তার মধ্যে একটি। সুতরাং কেউ যখন গোসসায় অভিভূত হয়ে পড়ে তখন তার আপাদ-মস্তক এমনকি শিরা-উপশিরায় এমন এক তাপ সৃষ্টি হয়, যেনো তা একটি জ্বলন্ত অগ্নিশিখা। তখন তার হিতাহিত জ্ঞান থাকে না এবং সে তখন ন্যায়-নীতির সীমা লঙ্ঘন করে ফেলে। এ কারণে রাগকে একটি মন্দ স্বভাব বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন-

ادفع بالتى هى احسن

অর্থ:  “মন্দকে ভাল দ্বারা দমন করো।

রঈসুল মুফাসসিরীন হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন, উক্ত আয়াত শরীফ-এর মর্ম হলো-

الصبر عند الغضب والعفو عند الاساءة

অর্থাৎ  “রাগের সময় ধৈর্যধারণ করা এবং মন্দ ব্যবহার ক্ষমা করা।মানুষ যখন এই নীতির অবলম্বন করবে তখন মহান আল্লাহ পাক তিনি তাদেরকে বিপদাপদ হতে রক্ষা করবেন এবং শত্রুদেরকে এমনভাবে অনুগত করে দিবেন যেনো তারা ঘনিষ্ঠ বন্ধু। (বুখারী শরীফ)

মহান আল্লাহ পাক তিনি মানুষের নফসের মধ্যে রাগকে এইজন্য পয়দা করেছেন যে, তা হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবে। মানুষের ক্ষতিকর কোন বস্তু সামনে আসলে রাগভরে তা দূর করবে। মহান আল্লাহ পাক তিনি লোভকে পয়দা করেছেন এজন্য যে, মানুষের জন্য যা কল্যাণকর তা নিজের দিকে টেনে আনবে, আর যা অপকারী বা অপ্রিয় তা রাগভরে দূরে সরিয়ে দিবে। রাগ ও লোভের অভাব হলে জীবন ধারন কঠিন হয়ে পড়ে। কিন্তু এ দুটি যখন শরীয়তের সীমা অতিক্রম করে তখন এদুয়ের পরিণাম বা কুফল অত্যন্ত ভীষণ ও মারাত্মক হয়ে যায়।

শরীয়তের সীমা অতিক্রমকারী রাগ অধিক মাত্রায় বেড়ে গেলে অন্তরে তা আগুনের মত জ্বলে উঠে এবং এর গরম মস্তিষ্কে প্রবেশ করে মস্তিষ্ককে অন্ধকারময় করে ফেলে। তখন সে ব্যক্তি বিচার-বিবেচনা শক্তি হারিয়ে বসে এবং তার বিষাক্ত উত্তেজনা উক্ত রাগান্বিত ব্যক্তির শিরায় শিরায় প্রবলবেগে প্রবাহিত হয়। সে ব্যক্তি তখন শয়তানের মুখে কথা বলে, শয়তানের চোখে দর্শন করে, শয়তানের কানে শ্রবণ করে এবং শয়তানের নির্দেশ অনুযায়ী তার সমস্ত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ নড়াচড়া করে। ফলে তখন সে ব্যক্তির সর্বপ্রকার কাজর্কম শয়তানের দ্বারা পরিচালিত হয়ে থাকে। রাগকে দমন করতে না পারলে মানুষ যে দ্বীন ও দুনিয়ার ক্ষেত্রে কি পরিমাণ ক্ষতিগ্রস্ত হয় তা বলে শেষ করার মতো নয়।

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, কোন প্রকার অন্যায় বা গুনাহর কাজের বিরুদ্ধে ক্রোধ (রাগ) প্রদর্শন করা একান্ত আবশ্যক। তিনি আরো ইরশাদ করেন,  “যে ব্যক্তি দেরীতে রাগান্বিত হয় এবং অতিশীঘ্র রাগ সম্বরণ করে, সে ব্যক্তি অতি উত্তম। আর যে ব্যক্তি অতিশীঘ্র রাগান্বিত হয় এবং দেরীতে রাগ সম্বরণ করে সে ব্যক্তি অত্যন্ত মন্দ।

মিশকাত শরীফ-এ বর্ণিত হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, এক ব্যক্তি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমাকে উপদেশ দান করুন। তিনি ইরশাদ করলেন, রাগ করিও না। উক্ত ব্যক্তি একই কথা কয়েকবার আবৃত্তি করলেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিও একই উত্তর দিলেন, রাগ করিওনা।

তিনি আরো ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি কুস্তিগিরীতে (মল্লযুদ্ধে) ক্ষমতাবান, সে বীরপুরুষ নয়। বরং যে ব্যক্তি রাগের সময় নিজকে সামলিয়ে নিতে পারে, সে ব্যক্তিই বীরপুরুষ।

তিনি আরো ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি রাগ সম্বরণ করে, মহান আল্লাহ পাক তিনি কিয়ামতের দিন তাকে আযাব থেকে দূরে রাখবেন।

তিনি আরো ইরশাদ করেন, রাগ শয়তানের প্ররোচনা থেকে এবং শয়তান আগুন থেকে সৃষ্ট হয়েছে। আগুন পানি দ্বারা নির্বাপিত হয়। কাজেই যখন তোমাদের মধ্যে কেউ রাগান্বিত হয় তখন তার কর্তব্য হলো ওযূ করে নেয়া।

তিনি আরো ইরশাদ করেন, তোমাদের মধ্যে কেউ দাঁড়ানো অবস্থায় রাগান্বিত হলে, তার বসে যাওয়া কর্তব্য। যদি তাতে রাগ দমন হয় তবে ভাল, অন্যথায় তার শুয়ে পড়া কর্তব্য।

হাদীছ শরীফ-এ আরো ইরশাদ হয়েছে- হযরত মূসা কালীমুল্লাহ আলাইহিস সালাম তিনি আরয করলেন, ইয়া বারে ইলাহী! আপনার বান্দাগণের মধ্যে সবচেয়ে প্রিয় বান্দা কে? মহান আল্লাহ পাক তিনি বললেন, যে ব্যক্তি ক্ষমতা থাকা সত্ত্বে (অপরের দোষ) ক্ষমা করে দেয়।

হাদীছ শরীফ-এ আরো ইরশাদ হয়েছে, তিনটি কাজ মুক্তি দান করে- প্রকাশ্যে ও গোপনে পরহিযগারী অবলম্বন করা, শান্ত ও রাগ উভয় সময়ে হক কথা বলা। ধনী ও দরিদ্র উভয় অবস্থায় মধ্যম পন্থা অবলম্বন করা।

তাফসীরুল কুরআন: হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিজেদের মতো বাশার বলা কাট্টা কুফরী

তাফসীরুল কুরআন: হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিজেদের মতো বাশার বলা কাট্টা কুফরী

তাফসীরুল কুরআন: হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিজেদের মতো বাশার বলা কাট্টা কুফরী

তাফসীরুল কুরআন: হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিজেদের মতো বাশার বলা কাট্টা কুফরী

তাফসীরুল কুরআন: হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিজেদের মতো বাশার বলা কাট্টা কুফরী