পবিত্র মাহে রবীউছ ছানী শরীফ ও উনার প্রাসঙ্গিক আলোচনা -আল্লামা মুফতী সাইয়্যিদ শুয়াইব আহমদ

সংখ্যা: ২৩১তম সংখ্যা | বিভাগ:

রবীউছ ছানী মাস হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনাদের আলোচনার মাস। কেননা এ মাসে অনেক হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনারা বিলাদত শরীফ গ্রহণ করেছেন এবং বিছাল শরীফও গ্রহণ করেছেন। বিশেষ করে এ মাসের এগারো তারিখ দিনটি পবিত্র ফাতিহায়ে ইয়াযদাহম হিসেবে এ উপমহাদেশে প্রসিদ্ধি লাভ করেছে যা কিনা ষষ্ঠ হিজরী শতাব্দীর মহান মুজাদ্দিদ, গওছুল আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, মাহবূবে সুবহানী, কুতুবে রব্বানী, আওলাদে রসূল বড়পীর হযরত শায়েখ সাইয়্যিদ মুহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বিছাল শরীফ গ্রহণ করেন।

উল্লেখ্য, হযরত আম্বিয়া আলাইহিমুস সালাম এবং উনাদের নায়িব বা ওয়ারিছ (স্থলাভিষিক্ত) হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনারাই খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার খলীফা বা প্রতিনিধি হিসেবে যমীনে আগমন করেন। উনারা মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে মনোনীত, কবুলকৃত, নিয়ামতপ্রাপ্ত, রহমতপ্রাপ্ত, নিসবতপ্রাপ্ত ও সন্তুষ্টিপ্রাপ্ত।

যেমন সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পর্কে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

وما ارسلناك الا رحمة للعالـمين

অর্থ : আমি আপনাকে সমগ্র আলমের জন্য রহমত হিসেবে প্রেরণ করেছি। (পত্রি সূরা আম্বিয়া শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ১০৭)

স্মরণীয় যে, সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রহমতপূর্ণ ছোহবত মুবারক যেসকল পুরুষ ও মহিলা গ্রহণ করেছেন উনারা প্রত্যেকেই এমন হিদায়েতের নূর ও রহমত মুবারক হাছিল করেছেন, উনাদের জন্য মহান আল্লাহ পাক তিনি স্বীয় সন্তুষ্টি মুবারক এর সুসংবাদ তো দিয়েছেন এমনকি উনাদের যারা অনুসারী উনাদের জন্যও সন্তুষ্টি মুবারক-এর সুসংবাদ দিয়েছেন। সুবহানাল্লাহ!

ইরশাদ মুবারক হয়েছে, æমুহাজির ও আনছার ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম, যাঁরা (ঈমান আনয়নে) প্রথম এবং অগ্রগামী উনারা এবং উনাদেরকে যাঁরা (ক্বিয়ামত পর্যন্ত) উত্তমভাবে অনুসরণ করবেন উনাদের উপর মহান আল্লাহ পাক তিনি সন্তুষ্ট এবং উনারাও মহান আল্লাহ পাক উনার উপর সন্তুষ্ট। উনাদের জন্য মহান আল্লাহ পাক তিনি এরূপ সম্মানিত বেহেশ্ত নির্ধারিত রেখেছেন, যার তলদেশ দিয়ে ঝর্ণা প্রবাহিত হতে থাকবে, উনারা সর্বদা সেই সম্মানিত বেহেশ্ত উনার মধ্যে অবস্থান করবেন। এটা উনাদের জন্য বিরাট সফলতা।” (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১০০)

অনুরূপভাবে সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিছাল শরীফ উনার পর উনার স্থলাভিষিক্ত হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনাদের সম্পর্কে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

ان رحمة الله قريب من الـمحسنين

অর্থ: নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার রহমত মুহসিনীন বা আল্লাহওয়ালা উনাদের নিকটে। (পবিত্র সূরা আ’রাফ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ৫৬)

অর্থাৎ হযরত আওলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনাদের ছোহবত মুবারক যারা গ্রহণ করবে উনারাও প্রকৃত হিদায়েতের নূর ও রহমত লাভ  করবেন। উনাদের জন্যও দুনিয়া ও আখিরাত উভয় জাহানে সুসংবাদ রয়েছে। সুবহানাল্লাহ!

ইরশাদ মুবারক হয়েছে, æসাবধান! জেনে রাখ, নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার যারা ওলী বা আওলিয়ায়ে কিরাম উনাদের কোনরূপ ভয়-ভীতি নেই এবং কোন রকম চিন্তা-পেরেশানীও নেই। উনারা হলেন পরিপূর্ণ ঈমানদার ও পরিপূর্ণ মুত্তাক্বী। উনাদের জন্য দুনিয়া ও আখিরাতে সুসংবাদ রয়েছে। মহান আল্লাহ পাক উনার কালাম পাক উনার কোন পরিবর্তন হবে না। এটা মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে বিরাট সফলতা।” (পবিত্র সূরা ইউনুস শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৬২-৬৪)

এ পবিত্র আয়াত শরীফ উনার ব্যাখ্যায় সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

الـمرء مع من احب

অর্থ : যে যাকে মুহব্বত করবে তার ফায়ছালা তার অনুরূপ হবে। (বুখারী শরীফ)

অর্থাৎ যারা কোন হক্কানী-রব্বানী ওলীআল্লাহ উনাকে মুহব্বত করবে, উনার ছোহবত মুবারক গ্রহন করবে, উনাকে অনুসরণ করবে নিঃসন্দেহে তারাও দুনিয়া ও আখিরাতে কামিয়াবি হাছিল করবে।

মাহে ছফর এবং তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

সাইয়্যিদুল আসইয়াদ, সাইয়্যিদুশ শুহূর, শাহরুল আ’যম মাহে রবীউল আউয়াল শরীফ ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে রবীউছ ছানী ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে জুমাদাল উখরা ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে শা’বান ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা