মুর্শিদ ক্বিবলা ও মুরীদের সম্পর্ক প্রসঙ্গে (১৯৫) হুসনুল খুল্ক বা সচ্চরিত্রবান মুরীদই শায়েখ বা মুর্শিদ ক্বিবলা উনার সর্বাধিক নৈকট্যশীল ও সন্তুষ্টিপ্রাপ্ত।

সংখ্যা: ২৩৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

আল্লামা মুফতী সাইয়্যিদ মুহম্মদ আব্দুল হালীম

যে আমল-আখলাকে মহান আল্লাহ পাক  উনার এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভ হয়; সে আমল-আখলাকে শায়েখ বা মুর্শিদ ক্বিবলা উনার নৈকট্য-তাওয়াল্লুক, সন্তুষ্টি লাভ হয়। হুসনুল খুলুক বা সচ্চরিত্রতা হচ্ছে সেই নৈকট্য ও সন্তুষ্টি হাছিলের শ্রেষ্ঠতম উপায় বা মাধ্যম। যা গত সংখ্যায় আলোচনায় ফুটে উঠেছে।

একবার এক ব্যক্তি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র দরবার শরীফে হাজির হয়ে বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমাকে কিছু উপদেশ দান করুন। তিনি ঐ ব্যক্তিকে বললেন, আপনি যখন যেখানেই অবস্থান করুন না কেন মহান আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করবেন। লোকটি আবার বললেন, আরো কিছু উপদেশ মুবারক দান করুন। তিনি বললেন, আপনি যদি কখনো গোনাহের কাজ করে ফেলেন তাহলে সাথে সাথে একটি নেক কাজ করে নিবেন। তাহলে এই নেক কাজটি আপনার গোনাহের কাজটিকে মিটিয়ে দিবে। লোকটি আবার অনুরোধ করলেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমাকে আরো কিছু উপদেশ মুবারক দান করুন।

তিনি বললেন, “মানুষের সাথে সৎস্বভাব সূলভ কথা-বার্তা বলবেন এবং সবার সাথে সদাচরণ করবেন।”

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক যাকে উত্তম স্বভাব এবং সুন্দর চেহারা দান করেছেন তিনি কখনোই তাকে জাহান্নামের ইন্ধন বানাবেন না।”

একদিন কতিপয় হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পবিত্র দরবার শরীফে উপস্থিত হয়ে বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! অমুক স্ত্রী লোকটি দিনে রোযা রাখে এবং সারারাত ইবাদত-বন্দেগী, যিকির-ফিকির করে কিন্তু তার মেজাজ বড়ই রুক্ষ। তার কর্কশ ভাষা ও ব্যবহারে প্রতিবেশীগণ বিরক্ত।

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম একথা শুনে ইরশাদ মুবারক করলেন, “সে স্ত্রী লোকটি জাহান্নামী।” তিনি আরো বললেন, “সিরকা দ্বারা মধু যেমন নষ্ট হয়ে যায়, মানুষের বদস্বভাবের দ্বারা তার যাবতীয় ইবাদত-বন্দেগী মূল্যহীন হয়ে পড়ে। (কিমিয়ায়ে সায়াদাত-২/২১৮)

একদা হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রাসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! মহান আল্লাহ পাক উনার প্রদত্ত মানুষের গুণাবলীর মাঝে কোন গুণটি সর্বোত্তম? তিনি বললেন, মানুষের সর্বোত্তম গুণ হলো সৎস্বভাব। তিনি আরো বললেন, সূর্যের তাপ বরফকে যেমন বিগলিত করে দেয়; মানুষের সৎস্বভাবও তেমনি তার অপরাধ-অপকর্মকে বিতাড়িত করে। হযরত আব্দুর রহমান ইবনে সামুরাহ রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেছেন, একদা আমি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত দরবার শরীফে উপস্থিত ছিলাম। তখন তিনি ইরশাদ মুবারক করলেন, আমি গতকাল একটি আশ্চর্যজনক ঘটনা দেখতে পেলাম। আমার উম্মতদের মধ্যে এক ব্যক্তিকে দেখলাম, সে হাঁটু গেড়ে উপবিষ্ট আছে। এতোদিন তার এবং মহান আল্লাহ পাক উনার মাঝখানে একটি যবনিকা লটকানো ছিলো। লোকটির সৎস্বভাব উপস্থিত হয়ে সেই যবনিকাটিকে সরিয়ে দিল এবং তার ও মহান আল্লাহ পাক উনার মাঝে আর কোনো আবরণ থাকলো না। তিনি আরো বললেন, সৎস্বভাব দ্বারা মানুষ বছরভর রোযা রাখা এবং সারারাত জেগে দাঁড়িয়ে ইবাদত করার পূন্য ও মাহাত্ম্য অর্জন করতে পারে। সৎস্বভাবাপন্ন লোকেরা আখিরাতে উন্নত মর্যাদা অর্জন করবে, যদিও বা তারা ওই মর্যাদা লাভের উপযোগী ইবাদত করেনি। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার স্বভাব মুবারক সর্বোত্তম এবং অত্যন্ত মহৎ ছিলো।

সুলতানুল আরিফীন হযরত ফুজায়িল ইবনে আয়ায রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেছেন, অসৎ স্বভাবসম্পন্ন আলিমের সংসর্গের চেয়ে উত্তম স্বভাবাপন্ন দুনিয়াদার লোকের সংসর্গ আমার নিকট অধিক প্রিয়। একদিন পথের মাঝে অসৎ স্বভাবাপন্ন একটি লোকের সাথে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মুবারক রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সাক্ষাৎ ঘটলো। কিছু সময় উভয়ে এক সাথে পথ চলার পর কুস্বভাবাপন্ন লোকটি তার সঙ্গ ছেড়ে অন্য পথে চলে গেলো। তখন হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে মুবারক রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি অঝোরো ক্রন্দন করতে লাগলেন। লোকেরা তাকে জিজ্ঞাসা করলো, আপনি এরূপ ক্রন্দন করছেন কেন? তিনি বললেন, ওই হতভাগা কিছুক্ষণ আমার সাথে থাকার পর চলে গেলো বটে, কিন্তু তার অসৎ স্বভাব সে সাথে করেই নিয়ে গেলো। তার স্বভাবের কিছুই সংশোধন করে যেতে পারলো না।

হযরত কাতানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেছেন, মানুষের নৈতিক চরিত্রের সংশোধন ও উন্নতিই হলো ইলমে তাছাউফ বা বাতিনী ইলমের মূললক্ষ্য। সুতরাং মনে করতে হবে, যার স্বভাব যত উন্নত সে তত উচ্চ পর্যায়ের বুযূর্গ।

হযরত ইয়াহইয়া ইবনে মুআয রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেছেন যে, চরিত্রহীনতা এতো ভয়ানক পাপ যে, কোনো ইবাদতই সে পাপ মোচনে সক্ষম নয়। পক্ষান্তরে, সৎ-স্বভাবের উন্নতি বিধান এতো বড় ইবাদতরূপে গণ্য যে, কোনো ধরনের পাপ বা অপরাধই সেই ইবাদতের কোনো অনিষ্ট করতে পারে না।

ফিক্বহুল হাদীছ ওয়াল আছার মুর্শিদ ক্বিবলা ও মুরীদের সম্পর্ক প্রসঙ্গে- (১৫৪)

ফিক্বহুল হাদীছ ওয়াল আছার মুর্শিদ ক্বিবলা ও মুরীদের সম্পর্ক প্রসঙ্গে- (১৫৫)

ফিক্বহুল হাদীছ ওয়াল আছার মুর্শিদ ক্বিবলা ও মুরীদের সম্পর্ক প্রসঙ্গে- (১৫৬)

ফিক্বহুল হাদীছ ওয়াল আছারল ল মুর্শিদ ক্বিবলা ও মুরীদের সম্পর্ক প্রসঙ্গে- (১৫৭)

মুর্শিদ ক্বিবলা ও মুরীদের সম্পর্ক প্রসঙ্গে- (১৫৮)