যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খ¦লীফাতুল্লাহ, খ¦লীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে মিল্লাত ওয়াদ দ্বীন, হাকিমুল হাদীছ, হুজ্জাতুল ইসলাম, রসূলে নুমা, সুলত্বানুল আরিফীন, সুলত্বানুল আউলিয়া ওয়াল মাশায়িখ, ইমামুল আইম্মাহ, ক্বইয়ূমুয যামান, জাব্বারিউল আউওয়াল, ক্বউইয়্যুল আউওয়াল, সুলত্বানুন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, জামিউল আলক্বাব, আওলাদুর রসূল, মাওলানা, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার- ওয়াজ শরীফ পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের আলোকে- উলামায়ে ‘সূ’দের হাক্বীক্বত সম্পর্কে (১৭)

সংখ্যা: ২৫৩তম সংখ্যা | বিভাগ:

পূর্ব প্রকাশিতের পর

মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি, তাক্বওয়া, পরহেযগারি-

اِنَّمَا يَخْشَى اللّـهَ مِنْ عِبَادِهِ الْعُلَمَاءُ

নিশ্চয়ই হক্কানী রব্বানী আলিম উনারা মহান আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করেন। সুবহানাল্লাহ! এই ভয়ের কারণে তিনি বললেন না যে, উনার দাড়ি মুবারক উনার মর্যাদা অনেক বেশি রয়েছে। তিনি তো ঈমান উনার সহিত যাবেন এটাইতো স্বাভাবিক তারপরও তিনি মুখলিছ ও মুখলাছ বান্দা এই জন্য তিনি মাসয়ালার জবাবটা পরে দিলেন। সেটাই ইবলীস স্বীকার করেছে-

اِلَّا عِبَادَكَ مِنْهُمُ الْمُخْلَصِينَ

ইবলীস স্বীকার করলো যে, মহান আল্লাহ পাক! আপনার ঐসমস্ত বান্দা যারা মুখলাছ অর্থাৎ ইখলাছপ্রাপ্ত বা ইখলাছ হাছিলকারী, যারা ইখলাছ হাছিল করেছেন বা ইখলাছ হাছিলে নিয়োজিত রয়েছেন উনাদেরকে ব্যতীত সবাইকে সে গোমরাহ করে ফেলবে। নাউযুবিল্লাহ!

বালয়াম বিন বাউরা সে কিন্তু কম কিছু হাছিল করেনি। সে তিনশত বৎসর সাধনা করেছে। তিন শত বৎসর। এক বৎসর দু’বৎসর নয়, বিশ চল্লিশ পঞ্চাশ বৎসর নয়, তিন শত বৎসর সাধনা করে সে অনেক কিছু হাছিল করেছিলো। কিন্তু সেটা সে রাখতে পারলো না।  উলামায়ে ‘সূ’রা ঠিক তাই। ইবলীস ছয় লক্ষ বৎসর কোশেশ করে অনেক কিছু হাছিল করেছিলো, সেও রাখতে পারেনি। মহান আল্লাহ পাক তিনি এদেরকে অনেক নিয়ামত দিয়েছিলেন কিন্তু সেটা তারা রক্ষা করতে পারেনি। যার জন্য তারা ধ্বংস হয়ে গিয়েছে এবং যাচ্ছে। ইবলীস ধ্বংস হলো, বালয়াম বিন বাউরা ধ্বংস হলো, উলামায়ে ‘সূ’রা পর্যুদুস্ত হয়ে যাচ্ছে, কিয়ামত পর্যন্ত হতেই থাকবে। এই সমস্ত উলামায়ে ‘সূ’দের থেকে সাবধান থাকতে হবে। এরা হারামকে হালাল করবে, হালালকে হারাম করবে। সবচেয়ে বড় নিদর্শন, এদের মধ্যে মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি থাকবে না। মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি না থাকার কারণে ইবলীসের দ্বারা প্রতারিত, প্ররোচিত, বিভ্রান্ত এরা এবং এদের ওয়াসওয়াসায় যারা পড়বে তারাও কিন্তু বিভ্রান্ত হয়ে যাবে। সেজন্য পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عن حضرت ابى هُرَيْرَةَ رضى الله تعالى عنه قال قَالَ رَسُولُ اللّهِ صلى الله عليه وسلم  يَكُونُ فِى آخِرِ الزَّمَانِ دَجَّالُونَ كَذَّابُونَ يَأْتُونَكُمْ مِنَ الأَحَادِيثِ بِمَا لَمْ تَسْمَعُوا أَنْتُمْ وَلاَ آبَاؤُكُمْ فَإِيَّاكُمْ وَإِيَّاهُمْ لاَ يُضِلُّونَكُمْ وَلاَ يَفْتِنُونَكُمْ

হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, আখিরী যামানায় অনেক মিথ্যাবাদী দাজ্জাল বের হবে। মূল দাজ্জাল একটা তার অনূসারী অনেক বের হবে, তারা এমন কথা বলবে, যা তোমরা শুননি এবং তোমাদের বাপ-দাদা, চৌদ্দ পুরুষ শুনেনি। কাজেই এদের থেকে দুরে থেকো, এদেরকে দূরে রেখো, তাহলে তারা তোমাদেরকে গোমরাহ করতে পারবে না, ফিতনায় ফেলতে পারবে না। কাজেই এরা হচ্ছে উলামায়ে সূ। দজ্জালের চেলা হচ্ছে উলামায়ে ‘সূ’।

কাজেই খুব সাবধান থাকতে হবে এদের থেকে। এদের আমল-আখলাক্ব, এদের সীরত-ছূরত, চাল-চলন, আচার-ব্যবহার, প্রত্যেকটাই মারাত্বক গোমরাহিপূর্ণ। এই গোমরাহী থেকে বেঁচে থাকতে হলে এদের থেকে দূরে থাকতে হবে। অন্যথায় এদের বদ তাছির, বদ ছোহবত ধ্বংস করে দিবে। বালয়াম বিন বাউরা ধ্বংস হয়ে গেলো, আমির উমরাহ, রাজা বাদশাহর ছোহবত ইখতিয়ার করে, দুনিয়ার লোভ করে, গইরুল্লাহর মুহতাজ হয়ে, দুনিয়ার মোহে মোহগ্রস্ত হয়ে সে ধ্বংস হয়ে গেলো। নাউযুবিল্লাহ!

এজন্য পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

نعم الأمير على باب الفقير وبئس الفقير على باب الأمير

নূরে মুজাসসাম, হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম সালাম উনাদের নবী, হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, উত্তম আমীর, রাজা-বাদশা হচ্ছে সেই ব্যক্তি যে মহান আল্লাহ পাক উনার ওলী উনাদের দরবার শরীফে ঘুরাঘুরি করে থাকে, আসা যাওয়া করে থাকে। আর নিকৃষ্ট আলিম হচ্ছে, উলামায়ে সূ হচ্ছে, দরবেশ হচ্ছে, মুফতী, মুহাদ্দিছ, শায়খুল হাদিছ, মুফাস্সিরে কুরআন হচ্ছে তারা যারা রাজা-বাদশা, আমীর-উমরাদের দরবারে দরবারে ঘুরে। নাউযুবিল্লাহ! কারণ এদের মধ্যে মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি নেই। মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি যার মধ্যে না থাকবে, সে সব ধরনের কাজ করতে পারবে। আর যার মধ্যে মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি থাকবে, সে সমস্ত পাপ থেকে ইচ্ছায় হোক অনিচ্ছায় হোক বিরত থাকার চেষ্টা করবে। কাজেই মহান আল্লাহ পাক তিনি যেনো সবাইকেই এ সব উলামায়ে ‘সূ’দের থেকে হিফাযত করেন এবং হক্ব মতে পথে দায়িম-ক্বায়িম থাকার তাওফীক দান করেন।

উলামায়ে সূদের হাক্বীক্বত না বুঝা পর্যন্ত উম্মতে হাবীবী উনাদের পক্ষে হক্ব মত হক্ব পথে দায়িম-ক্বয়িম থাকা কখনই সম্ভব নয়।

মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন-

اِنَّمَا يَخْشَى اللّـهَ مِنْ عِبَادِهِ الْعُلَمَاءُ

নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার বান্দাদের মধ্য থেকে মহান আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করে থাকেন যারা আলিম। অর্থাৎ যাদের মধ্যে মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি রয়েছে উনারাই হচ্ছেন আলিম। আর এই আলিম সম্পর্কে ইমামুশ শরীয়াত, ইমামুত তরীক্বত, ইমাম হাসান বছরী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন-

انما الفقيه الزاهد فى الدنيا، الراغب فى الآخرة، البصير بذنبه، الـمداوم على عبادة ربه، الوَرِع الكافُّ عن اعراض الـمسلمين، العفيف عن اموالهم، الناصح لجماعتهم

ইমামুশ শরীয়াত ওয়াত তরীক্বত ইমাম হাসান বছরী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি আলিমের সংজ্ঞা সস্পর্কে বলেন, যারা হক্কানী রব্বানী আলিম হবেন উনাদের ছিফত বর্ণনা করা হয়েছে। এর বিপরীত যারা রয়েছে তারাই হচ্ছে উলামায়ে সূএর অন্তর্ভুক্ত।

انما الفقيه الزاهد فى الدنيا

অর্থাৎ ফক্বীহ বা আলিম হচ্ছেন তিনি যিনি দুনিয়া থেকে বিরাগ।

الراغب ف الآخرة

পরকালের প্রতি যিনি রুজু হয়ে রয়েছেন।

البصير بذنبه

 গোনাহর ব্যাপারে যিনি সতর্ক রয়েছেন।

الـمداوم على عبادة ربه

আর যিনি সবসময়ই ইবাদত-বন্দিগীতে মশগুল রয়েছেন।

الوَرِع

যিনি সুন্নত উনার পাবন্দ, পরহেযগার।

الكافُّ عن اعراض المسلمين

যিনি মুসলমান উনাদের সম্পদের প্রতি লোভ করেন না।

العفيف عن اموالهم

যিনি মুসলমান উনাদের মাল থেকে বিরত থাকেন, পরহেয করে থাকেন।

الناصح لجماعتهم

এবং সবসময়ই মুসলমান উনাদেরকে নছীহতে মশগুল থাকেন।

অর্থাৎ এই পবিত্র আয়াত শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে যা বলা হয়েছে, যাদের মধ্যে মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি রয়েছে উনারাই হচ্ছেন আলিম হক্কানী রব্বানী। আর যাদের মধ্যে মহান আল্লাহ পাক উনার ভীতি থাকবে না এবং মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব, হযরত নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, হযরত রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের প্রতি মুহব্বত, তায়াল্লুক, নিছবত থাকবে না অর্থাৎ এক কথায় যে গইরুল্লাহতে মশগুল থাকবে মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের থেকে সে জুদা থাকবে, আমল-আখলাক্ব, সীরত-ছূরত সবদিক থেকে এবং সবসময়ই সে মাল সম্পদের প্রতি রুজু থাকবে। আর পরহেযগারি বলতে যেটা বুঝানো হয়েছে, সুন্নত উনার  যে পাবন্দি সেটা তার মধ্যে অনুপস্থিত থাকবে। অর্থাৎ সুন্নত উনার সে কোন পরওয়া করবে না। আমলের কোন পরওয়া করবে না। গোনাহখাতার কোন পরওয়া করবে না এবং ইবাদত-বন্দেগী সে গুরুত্ব দিবে না। আর মুসলমান উনাদেরকে তো নছীহত করার কোন প্রশ্নই আসে না। কারণ সে মুসলমান উনাদেরকে গাইরুল্লাহর দিকে ধাবিত করার জন্যই মশগুল থাকবে। নাউযুবিল্লাহ!  (অসমাপ্ত)

খলীফাতুল্লাহ্, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হুজ্জাতুল ইসলাম, সাইয়্যিদুল আওলিয়া, সুলত্বানুল ওয়ায়িজীন, গউছে আ’যম, ছাহিবু সুলত্বানিন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-উনার ওয়াজ শরীফ কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ-এর আলোকে ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করা ফরয-৪৫

খলীফাতুল্লাহ্, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হুজ্জাতুল ইসলাম, সাইয়্যিদুল আওলিয়া, সুলত্বানুল ওয়ায়িজীন, গউছে আ’যম, ছাহিবু সুলত্বানিন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-উনার ওয়াজ শরীফ কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ-এর আলোকে ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করা ফরয-৪৬

খলীফাতুল্লাহ্, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হুজ্জাতুল ইসলাম, সাইয়্যিদুল আওলিয়া, সুলত্বানুল ওয়ায়িজীন, গউছে আ’যম, ছাহিবু সুলত্বানিন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-উনার ওয়াজ শরীফ কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ-এর আলোকে ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করা ফরয-৪৭

খলীফাতুল্লাহ্, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হুজ্জাতুল ইসলাম, সাইয়্যিদুল আওলিয়া, সুলত্বানুল ওয়ায়িজীন, গউছে আ’যম, ছাহিবু সুলত্বানিন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-উনার ওয়াজ শরীফ কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ-এর আলোকে ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করা ফরয-৪৮

খলীফাতুল্লাহ্, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হুজ্জাতুল ইসলাম, সাইয়্যিদুল আওলিয়া, সুলত্বানুল ওয়ায়িজীন, গউছে আ’যম, ছাহিবু সুলত্বানিন নাছীর, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ-এর মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী-উনার ওয়াজ শরীফ কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ-এর আলোকে সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম উনার ফাযায়িল-ফযীলত, বুযুর্গী-সম্মান, খুছূছিয়ত-বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে