রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নাম মুবারক উনার পূর্বে ব্যবহৃত “মুহইউস সুন্নাহ” লক্বব মুবারক বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১৪৫

সংখ্যা: ২৫১তম সংখ্যা | বিভাগ:

শয়তান বাম হাত দ্বারা পানাহার করে

 

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عن حضرت ابن عمر رضى الله تعالى عنه قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم لا يأكلن احدكم بشماله ولا يشربن بها فان الشيطان يأكل بشماله ويشرب بها.

অর্থ: “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, সাবধান! তোমাদের কেউ যেন বাম হাত দ্বারা না খায় এবং সেই (বাম) হাতে পানও না করে। কেননা শয়তান বাম হাত দ্বারা খায় এবং সেই হাতে পান করে।” (মুসলিম শরীফ, তিরমিযী শরীফ)

সন্তানকে শিশুকাল থেকে সম্মানিত সুন্নত মুবারক উনার ইত্তিবা করাতে হবে

সন্তানকে শৈশবকাল থেকেই সম্মানিত সুন্নত মুবারক আদায়ের প্রতি যতœশীল করে গড়ে তোলা প্রত্যেক বাবা মায়ের একান্ত দায়িত্য-কর্তব্য। অন্যথায় সন্তান-সন্ততি বিদয়াত-বেশরার উপরে বেড়ে উঠবে। আর বিদয়াত-বেশরার উপর বেড়ে উঠলে সন্তানের পক্ষে আল্লাহওয়ালা-আল্লাহওয়ালী হওয়া কঠিন। কেননা বিদয়াত-বেশরার বদ তাছীর বা খারাপ প্রভাব থেকে মুক্ত হওয়া সহজ নয়।

খাবারের শুরুতে বিছমিল্লাহ শরীফ পাঠ সুন্নত

খাবার শুরু করার পূর্বে সন্তানকে বিছমিল্লাহ শরীফ পাঠ করতঃ খাবার শুরু করার শিক্ষা দিতে হবে।

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিষয়টি হাতে কলমে শিক্ষা দিয়েছেন। যা সম্মানিত সুন্নত উনার অন্তর্ভুক্ত।

উল্লেখ্য যে, হযরত উমর ইবনে সালামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি ছিলেন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পালিত আওলাদ। একদিন তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক খিদমতে হাজির হলেন। সে সময় নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সামনে খাবার মুবারক উপস্থিত ছিল। তিনি হযরত উমর ইবনে সালামা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে বললেন-

ادن يا بنى فسم الله تعالى وكل بيمينك مما يليك

অর্থ: “প্রিয় বৎস! নিকটে আসুন। বিছমিল্লাহির রহমানির রাহীম পাঠ করুন। আর ডান হাত দ্বারা নিজের নিকট থেকে খেতে থাকুন।” (আশরাফুল ওয়াসায়িল ইলা ফাহমিশ শামায়িল-২৬৯)

কাজেই, প্রত্যেক পিতা-মাতার দায়িত্ব-কর্তব্য এটাই যে, স্বীয় সন্তান-সন্ততিদেরকে এভাবে হাত দিয়ে ধরে ধরে সুন্নত মুবারকগুলি শিক্ষা দেয়া। অন্যথায় সন্তানদের হক্ব আদায় হবে না। সেক্ষেত্রে সন্তান ব্যতিক্রম কিছু হলে তার জন্য পিতা-মাতাই সর্বাংশে দায়ী।

শুরুতে বিছমিল্লাহ শরীফ পাঠ করতে

ভুলে গেলে কি করবেন?

সেক্ষেত্রে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

اذا اكل احدكم فنسى ان يذكر اسم الله تعالى على طعامه فليقل “بسم الله اوله واخره”

অর্থ: “তোমাদের মধ্যে কেউ যদি খাবারের পূর্বে বিছমিল্লাহ শরীফ পাঠ করতে ভুলে যায়, আর খাবারের মাঝখানে তা স্মরণ হয় তখন সে যেন এভাবে পাঠ করে-

بسم الله اوله واخره

(আশরাফুল ওয়াসায়িল ইলা ফাহমিশ শামায়িল-২৬৯)

ছোট ছোট লোকমায় খাবার খাওয়া সুন্নত

ছোট ছোট লোকমায় খাবার খাওয়া সুন্নত। হযরত মোল্লা আলী ক্বারী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, “পাঁচ আঙ্গুল দ্বারা তথা বড় বড় লোকমায় খাবার খাওয়া লোভীদের আলামত বা চিহ্ন। যা সম্মানিত সুন্নত মুবারক উনার খিলাফ।”

আ’লামু বিত্ ত্বিব, আ’লামু বিল ফারায়িদ্ব, আ’লামু বিসুনানি রসূলিল্লাহ, হুল্লাতুল ইসলাম, আশাদ্দু হিজাবান, ইমামুল আইম্মাহ, মুহ্ইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবুল্লাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম- রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার নাম মুবারক উনার পূর্বে ব্যবহৃত “মুহইউস সুন্নাহ” লক্বব মুবারক বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১৩৫

লক্বব মুবারক বা উপাধির তাত্ত্বিক ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ-১৩২