লাইলাতুল কদর

সংখ্যা: ০১ম সংখ্যা | বিভাগ:

লাইলাতুল কদর

আল্লামা মুহম্মদ কামাল উদ্দিন


 লাইলাতুল কদর মহান বরকতময় রাত। এ রাতেই হিদায়েতের বাণী নিয়ে পবিত্র আল কুরআন নাযিল হয়েছিল। পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে এ রাতের ফযীলত অনেক বর্ণনা করা হয়েছে। মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ মুবারক করেছেন। “কদর রজনী হাজার মাস হতেও উত্তম।” হযরত আবু হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত- নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বর্ণনা করেছেন, “রমযান মাসের মধ্যে এমন একটি রাত আছে, যা হাজার মাস হতে উত্তম। যে ব্যক্তি এ রাতের নেকী হতে বঞ্ছিত থাকবে সে সর্বহারা হবে।” (আহমদ শরীফ, নাসায়ী শরীফ) তিনি আরও বর্ণনা করেছেন, “যে ব্যক্তি কদরের রাতে বিশ্বাস ও সওয়াবের উদ্দেশ্যে রাত্র জাগ্রত থেকে ইবাদত করে তার পূর্বকৃত ছগীরা গুনাহ মাফ হয়ে যায়।” (কবীরা গুনাহ মাফ হওয়ার আশা করা যায়; বোখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ) তিনি আরও ইরশাদ মুবারক করেন, “কদর রজনী উপস্থিত হলে হযরত জিব্রাঈল আলাইহিস সালাম একদল হযরত ফেরেস্তা আলাইহিমুস সালামসহ পৃথিবীতে নেমে আসেন। এ রাতে যে দাঁড়িয়ে কিংবা বসে মহান আল্লাহ পাক উনার যিকিরে মশগুল থাকে, তার জন্য হযরত ফেরেস্তা আলাইহিমুস সালামগণ দোয়া করতে থাকেন। আরও বলেন, “তোমরা রমযান শরীফ উনার শেষ দশদিনে সবে কদর তালাশ করো।”

alihsan

রমযান শরীফ-এর শেষ দশকের যে কোন বেজোড় রাত্রিতে এ রাত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। ২৬ তারিখ দিবাগত রাতেই হবে এমন কোন কথা নয়; তবে অধিকাংশ মোফাস্সীরে কিরামগণ উনাদের মতে এ রাতে হওয়ার সম্ভাবনা অধিক। আর রমযান শরীফ উনার শেষ দশকে ইতেকাফ করা সুন্নাতে মুয়াক্কাদা কিফায়া। নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রমযান শরীফ উনার শেষ দশদিন ইতেকাফ করতেন। যে কোন লোক ইতেকাফে মশগুল থাকলে শবে কদর যে রাতেই হোক না কেন তার নসীবে হবেই এতে কোন সন্দেহ নেই। বিশেষ করে এ রাতের এত মর্যাদা হওয়ার কারণ এ রাতেই পবিত্র কুরআন শরীফ অবতীর্ণ হয়েছে। মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ করেছেন। “ইন্না আনযালনাহু ফী লাইলাতিম মোবারাকাহ।” অর্থাৎ “আমি উহাকে (কুরআন শরীফ) এক বরকতময় রাত্রিতে নাযিল করেছি।” উক্ত আয়াত শরীফ-এ ‘লাইলাতুম মোবারাকাহ’ বলতে ‘লাইলাতুম্মন নেছফে শা’বান’ বা শবে বরাতকে বুঝানো হয়। উহাকে ফয়সালার রাত্রিও বলা হয়ে থাকে। মূলত এ রাতেই পবিত্র আল কুরআন নাযিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। কেননা, এ রাতেই মানুষের জন্ম-মৃত্যু ও রিযিক বৃদ্ধি ইত্যাদির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, আর তা কার্যকর হয় শবে কদর থেকে। সুতরাং উপরের আলোচনা থেকে বুঝা গেল শবে বরাতে আল কুরআন অবতীর্ণ করার সিদ্ধান্ত নেয়ার পর তা শবে কদরে ‘লওহে মাহ্ফুজ’ থেকে ‘বাইতুল ইজ্জতে’ স্থানান্তর হয়ে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার তেইশ বছর নবুয়তী জীবনে চাহিদানুযায়ী ক্রমান্বয়ে নাযিল হয়েছে।

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সম্মানিত সম্বোধন মুবারক করার বিষয়ে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার পৃথিবীর ইতিহাসে নযীরবিহীন এক অনন্য বেমেছাল অভুতপূর্ব চির বিস্ময়কর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র তাজদীদ মুবারক

সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সাথে অন্য কারো তুলনা করা কুফরী

মুহব্বত, ইতায়াত ও সন্তুষ্টি মুবারকের মূলেই হচ্ছেন সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমাতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম

ছাহিবু ক্বাবা ক্বওসাইনি আও আদনা, আকরামুল আউওয়ালীন ওয়াল আখিরীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাতু ওয়াস সালাম উনার বেমেছাল সম্মানিত তা‘য়াল্লুক-নিসবত মুবারক

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত শান মুবারক-এ ব্যবহৃত ‘মুত্বহ্হার এবং মুত্বহ্হির’ সম্মানিত লফয মুবারক উনাদের সম্মানিত অর্থ এবং তাৎপর্য মুবারক