সম্পাদকীয়

সংখ্যা: ২২৫তম সংখ্যা | বিভাগ:

সব প্রশংসা খালিক্ব, মালিক, রব মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য। সাইদয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নবী আলাইহিমুস সালাম উনাদের নবী, রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি অফুরন্ত দুরূদ ও সালাম মুবারক।
গণতন্ত্রের ভিত্তি হলো নির্বাচনী প্রক্রিয়া। কিন্তু কোন নির্বাচনেই পরাজয়ী দল প্রতিক্রিয়াবিহীনভাবে নির্বাচনী ফলাফল মেনে নেয় না। অর্থাৎ দলগতভাবেও নির্বাচনের প্রতি অনাস্থা পেশ করা হয়। অপরদিকে নির্বাচনী ফলাফলে ক্ষমতাসীনের প্রত্যাবর্তনের পরিবর্তে পরিবর্তনও হয়। দেখা যায়, জনগণ নতুন প্রার্থীকে বেছে নেয়। অর্থাৎ ক্ষমতাসীন প্রার্থীর দুর্নীতি, ক্ষমতার অপব্যবহার, স্বজনপ্রীতি, স্বেচ্ছাচারিতা, অসততা ইত্যাদি জনগণকে এই পরিবর্তনে সোৎসাহী করে তোলে। কিন্তু এজন্য জনগণকে পাঁচ বছর তিলে তিলে নিঃশেষ হতে হয়। সুতরাং নির্বাচন সম্পর্কে তিক্ত অভিজ্ঞতা রাজনৈতিক দল, ব্যক্তি ও জনগণ- সবার। সদ্য অনুষ্ঠিত চার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে এ সত্য নতুন করে উদ্ভাসিত হয়েছে। ‘পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার নামে ও দৃষ্টিতে নির্বাচন হারাম’ সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার যুগান্তকারী এ তাজদীদ অকাট্য এবং অনিবার্য। তার পরেও কী অজ্ঞ মানুষ হারাম নির্বাচন করবে আর তিলে তিলে মার খাবে? হাজারো কুফলের সমাহার এ নির্বাচনকে তারপরেও বর্জন করা হচ্ছে না কেন? নির্বাচন সম্পর্কে মানুষ নেতিবাচক ধারণা পোষণ করছে না কেন? এখনও কী সময় আসেনি দেশের ৯৭ ভাগ মুসলমান জনগোষ্ঠীর জন্য নির্বাচনকে বয়কট করার?
মহান আল্লাহ পাক উনার অপূর্ব রহমত মুবারক উনার ভা-ার এ বাংলাদেশ। শীতে সবজি গ্রীষ্মে ফল এদেশের বিশেষ বৈশিষ্ট্য। বিশেষত গ্রীষ্মে ফলের সমাহারে তা মধুমাস হিসেবে আখ্যায়িত হয়েছে। জানা গেছে এ মধুমাসের অন্যতম মধু ‘আম’ মুকুল থেকে শুরু করে গাছ থেকে পাড়ার আগ পর্যন্ত দফায় দফায় নানা ধরনের কীটনাশক, কেমিক্যাল ও বিষ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই অপরিপক্ব থাকা অবস্থায় কেমিক্যাল দিয়ে আম পাকানো হচ্ছে। সাধারণ মানুষ টাকা দিয়ে ফলের নামে ‘মরণব্যাধি’ কিনছে। বাজারে যে লিচু বিক্রি করা হচ্ছে, তাতেও মেশানো হয় বিষাক্ত রাসায়নিক।
মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা মুকুল আসার পর থেকে ফল পাড়ার আগ পর্যন্ত ভারতীয় বিষ ইতোফোন গ্রুপের বাইজার, হারবেস্ট, প্রমাড ও ক্রমপমেক্স, ম্যালথান গ্রুপের কীটনাশক কট, টিভো, ফাইটার, ম্যানকোজের গ্রুপের ভায়াথেন অথবা কার্বন্ডাজিন গ্রুপের নইন পাউডার, এনটাকল, ব্যাপিস্টিন, ফ্লোরা, টিডো প্রিমিয়ার ও ইন্টারফলসহ ১৬ প্রকার কীটনাশক মেশানো। সর্বশেষ সেই লিচু পচন রোধে ও টাটকা রাখতে ফরমালিন মেশানো হচ্ছে।
কেমিক্যালের হাত থেকে রেহাই পায়নি দেশের জাতীয় ফল কাঁঠালও। পাকাতে ও পচনরোধে নানা বিষাক্ত কেমিক্যাল এবং ফরমালিনমিশ্রিত পানিতে চুবানো হচ্ছে কাঁঠাল।
অসুস্থ মানুষজনকে দেখতে গেলে প্রায় সবাই তার জন্য যে ফলটি সবচেয়ে বেশি নিয়ে যান তা হলো আঙ্গুর। রোগীর স্বজন কিংবা বন্ধুরা মনে করে, ফলটি সুস্বাদু এবং রোগীর জন্য ভালো হবে। কিন্তু তারা কি জানেন এই আঙ্গুরে ঠিক কি পরিমাণে রাসায়নিক কেমিক্যাল মেশানো হয়?
মূলত আঙ্গুর আমদানি হয়ে দেশে আসার সঙ্গে সঙ্গে ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক স্প্রে করে।
রাজধানীসহ দেশের আনাচে কানাচে সব ফলের দোকানে সারা বছর বিক্রি হয় আপেল। কিন্তু সুস্বাদু এই ফলটিতেই সবচেয়ে বেশি মেশানো হয় রাসায়নিক কেমিক্যাল। সব ধরনের চিকিৎসকরা যে ফলটি খাওয়ার জন্য পরামর্শ দিতো সেই ফল- মাল্টা যেন বিষের আধার! মাল্টা তরতাজা রাখতে এবং হলুদ রাখার জন্য খুবই শক্তিশালী রাসায়নিক কেমিক্যাল দেয়া হয়। যার ফলে এই মাল্টা খাওয়া ও বিষ খাওয়ার মধ্যে কোন পার্থক্য নেই।
পোকা মারার বিষ ‘ডিডিটি’ স্প্রে করে পাকানো হচ্ছে কলা। কলা খাওয়ার নামে ক্রেতা যে বিষ খাচ্ছেন তা দেখার কেউ নেই।
জাম চাষীরা জানান, ব্যবসায়ীদের একটি সিন্ডিকেট গত দুই বছর ধরে জামে বিষাক্ত রাসায়নিক স্প্রে করছে। বিক্রেতারা জানান, গত দুই বছর ধরে জামে ফরমালিন মেশাচ্ছে আড়তদাররা। ফরমালিন মিশ্রিত পানিতে জাম রাখলে জামে পচন ধরে না।
অপরদিকে দুধ, মাছ, সবজি কোনটাই ফরমালিন মুক্ত নয়। কাঁচা মরিচেও ফরমালিন দেয়া হচ্ছে। আবার এখন এমন ফরমালিন আমদানি করা হচ্ছে, যা মাছিকে আকৃষ্ট করবে।
প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখিয়েছিল। কিন্তু ডিজিটাল বাংলাদেশের পরিবর্তে ডিজিটাল ভেজাল ও দুর্নীতি বিস্তার লাভ করেছে। দুর্নীতি দমন করার জন্য যে দুদক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে সদ্য বিদায়ী সে দুদক চেয়ারম্যান গোলাম রহমানের বিরুদ্ধে একশ কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগ উঠেছে। এর আগের চেয়ারম্যান চৌধুরী হাসান মসউদসহ আরো অনেকের বিরুদ্ধেও শত শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।
উল্লিখিত সবই হচ্ছে হারাম গণতন্ত্রের কুফল। কারণ গণতন্ত্রে আইন মানুষের রচিত। গণতন্ত্রের আইনের উৎস মানুষ। গণতন্ত্রে বিচারের মালিক মানুষ। গণতন্ত্রে সব ক্ষমতার উৎস মানুষ। সুতরাং এক মানুষ অন্য মানুষকে মানেও-না। ভয়ও পায়না। বরং মানুষ জানে কীভাবে আরেক মানুষকে ঠকিয়ে দুর্নীতি করতে হয়।ভেজাল মিশাতে হয়। নিজের স্বার্থ উদ্ধার করতে হয়। সর্বোপরি মানুষের আবেদন, মানুষ ভয়, মানুষের শাসন- মানুষকে আদর্শবান হতে অনুপ্রাণিত করে না। আদর্শবান করার প্রচেষ্টা ফলপ্রসূ হয়না।
কেবলমাত্র খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার ভয়ই মানুষের মধ্যে কাজ করতে পারে। এজন্য রোযাদার মানুষ ঘরে একাকী থেকে ফ্রিজ ভর্তি খাবার রেখেও কোন খাবার খায়না। প্রচ- গরমের দিনে পুকুরে ডুব দিয়েও পানি পান করেনা। কাজেই কী খাদ্যে ভেজাল? কী প্রশাসনে দুর্নীতি ঠেকাতে; হারাম গণতন্ত্রের পরিবর্তে আমাদেরকে তাক্বওয়াভিত্তিক সমাজ গঠন করতে হবে। পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার তৃতীয় স্তম্ভ রোযার মূল শিক্ষা এই তাক্বওয়া অর্জন। তবে মনে রাখতে হবে ধর্মব্যবসায়ীরা অনেক আগ থেকেই এ তাক্বওয়াভিত্তিক সমাজের কথা প্রচার করে আসলেও তারা নিজেরাই চরম ফাসিক ও গোমরাহ।
মূলত যারা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার নাম দিয়ে হারাম গণতান্ত্রিক দল করে তারা সবাই গোমরাহ। তারা স্বাধীনতার বিপক্ষ শক্তি। তাদের দিয়ে কিছু হবেনা। কেবলমাত্র যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, যামানার মুজাদ্দিদে, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদ আ’যম আলাইহিস সালাম উনার খাছ ছোহবত মুবারক উনার মাধ্যমেই এ মহান নিয়ামত প্রাপ্তি সম্ভব। খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার উসীলায় আমাদের সবাইকে তা নসীব করুন। (আমীন)

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয় 

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয়