সম্পাদকীয়

সংখ্যা: ২৪২তম সংখ্যা | বিভাগ:

ম্পাকী


সমস্ত প্রশংসা মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য। যিনি সর্বপ্রথম ওয়াজ শরীফ মুবারক করেছেন। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি বেশুমার ছালাত মুবারক ও সালাম মুবারক। যিনি সারা জীবন উম্মতকে ওয়াজ নছীহত শরীফ করেছেন। বর্তমানে আলিম সমাজের উপরই ওয়াজ নছীহতের সে দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে। মানুষ সামাজিক জীব। সমাজের সাথে সম্পৃক্ত সংস্কৃতি। সংস্কৃতি যখন ধর্ম বিরোধী, সেটাই তখন মূল বিপত্তি। কারণ যুগ প্রবাহের প্রতিকূলে চলা, সাধারণ মানুষের সাধারণ ক্ষমতার বাইরে। সাধারণ মুসলমান তাই ছবি তোলে, সিনেমা, টিভি, ভি. সি. আর দেখে, গান শোনে যাবতীয় হারাম কাজ করে। মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “মানুষের হিসাব-নিকাশের নিকটবর্তী অথচ তারা বেখবর হয়ে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে।” (পবিত্র সূরা আম্বিয়া শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১)

মুখ ফিরিয়ে নেয়া মানুষকে মহান আল্লাহ পাক উনার দিকে আহবানের জন্যই ওয়াজ নছীহত। বলাবাহুল্য, মুসলিম দেশে তথা বাংলাদেশে ওয়াজ নছীহত উনার ক্ষেত্র অনেক সুগম এবং ব্যাপক। ওয়াজ নছীহতের বিপরীতে এদেশে অনেক রাজনৈতিক সভাসহ বিভিন্ন ধরণের সভা হয়। কিন্তু সে সব সভা যতটা আয়াস সাধ্য, ব্যয় সাধ্য তথা ভাড়া করা লোক দিয়ে পূর্ণ করার তৎপরতায় দুষ্ট, ওয়াজ মাহফিলে তার অবতারণা ঘটেনা। অথচ রাজনৈতিক দলগুলো প্রনান্তকর প্রচেষ্টায় বিভিন্ন সভায় যে লোক সমাগম ঘটায় তার চেয়ে অনেক বেশী লোক সমাগম ঘটে দেশের বিভিন্ন বড় বড় মসজিদে, জুমার দিনে। উল্লেখ্য, রাজনৈতিক নেতারা তথা তথাকথিত মুক্তবুদ্ধির প্রবক্তারা যতক্ষণ এদেশে মাইক ব্যবহারের সুযোগ পান, তার চেয়ে অনেক বেশি সুযোগ পান বাংলাদেশের আলিমগণ। জুমুয়ার প্রায় দশ লাখেরও অধিক মসজিদে তারা যে বয়ান করেন, তা এক হিসেব মতে তিন কোটিরও বেশী মুছল্লী শোনেন। সুতরাং উল্লেখ আবশ্যক যে, প্রতি জুমুআ’বারই দেশে তিন কোটিরও বেশী মুছল্লী সমাবেশ হচ্ছে। তাদের সামনে ধর্মীয় বয়ান রাখার সুযোগ পাচ্ছেন খতীব সাহেবগণ। জুমুয়ার বয়ানের পাশাপাশি ওয়াক্তিয়া নামাজ তথা বিশেষ দিনে এবং অন্যান্য মাহফিলেও তারা ওয়াজ নছীহতের অবকাশ পান। বলাবাহুল্য, এক্ষেত্রে তাদের অমুসলমানকে মুসলমান করার মত আলাদা কাজটি করতে হয় না, বরং জন্মসূত্রে মুসলমানদেরকেই নছীহত করতে হয়। বলাবাহুল্য, এ নছীহতের ক্ষেত্রে একটি সমন্বিত, সুগঠিত এবং ছহীহ উদ্যোগ গোটা জাতির চেহারাকে, জনমতকে পাল্টিয়ে অতি অল্প সময়ে আত্যাশ্চর্য সুফল দিতে পারে। পারে ধর্মনিরপেক্ষতা তথা ধর্মহীনতার আদল থেকে ইসলামের পরিপূর্ণ জজবা তৈরি করতে। কিন্তু সে কাক্সিক্ষত ফল থেকে যখন আমরা বরাবরই বঞ্চিত হচ্ছি, তখন প্রতিভাত হয় যে, এর ভেতর রয়েছে স্বচ্ছতার, সদিচ্ছার এবং সততার অভাব। মূলতঃ সে শুন্যতা নতুন কিছু নয় বরং তা ঐতিহাসিক ভাবেই সত্য। এক্ষেত্রে যেমন একদিকে রয়েছে ওয়ায়েজীন আমলশুন্যতা, রয়েছে ইল্মস্বল্পতা, তেমনি রয়েছে খুলুছিয়তহীনতা। আমল হীনতার ক্ষেত্রে এমন ওয়াজকারীদেরকে পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে সাবধান করা হয়েছে, “তোমরা যা করনা তা কেন বল? তোমরা যা করনা তা বলা মহান আল্লাহ পাক উনার কাছে খুবই অসন্তোষজনক।” (পবিত্র সূরা ছফ শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ২, ৩)

ইল্ম স্বল্পতার ক্ষেত্রে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, যাকে ইল্ম ব্যতীত ফতওয়া দেয়া হয়েছে, আর সে তদানুযায়ী আমল করেছে, এর গুনাহ্ ফতওয়া দানকারীর উপরই বর্তাবে। (আবু দাউদ শরীফ, মিশকাত শরীফ) খুলুছিয়তের ক্ষেত্রে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, যে ব্যক্তি এমন কিছু কথা শিক্ষা করে, এমনভাবে কথা বলে যাতে মানুষের অন্তরকে আকৃষ্ট এবং সম্মোহিত করতে পারে, মহান আল্লাহ পাক তিনি কিয়ামতের দিন তার নফল ও ফরয কোনটাই কবুল করবেন না। (আবু দাউদ শরীফ, মিশকাত শরীফ শরীফ) মূলতঃ এইসব ইল্মহীন, আদবহীন, খুলুছিয়তবিহীন ওয়ায়েজীনরা ওয়াজ মাহফিলের বরকত নষ্ট করেছে। ওয়াজকে তারা পেশা হিসেবে নিয়েছে। মুলতঃ এ অবস্থা নামধারী মালানাদের চোর, ডাকাত তথা অন্য সব দুস্কৃতিকারী ও দুর্নীতিবাজদের চেয়ে বড় অপরাধী বলে সাব্যস্ত করে। মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “আর আপনি তাদের অনেককে দেখবেন যে, দ্রুত পাপে, সীমালঙ্ঘনে এবং হারাম ভক্ষণে ধাবিত হতে। তারা যা করছে তা অত্যন্ত মন্দ কাজ। দরবেশ ও আলিমরা (নামধারী) কেন তাদের পাপ কথা বলতে এবং হারাম ভক্ষণ করতে নিষেধ করে না। তারা খুবই মন্দ কাজ করছে। (পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৬২)

নামধারী দুর্নীতিবাজ মালানা সম্পর্কেই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “নিশ্চয়ই নামধারী আলিমরাই নিকৃষ্ট জীব” (দারিমী শরীফ) এদিকে বর্তমান সরকার মসজিদে মসজিদে দুর্নীতির বিরুদ্ধে ওয়াজ করার উপর গুরুত্বারোপ করেছেন। প্রসঙ্গত: সরকার যদি দুর্নীতিরোধে সত্যিই সম্মানিত ইসলামী অনুভূতির জাগরণ ঘটাতে চায় তাহলে তাদেরকে ঐসব আলিমকেই মূল্যায়ণ করতে হবে যারা সরকারের মুখের উপর হক্ব কথা বলার সাহস রাখেন। যারা সরকারের সব অনৈসলামী কাজের প্রতিবাদ করার হিম্মত রাখেন। যারা একদিকে সরকারের ফরমায়েশ মত দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলবে অপরদিকে সরকারের হুকুম মত মসজিদে মসজিদে ছবি তোলার পক্ষে বলে, মহান আল্লাহ পাক তিনি ও উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের বিরুদ্ধে বলবে তারা নয়। যারা ইতোমধ্যে ছবি, বেপর্দা, লংমার্চ, হরতাল মৌলবাদ, ব্লাসফেমী, গণতন্ত্র, নির্বাচন ইত্যাদি নাজায়িয কাজ করেছে তারা নয়। বলার অপেক্ষা রাখেনা যে, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, ইমামুল আইম্মাহ, কুতুবুল আলম, মুহ্ইস্ সুন্নাহ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি কেবল উনার বেমেছাল যোগ্যতা, রূহানী দক্ষতা, সুন্নতী আমল, অভূতপূর্ব ইলমে লাদুন্নী, প্রজ্ঞা ও পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার পক্ষে বেপরোয়া মনোভাবের কারনে শুধু বর্তমান সরকার ও এই দেশের জনগণ নয় বরং গোটা বিশ্বসরকার তথা বিশ্ববাসীকেই হিদায়েত করার খোদায়ী হিম্মত রাখেন। কাজেই, সব সরকারেরই উচিত উনার সকাশে যাওয়া ও নছীহত মুবারক তথা উনার ফয়েজ-তাওয়াজ্জুহ মুবারক হাছিল করা। মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদের কবুল করুন। (আমীন)

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয় 

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয়

সম্পাদকীয়