সম্মানিত শাওওয়াল ও যিলক্বদ শরীফ মাস এবং উনাদের প্রাসঙ্গিক আলোচনা

সংখ্যা: ২৬২তম সংখ্যা | বিভাগ:

-আল্লামা মুফতী সাইয়্যিদ শুয়াইব আহমদ

মাহে রমাদ্বানুল মুবারক উনার পরবর্তী মাসটিই সম্মানিত শাওওয়াল শরীফ। এ মাসের পহেলা তারিখ অর্থাৎ প্রথম দিনটি ঈদুল ফিতর উনার দিন। ঈদুল ফিতর উনার রাত ও দিন উভয়টি অত্যধিক ফযীলতপূর্ণ।

উক্ত ফযীলতপূর্ণ, বরকতপূর্ণ ও রহমতপূর্ণ খুশি প্রকাশের দিনটিতে বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন ওলীয়ে মাদারযাদ, লখতে জিগারে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম-মাক্বামে বিনতে রসূল আননূরুর রাবিআহ যাহরা আলাইহাস সালাম, সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত নাক্বীবাতুল উমাম আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!

এ মাসটি আরো যেসব কারণে ফযীলতপূর্ণ তা হচ্ছে- এ মাসের ১৪ তারিখ বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন নক্শবন্দিয়ায়ে মুজাদ্দিদিয়া তরীক্বার সম্মানিত ইমাম, ক্বইয়ূমে আউওয়াল, আফদ্বালুল আউলিয়া হযরত মুাজদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি। সুবহানাল্লাহ!

আবার এ মাসেরই ১৯ তারিখ অর্থাৎ ১৯ শে শাওওয়াল শরীফ মুজাদ্দিদে আ’যম, আহলে  বাইতে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সাথে সুমহান নিসবতে আযীমাহ (নিকাহ মুবারক) সম্পন্ন হয় যিনি ক্বায়িম-মাক্বামে উম্মাহাতুল মু’মিনীন, আহলে বাইতে রসূল, সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার। সুবহানাল্লাহ!

এ মাসেরই ২১ তারিখ অর্থাৎ ২১শে শাওওয়াল শরীফ সুমহান নিসবতে আযীমাহ মুবারক সম্পাদিত হয় সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছছালিছাহ ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার। সুবহানাল্লাহ!

অতঃপর ২২শে শাওওয়াল শরীফ যথাক্রমে সুমহান নিসবতে আযীমাহ মুবারক সম্পন্ন হয় লখতে জিগারে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার প্রথমা ও দ্বিতীয়া ছাহিবযাদী ক্বায়িম-মাক্বামে সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত আননূরুর রাবিআহ যাহরা আলাইহাস সালাম, সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত নাক্বীবাতুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার এবং ক্বায়িম-মাক্বামে সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ হযরত আননূরুর রাবিআহ যাহরা আলাইহাস সালাম সাইয়্যিদাতুন নিসা হযরত নিবরাসাতুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার। সুবহানাল্লাহ!

আবার এ মাসেরই ২৫ তারিখ অর্থাৎ ২৫ শে শাওওয়াল শরীফ বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম উনার সম্মানিতা আম্মা, ক্বায়িম-মাক্বামে উম্মু রসূলিল্লাহ, ত্বাহিরাহ, ত্বইয়্যিবাহ, হাবীবাতুল্লাহ, সাইয়্যিদাতুন নিসা আমাদের সম্মানিতা হযরত দাদী হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!

আর পরবর্তী মাস সম্মানিত যিলক্বদ শরীফ উনার ১১ এবং ১৪ তারিখ দিবস দু’টি বিশেষভাবে সম্মানিত ও স্মরণীয় দিন। উক্ত ১১ই যিলক্বদ শরীফ সুমহান দিবসে বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন সিবতু মুজাদ্দিদে আ’যম, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত সাইয়্যিদুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!

আর ১৪ই যিলক্বদ শরীফ উক্ত সুমহান দিবসে বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন ছিহরু মুজাদ্দিদে আ’যম, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত শাফিউল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!

স্মরণীয় যে, খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার নিদর্শন মুবারক সমূহ প্রকাশের স্থল হচ্ছেন হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম এবং হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনারা।

উনারা যে সমস্ত দিনে বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন, বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন এবং যে সমস্ত দিনে উনাদের বিশেষ বিশেষ শান মুবারক প্রকাশিত হয় বা ঘটনা মুবারক সংঘটিত হয় উক্ত দিন বা দিবসসমূহ পালন করার ব্যাপারে খ¦ালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র সূরা ইবরাহীম শরীফ ৫নং পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে আদেশ মুবারক করেছেন।

উল্লেখ্য, সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, রহমতুল্লিল আলামীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিই হচ্ছেন সর্বশেষ নবী ও রসূল। উনার পর ক্বিয়ামত পর্যন্ত আর কেউ নবী ও রসূল হিসেবে যমীনে আগমন করবেন না। ফলে ক্বিয়ামতের পূর্ব পর্যন্ত নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ক্বায়িম-মাক্বাম তথা স্থলাভিষিক্ত হিসেবে উনার যারা সম্মানিত আহলে বাইত শরীফ ও আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনারা যমীনে আগমন ও অবস্থান করবেন। আর উনার ছাহাবা আজমাঈন রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের ক্বায়িম-মাক্বাম বা স্থলাভিষিক্ত হিসেবে যমীনে আগমন ও অবস্থান করবেন হযরত আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনারা।

অতএব, বান্দা-বান্দী ও উম্মতের প্রতি ফরয হচ্ছে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অবর্তমানে উনার সম্মানিত হযরত আহলে বাইত শরীফ এবং আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করা, উনাদেরকে সম্মান করা, উনাদের খিদমত করা এবং উনাদের ছানা-ছিফত বা প্রশংসা করা। আর এ লক্ষে উনাদের বিলাদতী শান মুবারক অথবা বিছালী শান মুবারক অথবা উনাদের  বিশেষ বিশেষ শান মুবারক প্রকাশের দিনসমূহ উদযাপন করা। অর্থাৎ উক্ত দিনসমূহে মাহফিলের ব্যবস্থা করে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ তিলাওয়াত, হামদ শরীফ, না’ত শরীফ ও ক্বাছীদা শরীফ পাঠ করা, আলোচনা করা, মীলাদ শরীফ পাঠ করা, দুআ-মুনাজাত করা এবং তবারুক বিতরণ করা।

মাহে মুহররমুল হারাম ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে রবীউল আউয়াল শরীফ ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা -হযরত মাওলানা মুফতী সাইয়্যিদ শুয়াইব আহমদ

মাহে রবীউছ্ ছানী ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে জুমাদাল উখরা ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা

মাহে রজব ও তার প্রাসঙ্গিক আলোচনা