সুলতানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ, মুজাদ্দিদ যামান, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী আজমিরী সাঞ্জারী রহমতুল্লাহি আলাইহি-৩ (বিলাদত শরীফ ৫৩৬ হিজরী, বিছাল শরীফ ৬৩৩ হিজরী)

সংখ্যা: ২৩২তম সংখ্যা | বিভাগ:

সম্মানিতা মাতা উনার রেহেম শরীফে অবস্থানকালীন অবস্থা মুবারক

কুতুবুল মাশায়িখ, আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সম্মানিতা মাতা সাইয়্যিদা হযরত উম্মুল ওয়ারাহ মাহে নূর রহমতুল্লাহি আলাইহা তিনি বলেন, আমরা সাধারণত বৃহস্পতিবার রাত খাছভাবে ইবাদত-বন্দেগী, যিকির-ফিকিরের মাধ্যমেই অতিবাহিত করতাম। আমার যাওজুল মুকাররাম আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদ গিয়াসুদ্দীন রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি তাহাজ্জুদ নামায শেষ করে যখন মুনাজাতের জন্য হাত  মুবারক তুললেন তখন সমস্ত ঘর মনোমুগ্ধকর আকর্ষণীয় খুশবুতে ভরে গেলো।

উল্লেখ্য যে, রাতে শেষ প্রহরে পবিত্র তাহাজ্জুদ নামায আদায়ের পর আহলিয়ার সাথে নিরিবিলি অবস্থান করা খাছ সুন্নত। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সাথে মুবারক সাক্ষাত করতেন। সাধারণত সেই সময় যে সন্তান মায়ের রেহেম শরীফে তাশরীফ নেন তিনি পরহেযগার, মুত্তাক্বী, আল্লাহওয়ালা হয়ে থাকেন। আর সেদিনেই আমার পবিত্র রেহেম শরীফে হযরত খাজা গরীবে নেওয়াজ হাবীবুল্লাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি তাশরীফ আনলেন। উনি তাশরীফ মুবারক আনার পর থেকে আমি প্রতি রাতেই বিভিন্ন বুযুর্গানে দ্বীন উনাদের সাক্ষাৎ মুবারক লাভ করতাম। উনারা প্রত্যেক দিন আমাকে সাবধান করে বলতেন, “মাহে নূর রহমতুল্লাহি আলাইহা! আপনার পবিত্র রেহেম শরীফে এমন একজন ব্যক্তিত্ব তাশরীফ এনেছেন যিনি হবেন মহান ওলীআল্লাহ উনাদের পথ প্রদর্শক কুতুবুল মাশায়িখ। মহান আল্লাহ পাক উনার পরম বন্ধু উনাদের মধ্যকার একজন বিশেষ বন্ধু “হাবীবুল্লাহ”।

অতএব, আপনাকে সবসময় সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। যেন আপনার দ্বারা কারও কোন ক্ষতি না হয়। কোন আদেশ-নিষেধের খিলাফ কাজ সংঘটিত না হয়। কেউ যেন আপনার আচার-আচরণ মুবারক বা কথা মুবারক থেকে মনে কষ্ট না পায়। কোন সুওয়ালকারী যেন আপনার নিকট হতে খালি হাতে ফিরে না যায়। কেননা মহান আল্লাহ পাক তিনি আপনার সময়কার সকল মহিলাদের মধ্য হতে আপনাকে মনোনীত করেছেন উনার বন্ধুর মাতৃত্বের জন্য। এটা আপনার জন্য এক মহান নিয়ামতের বিষয়। এ সৌভাগ্যের সম্মান যাতে রক্ষা পায় সে ব্যাপারে সদা যত্নবান থাকবেন।” এছাড়াও মাঝে মাঝে একটা গইবী আওয়াজ (অদৃশ্য আওয়াজ) আমাকে ব্যাকুল করে তুলতো। আমি যখনই মহান আল্লাহ পাক উনার খেয়াল ও ধ্যান হতে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার উপক্রম হতাম তখনই হাতিব (মহান আল্লাহ পাক উনার একজন ফেরেশতা আলাইহিস সালাম) আমাকে নির্দেশ মুবারক স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলতেন, “হে মহান আল্লাহ পাক উনার বন্ধুর মাতা আপনার কিন্তু মহান আল্লাহ পাক উনার যিকির থেকে অমনযোগী হওয়া উচিত নয়।” অতএব আমি আমার অন্তর মনকে মহান আল্লাহ পাক উনার যিকিরে মশগুল রাখার সর্বাত্মক চেষ্টা করে যেতাম। একজন গৃহিনী হিসেবে আমাকে সংসারের যাবতীয় কাজও করতে হতো। যখন থেকেই হযরত খাজা গরীবে নেওয়াজ হাবীবুল্লাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি আমার পবিত্র রেহেম শরীফে অবস্থান করছেন তখন থেকে আমার সর্বপ্রকার অভাব, অনটন দূর হয়েছে। শত্রুরাও আমার বন্ধুত্বের জন্য হাত বাড়িয়ে দিয়েছে।

পবিত্র রেহেম শরীফে অবস্থানের ১২০ দিন পূর্ণ হলো। তখন আর একটি অলৌকিক ঘটনা ঘটলো। সে রাতটি ছিলো জুমুয়াবার। পবিত্র ফজর নামাযের সময় আমার ঘর অদৃশ্য আলোতে উদ্ভাসিত হয়ে উঠলো। এক জ্যোতির্ময় ফেরেশতা আলাইহিস সালাম হযরত খাজা গরীবে নেওয়াজ হাবীবুল্লাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার রূহ মুবারক বহন করে এনে আমার নাভী মুবারক উনার মধ্য দিয়ে দেহ মুবারক উনার মধ্যে প্রবেশ করিয়ে দিলেন। আমার সমস্ত দেহে একটা বিরাট আলোড়ন সৃষ্টি হলো। আমি তখন নিদ্রিত ও জাগ্রতের মাঝামাঝি একটা অবস্থার মধ্যে ছিলাম। আমি কিছুটা ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পরলাম। যখন চেতনা ফিরে পেলাম তখন চোখ মেলে তাকিয়ে দেখলাম সেই অদৃশ্য আলো তখনও বিলীন হয়ে যায়নি এবং একটা মনমুগ্ধকর খুশবুতে ঘর ছেয়ে আছে।

এরপর একটা তাসবীহ উনার আওয়াজ আমার কান মুবারকে আসতে লাগলো। আমি এ আওয়াজের উৎসমূল খুঁজতে লাগলাম। কি নামের যিকির হচ্ছে তাও বুঝার চেষ্টা করতে লাগলাম। অনেক অনুসন্ধানের পর অবশ্য বুঝতে পারলাম যে, ওই আওয়াজ আমারই রেহেম শরীফ হতে হচ্ছে। আমি বিহবল ও বিচলিত হয়ে পড়লাম। আমার যাওজুল মুকাররাম আমার পাশেই শায়িত ছিলেন। আমি উনাকে জাগ্রত করে ব্যাপারটি অনুধাবনের জন্য জানালাম। তিনি প্রথমে ব্যাপারটি মোটেই গুরুত্ব দিলেন না। কিন্তু উনাকে বার বার অনুরোধ করায় তিনি আমার রেহেম শরীফে কান মুবারক লাগিয়ে আওয়াজটি শুনার চেষ্টা করে সফলকাম হলেন এবং অতি আশ্চর্য হয়ে পড়লেন। ঠিক এই সময়ে হাতিব (সম্মানিত হযরত ফেরেশতা আলাইহিস সালাম) উনার মুখে অদৃশ্যবাণী উ”চারিত হলো- “হে গিয়াসউদ্দিন রহমতুল্লাহি আলাইহি ও মাহে নূর রহমতুল্লাহি আলাইহা আপনাদের এ মুবারক সন্তান বয়োবৃদ্ধি না হওয়া পর্যন্ত যেন এ ঘটনা অন্য কারো কর্ণগোচর না হয়।” ঠিক এ সময়েই পবিত্র ফজর নামাযের আযান মসজিদ হতে ভেসে আসতে লাগলো। আমার যাওজুল মুকাররাম ও আমি উভয়েই পবিত্র নামায উনার জন্য প্রস্তুত হতে লাগলাম।

ওলীয়ে মাদারজাদ, মুসতাজাবুদ্ দা’ওয়াত, আফযালুল ইবাদ, ছাহিবে কাশফ্ ওয়া কারামত, ফখরুল আওলিয়া, ছূফীয়ে বাতিন, ছাহিবে ইস্মে আ’যম, লিসানুল হক্ব, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, আমাদের সম্মানিত দাদা হুযূর ক্বিবলা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার স্মরণে- একজন কুতুবুয্ যামান উনার দীদারে মাওলার দিকে প্রস্থান-১৪৯

সাইয়্যিদুল আওলিয়া, মাহবূবে সুবহানী, কুতুবে রব্বানী, গওছুল আ’যম, মুজাদ্দিদুয যামান, ইমামুর রাসিখীন, সুলত্বানুল আরিফীন, মুহিউদ্দীন, আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত বড়পীর ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি (৩)

ওলীয়ে মাদারজাদ, মুসতাজাবুদ্ দা’ওয়াত, আফযালুল ইবাদ, ছাহিবে কাশফ্ ওয়া কারামত, ফখরুল আওলিয়া, ছূফীয়ে বাতিন, ছাহিবে ইস্মে আ’যম, লিসানুল হক্ব, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, আমাদের সম্মানিত দাদা হুযূর ক্বিবলা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার স্মরণে- একজন কুতুবুয্ যামান উনার দীদারে মাওলার দিকে প্রস্থান-১৫০

সাইয়্যিদুল আওলিয়া, মাহবূবে সুবহানী, কুতুবে রব্বানী, গওছুল আ’যম, মুজাদ্দিদুয যামান, ইমামুর রাসিখীন, সুলত্বানুল আরিফীন, মুহিউদ্দীন, আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত বড়পীর ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি (৪)

হানাফী মাযহাবের আক্বাইদের ইমাম, ইমামু আহলিস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ হযরত ইমাম আবু মানছূর আল মাতুরীদী রহমতুল্লাহি আলাইহি বিছাল শরীফ ৩৩৩ হিজরী