সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ, মুজাদ্দিদুয যামান, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, হাবীবুল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা মুঈনুদ্দীন হাসান চিশতী আজমিরী সাঞ্জারী রহমতুল্লাহি আলাইহি-৬৩

সংখ্যা: ২৯৩তম সংখ্যা | বিভাগ:

(বিলাদত শরীফ ৫৩৬ হিজরী, বিছাল শরীফ ৬৩৩ হিজরী)

হযরত খাজা কুতুবুদ্দীন বখতিয়ার কাকী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে হযরত খাজা গরীব নেওয়াজ রহমতুল্লাহি আলাইহি চিশতীয়া খান্দানের পরবর্তী শাহানশাহ মনোনীত করে গদীনশীন করা (৩)

তিনি দাঁড়িয়ে আমাকে তুলে বুক মুবারকে জড়িয়ে ধরলেন, পবিত্র সূরা ফাতেহা শরীফ পাঠ করলেন এবং বললেন, সম্মানিত তরীকত উনার পথ হতে কখনও বিচ্ছিন্ন হবেন না। এ পথে সবসময় বীরপুরুষ (মর্দে মুমেন) হয়েই থাকবেন।

আমি পুনরায় উনার পবিত্র ক্বদমে বুছা দিলাম। তিনি অত্যন্ত মুহাব্বতের সাথে আমাকে তুললেন এবং পুনরায় সীনা মুবারকে জড়িয়ে নিলেন। আমি বিদায়ের অনুমতি প্রার্থনা করলাম। তিনি আমাকে অত্যন্ত খুশি মনে অনুমতি দান করলেন। আমি দিল্লীর পথে রওয়ানা দিলাম। চলতে চলতে এক সময় দিল্লীতে পৌঁছে গেলাম। এখানে তা’লীম-তরবিয়তের কাজ শুরু করলাম। কয়েকজন সূফী আমার সাথে এসেছিলেন। উনারাও ছোহবত মুবারক ইখতিয়ার করার জন্য সেখানে আমার সাথে বসবাস করতে লাগলেন। আমি দিল্লীতে পৌছার পর সংবাদদাতা আজমীর শরীফ হতে খবর নিয়ে এলেন যে আপনি আজমীর শরীফ ত্যাগ করার পর ২০ দিন সাইয়্যিদুনা হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমতুল্লাহি আলাইহি হায়াতে ছিলেন। তারপর বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। আমি এ সংবাদ শুনার সঙ্গে সঙ্গে আমার অন্তর-মন সব কাঁদতে লাগলো। তার প্রতিক্রিয়ায় আমার চোখ দিয়ে অশ্রু ঝরতে লাগলো। আমি আছরের নামায পড়ে জায়নামাযে বসে মুরাকাবা করতে লাগলাম।  আমি সাইয়্যিদুনা হযরত গরীবে নেওয়াজ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে দেখতে পেলাম। তিনি আরশে আযীমে অবস্থান মুবারক করছেন এবং উনাকে অত্যন্ত খুশি মনে হলো। আমি উনার পবিত্র ক্বদম মুবারকে বুছা দিলাম। এবং উনার অবস্থা জিজ্ঞেস করলাম।

তিনি বললেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাকে অশেষ দয়া ও ইহসান করেছেন এবং উনার নৈকট্য মুবারক দান করে ধন্য করেছেন। তিনি আমাকে সম্মানিত আরশ মুবারক উনার অধিবাসী করে দিয়েছেন। আমি সবসময় মহান আল্লাহ পাক উনার দীদার মুবারকে থাকি। সুবহানাল্লাহ। এখানেই অবস্থান মুবারক করি ।

সুলত্বানুল হিন্দ, কুতুবুল মাশায়িখ সাইয়্যিদুনা হযরত খাজা গরীবে নেওয়াজ রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কতিপয় মাকতুব  বা চিঠি মুবারক

সম্মানিত মা’রিফাত ও হাক্বীক্বতের পরিচয় বহনকারী, মহান আল্লাহ পাক উনার আশিক ভাই খাজা কুতুবুদ্দীন বখতিয়ার কাকী রহমতুল্লাহি আলাইহি আপনার অবশ্যই জানা আছে যে, জ্ঞানী ও বুদ্ধিমান সেই ব্যক্তি যে  ফকীরি বা দরবেশী গ্রহণ করে এবং সকল প্রকার আশা আকাঙ্খাকে বিসর্জন দেয়। কেননা, এ পথে আশা আকাঙ্খার কোন স্থান নেই। এখানে কামনাহীনতাই হচ্ছে কামনা। যে ব্যক্তি এ নিয়মের পরিপন্থী-বিপরীত তাকে ‘আহলে গাফলত’ অর্থাৎ ছন্নছাড়া ও নিস্কর্মের দল বলা হয়। এরা শুদ্ধতাকে অশুদ্ধতা, এবং অশুদ্ধতাকে শুদ্ধতা মনে করে। আর  আরামকে ব্যারাম এবং ব্যরামকে আরাম মনে করে। কাজেই সেই ব্যক্তি বুদ্ধিমান ও জ্ঞানী যে ব্যক্তি দুনিয়া ও দুনিয়া সংক্রান্ত সকল বিষয় ও বস্তুকে বিসর্জন দিয়ে ফকীর বা দরবেশীকে গ্রহণ করে। আর আশা আকাঙ্খাকে ছেড়ে দিয়ে অনাকাঙ্খী হয়ে যায়।

যে দরবেশ আশা আকাঙ্খা, কামনা-বাসনা ত্যাগ করে সে দরবেশই সফলতা অর্জন করতে পারে। এ পথের বীর পুরুষগণ মহান আল্লাহ পাক উনাকে ধারণ করে রাখে। যিনি চিরন্তন, চিরমহান, চির মনোরম, সৌন্দর্যময়। যিনি চিরকাল ধরে ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। আর যে  ব্যক্তি ক্ষণস্থায়ী ধ্বংসশীল ও ভঙ্গুর জিনিসকে কামনা-বাসনার মধ্যে ধারণ করে, সে ব্যক্তি অবশ্যই নির্বোধ ও অজ্ঞ। অধিক আর কি লিখবো- ওয়াস সালাম। ফকীর মুঈনুদ্দীন চিশতী সঞ্জরী রহমতুল্লাহি আলাইহি।

ওলীয়ে মাদারজাদ, মুসতাজাবুদ্ দা’ওয়াত, আফযালুল ইবাদ, ছাহিবে কাশফ্ ওয়া কারামত, ফখরুল আওলিয়া, ছূফীয়ে বাতিন, ছাহিবে ইস্মে আ’যম, লিসানুল হক্ব, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, আমাদের সম্মানিত দাদা হুযূর ক্বিবলা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার স্মরণে- একজন কুতুবুয্ যামান উনার দীদারে মাওলার দিকে প্রস্থান-১৪৯

সাইয়্যিদুল আওলিয়া, মাহবূবে সুবহানী, কুতুবে রব্বানী, গওছুল আ’যম, মুজাদ্দিদুয যামান, ইমামুর রাসিখীন, সুলত্বানুল আরিফীন, মুহিউদ্দীন, আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত বড়পীর ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি (৩)

ওলীয়ে মাদারজাদ, মুসতাজাবুদ্ দা’ওয়াত, আফযালুল ইবাদ, ছাহিবে কাশফ্ ওয়া কারামত, ফখরুল আওলিয়া, ছূফীয়ে বাতিন, ছাহিবে ইস্মে আ’যম, লিসানুল হক্ব, গরীবে নেওয়াজ, আওলাদে রসূল, আমাদের সম্মানিত দাদা হুযূর ক্বিবলা রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার স্মরণে- একজন কুতুবুয্ যামান উনার দীদারে মাওলার দিকে প্রস্থান-১৫০

সাইয়্যিদুল আওলিয়া, মাহবূবে সুবহানী, কুতুবে রব্বানী, গওছুল আ’যম, মুজাদ্দিদুয যামান, ইমামুর রাসিখীন, সুলত্বানুল আরিফীন, মুহিউদ্দীন, আওলাদে রসূল সাইয়্যিদুনা হযরত বড়পীর ছাহিব রহমতুল্লাহি আলাইহি (৪)

হানাফী মাযহাবের আক্বাইদের ইমাম, ইমামু আহলিস সুন্নাহ ওয়াল জামায়াহ হযরত ইমাম আবু মানছূর আল মাতুরীদী রহমতুল্লাহি আলাইহি বিছাল শরীফ ৩৩৩ হিজরী