হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মকবুলে মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ রহেন উজ্জ্বলে-১৬৪

সংখ্যা: ২৮১তম সংখ্যা | বিভাগ:

মহাসম্মানিত আখাছছুল খাছ,

আহলে বাইতে রসূল, উনারা তাড়াচ্ছেন খন্নাস।

উনারা সকলে হাবীবী আদলে ক্বওমে মুসলমান,

করেন রক্ষিত রেখে সজ্জিত  হক্ব রাহে অম্লান।

উনারা সুন্নাহি নাজ রাখেন বিরাজ কায়িনাতে দারাজাত,

উনারা কুরআনী  কানুন দ্বিপ্তীর চূড়ে আবাদের ছদাক্বাত।

উনারা হিলালী লহুর লালিমা স্নিগ্ধে সুন্নতি সামানায়,

বিশুদ্ধ আমল আখলাক্ব দেন জীবনের আঙ্গিনায়।

হয়ে খোদ আকরাম, দেন ইরহাম, উনারা মু’মিনদেরে,

বিপথগামিরে দেন পথ ধরে সহসা সফল শিরে।

রেখে ইযাফত দেন ইনাবত, লও বুঝে মুসলিম,

স্বয়ং ইহসান, বাটেন আবাদান, গড়েছেন মুকরিম।

উনারাই নিখুত, তাড়ান তাগুত শুরু হতে শেষ তক,

উনারাই জিয়ান, খোদায়ী বিধান কায়িনাতে বরহক্ব।

উনারা খোদায়ী খইরী খোশেই গুজরাতে হরদম,

করেন কামাল, বেমিছাল নূরে, ইছলাতে মরহম।

কেবল ইনফাক্ব ফী সাবীলিল্লাহ, উনারাই মিছদাক্ব,

বাকি সব উনাদের তাবেই পায় পাবে আখলাক্ব।

উনারাই কেবল হক্বের মিছাল আহলান সাহলান,

উনারাই ইসলাম, কুরআনী কালাম রাব্বানী রায়হান।

উনারাই বেহতর যুগ যুগান্তর দিকে দিকে ইসলাম,

করেন কায়িম হামিশা দায়িম বেকসুর আঞ্জাম।

ওরে ও মু’মিন মুসলমানেরা ইয়াক্বীন রাখ হে ছহী,

অধ্যবধি ও রহে সেই ধারা ব্যাত্বয় নেই কহি।

আজও পনের হিজরী শতকে রহে উহা জারি, কায়িনাতে বেশুমার,

এখনও তামাম তাগুতী, মজমার গতি, করছেন ছারখার।

হউক তাগুতি পাওয়ার, যতই সুপার, হচ্ছেই নিঃশ্বেস,

ওরে সমঝদার, হের বার বার, ছেড়ে শয়তানী সন্দেশ।

আজ জগতের জাদরেল যত তাগুতের পোষ্যরা,

পুরো মলহিম, খায় হিমশিম স্থির নেই থোরা।

বিলকুল সবে জালজালা দাহে, নূয়ে রহে বেমালুম,

বেদিশা বজ্রে রহে বয়কট, ধ্বংসিছে ধুমাধুম।

শুনুন যিনি যামানার আখাছছুল খাছ উলুল আলবাব,

আহলে বাইতি রসূল তিনি, আজমতি আসবাব।

তিনি নূরে নূরানী মধ্যমণি, সাইয়্যিদী আশরাফ,

তিনি আহলে বাইতি রওশনি জোশ নববী মুছান্নাফ।

শুনো মুসলমান, খুলে হে কুরআন ইরশাদে রহমান,

খুলে অপলক থেকোনা পৃথক, গড় হে ঐকতান।

তোমায় তাগুতবাদীরা করে হতচ্ছাড়া রেখেই দ্বন্দ্ব ক্ষোভে,

ওই ষড়যন্ত্রের তমিশ্র গুহায় তোমায় রাখছে নিভে।

কুটকৌশলে রাখতে বিকলে, খুব চাহে শয়তান,

তাইতো তাহার অনুগত দিয়ে গড়তেছে ব্যবধান।

ওই মুসলিম জাতি পাবে দূর্গতি দিবে না রেহাই আর,

ইবলীস দেয় দিক্ষা চেলারে সদা রেখে হুঁশিয়ার ।

ওই ক্বওমে মু’মিন রাখতে গুনিন হামেশা বিশ্ববুকে,

ওই ইসলামী দ্বীন, করতে ক্বায়িম, মুল্লুকে মুল্লুকে।

আনেন তাশরীফ শ্রেষ্ঠ শরীফ আহলে বাইতি বীর,

তিনিই ইমামুল উমাম রব্বি ইনাম মিটাচ্ছেন তাছউয়ীর।

ওরে দুনিয়ার মুসলমানেরা, তাকবীর দাও সবে,

খোশ আমদেদ খোদায়ী খলীফা, আসলেন এই ভবে।

আজকে উনার নির্দেশে লই বিজয়ের শমসীর,

করবো খতম সহজেই মোরা বাতিলের বদ ভীর।

ইহুদী নাছারা মুশরিকী চাল, বানচাল করে মোরা,

মুবারক সুন্নতি রাজ রাখবো বিরাজ দুর্বারে উর্বরা।

এই খিলাফতী যুগ আনবোই ফিরে আজকের দুনিয়ায়,

মোরা খলীফায়ে আসসাফফাহি নাজ পাচ্ছিগো সহসায়।

আজ মুসলিমী মহান ইমাম, তিনি  কল্যানী মূল,

তিনিই হলেন ইমামুল উমাম শাহানশাহ মকবুল।

স্বয়ং আহলে  বাইতি রসূল তিনিই মহামতি মেহমান,

দেখ, উনার রোবেই পড়ছে উবেই তাগুতেরা নির্বান।

ওহে বিশ্ব মুসলিম, লও শুনে লও সুসংবাদের ঝড়,

কাঁপছে মুসলমানের ইমাম হেরেই, তাগুতেরা থর থর।

ওই বিজয়ী সূর্য হচ্ছে উদয়, পূর্বাকাশের কোলে,

প্রতিটি মু’মিন বল হে আমীন, থেকোনারে টলমলে।

মুসলিম সদা স্বাধীন জাতি গোলামী করিনা কারো,

মুসলিম মোরা নির্ভিক জাতি লাড়াকুতে রহি জড়ো।

আমরা পেয়েছি খলীফা রাজ, কভু না করছি ভয়,

দুনিয়া আখিরে বিজয়ী বহরে, বহি মোরা অক্ষয়।

পনের শতকের হিজরী বিশ্বে, গযবী অস্ত্র দিয়ে,

মোরা নির্ভিগ্নেই  মারছি কাফির বেশুমার প্রত্যয়ে।

ওই খ¦ালিক মালিকী খাছ মদদ মুর্শিদী নজরানা,

পাই নূরে হাবীবী পায়রবি সাজে ফাতহির পরওয়ানা।

সেই ইমামী নির্দেশে প্রস্তুত, মোরা প্রতিটি মুসলমান,

ওই শুনরে বেকুব উলামায়ে সূ, নাস্তিক বেঈমান।

ইহুদী বৌদ্ধ হিন্দু নাছারা আর যত মুলহিম,

নিস্তানাবুদ করবো তোদেরে এক হয়ে মুসলিম।

-বিশ্বকবি মুহম্মদ মুফাজ্জলুর রহমান

হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মকবুলে মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ রহেন উজ্জ্বলে-১৬০

হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মকবুলে মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ রহেন উজ্জ্বলে-১৬১

হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহমিুস সালাম উনাদরে মকবুলে মাসকি আল বাইয়্যনিাত শরীফ রহনে উজ্জ্বলে-১৬২

হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মকবুলে মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ রহেন উজ্জ্বলে-১৬৩

হযরত আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মকবুলে মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ রহেন উজ্জ্বলে-১৬৫