আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

সংখ্যা: ২৫১তম সংখ্যা | বিভাগ: ,

আল বাইয়্যিনাত শরীফ প্রতিবেদন : যামানার খাছ লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুল আইম্মাহ, মুহইস সুন্নাহ, কুতুবুল আলম, আওলাদে রসূল, মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার সম্পর্কিত দু’প্রকার ইলম মুবারক অর্থাৎ পবিত্র ইলমে ফিক্বাহ ও পবিত্র ইলমে তাছাওউফ শিক্ষা করা ফরযে আইন। এ প্রসঙ্গে হযরত হাসান বছরী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বর্ণনা করেন, পবিত্র ইলম দু’প্রকার। একটি হচ্ছে ক্বলবী ইলম মুবারক অর্থাৎ পবিত্র ইলমে তাছাওউফ আর এটাই মূলত উপকারী ইলম। অপরটি হচ্ছে যবানী ইলম মুবারক অর্থাৎ পবিত্র ইলমে ফিক্বাহ, যা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার পক্ষ হতে বান্দা উনাদের জন্য দলীল।”

মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, অন্তর থেকে বদ খাছলত বা কুস্বভাবসমূহ বের করে নেক খাছলত বা সুস্বভাবসমূহ হাছিল করে “তাযকিয়ায়ে ক্বলব” বা অন্তর পরিশুদ্ধ করার জন্যও পবিত্র ইলমে তাছাওউফ অর্জন করা ফরয। যা পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমা ও পবিত্র ক্বিয়াস মুবারক দ্বারা অকাট্যভাবে প্রমাণিত। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, মহান আল্লাহ পাক উনার ইহসান যে, “মু’মিনদের প্রতি একজন রসূল প্রেরণ করেছেন, তাদের মধ্যে তাদের জন্যই, তিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার পবিত্র আয়াতসমূহ তিলাওয়াত করে শুনাবেন, তাদেরকে তাযকিয়া (পরিশুদ্ধ) করবেন এবং কিতাব ও হিকমত শিক্ষা দিবেন। যদিও তারা পূর্বে হিদায়েতপ্রাপ্ত ছিলনা।”

তাই প্রত্যেক আনজুমান আমীলগণের দায়িত্ব-কর্তব্য হলো, পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার সম্পর্কিত দু’প্রকার ইলম মুবারক অর্থাৎ পবিত্র ইলমে ফিক্বাহ ও পবিত্র ইলমে তাছাওউফ অর্জনের যথাসাধ্য কোশেষ করা। পাশাপাশি সব মুসলমানদের এ সর্ম্পকিত ফরয পরিমাণ ইলম অর্জনে উদ্ভুদ্ধ করা।

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত ও মাহফিল সংবাদ

আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত শরীফ ও মাহফিল সংবাদ