আমীরুল মু’মিনীন হযরত সাইয়্যিদ আহমদ শহীদ বেরলভী আলাইহিস সালাম তিনি নিঃসন্দেহে আল্লাহ পাক উনার খাছ ওলী

সংখ্যা: ২০৭তম সংখ্যা | বিভাগ:

উনার প্রতি অপবাদকারী জালিম গং নিঃসন্দেহে বাতিল, গুমরাহ, লানতপ্রাপ্ত, জাহান্নামী ও সুন্নী নামের কলঙ্ক রেজাখানীরা আয়নায় নিজেদের কুৎসিত চেহারা দেখে নিক ॥ ইসলামী শরীয়ার আলোকে একটি দলীলভিত্তিক পর্যালোচনা-১

 

মহান খালিক্ব মালিক রব আল্লাহ পাক তিনি কালাম পাক-এ ইরশাদ ফরমান- “সাবধান! যাঁরা আমার ওলী বা বন্ধু উনাদের কোন ভয় নেই, চিন্তা নেই, পেরেশানী নেই।” একটি মশহুর হাদীছে কুদসী শরীফ-এ রয়েছে- “ওলী আল্লাহ উনাদের বিরোধিতা যারা করে আল্লাহ পাক তিনি তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন।” বলাবাহুল্য আজকে এক শতাব্দীরও বেশি সময় ধরে আমাদের এই পাক-ভারত উপমহাদেশের কতিপয় মুসলমান নামধারী বিভ্রান্ত, লেখক ঐতিহাসিক বিশেষ করে বাঁশ বেরেলীর রেজা খাঁ নামক এক ফাসিক বিদয়াতী মৌলভী ও তার বদ আক্বীদাভুক্ত লোকেরা উপমহাদেশের সর্বশ্রেষ্ঠ মুজাহিদ, মুজাহিদে আ’যম, শহীদে আ’যম, আমিরুল মু’মিনীন হযরত সাইয়্যিদ আহমদ শহীদ বেরলভী আলাইহিস সালাম উনার শানে নানা প্রকার মিথ্যা অপবাদ আরোপ করে বই-পুস্তক, রেসালা লিখে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় রেজা খাঁর এদেশীয় অনুসারী চট্টগ্রামের রেজাখানী জামায়াত বলে পরিচিত বাতিল ফিরক্বার মুখপত্রে গত জুন ২০১১ ঈসায়ী সংখ্যায় এমন সব কথাবার্তা লেখা হয়েছে, যাতে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়, এদের উপর আল্লাহ পাক উনার খাছ লা’নত পতিত হয়েছে। কারণ আল্লাহ পাক উনার খাছ লা’নত বর্ষিত না হলে কারো পক্ষেই এত বেশি মিথ্যা অপবাদ ছল চাতুরীর আশ্রয় নেয়া সম্ভব নয়। বাতিলের আতঙ্ক, সারা বিশ্বের আহলে সুন্নত ওয়াল জামায়াতের একমাত্র দলীলভিত্তিক মুখপত্র মাসিক আল বাইয়্যিনাত শরীফ-এ ইতঃপূর্বে বহু সংখ্যায় এই বাতিল গুমরাহ ফিরক্বার আপত্তিকর আমল-আক্বীদার দাঁতভাঙ্গা জাওয়াব দেয়া হয়েছে। সে সময় এরা লা-জাওয়াব হয়ে একেবারে ইঁদুরের মতো গর্তে লুকিয়ে কোন প্রকারে ইজ্জত বাঁচিয়েছিল। এবার হঠাৎ করেই আবার তারা বিষয়টি আরও কুৎসিতভাবে তাদের মুখপত্রে এনেছে। কারণ অনুসন্ধানে জানা গেলো এ বৎসর বালাকোট দিবস উপলক্ষে রাজধানীতে আয়োজিত একটি সেমিনারে অন্যান্য অনেক বক্তার মধ্যে এমন একজন ব্যক্তি বয়ান করেন যিনি রেজাখানীদের হেড কোয়ার্টার জামিয়া আহমদিয়া সুন্নীয়া মাদরাসার একসময়কার প্রধান শায়খুল হাদীছ বলে পরিচিত। ব্যস! এটাই রেজাখানীদের জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে অর্থাৎ এ ঘটনায় তারা নিজেদের অস্তিত্ব পূর্ণরূপে বিলীন হবার উপক্রম বলে মনে করেছে। তাই ইবলিসের ন্যায় তারা সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে আমীরুল মু’মিনীন, মুস্তাজাবুত দা’ওয়াত, সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম শহীদ আহমদ বেরলভী আলাইহিস সালাম উনার শানে বিষোদগার করে নিজেদের তৃষ্ণা মিটাতে চেয়েছে। কিন্তু না তারা পারেনি বরং তাদের লেখাতেই প্রমাণিত হয়েছে তারা কত কুৎসিত, বদ, বেশরা বিদয়াতী মিথ্যাবাদী লা’নতপ্রাপ্ত জাহান্নামী। কালামুল্লাহ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে- “নিশ্চয় মিথ্যাবাদীরাই মুনাফিক আর মুনাফিকরাই মিথ্যাবাদী আর এদের জন্য রয়েছে চিরস্থায়ী জাহান্নাম।” আমরা ইনশাআল্লাহ এ কলামে এই বাতিল ফিরক্বার চরিত্র এবং এদের মিথ্যা কুফরীমূলক বক্তব্যের দাঁতভাঙ্গা জাওয়াব শুধুমাত্র ইতিহাসের আলোকেই নয় বরং পবিত্র কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা, ক্বিয়াসের আলোকে প্রমাণ করবো। কারণ ইসলামী শরীয়া তথা মুসলমানদের দলীলই হলো পবিত্র কুরআন শরীফ, হাদীছ শরীফ, ইজমা এবং ক্বিয়াস। এগুলোর আলোকে অর্থাৎ ইসলামী শরীয়ার আলোকেই কোন ব্যক্তি বা জামায়াতের আমল আখলাক চরিত্র মূল্যায়িত হবে শুধুমাত্র ইতিহাসের আলোকে নয়। (চলবে)

-মুহম্মদ সালামাতুল্লাহ ইসলামাবাদী।

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)