আস্ সা‘য়ীদ, সা’দুল্লাহ, সা’দুল খলায়িক্ব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করে খরচ করার আহকাম ও ফযীলত

সংখ্যা: ২২১তম সংখ্যা | বিভাগ:

প্রত্যেক ঈমানদার বান্দা ও উম্মতের দায়িত্ব-কর্তব্য হলো- খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক সুবহানাহূ ওয়া তায়ালা এবং উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে সন্তুষ্ট ও মুহব্বত করা। এ প্রসঙ্গে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

والله ورسوله احق ان يرضوه ان كانوا مؤمنين

অর্থ : “যদি তারা মু’মিন হয়ে থাকে, তাহলে তারা যেন খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে সন্তুষ্ট করে। কেননা উনারাই সন্তুষ্টি পাওয়ার সমধিক হক্বদার।” (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৬২)

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,

احبونى لـحب الله

অর্থ : “তোমরা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার মুহব্বত হাছিল করার জন্য আমাকে মুহব্বত কর।” (পবিত্র তিরমিযী শরীফ, পবিত্র মিশকাত শরীফ)

উল্লেখিত পবিত্র আয়াত শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে যে, প্রত্যেক মু’মিন মুসলমানের জন্য খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনাকে ও উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে সন্তুষ্ট ও মুহব্বত করা ফরযে আইন। আরও প্রমাণিত হয়েছে যে, খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত করতে হলে ও সন্তুষ্ট করতে হলে প্রথমে উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সন্তুষ্ট করতে ও মুহব্বত করতে হবে। অর্থাৎ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুহব্বত ও সন্তুষ্টি ব্যতীত খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার মুহব্বত ও সন্তুষ্টি হাছিল করা সম্ভব হবে না।

উল্লেখ্য, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে কিরূপ মুহব্বত করতে হবে সে প্রসঙ্গে তিনি নিজেই ইরশাদ মুবারক করেন-

لا يؤمن احدكم حتى اكون احب اليه من والده وولده والناس اجمعين وفى رواية من ماله ونفسه.

অর্থ : “তোমাদের কেউ ততক্ষণ পর্যন্ত মু’মিন হতে পারবে না যতক্ষণ পর্যন্ত সে তার পিতা-মাতা, সন্তান-সন্ততি এবং সমস্ত মানুষ অপেক্ষা আমাকে বেশি মুহব্বত না করবে।” অপর এক বর্ণনায় রয়েছে, “তার নিজের মাল ও জান অপেক্ষা বেশি মুহব্বত না করবে।” (পবিত্র বুখারী শরীফ, পবিত্র মুসলিম শরীফ, পবিত্র মিশকাত শরীফ)

এ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার বাস্তব প্রতিফলন আমরা দেখতে পাই হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের মধ্যে। উনারা উনাদের সবকিছু থেকে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে বেশী মুহব্বত করেছেন। উনার খিদমতে উনারা উনাদের সর্বস্ব কুরবানী করে দিয়েছেন, একদিকে মাল আরেকদিকে জীবন উৎসর্গ করতে উনারা কোনরূপ দ্বিধা করেননি।

পবিত্র তিরমিযী শরীফ, পবিত্র আবু দাউদ শরীফ, পবিত্র মিশকাত শরীফ ইত্যাদি পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের কিতাবে বর্ণিত রয়েছে, হযরত উমর ফারূক আলাইহিস সালাম তিনি বর্ণনা করেন, একবার নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমাদেরকে খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার রাস্তায় হাদিয়া করার জন্য নির্দেশ করলেন। সৌভাগ্যবশত সে সময় আমার কাছে পর্যাপ্ত সম্পদ ছিল। আমি (মনে মনে) বললাম, দানের প্রতিযোগিতায় যদি কখনও হযরত আবু বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম উনার উপর জয়ী হতে পারি তাহলে আজকের দিনেই জয়ী হবো। তাই আমি আমার সমস্ত সম্পদের অর্ধেক নিয়ে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খিদমতে উপস্থিত হলাম। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি জিজ্ঞেস করলেন, আপনি আপনার পরিবার-পরিজনের জন্য কি পরিমাণ রেখে এসেছেন? আমি বললাম : ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমি আমার পরিবার-পরিজনের জন্য এর সমপরিমাণ রেখে এসেছি। অর্থাৎ যে পরিমাণ নিয়ে এসেছি সে পরিমাণ ঘরে রেখে এসেছি। অতঃপর হযরত আবু বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম তিনি উনার সমুদয় সম্পদ নিয়ে উপস্থিত হলে নূরে মুজসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনাকে বললেন, পরিবার-পরিজনের জন্য আপনি কি রেখে এসেছেন? জাওয়াবে হযরত আবু বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম তিনি বললেন : ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আমি আমার পরিবার-পরিজনের জন্য খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মুহব্বতটুকু রেখে এসেছি। সুবহানাল্লাহ!

অনুরূপভাবে সমস্ত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা উনাদের সর্বোচ্চ তাওফীক অনুযায়ী জিহাদ কিংবা অন্যান্য নেক কাজে হাদিয়া করেছেন।

পবিত্র মুসনাদে আহমদ শরীফ, পবিত্র মিশকাত শরীফ, পবিত্র মাছাবীহুস সুন্নাহ শরীফ ইত্যাদি পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের কিতাবে বর্ণিত রয়েছে- হযরত আব্দুর রহমান ইবনে সামুরা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যখন তাবুক জিহাদের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তখন হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি স্বীয় জামার আস্তিন ভর্তি করে এক হাজার দীনার (স্বর্ণমুদ্রা) নিয়ে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট আসলেন এবং দীনারগুলো নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার কোল মুবারক উনার মধ্যে ঢেলে দিলেন। হযরত আব্দুর রহমান ইবনে সামুরা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বলেন : আমি দেখলাম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মুদ্রাগুলি উলট-পালট করছেন এবং বলছেন, আজকের পর থেকে হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনাকে কোন ক্ষতি করবে না- তিনি যে আমলই করেন না কেন। সুবহানাল্লাহ!

হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার হাদিয়ার বিষয়ে আরও বর্ণিত রয়েছে, খলীফাতু রসূলিল্লাহ হযরত আবু বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম উনার খিলাফতকালে একবার মদীনা শরীফ উনার মধ্যে দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়। তখন বাইতুল মালেও কোন খাদ্য ছিল না। ঠিক সেই মুহূর্তে হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার একটি বাণিজ্য কাফেলা এক হাজার উট বোঝাই করা খাদ্য নিয়ে সিরিয়া থেকে মদীনা শরীফ উপস্থিত হলো। ব্যবসায়ী লোকজন উনার নিকট আসতে লাগলো খাদ্য কিনে নেয়ার জন্য। কেউ স্বাভাবিক দামে, কেউ দ্বিগুণ, তিনগুণ, চারগুণ দামেও খাদ্য কিনতে প্রস্তুত। তবুও তিনি উনাদের কারো নিকট খাদ্য বিক্রি করতে রাজি হলেন না। তিনি উনার সমস্ত খাদ্যদ্রব্য খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের সন্তুষ্টির জন্য বাইতুল মালে হাদিয়া করে দিলেন। সুবহানাল্লাহ! অতঃপর হযরত খলীফা আলাইহিমুস সালাম উনার তরফ থেকে সমস্ত খাদ্যদ্রব্য মদীনা শরীফ উনার অধিবাসীদের মাঝে বণ্টন করে দেয়া হয়। এতে দুর্ভিক্ষ দূর হয়ে যায়। সুবহানাল্লাহ!

হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি যেদিন এই হাদিয়া করলেন; সেই রাতে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি স্বপ্নে দেখতে পেলেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সবুজ রঙের খুব দামি পোশাক পরিধান করতঃ বোরাকে চড়ে কোথাও যাচ্ছেন। তা দেখে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি কোথায় যাচ্ছেন? তিনি বললেন, তুমি কি জানো না আজকে হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি মদীনা শরীফ উনার অধিবাসীগণ উনাদেরকে যে একহাজার উট বোঝাই খাদ্য হাদিয়া করেছেন যার কারণে মদীনা শরীফ উনার দুর্ভিক্ষ দূর হয়ে গেছে; তাই উনার হাদিয়ায় সন্তুষ্ট হয়ে স্বয়ং খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি আজকে বেহেশতে মেহমানদারীর ব্যবস্থা করেছেন। আমি সেই মেহমানদারীতে শরীক হওয়ার জন্য যাচ্ছি। সুবহানাল্লাহ!

স্মরণীয় যে, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের উক্ত হাদিয়াসমূহ ছিল পবিত্র দ্বীন ইসলাম বা উম্মত উনাদের কল্যাণ সাধনে। এখন উম্মত উনাদের উদ্দেশ্যে ব্যয় করলে যদি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ও উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা এত খুশি হয়ে থাকেন তাহলে মহান আল্লাহ পাক উনার যিনি হাবীব নূরে মুজাসসাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার জন্য, উনার মীলাদ শরীফ বা বিলাদত শরীফ উপলক্ষে ব্যয় করলে উনারা কত বেশি খুশি হবেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

যেমন- এ প্রসঙ্গে পবিত্র বুখারী শরীফ, পবিত্র মিশকাত শরীফ, পবিত্র মাছাহাবীহুস সুন্নাহ ইত্যাদি পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের কিতাবে বর্ণিত রয়েছে, হযরত আবু সায়ীদ খুদরী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

¬¬¬لاتسبوا اصحابى فلو ان احدكم انفق مثل احد ذهبا ما بلغ مد احدهم ولا نصيفه

অর্থ : “আমার ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদেরকে তোমরা গাল-মন্দ, সমালোচনা বা দোষারোপ কর না। তোমাদের কেউ যদি উহুদ পাহাড় পরিমাণ স্বর্ণ খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার রাস্তায় দান কর, তবুও হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা আমার খিদমতে এক মুদ (১৪ ছটাক) বা অর্ধ মুদ (৭ ছটাক) গম হাদিয়া করে যে ফযীলত অর্জন করেছেন তার সমপরিমাণ ফযীলত তোমরা অর্জন করতে পারবে না।”

প্রতিভাত হলো যে, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার  মুবারক খিদমত হাদিয়া বা ব্যয় করার ফযীলত যে কত বেশি তা কেবল খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ও উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারাই সম্যক অবগত আছেন।

কাজেই, হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানার্থে উনার জন্য হাদিয়া করে যে বেমেছাল ফযীলত হাছিল করেছেন পরবর্তী উম্মত যদি সেই বরকতময় ফযীলত উনার অনুরূপ ফযীলত হাছিল করতে চায় তাহলে তাদের দায়িত্ব-কর্তব্য হলো- নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করে সর্বোচ্চ তাওফীক্ব বা সাধ্য সামর্থ্য অনুযায়ী ব্যয় করা।

              -আল্লামা মুফতী আহমদ মুসতফা

খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক স্বয়ং নিজেই সর্বপ্রথম ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে ঈদ উদযাপন করেন

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, সাইয়্যিদুল কাওনাইন, সাইয়্যিদুল ফারীক্বাইন হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম স্বয়ং নিজেই নিজের বিলাদত শরীফ পালন করে খুশি প্রকাশ করেন

হযরত খুলাফায়ে রাশিদীন আলাইহিমুস সালাম উনারা উনাদের খিলাফতকালে নাবিইয়ুর রহমাহ, নাজিইয়ুল্লাহ, নূরুম মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিলাদত শরীফ উপলক্ষে খুশি প্রকাশ করেছেন এবং এ উপলক্ষে ব্যয় করার ফযীলতও বর্ণনা করেছেন

হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা উৎসাহ-উদ্দীপনার সাথে সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ, সাইয়্যিদুল ঈদিল আ’যম, সাইয়্যিদুল ঈদিল আকবার ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপলক্ষে ঈদ উদযাপন করেছেন

বান্দা-বান্দী ও উম্মতের জন্য সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ, সাইয়্যিদুল ঈদিল আ’যম, সাইয়্যিদুল ঈদিল আকবার ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন করা ফরয হওয়ার প্রমাণ