আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র তাজদীদ মুবারক- ‘নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুসরণে আরবী ভাষায় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বাইয়াত মুবারক করানো’

সংখ্যা: ২৭৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

قُلْ اِنْ كُنْتُمْ تُـحِبُّوْنَ اللهَ فَاتَّبِعُوْنِـىْ يُـحْبِبْكُمُ اللهُ وَيَغْفِرْ لَكُمْ ذُنُوْبَكُمْ وَاللهُ غَفُوْرٌ رَّحِيْمٌ.

অর্থ: “(আমার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আপনি বলে দিন, যদি তোমরা মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত মুবারক করে থাক, তাহলে আমার ইত্তিবা’ তথা অনুসরণ-অনুকরণ কর। তাহলে মহান আল্লাহ পাক তিনি তোমাদের গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দিবেন। আর মহান আল্লাহ পাক তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল, অসীম দয়ালু।” সুবহানাল্লাহ! (সম্মানিত ও পবিত্র সূরা আলে ‘ইমরান শরীফ : সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ ৩১)

এ সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ উনার ব্যাখ্যায় বলা হয় যে, যিনি যত বেশি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ইতায়াত তথা অনুসরণ-অনুকরণ করেন, তিনি তত বেশি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং মহান আল্লাহ পাক উনার অর্থাৎ উনাদের হাক্বীক্বী মা’রিফাত-মুহব্বত, নৈকট্য-কুরবত, রেযামন্দি-সন্তুষ্টি মুবারক হাছিল করে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عَنْ حَضَرَتْ اَنَسٍ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مَنْ اَحْيَا سُنَّتِـىْ فَقَدْ اَحَبَّنِـىْ وَمَنْ اَحَبَّنِـىْ كَانَ مَعِـىَ فِـى الْـجَنَّةِ.

অর্থ: “হযরত আনাস বিন মালিক রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যে ব্যক্তি আমার একখানা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সুন্নত মুবারক জিন্দা করলেন, তিনি মূলত আমাকেই মুহব্বত করলেন। আর যে ব্যক্তি আমাকে মুহব্বত করলেন, তিনি সম্মানিত জান্নাত মুবারক উনার মধ্যে আমার সাথেই অবস্থান করবেন।” সুবহানাল্লাহ! (আল ই’তিছাম ১/৩৫, ই’তিক্বাদু আহলিস সুন্নাহ ১/৫৩, আল মু’জামুল আওসাত্ব লিত ত্ববারানী ৯/১৬৮, আল ইবানাতুল কুবরা ১/২১০, আল জামি‘উছ ছগীর ২/৩০৬, আল ফাতহুল কাবীর ৩/১৪৩, জামি‘উল আহাদীছ ৪১/৩৮৭ ইত্যাদি)

এই সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের পরিপূর্ণ মিছদাক্ব হচ্ছেন আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অর্থাৎ উনাদের সাথে মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দায়িমীভাবে এমন মহাসম্মানিত নিসবত মুবারক রয়েছেন, যেখানে কারো কোনো স্থান সংকুলান হয় না। সুবহানাল্লাহ! তিনি শুধু যিনি খলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি নন এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নন; এছাড়া সমস্ত শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক উনাদের অধিকারী। সুবহানাল্লাহ!

আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অসংখ্য-অগণিত মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সুন্নত মুবারক জিন্দা মুবারক করেছেন, জারী করেছেন এবং করে যাচ্ছেন। সুবহানাল্লাহ! সেই ধারাবাহিকতায় উনার একখানা বেমেছাল মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র তাজদীদ মুবারক হচ্ছেন নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুসরণে আরবী ভাষায় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বায়াত মুবারক করানো। সুবহানাল্লাহ! আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহ্হির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুসরণে ১৪৪১ হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র ছফর শরীফ মাস উনার সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আ’দাদ শরীফ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই শরীফ) মুতাবিক ১৩ই খমিস ১৩৮৭ শামসী ইয়াওমুস সাব্ত শরীফ থেকে বাংলা ভাষার পরিবর্তে আরবী ভাষায় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বায়াত মুবারক করানো শুরু করে এক বেমেছাল মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র তাজদীদী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! নিম্নে উক্ত মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বাইয়াত মুবারক উনার আরবী ইবারত মুবারক ও বাংলা উচ্চারণ উল্লেখ করা হলো-

بِسْمِ اللهِ الرَّحْـمٰنِ الرَّحِـيْمْ اَللّٰهُمَّ اِنِّـىْ اَتُوْبُ اِلَيْهِ مِنْ كُلِّ ذَنْبٍ اَلْـكَبَائِرْ وَالصَّغَائِرْ وَالْـكُفْرْ وَالشِّرْكْ وَالْبِدْعَةْ وَالظَّاهِرِىْ وَالْـبَاطِنِـىْ وَالْاِخْتِيَارِىْ وَبِغَيْـرِ الْاِخْتِيَارِىْ اَسْتَغْفِرُ اللهَ رَبِّ مِنْ كُلِّ ذَنْبٍ وَّاَتُوْبُ اِلَيْهِ وَلَا حَوْلَ وَلَا قُوَّةَ اِلَّا بِاللهِ الْـعَلِىِّ الْـعَظِيْـمْ لَآ اِلٰهَ اِلَّا اللهُ مُـحَمَّدٌ رَّسُوْلُ اللهْ اَشْهَدُ اَنْ لَّآ اِلٰهَ اِلَّا اللهُ وَاَشْهَدُ اَنَّ مُـحَمَّدًا عَبْدُهٗ وَرَسُوْلُهْ اَللّٰهُمَّ اِنِّـىْ اُبَايِـــعُ عَلـٰى يَدِ سَيِّدِنَا مَـمْدُوْحْ حَضْرَتْ مُرْشِدْ قِبْلَةْ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ (مُـحَمَّدْ دِلُّ الرَّحْـمٰنْ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ) اَلَّذِىْ هُوَ مُسْتَفِيْضٌ فِـىْ كُلِّ طَرِيْقَاتٍ اَلْقَادِرِيَّةْ وَالْچِشْتِـيَّةْ وَالنَّقْشَبَـنْدِيَّةْ وَالْـمُـجَدِّدِ الْعَالِيَةْ وَالْـمُحَـمَّدِيَّةْ.

বাংলা উচ্চারণ: “বিসমিল্লাহির রহমানির রহীম। আল্লাহুম্মা ইন্নী আতূবু ইলাইহি মিন কুল্লি যাম্বেন আল কাবাইর ওয়াছ ছগ¦াইর ওয়াল কুফ্র ওয়াশ্ র্শিক ওয়াল বিদ্য়াত্ ওয়ায্ যাহিরী ওয়াল বাত্বিনী ওয়াল ইখতিয়ারী বিগ¦ইরিল ইখতিয়ারী আস্তাগফিরুল্লাহা রব্বী মিন কুল্লি যাম্বেও ওয়া আতূবু ইলাইহি ওয়ালা হাওলা ওয়ালা ক্বুওওয়াতা ইল্লা বিল্লাহিল ‘আলিয়্যিল ‘আযীম লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহম্মদুর রসূলুল্লাহ আশহাদু আল্লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আশহাদু আন্না মুহম্মদান ‘আব্দুহূ ওয়া রসূলুহ্ আল্লাহুম্মা ইন্নী উবায়ি‘উ ‘আলা ইয়াদি সাইয়্যিদিনা মামদূহ হযরত মুরশিদ ক্বিবলা ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম (মুহম্মদ দিল্লুর রহমান ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) আল্লাযী হুওয়া মুস্তাফীদ্বুন ফী কুল্লি ত্বরীক্বাতে আল ক্বাদিরিয়্যাহ ওয়াল চিশতিয়্যাহ ওয়ান নাক্বশাবান্দিয়্যাহ ওয়াল মুজাদ্দিদিল ‘আলিয়াহ্ ওয়াল মুহম্মদিয়্যাহ্।”

-মুহাদ্দিছ মুহম্মদ ছাদিক্ব ইবনে ছিদ্দীক্ব।

পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীছ শরীফ, পবিত্র ইজমাউল উম্মাহ শরীফ ও পবিত্র ছহীহ ক্বিয়াস শরীফ উনাদের দৃষ্টিতে সম্মানিত ইসলামী মাস ও বিশেষ বিশেষ রাত, দিন, সময় ও মুহূর্তের আমলসমূহের গুরুত্ব, ফযীলত এবং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের দিবসসমূহ পালন করা হারাম ও তার সংশ্লিষ্ট বিষয় সম্পর্কে ফতওয়া ১৯তম পর্ব

সাইয়্যিদুল আম্বিয়া ওয়াল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি শাহরুল আ’যম মহাপবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফ উনার মহা পবিত্র ১২ই শরীফে পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। এমতটিই সবেচেয়ে মাশহূর, ছহীহ ও দলীলভিত্তিক

মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সম্মানিত পরিচিতি মুবারক

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদেরকে, হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদেরকে এবং হযরত আবনাউ রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ও হযরত বানাতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে সম্মানিত লক্বব মুবারক দ্বারা সম্বোধন করার ব্যাপারে মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ আলাইহিছ ছলাত ওয়াস সালাম উনার এক অনন্য বেমেছাল মহাসম্মানিত তাজদীদ মুবারক

হামিলু লিওয়ায়িল হামদ, আকরমুল আউওয়ালীন ওয়াল আখিরীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নাম মুবারক সম্বলিত পবিত্র কালিমা শরীফ যা পবিত্র বিশুদ্ধ হাদীছ শরীফ দ্বারাই প্রমানিত