উম্মতের প্রতি পরম করুণাময়, অতিশয় দয়ালু, রহমাতুল্লিল আলামীন, রউফুর রহিম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি কাফিরদের পরিকল্পিত ধারাবাহিক মানহানীকর ঘটনায় মুসলিম বিশ্ব নীরব কেন? উম্মতের প্রতি রহমাতুল্লিল আলামীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল রহমত সম্পর্কে কেন মুসলিম বিশ্ব নিরেট অজ্ঞ? এবং হক্ব আদায়ে নিষ্ক্রিয়?

সংখ্যা: ২৪১তম সংখ্যা | বিভাগ:

উম্মতের প্রতি পরম করুণাময়, অতিশয় দয়ালু, রহমাতুল্লিল আলামীন, রউফুর রহিম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি কাফিরদের পরিকল্পিত ধারাবাহিক মানহানীকর ঘটনায় মুসলিম বিশ্ব নীরব কেন? উম্মতের প্রতি রহমাতুল্লিল আলামীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল রহমত সম্পর্কে কেন মুসলিম বিশ্ব নিরেট অজ্ঞ? এবং হক্ব আদায়ে নিষ্ক্রিয়?


২০০৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে, ২০১১ সালের নভেম্বরে এবং ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে একটি কুখ্যাত ফরাসী পত্রিকাটি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক চিত্র প্রকাশ করে। (নাঊযুবিল্লাহ!)

এরপর গত ১৩ জানুয়ারি-২০১৫ ইয়াওমুল আরবিয়া বা বুধবার নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অবমাননাকর কার্টুন ছাপে। (নাউযুবিল্লাহ!)

এছাড়া ডেনমার্ক, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়াসহ আরো কয়েকটি দেশের কুখ্যাত পত্রিকাগুলো ক্ষমার অযোগ্য এ কুকাজ করে। এসব ঘটনা কি প্রমাণ করে?

লেখাবাহুল্য, পৃথিবীর ৩৫০ কোটি মুসলমান এক্ষেত্রে যথাযথ প্রতিবাদ করছে না বলে কাফির মুশরিকরা এরকম জঘন্য কাজ একের পর এক করতে পারছে। নাঊযুবিল্লাহ!

কিন্তু মুসলমান কেন মুসলমান? এক আল্লাহ পাক উনাকে অনেকেই বিশ্বাস করে। কিন্তু নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে বিশ্বাস করে না, তা’যীম-তাকরীম করে না বলেই তারা কাফির। নাঊযুবিল্লাহ!

তবে কী মুসলমানও এখন কাফিরের তবকায় যেতে চায়? নাঊযুবিল্লাহ! তাহলে মুসলমান কাফিরদের ব্যঙ্গ বিদ্রুপের যথাযথ প্রতিবাদ করছেনা কেন? মুসলমান যদি পিতা-মাতা, শিক্ষক, আত্মীয়-স্বজন তথা সাধারণ মানুষের মুহব্বত, মমতার হক্ক আদায়ে নিবেদিত হতে পারে; তবে যিনি সব সৃষ্টির মূল। যিনি কুল কায়িনাতের রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিইয়ীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল হক্ব আদায়ে মুসলমানদের মাঝে কোনো চেতনা নেই কেন?

মুসলমানের প্রতি রউফুর রহীম, রহমাতুল্লীল আলামীন, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রহমত যে বর্ণনাতীত। মুসলমান সে সম্পর্কে ফিকির করে না কেন?

মহিমান্বিত কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে কী স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক তিনি স্পষ্টভাবে ইরশাদ মুবারক করেননি? তারপরে মুসলমান পবিত্র কুরআন শরীফ পড়ে না কেন?

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন “আর আমি আপনাকে (নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে) সমস্ত আলম বা সমস্ত সৃষ্টির জন্য রহমতস্বরূপ প্রেরণ করেছি।” (পবিত্র সূরা আম্বিয়া শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১০৭)

“নিশ্চয়ই আপনাকে প্রেরণ করেছি সাক্ষ্যদানকারী, সুসংবাদদানকারী এবং সতর্ককারী হিসেবে।” (পবিত্র সূরা ফাতহ শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৮)

“হে মানুষেরা! অবশ্যই তোমাদের রব তায়ালা উনার তরফ থেকে তোমাদের নিকট এসেছেন (নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যিনি হচ্ছেন) মহানতম নছীহতকারী, অন্তরের আরোগ্য দানকারী, হিদায়েত দানকারী এবং (খাছভাবে) মু’মিনদের জন্য (এবং আমভাবে সমস্ত কায়িনাতের জন্য) রহমত দানকারী।” (পবিত্র সূরা ইউনুস শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৫৭)

“অবশ্যই তোমাদের কাছে একজন রসূল অর্থাৎ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি তিনি এসেছেন, তোমাদের দুঃখ-কষ্ট উনার কাছে বেদনাদায়ক, তিনি হচ্ছেন তোমাদের অতিশয় হিতাকাঙ্খী এবং মু’মিনদের জন্য বড়ই স্নেহশীল, করুনা পরায়ণ।” (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১২৮)

আর পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে স্বয়ং নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, হযরত আবূ মুসা আশআরী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, “নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমাদের কাছে উনার নাম মুবারকসমূহ বর্ণনা করতেন। তখন তিনি বলেন, আমি মুহম্মদ (পরম প্রশংসিত) আহমদ (অতিশয় প্রশংসাকারী) হযরত নবী- রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের সকলের শেষে আগমনকারী, হাশির (সমবেতকারী) এবং আমি নবীয়ে তওবা ও নবীয়ে রহমত।” (মুসলিম শরীফ)

হযরত আবু হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত, “নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, নিশ্চয়ই আমি মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে প্রেরিত রহমত।” (দারিমী, বায়হাকী, মিশকাত)

মূলত উম্মতের প্রতি রউফুর রহীম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এতো মুহব্বত, রহমত থাকার পরও, মুসলমানগণ উনার প্রতি কী হক্ব আদায় করছে?

পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে মহান আল্লাহ পাক তিনি স্পষ্টতঃ ইরশাদ মুবারক করেন, নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা সন্তুষ্টি পাওয়ার অধিক হক্বদার।

অথচ মুসলমান নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সন্তুষ্টি হাসিল করার প্রতি বেখবর। মূলত, সাইয়্যিদে ঈদে আ’যম, সাইয়্যিদে ঈদে আকবর পবিত্র ঈদে মীলাদুন নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালনে গাফলতি ও ও ব্যর্থতাই মুসলমানদের এ অবনতির মূল কারণ।

বলার অপেক্ষা রাখে না, বিশ্বের সাড়ে তিনশ কোটি মুসলমানকেই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ব্যঙ্গচিত্রের বিরুদ্ধে যথাযথ ঈমানী জজবায় ঝঁপিয়ে পড়তে হবে। এবং সে লক্ষ্যে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনন্তকালব্যাপী পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ পালন করতে হবে। সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহিমান্বিত জীবনী মুবারক আলোচনা ও অনুসরণ করতে হবে। কাফির-মুশরিকদের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সচেতনতা সম্বলিত সম্মানিত হাদীছ শরীফ এবং উনার শিক্ষা সর্বত্র ছড়িয়ে দিতে হবে।


-আল্লামা মুহম্মদ আরিফুর রহমান

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)