‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’ সম্পর্কিত ‘দৈনিক যুগান্তর’ পত্রিকার মন্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিস্ময় প্রকাশ গোয়েন্দা শীর্ষ কর্মকর্তারাও অবহিত নয় খোদ যুগান্তর সম্পাদকের দুঃখ প্রকাশ

সংখ্যা: ১৯১তম সংখ্যা | বিভাগ:

গত ২৪শে অক্টোবর/০৯ তারিখে ‘দৈনিক যুগান্তর’ পত্রিকার প্রথম লিড নিউজের আরো ৭টি জঙ্গি সংগঠন নিষিদ্ধ হচ্ছে উল্লেখ করে তার মধ্যে ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’-এর নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’- ‘আল বাইয়্যিনাত’ বা ‘আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’-এর অঙ্গ সংগঠন নয়। বরং ‘আল বাইয়্যিনাত’ একটি সরকারি রেজিস্টার্ড পত্রিকা। আর আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত সে পত্রিকার মূল পাঠক ফোরাম ও মজলিস। পাশাপাশি ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’- মূল ‘আল বাইয়্যিনাত’ বা ‘আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’ নয়। বরং একটি অংশগত সহযোগী মজলিস মাত্র।

কোন এলাকার হকার্স লীগ কোন ঘটনা ঘটালে তা যেমন গোটা হকার্স লীগ অথবা আওয়ামী লীগের উপর দায়-দায়িত্ব বর্তায় না, তেমনি ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’-এর কোন অংশ গোটা ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’কে প্রতিনিধিত্ব করে না। এবং ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’ গোটা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত-এর প্রতিনিধিত্ব করে না বা প্রকাশ করে না।

অপরদিকে আরো ৭টি নিষিদ্ধ সংগঠনের তালিকায় ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’-এর নাম দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় প্রকাশের প্রেক্ষিতে ‘মাসিক আল বাইয়্যিনাত’ ও ‘দৈনিক আল ইহসান’-এর সম্পাদক এবং ‘আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’-এর কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক মুহম্মদ মাহবুব আলম সাহেব একই দিনে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয়ের সাথে ডিজিটাল সময় রাত ৯.৩০ মিনিটে আলাপ করলে তিনি জানান, “এ ধরনের কোন কথা তার জানা নেই।” অপরদিকে জঙ্গিবাদ, মৌলবাদ ও ধর্মব্যবসায়ী বিরোধী আল বাইয়্যিনাত-এর বিশেষ অবদানের কথা তিনি ভালোভাবে জানেন।

এছাড়াও ‘দৈনিক আল ইহসান’ ও ‘মাসিক আল বাইয়্যিনাত’-এর মাননীয় সম্পাদক মুহম্মদ মাহবুব আলম সাহেব গোয়েন্দা সংস্থা এসবি-এর এসএস (পলিটিক্যাল) ও ডিজি-এনএসআই-এর সাথেও যোগাযোগ করে জানাতে পারেন যে, “উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত-এর নাম নিষিদ্ধের তালিকায় আদৌ নেই।”

উল্লেখ্য, জামাত-জোটের গোয়েন্দা রিপোর্ট দ্বারা প্রভাবিত ও প্রলুব্ধ হয়ে স্বার্থবাদী দু-একজন সাংবাদিক প্রায়ই ‘প্রথম আলো’ ও ‘যুগান্তরে’ ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’-এর নাম দুরভিসন্ধিমূলক ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ছাপে।

এ ব্যাপারে ‘দৈনিক যুগান্তরের’ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সালমা ইসলামের সাথে ফোনে কথা বললে তিনি

তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন যে, তিনি নিজেও আল বাইয়্যিনাত

মহিলা মাদ্রাসায় গিয়েছেন। সেখানে আল বাইয়্যিনাত-এর জঙ্গিবাদ,  মৌলবাদ বিরোধী ও খাছ সূফীভিত্তিক কার্যক্রম দেখে তার খুবই ভাল লেগেছে। তিনি সংশ্লিষ্ট রিপোর্টারের দায়িত্বহীন মন্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন এবং এর জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নিবেন বলেও জানান।

উল্লেখ্য, ‘উলামা আঞ্জুমানে আল বাইয়্যিনাত’-এর নামে যে মিথ্যা অপবাদ দেয়া হয়েছে তার বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পিটিশন দেয়া হয়েছে। যা এখন তদন্তাধীন। এবং দু-একটি গোয়েন্দা সংস্থা তাদের তদন্ত রিপোর্টে ইতোমধ্যে পজিটিভ রিপোর্টও দিয়েছে। এবং অন্যান্য সংস্থাগুলোর পজিটিভ রিপোর্ট দেয়া শেষ হলেই মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয় আনুষ্ঠানিকভাবে আল বাইয়্যিনাত-এর পক্ষে ঘোষণা দিবেন বলে গতকাল জানিয়েছেন। (সূত্র: দৈনিক আল ইহসান- ২৫ অক্টোবর/২০০৯)

মুহম্মদ তা’রিফুর রহমান

মাননীয় প্রধান উপদেষ্টার নিকট খোলা চিঠি দেশটা কী মুসলমানের, না ঐ নিকৃষ্ট সংস্কৃতিবাদীদের? দেশে কী ১৫ কোটি মুসলমান প্রাধান্য পাবে, না মাত্র লাখেরও কম সংস্কৃতিকর্মী প্রতিষ্ঠা পাবে? সংস্কৃতিকর্মীর প্রচারণা দ্বারা কি রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের এদেশে ‘ইসলাম’ ও ‘মুসলমান’ তুলে দেয়া হবে?  মিটিয়ে ফেলা হবে? মুছে ফেলা হবে? বিধর্মীদের সাথে একাকার করে দেয়া হবে? তাহলে ‘মরলে শহীদ বাঁচলে গাজী’ চিরন্তন সে ঐতিহ্য কোথায় যাবে?

যুগের আবূ জাহিল, মুনাফিক ও দাজ্জালে কায্যাবদের বিরোধিতাই প্রমাণ করে যে, রাজারবাগ শরীফ-এর হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা মুদ্দা জিল্লুহুল আলী হক্ব। খারিজীপন্থী ওহাবীদের মিথ্যা অপপ্রচারের দাঁতভাঙ্গা জবাব-৫৭

চাঁদ দেখা ও নতুন চন্দ্রতারিখ নিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনা-২৫

ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদ প্রচারের নেপথ্যে-৭

বাতিল ফিরক্বা ওহাবীদের অখ্যাত মুখপত্র আল কাওসারের মিথ্যাচারিতার জবাব-১৮ হাদীছ জালিয়াতী, ইবারত কারচুপি ও কিতাব নকল করা ওহাবীদেরই জন্মগত বদ অভ্যাস ওহাবী ফিরক্বাসহ সবগুলো বাতিল ফিরক্বাহ ইহুদী-নাছারাদের আবিষ্কার! তাদের এক নম্বর দালাল