এই মাস পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস ॥ অতএব, অতিসত্বর হারাম খেলাধুলা বন্ধ করা হউক। আশ্চর্যের বিষয়- পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাসে হারাম খেলাধুলা করা হচ্ছে! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! পবিত্র রমাদ্বান মাসে এক মুশরিক ভারতকে নিয়ে আসার পর ফের আরেক কাফির দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিয়ে আসছে ক্রিকেট বোর্ড। বেছে বেছে খেলার শিডিউল ফেলা হচ্ছে সকল পবিত্র রাত ও দিনসমূহে। নষ্ট করা হচ্ছে মুসলমান উনাদের ধর্মীয় চেতনা, পবিত্র তারাবীহ’র নামায বিঘ্নিত হচ্ছে চিৎকার চেঁচামেচিতে। ৯৮% মুসলমান অধ্যুষিত দেশ বাংলাদেশে হারাম ক্রিকেট খেলার মাধ্যমে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতি নষ্ট করার নগ্ন চক্রান্ত পুরোপুরি স্পষ্ট, যা বাংলাদেশকে রহমতশূন্য করে গযবের দিকে ঠেলে দেয়ারও কারণ। এ জঘন্য চক্রান্তকারীদের বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক

সংখ্যা: ২৪৪তম সংখ্যা | বিভাগ:

এই মাস পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাস ॥

অতএব, অতিসত্বর হারাম খেলাধুলা বন্ধ করা হউক।

আশ্চর্যের বিষয়- পবিত্র রমাদ্বান শরীফ মাসে হারাম খেলাধুলা করা হচ্ছে! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ!

পবিত্র রমাদ্বান মাসে এক মুশরিক ভারতকে নিয়ে আসার পর ফের আরেক কাফির দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিয়ে আসছে ক্রিকেট বোর্ড।

বেছে বেছে খেলার শিডিউল ফেলা হচ্ছে সকল পবিত্র রাত ও দিনসমূহে।

নষ্ট করা হচ্ছে মুসলমান উনাদের ধর্মীয় চেতনা, পবিত্র তারাবীহ’র

নামায বিঘ্নিত হচ্ছে চিৎকার চেঁচামেচিতে।

৯৮% মুসলমান অধ্যুষিত দেশ বাংলাদেশে হারাম ক্রিকেট খেলার মাধ্যমে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতি নষ্ট করার নগ্ন চক্রান্ত পুরোপুরি স্পষ্ট, যা বাংলাদেশকে রহমতশূন্য করে গযবের দিকে ঠেলে দেয়ারও কারণ।

এ জঘন্য চক্রান্তকারীদের বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে পবিত্র রমাদ্বান মাস উনাকে সম্মানিত মাস হিসেবে উল্লেখ করেছেন। এ পবিত্র মাসখানার প্রথম দশদিন হচ্ছে সম্মানিত ‘রহমত’ উনার, দ্বিতীয় দশদিন হচ্ছে সম্মানিত ‘মাগফিরাত’ উনার এবং সর্বশেষ দশ দিন হচ্ছে সম্মানিত ‘নাজাত’ উনার।

এ পবিত্র মাসের সম্মানার্থে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইবলিস শয়তানকে আবদ্ধ করে রাখেন, এ পবিত্র মাস উনার মধ্যে নাযিল হয়েছেন পবিত্র কুরআন শরীফ, এ পবিত্র মাস উনার মধ্যে রয়েছে পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর, এ পবিত্র মাস উনার মধ্যেই রয়েছে পবিত্র তারাবীহ উনার নামায।

এ পবিত্র মাসেই মুসলমান উনারা সবচেয়ে বেশি কুরআন শরীফ খতম করে থাকেন। স্বাভাবিকভাবে এ পবিত্র মাস উনার মধ্যে মুসলমান উনাদের পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি জজবা সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। মসজিদের জামায়াতের সময় এত মুসল্লী হয় যে, অনেক সময় স্থান সংকুলান হয় না।

কিন্তু দেখা যাচ্ছে, ৯৮% মুসলিম জনসংখ্যা অধ্যুষিত বাংলাদেশে মুসলমান উনাদের পবিত্র মাসে একের পর এক হারাম খেলাধুলার আয়োজন করা হচ্ছে। বিশেষ করে দেখা গেছে, রমাদ্বান মাসের চাঁদ উঠার প্রথম পবিত্র রাতে (যেইদিন প্রথম তারাবীহ শুরু হয় ১৮ জুন-২০১৫)

বাংলাদেশ-ভারত হারাম ক্রিকেট খেলার প্রথম শিডিউল ফেলা হয়। নাউযুবিল্লাহ!

এরপর ৩রা রমাদ্বান শরীফ (২১ জুন-২০১৫) ফেলানো হলো আরেকটি হারাম খেলার শিডিউল। নাউযুবিল্লাহ!

এরপর পবিত্র ৬ই রমাদ্বান শরীফ (২৪ জুন-২০১৫)। নাউযুবিল্লাহ! ৬ই রমাদ্বান শরীফ হলো নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার লখতে জিগার আদরের বিনতু অর্থাৎ আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মু আবীহা, আছ ছালিছা, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মে কুলছূম আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত বিছাল শরীফ উনার দিবস; আর সেদিনই ফেলা হলো ভারত-বাংলাদেশের মধ্যকার তৃতীয় হারাম খেলার শিডিউল। নাউযুবিল্লাহ!

দেখা যাচ্ছে, এ হারাম খেলার কারণে পবিত্র রমাদ্বান শরীফ উনার শান-মান খেলাফ কাজগুলো ঘটে যাচ্ছে। অনেকে তারাবীহ নামায তরক করছে। নাউযুবিল্লাহ! এমনকি তারাবীহ নামাযের সময় হুজুগে মাতাল বাংলাদেশীদের হারাম খেলা নিয়ে চিৎকার চেঁচামেচিতে মুসল্লীদের নামায পর্যন্ত বিঘিœত হচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ! মানুষ সারা দিন ইবাদত-বন্দেগীর কথা বাদ দিয়ে হারাম খেলার স্কোর নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা করছে, অনেক ক্ষেত্রে এ পবিত্র মাসে জড়িয়ে পড়ছে পারস্পরিক সংঘর্ষে। নাউযুবিল্লাহ!

তবে অবাক করার মতো বিষয় হচ্ছে, পবিত্র রমাদ্বান মাসে এক মুশরিক ভারত যেতে না যেতে আরেক কাফির দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিয়ে আসছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। নাউযুবিল্লাহ!

পবিত্র ১৭ই রমাদ্বান শরীফ (৫ জুলাই-২০১৫), যে দিন উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম, উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম এবং ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনাদের মহাসম্মানিত পবিত্র বিছাল শরীফ দিবস। তাছাড়া সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার প্রথম জিহাদ অর্থাৎ বদরের জিহাদ সংঘটিত হয় এবং পবিত্র মক্কা শরীফও বিজয় হয় এদিবসে। সেই মহাপবিত্র দিনে ফেলা হয়েছে বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার হারাম খেলার প্রথম শিডিউল।

১৯ রমাদ্বান শরীফ (৭ জুলাই-২০১৫) ফেলা হয়েছে বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিাকার হারাম খেলার দ্বিতীয় শিডিউল। নাউযুবিল্লাহ!

২২ রামদ্বান শরীফ দিন ও ২৩ রমাদ্বান শরীফ রাতে (১০ জুলাই-২০১৫) ফেলা হয়েছে আরেকটি হারাম খেলার শিডিউল। নাউযুবিল্লাহ! অথচ ২৩ রমাদ্বান শরীফ হচ্ছেন বেজোড় রাত্রি বা পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর উনার তালাশ করার দিন।

এরপর ২৪ রামদ্বান শরীফ দিন ও ২৫ রমাদ্বান শরীফ রাতে (১২ জুলাই-২০১৫) ফেলা হয়েছে আরেকটি হারাম খেলার শিডিউল। নাউযুবিল্লাহ! অথচ ২৫ রমাদ্বান শরীফ হচ্ছেন বেজোড় রাত্রী বা পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর তালাশ করার আরেকটি দিন।

এরপর পবিত্র ২৭ রমাদ্বান শরীফ দিনের বেলায়ও রাখা হয়েছে হারাম খেলার শিডিউল। নাউযুবিল্লাহ! অথচ আগের রাতে সারারাত ইবাদত-বন্দেগী করার কারণে ২৭ রমাদ্বান শরীফ দিনের বেলায় সরকারি ছুটি পর্যন্ত দেয়া হয়।

এটা স্পষ্ট যে, এ পবিত্র মাসের মান-ইজ্জত নষ্ট করার জন্য এভাবে হারাম খেলার শিডিউল ফেলা হয়েছে, যেন মুসলমানগণ উনারা পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার থেকে দূরে সরে যায়। এখানে সবাইকে মনে রাখতে হবে, এ পবিত্র মাস হচ্ছেন পবিত্র রহমত হাসিল করার মাস। কিন্তু হারাম খেলার মাধ্যমে পুরো দেশকে রহমতশূন্য তথা গযবের দিকে ঠেলে দেয়ার চক্রান্ত করা হচ্ছে।

৯৮% মুসলমান অধ্যুষিত দেশ বাংলাদেশের মুসলমান উনাদের ধর্মীয় অনুভূতি নষ্ট করার জন্য এ জঘন্য ষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে যারা এ ঘৃণ্য ও নগ্ন ষড়যন্ত্রের সাথে জড়িত তাদের মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার অপরাধে শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

-মুহম্মদ আমিনুর রহমান, ঢাকা

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)