কায়িনাত মাঝে একক এবং অদ্বিতীয় ক্বায়িম-মাক্বাম মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম

সংখ্যা: ২৮৪তম সংখ্যা | বিভাগ:

‘ক্বায়িম-মাক্বাম’ যুগল শব্দটি যদিও আরবী ভাষায় বব্যহৃত শব্দ; তথাপি বাংলাভাষী লোকদের নিকট শব্দটি বেশ পরিচিত। বাংলা ভাষায় শব্দটি স্থলাভিষিক্ত, প্রতিনিধি, উত্তরাধিকারী, অনুকল্প, অন্যের স্থানে অধিষ্ঠিত ইত্যাদি অর্থে ব্যবহৃত হয়।

আলোচ্য প্রবন্ধে সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম উনাকে একক এবং অদ্বিতীয় ক্বায়িম-মাক্বাম হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। জানা আবশ্যক, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের একক এবং অদ্বিতীয় ক্বায়িম-মাক্বাম। সুবহানাল্লাহ!

স্মরণীয় যে, মুসলমান মাত্রই হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সর্ম্পকে জানে। যেহেতু উনাদের বিষয়গুলো ঈমান-আমলের সাথে জড়িত। অর্থাৎ উনাদের মুহব্বত ঈমান, উনাদের প্রতি সুধারণা পোষণ করা এবং উনাদের আনুগত্য বা অনুসরণ করা ফরয।  মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের মধ্যে উনাদের পবিত্রতা, মর্যাদা ও শ্রেষ্ঠত্ব মুবারক সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে। মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদেরকে ‘মু’মিনদের মা’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র শান মুবারকে আরো বলা হয়েছে যে, উনারা অন্য কোন মহিলাদের মতো নন। সুবহানাল্লাহ!

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

النَّبِيُّ أَوْلٰى بِالْمُؤْمِنِيْنَ مِنْ أَنْـفُسِهِمْ  وَأَزْوَاجُهٗ أُمَّهَاتُـهُمْ

অর্থ: “নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এবং হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা হচ্ছেন মু’মিনদের নিকট তাদের জীবনের চেয়ে অধিক প্রিয়। (আর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হচ্ছেন মু’মিনদের পিতা) এবং হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা হচ্ছেন মু’মিনদের মাতা।” (সম্মানিত ও পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ: সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ ০৬)

মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ মুবারক করেন-

يَا نِسَآءَ النَّبِيِّ لَسْتُنَّ كَأَحَدٍ مِّنَ النِّسَآءِ

অর্থ: আয় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম! আপনারা অন্য কোন মহিলাদের মত নন। (পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৩২)

অর্থাৎ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যেরূপ কারো মতো নন তদ্রূপ হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারাও কারো মতো নন। তাছাড়া নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি যেরূপ মানুষ-জিন, পুরুষ-মহিলা, ফেরেশতা, কায়িনাতবাসী সকলের জন্য পিতা তদ্রূপ কায়িনাতবাসী সকলের মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মা হচ্ছেন হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা।

মোটকথা, যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ব্যতীত এবং উনার মহাসম্মানিত হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ব্যতীত বাকী সকলের মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মা হচ্ছেন হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা। আর উনাদেরই একক এবং হাক্বীক্বী ক্বায়িম-মাক্বাম হচ্ছেন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! অর্থাৎ হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের পরে কায়িনাতবাসী সকলের জন্য মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মা হচ্ছেন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম তিনি।

উল্লেখ্য, হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা মোট ১৩ জন। উনাদের সকলের সম্মিলিত মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মর্যাদা ও বৈশিষ্ট্য মুবারক সমূহের একক মালিক হচ্ছেন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম তিনি। সুবহানাল্লাহ! তবে সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম তিনি উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার সাথে এবং  উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ হযরত ছিদ্দীক্বাহ আলাইহাস সালাম উনার সাথে খাছভাবে নিসবতপ্রাপ্ত। সুবহানাল্লাহ! উনার এ মর্যাদা মুবারকের বিষয়টি নিজের তরফ থেকে দাবীকৃত কোন বিষয় নয়। বরং যিনি খ্বলিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাবীব নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার তরফ থেকে মনোনীত ও ঘোষণাকৃত বিষয়। সুবহানাল্লাহ!

বলার অপেক্ষা রাখে না, হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মা হওয়ার বিষয়টি সরাসরি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ওহী মুবারক দ্বারা ফায়ছালাকৃত। আর সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম ছল্লাল্লাহু আলাইহা ওয়া সাল্লাম উনার মা হওয়ার বিষয়টি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ওহী মুবারক উনার আলোকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ইত্তিলা মুবারক দ্বারা ফায়ছালাকৃত। সুবহানাল্লাহ! আর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ওহী মুবারক এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ইত্তিলা মুবারক উভয়ই সম্মানিত শরীয়ত উনার দলীল। মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ওহী মুবারক হচ্ছেন মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাদীছ শরীফ। আর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ইত্তিলা মুবারক হচ্ছেন পবিত্র ইজমা’ শরীফ ও পবিত্র ক্বিয়াস শরীফ। মুসলমানদের জন্য উক্ত ৪টি দলীলই মানা ফরয।

-আল্লামা আবূ ছফওয়ান

পবত্রি দ্বীন ইসলাম উনার দৃষ্টিতে ছোঁয়াচে বা সংক্রামক বলে কোন রোগ নাই “ছোঁয়াচে বা সংক্রামক বশ্বিাস করা শরিক”

সম্মানিত শরীয়ত উনার ফাতাওয়া অনুযায়ী “সুস্থ মানুষকে সুস্থ মানুষ থেকে দুরে থাকার ব্যাপারে” ইফার ফাতাওয়া ও সরকারী নির্দেশনা সম্পূর্নরূপে ভুল, মনগড়া, কুফরী ও শিরকীপূর্ণ

কতপিয় সম্মানতি সুন্নতী আমল, যা জানা থাকলে সহজইে আমল করা যায়

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খ্বাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহহির, আছ ছমাদ, মুজাদ্দিদে আ”যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বেমেছাল মহাসম্মানিত তা“য়াল্লুক্ব-নিসবত মুবারক

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সুন্নত মুবারক উনার ইত্তিবা” তথা অনুসরণ-অনুকরণ করার গুরুত্ব-তাৎপর্য এবং বেমছাল ফযীলত মুবারক