চাঁদ দেখার আধুনিক যন্ত্র ব্যবহার করেই ইয়াহুদী বংশবদ সউদী ওহাবী সরকার চাঁদের তারিখ হেরফের করে যাচ্ছে, তাই চাঁদ তালাশ করতে সরকারের আধুনিক যন্ত্র কেনার সিদ্ধান্ত : একটি ধোঁকাবাজী বৈ কিছুই নয়

সংখ্যা: ২৭৪তম সংখ্যা | বিভাগ:

স্বাধীনতা উত্তর ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ (ইফাবা) প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে ১৪৪০ হিজরীর পবিত্র রজবুল হারাম মাস পর্যন্ত প্রায় বিশ্বাসযোগ্যতার সাথেই চাঁদ তালাশ করে আসছিল। কিন্তু ১৪৪০ হিজরীর পবিত্র শা’বান শরীফ মাস ও পবিত্র শাওওয়াল শরীফ মাসের চাঁদ তালাশ নিয়ে প্রহসন করতে গিয়ে মাজলিসু রুইয়াতিল হিলালের কাছে হাতে নাতে ধরা পরার পর, প্রতারনার আশ্রয় নেয়ার অংশ হিসেবে চাঁদ তালাশের জন্য আধুনিক থিওডোলাইড টেলিস্কোপ কেনার পাঁয়তারা করছে।

যদিও থিওডোলাইড টেলিস্কোপ অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তরে রয়েছে। আর এই আবহাওয়া অধিদপ্তরের প্রতিনিধি ইফাবার চাঁদ দেখা কমিটিতে উপস্থিত থেকে নিবিড়ভাবে সাহায্যও করে থাকে। তারপরও কেন ১৪৪০ হিজরীর পবিত্র শা’বান শরীফ মাস ও পবিত্র শাওওয়াল শরীফ মাসের চাঁদ তালাশে এমন বিভ্রান্তি ঘটলো?

এছাড়াও আমরা যদি সউদী আরবের দিকে তাকাই তাহলে দেখতে পাই, ১৯৪৮ সালের পূর্বে সউদী আরবে চাঁদ তালাশ শরীয়তসম্মত থাকলেও,  ১৯৪৮ সালে পর থেকে ১৪৪০ হিজরীর পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাস পর্যন্ত কোন মাসই যথাসময়ে শুরু করা হয়নি বরং প্রত্যেকবারই হেরফের করা হয়েছে। এমনকি ১৪৪০ হিজরীর পবিত্র শাওওয়াল শরীফ মাস হেরফের করার বিষয়টি বৃটিশ গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হলে ইয়াহুদী বংশবদ সউদী ওহাবী সরকার ১৬০ কোটি রিয়াল কাফফারা ধার্য্য করে। যদিও ইয়াহুদী বংশবদ সউদী ওহাবী সরকারের এই প্রতারণা মাজলিসু রুইয়াতিল হিলাল শুরু থেকেই ধরিয়ে দিয়ে আসছিল, কিন্তু মুসলমানরা তা বুঝতে পারেনি।

যাই হোক, ইয়াহুদী বংশবদ সউদী ওহাবী সরকারও উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করেই দীর্ঘদিন যাবত চাঁদ দেখার ব্যাপারে শরীয়ত বহির্ভূত আমল করে যাচ্ছে। তাই প্রশ্ন আসে, ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ (ইফাবা)ও কি ইয়াহুদী বংশবদ সউদী ওহাবী সরকারের পদাঙ্ক অনুসরণ করতে যাচ্ছে?

আরো প্রশ্ন আসে, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী হিসেবে কওমী ও দেওবন্দীদের অন্ধভক্ত শেখ আব্দুল্লাহ দায়িত্ব পাওয়ার পূর্বে বাংলাদেশে এমন সমস্যা হয়নি কেন?

বাংলাদেশের মুসলমানদের টাকায় থিওডোলাইড টেলিস্কোপ কিনে, মুসলমানদেরই ঈমান-আমল ধ্বংসের এই পাঁয়তারা বাংলাদেশের মুসলমানদেরকে প্রতিরোধে এগিয়ে আসতে হবে।

মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদের সবাইকে সে ঈমানী কুওওয়াত ও ছহীহ সমঝ দান করুন। আমীন।

– মুহম্মদ জুলহাজুদ্দীন

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)