চাঁদ দেখা ও নতুন চন্দ্রতারিখ নিয়ে প্রাসঙ্গিক আলোচনা-৪৭

সংখ্যা: ২০৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

বর্তমান সংখ্যার আলোচনা: ইহুদীদের মদদপুষ্ট হয়ে এবং সউদী ওহাবী শাসকগোষ্ঠীর অর্থে সাহায্যপ্রাপ্ত হয়ে সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের অলীক স্বপ্ন নিয়ে একটি ভুঁইফোঁড় সংগঠন সারা দেশে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে।

‘Real Hizri Calendar Implementation Council Bangladesh’ নামে এই সংগঠনটি সারা বিশ্বে একটি হিজরী ক্যালেন্ডার অনুসরণের পক্ষে অর্থাৎ সারা বিশ্বে একদিনে ঈদ পালন করার পক্ষে নানা প্রচারণা চালাচ্ছে এবং এ সম্পর্কে ৯০টি খোঁড়া যুক্তি দাঁড় করিয়েছে। আমরা ধারাবাহিকভাবে তাদের বর্ণিত শরীয়তের খিলাফ এই মনগড়া যুক্তির শরীয়তসম্মত এবং সঠিক মতামত প্রকাশ করবো ইনশাআল্লাহ। যেন সাধারণ মুসলমানগণ চাঁদের তারিখ নিয়ে বিভ্রান্তিতে না পড়ে। তারা লিখেছে-

(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

৩৩ নম্বর মতামত : মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন কুরআন শরীফ-এ ইরশাদ করেন, ১২টি মাসে একটি বছর হয় (৯:৩৬) কিন্তু এ ব্যাপারে কোন হাদীছ শরীফ নেই।

৩৪ নম্বর মতামত : কুরআন শরীফ এ ইরশাদ হয়েছে, অমাবস্যা হচ্ছে সময়ের শুরু। এভাবে ১২টি অমাবস্যা ধরে আমরা ১২টি মাস গণনা করতে পারি। কিন্তু কোন হাদীছ শরীফ নেই যে কিভাবে মাস গণনা করতে হবে।

৩৩ ও ৩৪ নম্বর মতামতের জবাব : তথাকথিত ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের প্রশ্ন নয় বরং প্রলাপের উত্তর দেয়াটাও কখনো কখনো অবান্তর মনে হয়। বলা হয়- প্রশ্ন হচ্ছে অর্ধেক জ্ঞান, অথচ এদের প্রশ্নের মাঝে কোন বুদ্ধিবৃত্তিক, জ্ঞানমূলক কিছু নেই। ইহুদীদের দালালী করতে গিয়ে অকারণেই কল্পনাপ্রসূত বাক্য ব্যবহার করছে। যেখানে কুরআন শরীফ এ স্পষ্ট নির্দেশনা থাকে সেখানে অন্য কোন দলীলের প্রয়োজন পড়েনা। তথাপি বলতে হয় আরবী ১২টি মাস সম্পর্কে স্পষ্ট আয়াত শরীফ রয়েছে এবং হাদীছ শরীফও রয়েছে এবং একটি নয় অসংখ্য রয়েছে।

কুরআন শরীফ-এর কোথাও স্পষ্ট বা অস্পষ্ট কোনভাবেই নেই যে অমাবস্যা হচ্ছে সময়ের শুরু। তারা যদি New Moon এর অর্থ অমাবস্যা না ধরে যদি নতুন চাঁদ বোঝায় তবে তো উত্তর তারাও জানে যে বাঁকা চাঁদ দেখে মাস শুরু করতে হবে। তাহলে এত কথার প্রয়োজন কেন?

পাশাপাশি আরও বলা প্রয়োজন, হাদীছ শরীফ-এ স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে, কিভাবে মাস গণনা করতে হবে। আমরা ইতিপূর্বে বহুবার এ বিষয়টি আলোচনা করেছি। শুধু একটি হাদীছ শরীফ নয় বরং অসংখ্য হাদীছ শরীফ রয়েছে। হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, æতোমরা মাসের ২৯তম দিনে চাঁদ তালাশ কর, যদি আকাশ মেঘলা থাকে তবে মাস ৩০ দিনে পূর্ণ কর।” এছাড়াও রয়েছে তোমরা চাঁদ দেখে রোযা রাখ, চাঁদ দেখে ঈদ কর। এই হাদীছ শরীফগুলোতে শুধু পবিত্র রমাদ্বান মাস এবং শাওয়াল মাস শুরুর নির্দেশনাই নেই বরং চাঁদ দেখে মাস শুরুর নির্দেশ স্পষ্টভাবে দেয়া হয়েছে।

প্রকৃতসত্য হচ্ছে এ সকল তথাকথিত ইঞ্জিনিয়ারদের উচিত এসব মনগড়া লেখনীর জন্য প্রকাশ্যে লেখনির মাধ্যমে তওবা করা এবং একজন খালিছ ওলীআল্লাহ বা মুর্শিদের নিকট বায়াত হয়ে চাঁদ সম্পর্কে সঠিক ইলম হাছিল করা। এক্ষেত্রে তাদের উচিত যিনি যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, হাবীবে আ’যম, মামদুহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা ম্দ্দুা জিল্লুহুল আলী উনার মুবারক ছোহবতে আসা।

 

বিশ্বের জন্য ১৪৩২ হিজরীর পবিত্র শাহরে রমাদ্বান শরীফ-এর চাঁদের রিপোর্ট

 

জিরো মুন (অমাবস্যা) সংঘটিত হবে ৩১ জুলাই, ২০১১, রবিবার, সন্ধ্যা ৬টা ৪০ মিনিটে (আন্তর্জাতিক সময় অনুযায়ী)।

অমাবস্যার দিন অর্থাৎ ৩১ জুলাই, ২০১১, রবিবার সউদী আরবে পবিত্র রমাদ্বান মাসের চাঁদ দেখা যাবার কোন সম্ভাবনা নেই।

 

বাংলাদেশের জন্য ১৪৩২ হিজরীর পবিত্র

শাহরে রমাদ্বান শরীফ-এর চাঁদের রিপোর্ট

 

বাংলাদেশের স্থানীয় সময় অনুযায়ী জিরো মুন (অমাবস্যা) সংঘটিত হবে ৩১ জুলাই, ২০১১, রবিবার রাত ১২টা ৪০ মিনিটে।

বাংলাদেশে পবিত্র রমাদ্বান মাসের চাঁদ তালাশ করতে হবে ১লা আগস্ট ২০১১, সোমবার শরীফ সন্ধ্যায়।

সেদিন ঢাকায় সূর্যাস্ত ৬টা ৪২ মিনিটে এবং চন্দ্রাস্ত ৭টা ৪২ মিনিট। অর্থাৎ সূর্যাস্ত এবং চন্দ্রাস্তের সময়ের পার্থক্য ১ ঘণ্টা। সূর্যাস্তের সময় চাঁদ দিগন্তরেখার প্রায় ১৩ ডিগ্রি উপরে অবস্থান করবে এবং চাঁদ খুঁজতে হবে ২৭০ ডিগ্রি আজিমাতে (সরাসরি পশ্চিমে)। আকাশ পরিষ্কার থাকলে সেদিন চাঁদ সহজেই দৃশ্যমান হবে ইনশাআল্লাহ।

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)