প্রসঙ্গ : ক্যান্টনমেন্টে খালেদার সাবেক বাড়ি।

সংখ্যা: ২০২তম সংখ্যা | বিভাগ:

প্রসঙ্গ : ক্যান্টনমেন্টে খালেদার সাবেক বাড়ি।
মন্তব্য: বাড়ি বাড়ি করো গো বান্দা, এ বাড়ি তো তোমার নয়।
আসল বাড়ি সাড়ে তিন হাত মাটির নিচে হয়।

সাবেক এ বাড়ি প্রশ্নে এ যাবৎ ২টি হরতাল হয়েছে। আহত-নিহত, গাড়ি পোড়াপুড়ির ঘটনাও ঘটেছে। ঈদে ঘর ফেরত মানুষের অবর্ণনীয় কষ্ট হয়েছে।
পরীক্ষার্থীদের অনেক কষ্ট হয়েছে। অপরদিকে বাড়িটির সাথে খালেদার ৪০ বছরের ব্যক্তি স্মৃতি জড়িত রয়েছে। জড়িত রয়েছে স্বামী জিয়াউর রহমানের সাথে থাকার স্মৃতি।
নিন্দুকেরা অবশ্য বলে, যে বাড়িতে স্বামী জিয়াউর রহমান ছিলেন, স্বামী স্মৃতিকাতরতা থাকলে তো সে বাড়িতে একাকী খালেদার থাকা সম্ভব ছিলো না।
প্রসঙ্গত খালেদা জিয়াকে প্রকাশ্যে দেশবাসী তিনবার কাঁদতে দেখেছে।
এক. স্বামীর মৃত্যুর সময়।
দুই. তত্ত্বাবধায়ক আমলে ছেলের উপর নির্যাতনের কারণে।
তিন. বাড়ি ছাড়ার সময়।
তবে স্বামীর চেয়ে বাড়ির প্রশ্নেই খালেদার কান্নার আবহটা ছিলো বেশি গভীর। অর্থাৎ বাড়িটি ম্যাডাম জিয়ার
অন্তরের অন্তঃস’লে স্থান করে নিয়েছিলো। কিন্তু তা সত্ত্বেও বাস্তবতা বলে কথা। তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, বর্তমান বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা তার নিজ ভাষায়, ‘এক কাপড়ে বাড়ি ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন’। ম্যাডাম খালেদা এবং তার ভক্ত ও অনুরক্তরা বাড়ি ত্যাগে বিচিত্র অনুভূতি, গভীর থেকে গভীরতর ব্যথাতুর অনুভব তথা প্রতিশোধের সংকল্প ইত্যাদিতে ঘুরপাক খেয়েছেন।
কিন্তু তারা সবাই আরো একটি অতি বাস্তবতাকে চরমভাবে এড়িয়ে গেছেন।
এমনও কী হতে পারত না যে, খালেদা জিয়া যেদিন সরকারি বাহিনীর তোড়ে বাড়ি ছাড়লেন ঠিক সেদিনই বা তার আগের দিনই মালেকুল মউত হযরত আযরাইল আলাইহিস সালাম উনার মুখোমুখি হলেন।
হযরত আযরাইল আলাইহিস সালাম তার জান কবয করলেন। সেক্ষেত্রেও কিন্তু খালেদা জিয়া বাড়ি ছাড়া হতেন।
বলাবাহুল্য, হাইকোর্ট যদি নির্দেশ না দিত, সুপ্রিম কোর্ট
যদি নির্দেশ না দিত তাহলেও কিন্তু হযরত আযরাইল আলাইহিস সালাম উনার সাক্ষাতের কারণে খালেদাকে ঠিকই বহুল আলোচিত ওই ক্যান্টমেন্টের বাড়ি ছাড়তে হতো।
উল্লেখ্য, খালেদার এই বাড়ি ছাড়ার ঘটনা একটা মাইলফলক। যারা এমপি-মন্ত্রী হয়ে অথবা কালো টাকার মালিক হয়ে ২৫টা, ৫০টা বাড়ি বানান তারা কিন্তু থাকেন কেবল একটা বাড়িতেই।
যেমনটি বিরোধী দলীয় নেত্রীর মিন্টু রোডের বাড়ি, গুলশানের বাড়ি এবং ক্যান্টনমেন্টের বাড়ি পাওয়া সত্ত্বেও খালেদা জিয়া এক ক্যান্টনমেন্টের বাড়িতেই থাকতেন।
কিন্তু ভাগ্যলিপি তাকে ওই এক বাড়িতেই থাকতে দিলো না এবং চূড়ান্তভাবে কোনো বাড়িতেই থাকতে দিবে না। মৃত্যু তাকে নিয়ে যাবে সাড়ে তিন হাত মাটির নিচে কবরের বাড়িতে।
খালেদার এ বাড়ি ছাড়া হয়েছে যেন ওই রকম, মৃত্যুর আগে মৃত্যুবরণ করা। অর্থাৎ বাড়ি ছাড়ার আগেই বাড়ি ছাড়ার প্রস’তি নেয়া।
আর কুরআন শরীফ-এ আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, ‘প্রত্যেককে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে।’
আর হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, ‘তোমরা কবরকে একটা মাটির গর্ত মনে করো না। হয় এটা জান্নাতের অংশ অথবা জাহান্নামের টুকরা।’
বলাবাহুল্য, যারা দেশবাসীর দায়িত্বে থাকে হক্কুল ইবাদ যথাযথ আদায় না করার কারণে তাদের জন্য জান্নাতে যাওয়া খুব কঠিন।
সে চিন্তা করে যত কান্নাকাটি করা যায়, তাতে কোনো সমালোচনার দায় থাকে না এবং সে কান্না যত বেশি হবে ততই মঙ্গল। দেশবাসীর জন্যও বড় নছীহত।

-মুহম্মদ মাহবুবুল্লাহ

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)