ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদ প্রচারের নেপথ্যে-২৮

সংখ্যা: ২০৬তম সংখ্যা | বিভাগ:

শয়তান যে মানুষকে নেক ছূরতে ধোঁকা দেয়, এ বিষয়টি ভালোভাবে অনুধাবন করেছিলো শয়তানের অনুচর ইহুদী এবং খ্রিস্টানরা। মুসলমানদের সোনালী যুগ এসেছিল শুধু ইসলামের পরিপূর্ণ অনুসরণের ফলে। শয়তানের চর ইহুদী খ্রিস্টানরা বুঝতে পেরেছিল মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ, অনৈক্য, সংঘাত সৃষ্টি করতে পারলেই ইসলামের জাগরণ এবং বিশ্বশক্তি হিসেবে মুসলমানদের উত্থান ঠেকানো যাবে। আর তা করতে হবে- ইসলামের মধ্যে ইসলামের নামে নতুন মতবাদ প্রবেশ করিয়ে। শুরু হয় দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা; যার মূলে থাকে খ্রিস্টীয় ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদ। জন্ম হয় ওহাবী মতবাদের। ওহাবী মতবাদ সৃষ্টির মূলে থাকে একজন ব্রিটিশ গুপ্তচর- হ্যামপার। সে মিসর, ইরাক, ইরান, হেজাজ ও তুরস্কে তার গোয়েন্দা তৎপরতা চালায় মুসলমানদের বিভ্রান্ত করার জন্য। ভ্রান্ত ওহাবী মতবাদের উপর তুর্কি ভাষায় রচিত হযরত মুহম্মদ আইয়ূব সাবরী পাশা রহমতুল্লাহি আলাইহি-এর æমিরাত আল হারামাইন” কিতাবের ইংরেজি অনুবাদ থেকে বাংলায় ধারাবাহিকভাবে ভাষান্তর করা হচ্ছে ইনশাআল্লাহ।

(ধারাবাহিক)

এটাই কিন্তু সমস্ত  মূল্যবান সম্পত্তি নয় যা পবিত্র খাজিনায়ে নববিয়্যাহ থেকে লুটপাট করা হয়েছিল। এখানে আরো থাকার কথা তাই নয় কি? মুহম্মদ আলী পাশা প্রশ্ন করলেন। আপনি সঠিকই বলেছেন হে আমার মহান আমীর। কিন্তু আমার পিতার রতœভান্ডার থেকে আমি এগুলোই পেয়েছি। আমার পিতাই একক ভাবে শুধু মাত্র  হুযুরাতুস্ সা’আদাতে লুটপাট কারী ব্যক্তি নয়। আরবের আরো অন্যান্য গণ্যমান্য

ব্যাক্তিবর্গ বিশেষ করে মক্কা শরীফের তৎকালীন আমীর শরীফ গালিব আল এফেন্দী, উনারাও লুট-পাটে অংশগ্রহন করেছিলেন।

-হ্যাঁ ঠিক আমরা শরীফ গালীব আল আফেন্দী রহমতুল্লাহি আলাইহি  উনার সাথেও অনেক কিছুই পেয়েছি। (আইয়্যুব সাবরি পাশা এ প্রসঙ্গে ফুটনোটের টেক্সটে লিখেন-মূলত হযরত শরীফ গালিব আফেন্দী মূলত  পবিত্র খাজিনাত এর অনেক কিছুই তখন হিফাজত করে রেখেছিলেন ওয়াহাবী লুটেরাদের হাত থেকে। মুহম্মদ আলী পাশা তিনি বলেছিলেন হ্যাঁ ঠিক, কারণ তিনি বিশ্বাস করতেন যে শরীফ গালীব এফেন্দী তিনি হিফাজত ছাড়া অন্য কোন উদ্দেশ্যেই খাজিনাত স্পর্শও করেন নি। এবং মুহম্মদ আলী পাশা তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে কেন এত কম সম্পদ বাস্কেটটিতে ছিলো।) ইত্যাদি কথোপকথন এর পর আব্দুল্লাহ ইবনে সাউদ এবং তার চেলাদের ইস্তাম্বুলে প্রেরণ করা হয়। এই দুধর্ষ রক্তপিপাসু জালিম দস্যুদল যারা হাজার হাজার মুসলিম রক্তে প্লাবিত করেছিল পবিত্র মরু উপত্যকা, তাদেরকে তোপকাপি প্রাসাদের সামনে ফাসিতে ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছিলো।

ইবরাহীম পাশা দ্বারিয়াহ কিল্লাহকে গুড়িয়ে দেন এবং ১২৩৫ হিজরী শরীফের মুহররমুল হারাম  শরীফে মিশরে প্রত্যাবর্তন করেন এবং ইবনে ওয়াহ্হাব নজদীর এক পুত্রকে মিশরে এনে আমৃত্যু কারাগারে রেখে দেওয়া হয়েছিল।

আব্দুল্লাহ ইবনে সাউদের পরে তারকি ইবনে আব্দুল্লাহ ১২৪০ হিজরী সনে ওয়াহাবীদের প্রধান হয়। তারকির বাবা আব্দুল্লাহ ছিলো সাউদ ইবন আব্দুল আযীয এর চাচা। ১২৪৯ হিজরীতে মাশ্ শারী ইবনে সাউদ তারকিকে হত্যা করে সে নিজেই স্বয়ং স্বরাজ গ্রহন করে। এবং তারকি পুত্র ফয়সাল মাশ শারীকে হত্যা করে পুনরায় কতৃত্ব গ্রহন করে ১২৫৪ সালে। যদিও বা সে চেষ্টা করেছিলো মুহম্মদ আলী পাশার সৈনিকদের প্রতিহত করার জন্য, কিন্তু সে ব্রিগ্রেডিয়ার খুরশীদ পাশা কর্তৃক গ্রেফতার হয়েছিলো। (চলবে)

-আল্লামা আবুল বাশার মুহম্মদ রুহুল হাসান

প্রসঙ্গ: ইসরাইলি পণ্য বর্জনের আহ্বান জানিয়েছে তুরস্ক। ইসরাইলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধসহ কঠোর সামরিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা মুসলিম বিশ্বের এখন ফরযের উপর ফরয।

সুদ পরিশোধেই ব্যয় হবে বাজেটের ১১ শতাংশ। প্রত্যেক বছর বাজেটের আকার বাড়লেও এর সুফল পাচ্ছে না দেশ ও দেশের জনগণ। জনগণের উচিত সরকারকে বাধ্য করা- ঋণের ধারা থেকে সরে এসে অভ্যন্তরীণ অর্থ-সম্পদের দিকে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটকে গণমুখী করার জন্য।

বাংলাদেশে জিএমও ফুড প্রচলনের সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করতে হবে-২

পর্যবেক্ষক ও সমালোচক মহলের মতে- ভারতের কাছে দেশের স্বার্থ বিলিয়ে দেয়ার নিকৃষ্টতম উদাহরণ রামপালে কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র। মাত্র ১৫ ভাগ বিনিয়োগ করে ভারত মালিকানা পাবে ৫০ ভাগ। আর ধ্বংস হবে এদেশের সুন্দরবন। সুন্দরবনকে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে সরে আসতে হবে (২)

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতোই রূপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ভয়াবহ। রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে কিন্তু রূপপুর অজ্ঞতার আঁধারেই রয়ে গেছে? বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি বিশেষভাবে আমলে নিতে হবে। প্রয়োজনে সচেতন জনগণকেই প্রতিহত করতে হবে (২)